আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

আন্তঃবাহিনী আযান ও ক্বিরাত প্রতিযোগিতা সমাপ্ত

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | ৩১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আন্তঃবাহিনী আযান ও ক্বিরাত প্রতিযোগিতা-২০২২ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ঢাকা সেনানিবাসস্থ সেনা কেন্দ্রীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়।

আজ সমাপনী অনুষ্ঠানে ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ (এনডিসি) এর কমান্ড্যান্ট লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোঃ আকবর হোসেন, এসবিপি, এসইউপি (বার), এএফডব্লিউসি, পিএসসি, জি+, পিএইচডি, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় তিন বাহিনীর প্রতিযোগীগণ এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। এই প্রতিযোগিতায় সেনাবাহিনী দল চ্যাম্পিয়ন এবং নৌবাহিনী দল রানারআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করে। আযান প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্জেন্ট মোঃ রিয়াজ উদ্দীন আযানে ও সার্জেন্ট মোঃ আনোয়ার হোসেন ক্বিরাতে প্রথম স্থান অর্জন করেন।

এ সময় সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণসহ সকল পদবীর সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।

গত ১০ মে ২০২২ তারিখে শুরু হওয়া এই প্রতিযোগিতায় আযানে ১৫ জন এবং ক্বিরাতে ১৫ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন । উল্লেখ্য, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী নৌ বাহিনী প্রধান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ শফিউল আজম, এনইউপি, এনডিসি, পিএসসি।

এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে তিন বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাবের বিকাশ ও পারস্পরিক সৌহার্দ্য আরো মজবুত হবে বলে আশা করা যায়।


আরও খবর



বেড়েছে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা, রোগীতে ঠাসা পঙ্গু হাসপাতাল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৫০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে গত ৬ দিনে রাজধানীর জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (পঙ্গু হাসপাতাল) এক হাজার ২৫০ জনেরও বেশি রোগী ভর্তি হয়েছেন। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই সময়ে হাসপাতালে আসাদের মধ্যে ৩০ শতাংশই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার। তাদের অনেকেরই হাত-পা কেটে ফেলতে হয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, এক হাজার শয্যার হাসপাতালে কোনো শয্যা খালি নেই। পুরো হাসপাতালই রোগীতে ঠাসা। শয্যা না পেয়ে বাধ্য হয়ে হাসপাতালের মেঝেতে থেকে চিকিৎসা সেবা নিতে হচ্ছে রোগীদের। জানা গেছে, মোটরসাইকেল ছাড়াও সিএনজিচালিত অটোরিকশায় দুর্ঘটনা বেশি ঘটেছে। সে তুলনায় বাস ও ট্রাকের দুর্ঘটনা কম। আহতদের অধিকাংশেরই আঘাত গুরুতর।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত ২ মে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ১৯৭ জন পঙ্গু হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে সংকটাপন্ন অবস্থায় ৬৫ জনের অস্ত্রোপচার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকি ১৩২ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাসায় পাঠানো হয়। এরপর ৩ মে (ঈদের দিন) ১৭৯ জন হাসপাতালে আসেন, তাদের মধ্যে ৮২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। ৪ মে দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ২৫২ জন হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত ৮৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয় ১৬৭ জনকে।

এরপর গত ৫ মে ২৩৬ জন হাসপাতালে আসেন, তাদের মধ্যে ১০৮ জনকে অস্ত্রোপচার শেষে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকি ১২৮ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়। ৬ মে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার আরও ১৮৩ জন হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে ৬৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল শনিবার (৭ মে) নতুন করে আরও ২০৩ জন হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে ৮৯ জনকে অস্ত্রোপচার শেষে ভর্তি করা হয়। বাকি ১১৪ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাসায় পাঠানো হয়।

দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দুর্ঘটনার শিকার মানুষেরা চিকিৎসা নিতে পঙ্গু হাসপাতালে আসেন। কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া এলাকা থেকে আসা হৃদয় হাসান (২৬) নামে একজন জানান, ঈদের পরদিন ১৮ জন বন্ধু মিলে মোটরসাইকেলে করে সিলেটের উদ্দেশ্যে ঘুরতে বের হন। সবার সামনে থাকা মোটরসাইকেলের যাত্রী ছিলেন তিনি। দুর্ঘটনায় পড়ে তার একটি পা কেটে ফেলতে হয়েছে। বন্ধুর অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

হাসপাতালে ভর্তি মো. ইব্রাহিম নামের (৩০) আরেক রোগী জানান, মোটরসাইকেলে তিনি কটিয়াদি থেকে পুলেরঘাট বাজারে আসছিলেন, তখন বিপরীত দিক থেকে একটি বাস ও আরেকটি অটোরিকশা একসঙ্গে আসছিল। সামনে দুই গাড়ি দেখে বাধ্য হয়েই তিনি পাকা সড়ক থেকে মাটির অংশে নেমে আসেন। কিন্তু নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে অটোরিকশাটি সেখানেই এসে তার মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়।

ইব্রাহিম বলেন, গতকাল (৭ মে) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। এখন পর্যন্ত কোনো সিট না পেয়ে মেঝেতে শুয়েই চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। চিকিৎসক জানিয়েছেন অন্তত আরও ২০ দিনের মতো থেকে চিকিৎসা নিতে হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরত এক নার্স জানান, ঈদ-পরবর্তী সময়ে রোগীর চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের। হাসপাতালে আসা একের পর এক রোগীকে সেবা দিতে গিয়ে খাওয়া ও বিশ্রামেরও সুযোগ থাকে না তাদের। মাত্র ছয় জন নার্স কাজ করছি। এটা রীতিমতো আমাদের ওপর অত্যাচারের মতো।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ইনচার্জ ও সিনিয়র স্টাফ নার্স রহিমা আক্তার বলেন, স্বাভাবিক সময়ে হাসপাতালটিতে দৈনিক দেড়শ জনের মতো রোগী আসলেও ঈদের সময় রোগীর সংখ্যা পৌঁছে যায় ২০০ থেকে ২৫০ জনে। ঈদে বেশিরভাগ স্বাস্থ্যকর্মীর ছুটির কারণে বাকিদেরকেই এই চাপ সামলাতে হয়। রোগী যতই আসুক, কষ্ট সত্ত্বেও আমাদেরকে তো ম্যানেজ করতেই হবে। কারণ দুর্ঘটনায় হাত-পা ভাঙা এসব রোগীদের তো আর আমরা ফেরত দিতে পারব না। আমাদের স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের নির্ধারিত সময়ের বাইরেও সেবা দিচ্ছেন। নিয়মিত সিনিয়র চিকিৎসকরাও খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। এর বাইরে বিশেষ সমস্যা হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানাই। তখন অতিরিক্ত চিকিৎসক এসে কাজ করেন।

জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জানান, ঈদ ও ঈদ পরবর্তী সময়ে আমাদের হাসপাতালে রেকর্ড সংখ্যক রোগী এসেছে। তাদের মধ্যে প্রায় অর্ধেক রোগীকেই ছোট-বড় অস্ত্রোপচার করতে হয়েছে। এখন পর্যন্ত হাসপাতালে আসা রোগীদের মোটরসাইকেল দুর্ঘটনাই বেশি। জরুরি ওয়ার্ডে জায়গা না হওয়ায় অনেককে চিকিৎসা দিতে হচ্ছে বারান্দায়।

জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক অধ্যাপক ডা. আবদুল গণি মোল্লা বলেন, প্রতি ঈদেই আমাদেরকে একটা ভয়ংকর অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়। অন্যান্য বারের তুলনায় এবার দুর্ঘটনায় আহত হয়ে আসা রোগীর সংখ্যা বেশি। ঈদ একটি খুশির সময়। এই সময়ে মানুষ এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাবে এটাই স্বাভাবিক। তাছাড়া আমাদের পরিবহনগুলো যে একেবারে খারাপ, তা তো নয়। কিন্তু এবার ঈদে যে পরিমাণ মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে তা আমার মনে হয় গত কয়েক বছরে হয়নি।

হাসপাতালের পরিচালক আরও বলেন, কিছু চিকিৎসক ঈদের ছুটিতে গেলেও অন্য ধর্মের চিকিৎসকরা এই সময়ে নিরলসভাবে চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন। এছাড়া বেশ কয়েকজন সিনিয়র চিকিৎসক সার্বক্ষণিক হাসপাতালে সময় দিয়েছেন। আমি নিজে ঈদের দিনেও সারাদিন হাসপাতালে ছিলাম। যে কারণে চিকিৎসাসেবায় খুব বেশি সমস্যা হয়নি।

নিউজ ট্যাগ: পঙ্গু হাসপাতাল

আরও খবর



ইকুয়েডরের কারাগারে দাঙ্গা, নিহত অন্তত ৪৩

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৩২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইকুয়েডরের একটি কারাগারে বন্দিদের মধ্যে ভয়াবহ দাঙ্গার ঘটনা ঘটেছে। সোমবারের এই ঘটনায় অন্তত ৪৩ জন বন্দি নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও অনেকে। সহিংসতার সুযোগ নিয়ে কারাগার থেকে বেরিয়ে গেছে শতাধিক বন্দি। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি। 

সান্তো ডোমিঙ্গো শহরের বেলাভিস্তা কারাগারে লস লোবোস এবং আর-৭ নামের দুটি গ্যাংয়ের বন্দিদের মধ্যে ওই দাঙ্গার ঘটনা ঘটে। সরকারি কৌঁসুলির দফতর থেকে এখন পর্যন্ত ৪৩ জনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পুলিশ প্রধান ফাউস্তো সালিনাস জানিয়েছেন, দাঙ্গার সুযোগ নিয়ে অনেক বন্দি কারাগার থেকে পালিয়ে যায়। তাদের মধ্যে ১১২ জনকে ফের আটক করা হয়েছে। তবে আরও ১০৮ জনের এখনও পর্যন্ত কোনও খোঁজ মেলেনি।

লাতিন আমেরিকার দেশ ইকুয়েডরে কারাগারে দাঙ্গার ঘটনা এটিই প্রথম নয়। গত মাসে দেশটির এল তুরি কারাগারে সংঘটিত দাঙ্গায় অন্তত ২০ বন্দি নিহত হয়। আর ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত দেশটির বিভিন্ন কারাগারে সংঘটিত দাঙ্গার ঘটনায় নিহত হয়েছে প্রায় ৩৫০ বন্দি।


আরও খবর



অনাস্থা প্রস্তাবের ভোটাভুটিতে জয়ী হলেন মাহিন্দা

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দাদা পারেননি, ভাই পারলেন। বিরোধীদের প্রবল চাপের মুখে চলতি মাসেই প্রধানমন্ত্রী পদে ইস্তফা দিয়েছিলেন মাহিন্দা রাজাপক্ষে। অর্থনৈতিক সঙ্কটে জর্জরিত শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে কিন্তু সে দেশের পার্লামেন্টে বিরোধীদের আনা অনাস্থা প্রস্তাব ঘিরে ভোটাভুটিতে জয়ী হলেন।

মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টে অনাস্থা প্রস্তাবের পক্ষে পড়েছে ৬৮টি ভোট। বিপক্ষে ১১৯টি। সংখ্যালঘু তামিলদের রাজনৈতিক দল তামিল ন্যাশনাল অ্যালায়ান্স-এর এক পার্লামেন্ট সদস্যের আনা ওই অনাস্থা প্রস্তাব প্রধান বিরোধী দল এসজেপি সমর্থন করলেও শাসক দল এসএলপিপি এবং সদ্য-মনোনীত প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমসিঙ্ঘের দল ইউএনপি বিরোধিতা করে।

প্রসঙ্গত, গত কয়েক মাস ধরেই অর্থনৈতিক সঙ্কটে ভুগছে শ্রীলঙ্কা। তার জন্য মাহিন্দা এবং তাঁর ভাই তথা শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায় দায়ী বলে অভিযোগ আন্দোলনকারীদের। সরকার সমর্থক ও বিরোধীদের সংঘর্ষে বেশ কিছু মানুষের মৃত্যুও হয়েছে। সামগ্রিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে গত সপ্তাহে সেনা এবং পুলিশের হাতে ক্ষমতা তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া।


আরও খবর



পুত্র সন্তান জন্ম দিলেন সিয়ামের স্ত্রী অবন্তী

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন চিত্রনায়ক সিয়াম আহমেদের স্ত্রী শাম্মা রুশাফি অবন্তী। মঙ্গলবার বেলা আনুমানিক ৩টায় রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাদের পুত্র সন্তানের জন্ম হয়।  এ সময় সিয়ামসহ দুই পরিবারের সবাই উপস্থিত ছিলেন।

সিয়াম বলেন, আমি বাবা হয়েছি। মা ও সন্তান দুজনই সুস্থ আছে। এর চাইতে আর ভালো লাগা কী হতে পারে। দুই পরিবারের সবাই খুশি আমরা।

গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর সিয়াম ফেসবুকের পোস্টে জানিয়েছিলেন, তার পরিবারের সদস্য বাড়ছে। তিনি বাবা হতে যাচ্ছেন।  ফেসবুকে সুখবরটি জানিয়ে সিয়াম ক্যাপশনে লিখেছিলেন, ১০টি ছোট হাতের আঙুল, ১০টি ছোট পায়ের আঙুল, ভালোবাসা ও আশীর্বাদের সঙ্গে আমাদের পরিবার বড় হয়। এই মূল্যবান আত্মা, খুব মিষ্টি আর নতুন, এই ছোট্ট জীবন, একটি স্বপ্ন বাস্তব হচ্ছে। আলহামদুলিল্লাহ।

আগামী ঈদুল ফিতরে সিয়ামের শান ছবিটি দেশ ও দেশের বাইরে মুক্তি পাচ্ছে। ২৪ ডিসেম্বর মুক্তি পেয়েছে সিয়ামের মৃধা বনাম মৃধা ছবিটি।  মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে অপারেশন সুন্দরবন, অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন, স্বপ্নবাজী সিনেমা।


আরও খবর



৮ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৩৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকা-চট্টগ্রাম, চট্টগ্রাম-সিলেট, চট্টগ্রাম-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-নোয়াখালী রুটের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। কুমিল্লার রাজাপুর রেলস্টেশনে চট্টগ্রামগামী মালবাহী কন্টেইনার ট্রেনের তিনটি বগি লাইনচ্যুত হলে এ চার রুটের ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সোমবার (৯ মে) ভোর ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনার কারণে লম্বা সময় ধরে বিভিন্ন স্টেশনে যাত্রীবাহী ট্রেন আটকা পড়ে।

দুর্ঘটনার পর আখাউড়া ও লাকসাম থেকে দুটি উদ্ধারকারী ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে। প্রায় ৮ ঘণ্টা চেষ্টার পর দুপুর ১২টা ১০মিনিটের দিকে এ চার রুটের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এর আগে ঢাকা অভিমুখী উপকূল এক্সপ্রেস ট্রেন লাকসাম জংশনে আটকা পড়ে। চট্টগ্রাম মেইল আটকা পড়ে শশীদল স্টেশনে। শিডিউল বিপর্যয় ঘটে মহানগর প্রভাতী, চট্টলা এক্সপ্রেস ও বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের।

রেলওয়ে কুমিল্লার ঊর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পথ) লিয়াকত আলী মজুমদার বলেন, শিডিউল বিপর্যয় কাটাতে আমরা কাজ করছি। সবকিছু দ্রুততর সময়ের মধ্যে ঠিক হয়ে যাবে।


আরও খবর