আজঃ শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২
শিরোনাম

১৬ জানুয়ারি থেকে ভার্চুয়ালি চলবে চেম্বার জজ আদালত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | ২৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির কারণে আগামী ১৬ জানুয়ারি থেকে সুপ্রিম কোর্ট আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত ভার্চুয়ালি পরিচালিত হবে। মামলার শুনানিকালে মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) চেম্বার জজ বিচারপতি ওবায়দুল হাসান তার আদালতে এ তথ্য জানিয়েছেন। এসময় আদালতে অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিনসহ অন্যান্য আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে করোনা সংক্রমণের শুরুর দিকে ভার্চুয়ালি সীমিত পরিসরে চলছিল সুপ্রিম কোর্টের বিচার কার্যক্রম। তবে ২০২১ সালের ১ ডিসেম্বর থেকে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের উভয় (আপিল ও হাইকোর্ট) বিভাগের বিচারিক কার্যক্রম শারীরিক উপস্থিতিতে চালু করে কোর্ট প্রশাসন।


আরও খবর
রিফাত হত্যা: খালাস চেয়ে মিন্নির জেল আপিল

বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারী ২০22




ফুটবলাররা টিকা না নেওয়ায় ইন্দোনেশিয়ায় খেলা হচ্ছে না বাংলাদেশের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৩১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ইন্দোনেশিয়া থেকে বলা হয়, দলের খেলোয়াড় ও সব কর্মকর্তার দুই ডোজ টিকা সম্পন্ন থাকতে হবে। কিন্তু আমাদের দলের সব খেলোয়াড়ের দুই ডোজ টিকা নেওয়া হয়নি

খেলতে হলে প্রত্যেক ফুটবলারের নেওয়া থাকতে হবে করোনা প্রতিরোধক দুই ডোজ টিকা, ইন্দোনেশিয়ার এমন শর্তে মাথায় হাত পড়ার অবস্থা বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে)। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল মেলানো যাচ্ছে না শর্ত। তাই ইন্দোনেশিয়ার সঙ্গে খেলার ইচ্ছা বাতিলই করতে হলো বাংলাদেশ ফুটবল দলকে।

জানুয়ারির ফিফা উইন্ডোতে ২৪ ও ২৭ তারিখে র‍্যাঙ্কিংয়ে ১৬৪তম স্থানে থাকা ইন্দোনেশিয়ার বিপক্ষে তাদের মাটিতেই দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলার কথা ছিল জামাল ভূঁইয়াদের৷ কিন্তু ইন্দোনেশিয়ার দাবি ছিল তাদের মাঠে খেলতে হলে সব ফুটবলার ও কর্মকর্তাকে দুই ডোজ টিকার আওতায় থাকতে হবে। সব ফুটবলারের দুই ডোজ করে করোনা টিকা না নেওয়ায় খেলা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ।

এক ভিডিও বার্তায় নাবিল বলেছেন, 'আমরা এ দুই ম্যাচ খেলার জন্য স ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। কোচও ১৫ তারিখে চলে আসবেন, স্কোয়াডও চূড়ান্ত করেছিলাম কিন্তু ইন্দোনেশিয়া থেকে বলা হয়, দলের খেলোয়াড় ও সব কর্মকর্তার দুই ডোজ টিকা সম্পন্ন থাকতে হবে। কিন্তু আমাদের দলের সব খেলোয়াড়ের দুই ডোজ টিকা নেওয়া হয়নি। ১৫ ফুটবলার দুই ডোজ নিলেও এক ডোজ নিয়েছেন সাতজন এবং ছয় ফুটবলার এখনো টিকাই গ্রহণ করেননি! এর ফলে আমাদের ইন্দোনেশিয়ায় যাওয়া হচ্ছে না।'

জানুয়ারির উইন্ডোতে কোনো ম্যাচ না খেলতে পারলেও মার্চের উইন্ডোতে ম্যাচ খেলার ব্যাপারে আশাবাদী কাজী নাবিল আহমেদ। মার্চের আগেই জাতীয় দল ও অনূর্ধ্ব-২৩ দল মিলিয়ে প্রায় ৪০ জনের একটা তালিকা করে সবাইকে টিকার আওতায় আনা হবে বলে জানান কাজী নাবিল আহমেদ।

গত সপ্তাহে বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব পেয়েছেন স্প্যানিশ হাভিয়ের কাবরেরা। ১৫ জানুয়ারি ঢাকায় আসবেন তিনি। ইন্দোনেশিয়া সফর দিয়েই বাংলাদেশের ডাগআউটে বসার কথা ছিল তাঁর। সফর বাতিল হওয়ায় আপাতত কিছুদিন বেকারই থাকতে হবে কাবরেরাকে।


আরও খবর



অমর একুশে গ্রন্থমেলার প্রস্তুতি চলছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | ২৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অমর একুশে গ্রন্থমেলার প্রস্তুতি পুরোদমে চলছে। বাংলা একাডেমির গ্রন্থমেলার সদস্য সচিব মো. জালাল আহমেদ বলেন, একাডেমির কার্যক্রম অনুযায়ী পহেলা ফেব্রুয়ারি মেলা উদ্বোধন করা যাবে, সেই লক্ষ্যেই প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত গ্রন্থমেলা সঠিক সময়ে শুরু হবে বলেই আশা করছি। পরবর্তী সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত এর প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে। সরকার যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে, সেই নির্দেশনা মোতাবেক কার্যক্রম চলবে। পাশাপাশি সরকারের  নির্দেশনায় যে স্বাস্থ্যবিধি দেওয়া হবে, সেসব নির্দেশনা মেনেই এবারের গ্রন্থমেলা হবে।

গ্রন্থমেলা প্রাথমিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে সোহরাওয়ার্দী উদ্যোনে  প্রায় সাড়ে ছয়শ স্টলের অবকাঠামো তৈরির কাজ চলছে বলে তিনি জানান। 

এদিকে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় থেকে এক চিঠিতে অমর একুশে গ্রন্থমেলার প্রস্তুতি বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়েছে উল্লেখ করে জালাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, এখন পর্যন্ত কাজের যে অগ্রগতি তাতে ধারণা করা হচ্ছে, আগামী পহেলা ফেব্রুয়ারিতে গ্রন্থমেলা শুরু করা সম্ভব হবে।

গ্রন্থমেলা সম্পর্কে রিদম প্রকাশনীর প্রকাশক মো. গফুর হোসেন বলেন, গ্রন্থমেলার প্রস্তুতি দেখে এখন পর্যন্ত এই মেলা হবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। তবে যে হারে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে, তাতে সামনের দিনগুলোতে সরকারের সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করবে। বাংলা একাডেমি ও প্রকাশক সমিতি এই অমর একুশে গ্রন্থমেলা হোক তা চাইছে।

তিনি বলেন, গতবছর নানা সংকটের মধ্য দিয়ে গ্রন্থমেলা শুরু হয়েছিল। স্টল ভাড়া বাবদ সরকারের কাছ থেকে যে প্রণোদনা পেয়েছিলাম, তাতে প্রকাশকরা লাভবান হয়নি। এছাড়া ফেব্রুয়ারির বইমেলা শুরু হয়েছিল মার্চ মাসে। পাঠক ও দর্শনার্থীদের মধ্যে ছিল করোনাভাইরাস আতঙ্ক।  লকডাউন শুরু হওয়াসহ সীমিত সময়ের বইমেলা দর্শকশূণ্য হয়ে পড়েছিল। গতবছরের মতো প্রকাশকদের প্রণোদনা দেওয়া হোক, আমরা এ দাবি জানাচ্ছি।


আরও খবর



ঢাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
নির্বাচনে অংশ নিতে এরই মধ্যে দলীয় প্যানেল চূড়ান্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামী লীগপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দল ও বিএনপিপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির কার্যকরী পরিষদ ২০২২-এর নির্বাচন আজ (বৃহস্পতিবার)। সকাল ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে এ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, শিক্ষক সমিতির ১৫টি পদে নির্বাচন হবে। নির্বাচনে অংশ নিতে এরই মধ্যে দলীয় প্যানেল চূড়ান্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামী লীগপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দল ও বিএনপিপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ১ হাজার ৯৫০ জন।

করোনার কারণে গত নির্বাচনে বিএনপিপন্থী সংগঠন সাদা দল অংশগ্রহণ না করায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় সব পদে জয় লাভ করে নীল দল। এছাড়াও গত কয়েক বছর ধরে এই শিক্ষক সমিতিতে আওয়ামী লীগ সমর্থক প্যানেল জয়ী হয়ে আসছে। তার আগে টানা কয়েকবার বিএনপি সমর্থকরা সমিতির নিয়ন্ত্রণে ছিলেন।

নীল দল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন যারা

নীল দলের প্যানেল থেকে এবারও সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আইন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. মো রহমত উল্লাহ এবং সাধারণ সম্পাদক পদে পুষ্টি ও খাদ্য ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূইয়া। সহ-সভাপতি পদে অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সাবিতা রিজওয়ানা রহমান, কোষাধ্যক্ষ পদে ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আকরাম হোসেন, যুগ্ম-সম্পাদক পদে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আবদুর রহিম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এছাড়া ১০টি সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- বিজনেস অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. মঈন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জিনাত হুদা, টেলিভিশন, ফিল্ম অ্যান্ড ফটোগ্রাফি বিভাগের অধ্যাপক ড. এ জেএম শফিউল আলম ভূইয়া, ভাষা বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. ফিরোজা ইয়াসমীন, তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. নাসিরুদ্দিন মুন্সি, ফার্মেসি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ, রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল, অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার ও পদার্থ বিভাগের অধ্যাপক ড. ইসতিয়াক এম সৈয়দ।

সাদা দল থেকে যারা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন

এবার সাদা দল থেকে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান ড. ইয়ারুল কবীর এবং সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. আব্দুস সালাম। সহ-সভাপতি পদে প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মামুন আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ পদে অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আল আমিন, যুগ্ম সম্পাদক পদে দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. দাউদ খাঁন।

এছাড়া ১০টি সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- অধ্যাপক ড. আশেকুল আলম রানা, অধ্যাপক ড. এ এস এস আমানুল্লাহ, অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. এবিএম শহিদুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা আল মামুন, অধ্যাপক ড. মো. জসীম উদ্দিন, অধ্যাপক ড. মো. আব্দুল মজিদ, অধ্যাপক ড. মো. মহিউদ্দিন, অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান ও সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ তানভীর রহমান।

সাদা দলের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অধ্যাপক ড. আব্দুস সালাম বলেন, আমরা বিশ্বাস করি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অত্যন্ত মেধাবী। তারা বর্তমান পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে রায় দেবেন। আর আশা করছি সেটা আমাদের পক্ষে আসবে।

নীল দলের প্যানেল থেকে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া বলেন, আশাকরি ভালো একটা নির্বাচন হবে এবং আমরা পূর্ণ প্যানেল জয়ী হতে পারব।

নির্বাচনের সার্বিক বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক তোফায়েল আহমদ চৌধুরী বলেন, এবারের নির্বাচনে  সাদা এবং নীল দল উভয়ই অংশগ্রহণ করেছে। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে দুপুর ২.৩০টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে। সাড়ে তিনটা থেকে ভোট গণনা শুরু হবে। বিকেলেই আমরা ফলাফল ঘোষণা করতে পারব। আশা করছি ভালো একটা নির্বাচন উপহার দিতে পারব।


আরও খবর



এক সিনেমার জন্য ১৯৬ কোটি টাকা নিচ্ছেন অক্ষয়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শিরোনাম শুনে চোখ কপালে উঠতে পারে, কপাল কুঁচকে যেতে পারে। ১৯৬ কোটি টাকা মানে বলিউডের একেকটি সিনেমার পুরো আয়ের সমান। আর এই পরিমাণ অর্থই কিনা অক্ষয় কুমার একা নেবেন!

সিনেমার নাম বাড়ে মিয়া ছোটে মিয়া। নির্মাণ করবেন আলী আব্বাস জাফর। এই সিনেমার জন্যই ১৭০ কোটি রুপি পারিশ্রমিক হাঁকিয়েছেন অক্ষয়। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৯৬ কোটি টাকার বেশি। বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে এমনটা দাবি করেছে বলিউডভিত্তিক গণমাধ্যম কইমই।

শোনা যাচ্ছে, এই সিনেমার বাজেট হবে প্রায় ২৮০ কোটি রুপি। এতে অক্ষয়ের সঙ্গে থাকছেন তরুণ তারকা টাইগার শ্রফ। তিনিও নিচ্ছেন মোটা অংকের পারিশ্রমিক। তবে তার অংকটা এখনো জানা যায়নি।

অক্ষয় কুমার গত এক দশক ধরেই সাফল্যের শিখরে রয়েছেন। একের পর এক হিট সিনেমা দিয়ে নিজেকে সফলতম তারকায় পরিণত করেছেন। করোনার ধাক্কায় যখন পুরো বলিউড বড় ধাক্কা খেয়েছে, তখন অক্ষয়ের সূর্যবংশী সিনেমার মাধ্যমে ফিরে আসে প্রাণ। সিনেমাটি দেখতে হলে দর্শকের ভিড় জমে, বক্স অফিসে তোলে ঝড়। তাই স্বাভাবিকভাবেই নিজের পারিশ্রমিক বাড়িয়ে নিয়েছেন অভিনেতা।

বাড়ে মিয়া ছোটে মিয়া নামে বলিউডে আরও একটি সিনেমা নির্মিত হয়েছিল। সেখানে অভিনয় করেন অমিতাভ বচ্চন ও গোবিন্দ। এটি মুক্তি পেয়েছিল ১৯৯৮ সালে। ওই সময় সিনেমাটি সুপারহিট হয়। অক্ষয়-টাইগারের সিনেমাটি ওই সিনেমার রিমেক নয়, কেবল আগের নামটি নেওয়া হয়েছে। এটি নির্মিত হবে ধুন্ধুমার অ্যাকশন গল্পে।

 


আরও খবর



বিদেশি পর্যবেক্ষকদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে আগামী সংসদ নির্বাচন

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | ২৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বিদেশি পর্যবেক্ষকদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে বলে মার্কিন বিদায়ী রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারকে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় ড. মোমেনের সঙ্গে সাক্ষাতে যান মার্কিন বিদায়ী রাষ্ট্রদূত। এ সময় এ কথা বলেন মোমেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, ড. মোমেন রাষ্ট্রদূত মিলারকে চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পাশাপাশি সদ্য অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জের সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বিষয়ে ব্রিফ করেন। তিনি জানান, নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে এবং ভোটারের সংখ্যাও বেশি ছিল।

মোমেন-মিলার সাক্ষাতে মানবাধিকারের ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজনসহ এ বিষয়ে ঢাকা ও ওয়াশিংটনের সহযোগিতার উপায় নিয়ে আলোচনা করেন। এ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রদূত জানান, যুক্তরাষ্ট্র নিয়মিত সংলাপের মাধ্যমে মানবাধিকার সংক্রান্ত বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতে চায়।

তারা দুই বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও বাড়ানোর উপায় নিয়েও আলোচনা করেন। বিদায়ী রাষ্ট্রদূত আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, তার উত্তরসূরি তথা পরবর্তী রাষ্ট্রদূত দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতাকে আরও এগিয়ে নিতে অবদান রাখবেন।

উভয় পক্ষ আশাবাদ ব্যক্ত করেছে যে, ঢাকা ও ওয়াশিংটনের মধ্যে আগামী মাসে ধারাবাহিক সংলাপ ও সফর বিনিময় হবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাষ্ট্রদূতকে তার মেয়াদে বাংলাদেশে সক্রিয় কাজের জন্য ধন্যবাদ জানান। বিশেষ করে, যুক্তরাষ্ট্র থেকে টিকা সহায়তার পাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করেন মোমেন।

ড. মোমেন দেশের দক্ষিণাঞ্চলে উপকূলীয় বাঁধ পুনরুদ্ধার এবং আরও উন্নয়নে বাংলাদেশকে সহায়তা করার মার্কিন সরকারকে ধন্যবাদ জানান।

মার্কিন রাষ্ট্রদূত জানান, ঢাকায় তার কর্মজীবনের সেরা সময়। তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে সব ধরনের সহযোগিতা ও সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ জানান।


আরও খবর