আজঃ শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

আজ শুভ জন্মাষ্টমী

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ৩০ আগস্ট ২০২১ | ৮৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ সোমবার (৩০ আগস্ট) সারা দেশে উদযাপন হচ্ছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব, পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথি তথা শুভ জন্মাষ্টমী। করোনাকালীন স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে এবছরও ঘরোয়াভাবে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। সমাবেশ, শোভাযাত্রা ও ভক্তদের আমন্ত্রণ ছাড়াই মন্দির প্রাঙ্গণের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা হয়েছে জন্মাষ্টমীর অনুষ্ঠান। গতকাল রবিবার এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করেছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, প্রায় সাড়ে ৫ হাজার বছর আগে দ্বাপর যুগে ভাদ্র মাসের কৃষ্ণপক্ষের অষ্টমী তিথির এই দিনে হিন্দুধর্মের প্রবর্তক ও মহাবতার ভগবান শ্রীকৃষ্ণ আবির্ভূত হন। অত্যাচারী ও দুর্জনের বিরুদ্ধে শান্তিপ্রিয় সাধুজনের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কংসের কারাগারে দেবকীর গর্ভে জন্ম নেন তিনি। শিষ্টের পালন আর দুষ্টের দমনে শ্রীকৃষ্ণ ব্রতী ছিলেন।

শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদযাপন উপলক্ষে প্রতিবছর বিশ্বের হিন্দু সম্প্রদায় বিভিন্ন ধর্মীয় ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। তবে বৈশ্বিক করোনা মহামারির কারণে গত গেল বছরের মতো এবারও সীমিত পরিসরে ও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দিনটি উদযাপন করা হচ্ছে। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা বিশেষ এ দিনটিতে উপবাস, পূজা-অর্চনা ও নামকীর্তনসহ বিভিন্ন আচার-উপাচার পালন করবেন। এছাড়া ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি উদযাপন হবে।

এ উপলক্ষে বিভিন্ন ধর্মীয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। প্রতিবছরের মতো এবারও জন্মাষ্টমী উদযাপন ঘিরে কেন্দ্রীয়ভাবে মহানগর সর্বজনীন পূজা কমিটি ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ নানা কর্মসূচি নিয়েছে। রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশন, ইসকনসহ বিভিন্ন মন্দিরে অনুষ্ঠানাদির আয়োজন করা হয়েছে।

এদিকে শুভ জন্মাষ্টমী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে দেশে ও দেশের বাইরে বসবাসরত হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন তারা।


আরও খবর
স্বামী প্রভুপাদের জন্মবার্ষিকী আজ

বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১

আজ পবিত্র আশুরা

শুক্রবার ২০ আগস্ট ২০21




শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ আগস্ট ২০২১ | ৬২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দীর্ঘ দিন ধরে বন্ধ দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এতে করে শিক্ষা জীবন শেষ করা নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়েছে কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। এদিকে করোনা সংক্রমণ ধীরে ধীরে কমতে থাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি শুরু করেছে সরকার।

আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে আজ বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে বৈঠকে বসবেন শিক্ষা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ ব্যক্তি ও কর্মকর্তারা।

অনেক দিন ধরেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরিকল্পনা করা হচ্ছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব হচ্ছিল না। এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে নির্দেশনা দিয়েছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফলে প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তার।

এরই অংশ হিসেবে আজ যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে, সেই বৈঠকে চলমান করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা ছাড়াও শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টদের টিকা দেওয়ার অগ্রগতি, শিক্ষার ক্ষতি পোষানোর সম্ভাব্য কৌশল নির্ধারণ নিয়ে আলোচনা হবে।

এ বৈঠকের সিদ্ধান্ত আগামী শনিবার অথবা রবিবার সংবাদ সম্মেলন করে জানাবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে দ্রুত সময়ের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। এরপর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার জোর প্রস্তুতি চলছে। বৃহস্পতিবার শিক্ষার দুই মন্ত্রণালয় ও এর অধীনস্থ সংশ্লিষ্ট দপ্তর প্রধানদের নিয়ে এ সংক্রান্ত একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে আজ যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে সেই বৈঠকে- শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী এবং তিন সচিব যোগ দেবেন। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান ও সদস্য, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং করোনাসংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি কমিটির সদস্যদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।


আরও খবর
১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




মহামারি করোনায় আরও ৩৫ জনের প্রাণহানি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩৫ জন মারা গেছেন।এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা ২৭ হাজার ছাড়ালো। নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৭৪ জনের। এতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৩৪ হাজার ৪৪০ জনে। মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সরকারি-বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৮০৬টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে আরটি-পিসিআর ল্যাব ১৪৩টি, জিন এক্সপার্ট ৫৫টি, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন ৬০৮টি। এসব ল্যাবে গত এক দিনে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৩২ হাজার ২১২টি। নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩১ হাজার ৭২৮টি।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ৬ দশমিক ৫৪ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৪৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৬ দশমিক ৮৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৩৫ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৫ জন, রাজশাহী বিভাগে ৪ জন, খুলনা বিভাগে ৪ জন, বরিশাল বিভাগে ২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৮ জন, সিলেট বিভাগে ২ জন রয়েছেন। এদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ৩৩ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ২ জন । তাদের মধ্যে পুরুষ ২১ ও নারী ১৪ জন। ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয় এবং এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ প্রথম এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যু হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।



আরও খবর
করোনায় আরও ৩১ জনের মৃত্যু

শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১




মামলা করতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে যাচ্ছেন নুসরাত?

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনকে। ৮ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মুনিয়ার মৃত্যুকে হত্যাকাণ্ড এবং ধর্ষণ বলে অভিযোগ করেন তাঁর বোন নুসরাত তানিয়া। ট্রাইব্যুনাল এই মামলা তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছে পিবিআইকে।

মনোজ কুমার মজুমদারের নেতৃত্বে পিবিআই পুলিশের তদন্তকারী সংস্থা গুলোর মধ্যে আলাদা একটা আভিজাত্যমন্ডিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইতিমধ্যে স্বীকৃতি পেয়েছে। অনেক জটিল মামলার তদন্ত করে এই সংস্থাটি ইতিমধ্যে প্রশংসা কুড়িয়েছে এবং পুলিশের অন্যতম প্রশংসিত একটি সংগঠন হিসেবে এটি ইতিমধ্যে জনগণের কাছে স্বীকৃত হয়েছে।

পিবিআই ইতিমধ্যে মামলা তদন্তের প্রাথমিক কাজকর্ম শুরু করেছে বলে পিবিআই সূত্রে জানা গেছে। এই মামলা তদন্তে পিবিআই পাঁচটি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে এগুচ্ছে বলে পিবিআই সূত্রে জানা গেছে। যে পাঁচটি বিষয় সামনে রেখে পিবিআই মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করবে তার মধ্যে রয়েছে:

১. পোস্টমর্টেম রিপোর্ট: যেকোনো একটি মৃত্যুর বড় উপজীব্য সাক্ষ্য হলো পোস্টমর্টেম রিপোর্ট। মুনিয়ার মৃত্যুর পোস্টমর্টেম রিপোর্টটি পিবিআই প্রথমে খতিয়ে দেখবে এবং প্রয়োজনে চিকিৎসকের সঙ্গে পোস্টমর্টেম রিপোর্ট নিয়ে কথা বলবে। পোস্টমর্টেম রিপোর্টের উপর ভিত্তি করেই একটি মামলার তদন্ত এগুবে। ইতিমধ্যে, যে পোস্টমর্টেম রিপোর্ট দেয়া হয়েছে তাতে মুনিয়ার আত্মহত্যার কথা বলা হয়েছে। সেখানে হত্যার কোনো আলামত পাওয়া যায়নি বলেই উল্লেখ করা হয়েছে। সে বিবেচনায় পোস্টমর্টেম রিপোর্টটি পিবিআই আবার নতুন করে নিরীক্ষা করবে বলে জানা গেছে।

২. ভিডিও ফুটেজ: মুনিয়ার মৃত্যুর আগে এবং পরে মুনিয়ার ফ্লাটে কারা গিয়েছিল সেই সংক্রান্ত ভিডিও ফুটেজগুলো পিবিআই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে। মুনিয়ার মামলার যদি হত্যাকাণ্ডের ন্যূনতম উপজীব্য বিষয় থাকে তাহলে অবশ্যই ভিডিও ফুটেজে মুনিয়ার বাসায় কারা গেছে তার একটি চিহ্ন-প্রমাণ থাকবে এবং এখানে যে ৮ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে সে ৮ জনের কাউকে না কাউকে এই ঘটনাস্থলে যাওয়ার প্রমাণ থাকতে হবে এবং সেই প্রমাণটি যদি না করা যায় তাহলে যাদেরকে অভিযুক্ত করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ টিকিয়ে রাখা অসম্ভব হয়ে পড়তে পারে।

৩. ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা: মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা নিয়ে পিবিআই তদন্ত করবে। বিশেষ করে সংশ্লিষ্টদের কর্মতৎপরতা গুলো বিচার করবে। কোন বিচারে কিভাবে নুসরাত ঘটনাস্থলে আসলেন এবং কীভাবে তিনি মামলা করলেন সে বিষয়টিও পিবিআই বিচার-বিশ্লেষণ করবে বলে পিবিআইয়ের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

৪. অভিযুক্তদের সংশ্লিষ্টতা: এই মামলায় অভিযুক্তদের কোনরকম সংশ্লিষ্টতা আদৌ আছে কি না বা থাকলে কিভাবে আছে সেটি পিবিআই তদন্ত করে দেখবে। এ সংক্রান্ত যে সমস্ত নথিপত্র কাগজপত্র ইত্যাদি রয়েছে তাও পিবিআই বিবেচনা করবে।

৫. নুসরাতের স্বার্থ: এই মামলায় নুসরাতের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়টি পিবিআই তদন্ত করে দেখবে। প্রথম নুসরাতের মামলা করা, বিভিন্ন জায়গায় নুসরাতের মামলার নিয়ে অতি উৎসাহী কথাবার্তা এবং তাকে সমর্থন দেয়া বিভিন্ন গোষ্ঠীর সঙ্গে নুসরাতের সম্পর্ক কি তা বিচার বিশ্লেষণ করবে।

পিবিআই সূত্র বলছে, যেকোনো একটি মামলায় কেবল অভিযুক্তের ঠিকুজি দেখতে হয় না সঙ্গে সঙ্গে যিনি মামলার বাদী তারও উৎসাহ এবং স্বার্থ দেখতে হয়। বিভিন্ন ব্যক্তি বিভিন্ন স্বার্থে অনেক সময় মামলা করেন আর সেটিও পিবিআই বিচার-বিশ্লেষণ করবে। বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে এই সমস্ত বিচার-বিশ্লেষণ শেষে পিবিআই একটি চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করবে। আর এটি করতে গেলে অনেকেই মনে করছেন যে মামলার বাদী নুসরাত তানিয়া নিজেই এই মামলায় ফেঁসে যেতে পারে। কারণ পিবিআই এই মামলা তদন্ত করবে অত্যন্ত নিরপেক্ষতার সঙ্গে এবং তথ্য-উপাত্ত আলামত সংগ্রহ করেই।

নিউজ ট্যাগ: নুসরাত পিবিআই

আরও খবর



ইভ্যালির চেয়ারম্যান-এমডির বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৩৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশের ই-কমার্স সাইট ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেলের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় প্রতারণা মামলা দায়ের করেছেন এক গ্রাহক। আজ বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. আসাদুজ্জামান জানান, গতকাল বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার পূর্বগ্রাম এলাকার বাসিন্দা মো. আরিফ বাকের এই মামলাটি দায়ের করেছেন।

মামলায় ইভ্যালি এমডি মোহাম্মদ রাসেলকে এক নম্বর আসামি ও চেয়ারম্যান শামীমাকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে। এই মামলায় ইভ্যালির আরও বেশকজন কর্মকর্তাকে অজ্ঞাতনামা দেখিয়ে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে আরিফ বাকের উল্লেখ করেছেন, ইভ্যালির অনলাইন প্লাটফর্মে ৩ লাখ ১০ হাজার ৫৯৭ টাকার পণ্য অর্ডার করেও নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তা পাননি তিনি। নিরুপায় হয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ করেন তিনি।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, গত ২৯ মে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির চমকপ্রদ বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে অভিযোগকারী আরিফ বাকের ও তার বন্ধুরা চলতি বছরের মে ও জুন মাসে কিছু পণ্য অর্ডার করেন। পণ্যের অর্ডার বাবদ সব মূল্য বিকাশ, নগদ ও সিটি ব্যাংকের কার্ডের মাধ্যমে সম্পূর্ন পরিশোধ করেন তারা।

পণ্যগুলো ৭ থেকে ৪৫ কার্যদিবসের মধ্যে ডেলিভারি ও নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে পণ্য সরবরাহে ব্যর্থ হলে প্রতিষ্ঠান সমপরিমাণ টাকা ফেরত দিতে অঙ্গীকারাবদ্ধ ছিল। কিন্তু ওই সময়সীমার মধ্যে পণ্যগুলো ডেলিভারি না পাওয়ায় বহুবার ইভ্যালির কাস্টমার কেয়ার প্রতিনিধিকে ফোন করা হয়। সর্বশেষ গত ৫ সেপ্টেম্বর যোগাযোগ করে অর্ডার করা পণ্যগুলো পাওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন আরিফরা।

একপর্যায়ে ইভ্যালি পণ্য প্রদান ও টাকা প্রদানে ব্যর্থ হওয়ার পর ৯ সেপ্টেম্বর ইভ্যালির ধানমন্ডির অফিসে যান আরিফ ও তার বন্ধুরা।

মামলার এজাহারে আরিফ বলেন, ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ রাসেলের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তারা উত্তেজিত হয়ে চিৎকার-চেঁচামেচি করেন। একপর্যায়ে অফিসের অভ্যন্তরে থাকা ইভ্যালির রাসেল উত্তেজিত হয়ে তার রুম থেকে বেরিয়ে এসে আমাকে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করেন এবং আমাদের পণ্য অথবা টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানান। আমাদের ভয়ভীতি ও হুমকিসহ চরম দুর্ব্যবহার করেন। এতে আমরা আতঙ্কে দিনাতিপাত করছি। পণ্যগুলো বুঝে না পাওয়ায় আমি আর্থিক ও মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি।


আরও খবর



রংধনু গ্রুপের খাদ্য সহায়তা পেলো রূপগঞ্জের ৩ হাজার হতদরিদ্র মানুষ

প্রকাশিত:বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৩৩০জন দেখেছেন
Image

রূপগঞ্জ প্রতিনিধি:

দেশের অন্যতম শিল্পগোষ্ঠী রংধনু গ্রুপের উদ্যোগে রূপগঞ্জের কায়েতপাড়া ইউনিয়নের ৩ হাজার হতদরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা বিতরণ করা হয়েছে।  মহামারী করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত, অসহায় ও দরিদ্র ও কর্মহীন মানুষের  মাঝে রংধনু গ্রুপের আলহাজ্ব রফিকুল ইসলামের পক্ষে বুধবার বিকেলে উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের নাওড়াস্থ্য চেয়ারম্যানের অস্থায়ী কার্যালয়ে এসব খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা বিতরণ করেন রংধনু গ্রুপের পরিচালক ও আসন্ন কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ মিজানুর রহমান। এসময় উপস্থিত ছিলেন কায়েতপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল আউয়াল, সহ-সভাতি হাজী আলাউদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আলতাফ হোসেন, আলী আজগর, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক তারিকুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা জামান ব্যাপারী, আব্দুল বাতেন, প্যানেল চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, যুবলীগ নেতা হাজী সফিকুল ইসলাম, সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মহিউদ্দিন ব্যাপারী, ছাত্রলীগ নেতা লুৎফর রহমান মুন্না, আশফাকুল ইসলাম তুষার, আশরাফুল আলম ভুইয়া জেমিন, মিনা আক্তার, ইউপি সদস্য আব্দুল মতিন প্রমুখ।

খাদ্য সামগ্রী  বিতরণকালে ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে যুক্ত হয়ে উপস্থিত এলাকাবাসীর উদ্দেশ্য আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম বলেন, রূপগঞ্জ তথা কায়েতপাড়াবাসীর যে কোন দূর্যোগে, দূর্ভোগে রংধনু গ্রুপ আপনাদের পাশে ছিল, এখনো আছে ভবিষ্যতেও থাকবে। আপনারা দোয়া করবেন যেনো আপনাদের পরিবারের একজন হয়ে সর্বদা আপনাদের পাশে দাড়াতে পারি। মহামারী করোনায় যে অপূরনীয় ক্ষতি আপনাদের হয়েছে সেটা কেউ পূরণ করতে পারবে না। তবে মহামারীর শুরু থেকে আমি আর আমার প্রতিষ্ঠান এবং ইউনিয়ন পরিষদ আপনাদের পাশে থাকার চেষ্টা করেছে। মহামারীর শুরু থেকে অদ্যাবধি ২১ দফা আপনাদেরকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছি। ভবিষ্যতেও এ ধারা অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর