আজঃ শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২
শিরোনাম

১৫ লাখ টন জ্বালানি কিনবে সরকার

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | ৩২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) মাধ্যমে জি-টু-জি ভিত্তিতে ৭টি রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান থেকে ১৫ লাখ ৮০ হাজার টন পরিশোধিত জ্বালানি তেল কিনবে সরকার। এ লক্ষ্যে দুটি পৃথক প্রস্তাবের অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানগুলো ভারত, চীন, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, আরব আমিরাত ও থাইল্যান্ডের। এতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৯২৯ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়ালি অর্থনৈতিক বিষয়ক সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় এ প্রস্তাবগুলোর অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে অনুমোদিত প্রস্তাবগুলোর বিস্তারিত সাংবাদিকদের তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে অতিরিক্ত সচিব মো. সামসুল আরেফিন।

অতিরিক্ত সচিব মো. সামসুল আরেফিন জানান, আজ অর্থনৈতিক বিষয়ক সংক্রান্ত কমিটির অনুমোদনের জন্য ১টি এবং ক্রয় সংক্রান্ত কমিটির অনুমোদনের জন্য ১৩টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে। ক্রয় প্রস্তাবনাগুলোর মধ্যে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ৭টি, বিদ্যুৎ বিভাগের ৩টি, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের ২টি এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ১টি প্রস্তাবনা ছিল। ক্রয় কমিটির অনুমোদিত ১৩টি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ ১০ হাজার ৭৯৪ কোটি ৮৪ লাখ ৮৩ হাজার ২৯৮ টাকা। মোট অর্থায়নের মধ্যে জিওবি হতে ব্যয় হবে ৯ হাজার ৫৮৯ কোটি ৬৬ লাখ ২৬ হাজার ৭৭ টাকা এবং ভারত হতে ঋণ ১,২০৫ কোটি ১৮ লাখ ৫৭ হাজার ২২১ টাকা।

এছাড়া ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান নুমালীগড় রিফাইনারী লিমিটেডের (এনআরএল) কাছ থেকে ৯০ হাজার মেট্রিক টন ডিজেল (০.০০৫% সালফার) ৫১২ কোটি ৪৮ লাখ টাকায় আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: অর্থমন্ত্রী

আরও খবর



আগামীকাল পর্দা উঠছে বিপিএলের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারী ২০22 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারী ২০22 | ২৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সবকিছু ঠিকঠাকই ছিল। দর্শকদের গ্যালারিতে রেখেই শুরু হওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল)। কিন্তু, বর্তমান কোভিড-১৯-এর পরিস্থিতি দর্শকদের আশা ভেস্তে দিয়েছে। এতে করোনার প্রভাবে আয়োজনেও কিছুটা ভাটা পড়েছে। তবুও সব শঙ্কা দূরে ঠেলে অবশেষে আগামীকাল শুক্রবার থেকে মাঠে গড়াচ্ছে টুর্নামেন্টটির অষ্টম আসর।

করোনারকালের সব টুর্নামেন্টের মতো এটিও হচ্ছে জৈব-সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও ফরচুন বরিশাল। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর দেড়টায়।

দিনের দ্বিতীয় ম্যাচ শুরু হবে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়। ওই ম্যাচে মুখোমুখি হবে মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা ও খুলনা টাইগার্স। ম্যাচগুলো সরাসরি সম্প্রচার করবে জিটিভি ও টি স্পোর্টস।

এবারের বিপিএলে অংশ নিচ্ছে মোট ছয়টি দলমিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা, ফরচুন বরিশাল, খুলনা টাইগার্স, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স, সিলেট সানরাইজার্স ও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। প্রতিটি দলের খেলোয়াড়দের খরচসহ ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি পড়েছে মোট পাঁচ কোটি টাকা। দল পরিচলনায় সম্ভাব্য ব্যয় সব মিলিয়ে ছয় থেকে সাত কোটি টাকা।

অথচ অবাক করার বিষয় হলো এত কোটি টাকার দল নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলে মিলবে মাত্র এক কোটি টাকার প্রাইজমানি। চ্যাম্পিয়ন যারাই হোক পাবে এক কোটি টাকা, রানার্সআপ হলে মিলবে ৫০ লাখ টাকা।

এবারের টুর্নামেন্টের মূল পৃষ্ঠপোষক বিবিএস কেব্‌লস। পাওয়ার স্পন্সর ওয়ালটন। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটএ তিন ভেন্যুতে হবে বিপিএলের ম্যাচগুলো। মোট ২৭ দিনে অনুষ্ঠিত হবে ৩৪ ম্যাচ। শুক্রবার ছাড়া বাকি দিনগুলোতে প্রথম ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর সাড়ে ১২টায়, দ্বিতীয় ম্যাচ শুরু বিকেল সাড়ে ৫টায়।

আগামীকাল বিপিএলের পর্দা উঠবে মিরপুর শেরেবাংলায়। যা চলবে ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। ২৮ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি খেলা হবে চট্টগ্রামে। পরে ঢাকায় ৩ ও ৪ ফেব্রুয়ারি খেলা হওয়ার পর ৭-৯ ফেব্রুয়ারি হবে সিলেটে। সেখানে বিপিএল চলবে ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

এরপর ঢাকায় ১৪ ফেব্রুয়ারি প্লে-অফের প্রথম দিন হবে এলিমিনেটর ও প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচ। ১৬ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের পর ১৮ ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার হবে ফাইনাল। প্লে-অফ ও ফাইনালের জন্য রাখা হয়েছে রিজার্ভ ডে। এলিমিনেটর থেকে ফাইনাল পর্যন্ত ম্যাচগুলোয় রাখা হয়েছে রিজার্ভ ডে।

করোনাভাইরাসের কারণে মাঝের দুই মৌসুম হয়নি বিপিএল। এ টুর্নামেন্টের সর্বশেষ আসর হয়েছে ২০১৯২০ মৌসুমে। বিপিএলকে সামনে রেখে গত ২৭ ডিসেম্বর প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে দল সাজিয়েছে সবাই। এর আগে সরাসরি চুক্তিতে ছয় দল দেশি-বিদেশি ক্রিকেটারদের নেয়। শক্তি ও অভিজ্ঞতার বিচারে এগিয়ে আছে মাহমুদউল্লাহর ঢাকা, মুস্তাফিজের কুমিল্লা এবং সাকিবের বরিশাল। তারুণ্যনির্ভর দল গড়েছে চট্টগ্রাম। আনকোরা হলেও জাতীয় দলে খেলা একাধিক তরুণ আছেন দলটিতে। তারকা কিছুটা কম হলেও পিছিয়ে রাখা যাবে না মুশফিকের খুলনা কিংবা সৈকতের খুলনা টাইগার্সকে। সবমিলিয়ে ছয় দলের লড়াইটা এবার কতটা রোমাঞ্চ ছড়ায় সেটাই দেখার অপেক্ষা!

এক নজরে বিপিএলের দলগুলো

সিলেট সানরাইজার্স : তাসকিন আহমেদ, দীনেশ চান্দিমাল, কেসরিক উইলিয়ামস, কলিন ইনগ্রাম, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন, আল আমিন হোসেন, নাজমুল ইসলাম অপু, এনামুল হক বিজয়, সোহাগ গাজী, অলক কাপালি, মুক্তার আলি, সিরাজ আহমেদ, মিজানুর রহমান, নাদিফ চৌধুরী, জুবায়ের হোসেন লিখন ও শফিউল হায়াত হৃদয়, রবি বোপারা ও অ্যাঞ্জেলো পেরেরা।

মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা : মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, ইসুরু উদানা, কাইস আহমেদ, নাজিবুল্লাহ জাদরান, তামিম ইকবাল, রুবেল হোসেন, মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, শুভাগত হোম চৌধুরী, নাঈম শেখ, আরাফাত সানি, ইমরান উজ জামান, শফিউল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, শামসুর রহমান ও এবাদত হোসেন, মোহাম্মদ শাহজাদ, ফজল হক ফারুকী।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স : নাসুম আহমেদ, বেনি হাওয়েল, কেনার লুইস, উইল জ্যাকস, শরিফুল ইসলাম, আফিফ হোসেন ধ্রুব, শামীম হোসেন পাটোয়ারি, মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ, রেজাউর রহমান রাজা, সাব্বির রহমান, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, মেহেদী হাসান মিরাজ, আকবর আলি ও নাঈম ইসলাম, চ্যাডউইক ওয়ালটন রায়াদ এমরিট।

ফরচুন বরিশাল : সাকিব আল হাসান, মুজিব উর রহমান, ক্রিস গেইল, কাজী নুরুল হাসান সোহান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মেহেদী হাসান রানা, ফজলে মাহমুদ রাব্বি, তৌহিদ হৃদয়, জিয়াউর রহমান, শফিকুল ইসলাম, সৈকত আলি, নাঈম হাসান, তাইজুল ইসলাম, সালমান হোসেন ইমন ও ইরফান শুক্কুর, ওবেদ ম্যাককয়, আলজারি জোসেফ, ও নিরোশান ডিকভেলা।

খুলনা টাইগার্স : মুশফিকুর রহিম, থিসারা পেরেরা, ভানুকা রাজাপক্ষে,  নাভিন উল হক, মেহেদী হাসান, সৌম্য সরকার, কামরুল ইসলাম রাব্বি, ইয়াসির আলি চৌধুরী রাব্বি, ফরহাদ রেজা, রনি তালুকদার, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, জাকের আলি অনিক ও নাবিল সামাদ, সেকুগে প্রসন্ন ও সিকান্দার রাজা।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স : মুস্তাফিজুর রহমান, ফাফ ডু প্লেসি, মঈন আলি, সুনীল নারাইন, লিটন দাস, শহিদুল ইসলাম, ইমরুল কায়েস, তানভীর ইসলাম, আরিফুল হক, নাহিদুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসান জয়, সুমন খান, মুমিনুল হক, মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন, পারভেজ হোসেন ইমন, আবু হায়দার রনি ও মেহেদী হাসান, কুশল মেন্ডিস ও ওশেন থমাস।

নিউজ ট্যাগ: বিপিএল

আরও খবর



সিরাজগঞ্জে চালু হল ডিজিটাল ডাস্টবিন

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ২৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার আবর্জনা অপসারণে পরীক্ষামূলকভাবে ডিজিটাল ডাস্টবিন চালু করা হয়েছে। এতে ময়লা স্বয়ংক্রিয়ভাবে গাড়িতে উঠিয়ে অপসারণ করা হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, এর ফলে দুর্গন্ধময় পরিবেশ থেকে রক্ষা পাবে শহরবাসী।

সিরাজগঞ্জ শহরে খোলা ডাস্টবিন থেকে দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের স্থাপন করা হয়েছে ডিজিটাল ডাস্টবিন। পৌরবাসী বলছেন, পরিবেশ রক্ষায় এটি ইতিবাচক পদক্ষেপ।

পৌরবাসীরা জানান, এই ডাস্টবিনটা হওয়ার কারণে সিরাজগঞ্জ শহরের মেইন রোড অর্থাৎ মুজিব সড়কে যে নোংড়া অবস্থা ছিল এটা থেকে শহরবাসী পরিত্রাণ পাবে। এটা অন্যতম ভালো উদ্যোগ, বাংলাদেশের মধ্যে এটা ব্যতিক্রম। ডিজিটাল এই ডাস্টবিন পরিচ্ছন্ন কর্মীদের কাজ সহজতর হবে বলে মনে করছেন এর উদ্ভাবক।

উদ্ভাবক মোস্তফা কামাল তারা বলেন, পুরো এলাকাটা নষ্ট হয়ে থাকে এমনকি পাঁয়েও ভরে। তারপরে এটা যখন ট্রাকে উঠায় তখনও রাস্তা নষ্ট হয়। ময়লা-আবর্জনা থাকবে কিন্তু সেটা বোঝাই যাবে না। সেই ভাবনা থেকে এটা বানিয়েছি, যাতে হাতের কোন স্পর্শ না লাগে।

এমন কার্যক্রমের প্রশংসা করেছেন সচেতন মহল। সুফল পাওয়া গেলে শীঘ্রই এমন ডাস্টবিন স্থাপন করা হবে জানান মেয়র। পৌর মেয়র আব্দুর রউফ মুক্তা বলেন, দুই মাস এটার ট্রায়াল দেখবো। এটা সাকসেস হলে সিরাজগঞ্জের প্রত্যেক সড়কেই এটা চালু করা হবে।

সিরাজগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ মুনির হোসেন বলেন, যে স্টাফরা আছেন ওনারা জানতে পারবেন যে আমার কোন ডাস্টবিনটা ৯০ শতাংশ ভরে গিয়েছে। তখন অটোমেটিকভাবে ট্রাক আসবে, তখন অটোসিস্টেমে অর্থাৎ কারো হাতের স্পর্শছাড়া অটোমেটিকভাবে ময়লা ট্রাকে নিয়ে যেতে পারবেন।

শহরকে সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন রাখতে পৌরবাসীকেও এগিয়ে আসতে হবে বলছেন বিশিষ্টজনরা।

 

 


আরও খবর



সুগন্ধায় নিখোঁজদের তল্লাশিতে ব্যবহার করা হবে হেলিকপ্টার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ৭৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
এখন পর্যন্ত লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০ জনে

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে বরগুনাগামী এমডি অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে হতাহতদের উদ্ধারে কাজ শুরু করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। উদ্ধার কার্যক্রম পরিদর্শনে ঘটনাস্থলে যাচ্ছেন র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) অতিরিক্ত আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ-আল মামুন।

শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) দুপুরে র‌্যাব সদরদপ্তরের লিগাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সুগন্ধা নদীতে লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থলে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করছে র‌্যাব। উদ্ধার কার্যক্রম পরিদর্শনে ঘটনাস্থলে যাচ্ছেন র‌্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন ও র‌্যাব সদরদপ্তরের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি আরও বলেন, তারা হেলিকপ্টারে ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। দগ্ধদের হাসপাতালে পাঠানোসহ নদীতে সম্ভাব্য নিখোঁজদের তল্লাশিতে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে।

বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ৩টার দিকে ঢাকা থেকে বরগুনাগামী এমভি অভিযান-১০ লঞ্চটিতে আগুন লাগে। খবর পেয়ে বরিশাল, পিরোজপুর, বরগুনা ও ঝালকাঠির কোস্ট গার্ড ও ফায়ার সার্ভিস উদ্ধারকাজ শুরু করে। এখন পর্যন্ত লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০ জনে। দগ্ধদের মধ্যে ৭২ জনকে বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের আশপাশের বিভিন্ন হাসপাতালে নেওয়া হয়।

জানা গেছে, লঞ্চটিতে হাজারখানেক যাত্রী ছিলেন। সুগন্ধা নদীতে থাকাবস্থায় লঞ্চটিতে আগুন লাগে। পরে পার্শ্ববর্তী দিয়াকুল এলাকায় বিপর্যস্ত লঞ্চটি ভেড়ানো হয়।


আরও খবর



ইমরান খানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করল তালেবান

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ২২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানে বিদেশি বিশেষজ্ঞের কোনো প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন তালেবান সরকারের মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রস্তাবের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। খবর খামা নিউজের।

জবিউল্লাহ মুজাহিদ আরও বলেছেন, আফগানিস্তানে বহু শিক্ষিত তরুণ রয়েছে, যারা মন্ত্রণালয়গুলোতে দায়িত্ব পালন করতে সক্ষম। ইমরান খান বলেছিলেন আফগানিস্তানে বিশেষজ্ঞ পাঠাতে তার দেশ প্রস্তুত রয়েছে।

তালেবান মুখপাত্র বলেন, অর্থবাণিজ্য ক্ষেত্রে অন্যান্য দেশের সহযোগিতা নিতে তাদের সরকার রাজি আছে; কিন্তু বিদেশি বিশেষজ্ঞের প্রয়োজন নেই। এর আগে আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইও বলেছেন, বিদেশি বিশেষজ্ঞের কোনো প্রয়োজন নেই।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান স্বাস্থ্য-চিকিৎসা, আইসিটি, হিসাবরক্ষণ ও আর্থিক খাতে সহযোগিতার জন্য আফগানিস্তানে বিশেষজ্ঞ পাঠাতে মন্ত্রীদের নির্দেশ দিয়েছেন।

আফগানিস্তানের তালেবান সরকারের প্রতি প্রথম থেকেই সমর্থন দিয়ে আসছে পাকিস্তান সরকার। তবে মাঝে মধ্যেই কোনো কোনো ইস্যুতে দুই দেশের সরকারের মধ্যে মতপার্থক্যের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।


আরও খবর
হাসপাতালে ভর্তি মাহাথির মোহাম্মদ

শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২




বড়দিন উপলক্ষে প্রতিটি গির্জায় নিরাপত্তা জোরদার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ৬৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব বড়দিন উদযাপিত হবে শনিবার (২৫ ডিসেম্বর)। দিনটিকে ঘিরে রাজধানীর গির্জাগুলোয় ইতোমধ্যে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

এ বছর করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী শুধুমাত্র খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের গির্জায় প্রবেশ নিশ্চিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে ডিএমপির পক্ষ থেকে।

ডিএমপি সূত্রে জানা গেছে, এবার নিরাপত্তা পরিকল্পনা অনুযায়ী গির্জাগুলোয় থাকবে ডিবি (গোয়েন্দা) পুলিশ। গির্জাসহ অনুষ্ঠানস্থলের আশপাশে ইভটিজিং প্রতিরোধে বিশেষ নজরদারিতে নিয়োজিত থাকবে পুলিশের বিশেষ টিম।

ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বড়দিনের অনুষ্ঠান নির্বিঘ্ন করতে এবং নিরাপদে ধর্মানুরাগীরা যাতে সুষ্ঠুভাবে গির্জায় যাতায়াত করতে পারেন সে লক্ষ্যে কিছু নিরাপত্তা নির্দেশনা দিয়েছে পুলিশ।

প্রতিটি গির্জায় নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। ডিএমপির প্রতিটি বিভাগকে এ বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এবারের ক্রাইম কনফারেন্সেও এর ওপর গুরুত্ব দিয়ে কর্মকর্তাদের সুনির্দিষ্ট নিরাপত্তা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ডিএমপির নিরাপত্তা নির্দেশনার পাশাপাশি করোনায় সরকারি স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে পরিপালনে খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের অনুরোধ জানিয়েছে ডিএমপি।

এক প্রশ্নের জবাবে নগর পুলিশ প্রধান বলেন, সাইবার পেট্রোলিং আমাদের নিয়মিত কাজ। সাধারণত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠান থাকলে বিভিন্ন গ্রুপ নানা অপপ্রচার চালায়। হামলা করতে উৎসাহিত করে। এগুলো যাতে এবার না হয়, সেজন্য বড়দিনে সাইবার পেট্রোলিং বাড়ানো হয়েছে। আর ইভটিজিংয়ের মতো ঘটনা যাতে না ঘটে, সেজন্য আমাদের বিশেষ টিম কাজ করবে সাদা পোশাকে। এছাড়া সংশ্লিষ্ট এলাকার মোবাইল পার্টি স্ট্যান্ডবাই থাকবে গির্জা এলাকায়।

অন্যদিকে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা শাখা) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, গির্জা এলাকায় নিরাপত্তা জোরদারে ইতোমধ্যে আমাদের গোয়েন্দা শাখার সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। কেউ যাতে নাশকতার চেষ্টা করতে না পারে, সেজন্য ডিবি, সিটিটিসির সদস্যরা সতর্ক অবস্থায় নিয়োজিত রয়েছেন। পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়া পেট্রোলিং বাড়ানো হয়েছে।

প্রয়োজনে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর মাধ্যমে এসব বিষয়ে জানাতে বলা হয়েছে। গির্জা এলাকায় থাকবে ফায়ার টেন্ডার ও অ্যাম্বুলেন্স ব্যবস্থা। বড়দিনের অনুষ্ঠানে আগত দর্শনার্থীদের পকেটমার, ছিনতাইকারী, অজ্ঞান পার্টি ও মলমপার্টি সম্পর্কে সতর্ক হয়ে চলাচলের জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ডিএমপি।


আরও খবর
রোজা শুরু হতে পারে যে তারিখ থেকে

বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর ২০২১