আজঃ রবিবার ২৪ অক্টোবর ২০২১
শিরোনাম

বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আবুল বাশারের স্মরণে সিলেটে দোয়া মাহফিল

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১২৭৫জন দেখেছেন
Image

সিলেট ব্যুরো:

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের বড় ভাই মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আবুল বাশারের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আজকের দর্পণ সিলেট ব্যুরো অফিসে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

দৈনিক আজকের দর্পণ সিলেট ব্যুরো প্রধান মুহাম্মদ আমজাদ হোসাইনের সভাপতিত্বে ও সিলেট প্রতিনিধি আয়ুব আলীর পরিচালনায় দোয়া মাহফিল পূর্ব আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে অংশ নেন দৈনিক ইত্তেফাক সিলেটের ব্যুরো প্রধান হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী, পায়রা সমাজকল্যাণ সংঘের সভাপতি এডভোকেট মাহমুদুল হক মাছুম, দৈনিক জালালাবাদের সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার মুহিবুর রহমান, সিলেট প্রেসক্লাবের পাঠাগার ও প্রকাশনা সম্পাদক কবির আহমদ, দৈনিক জৈন্তাবার্তার সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার খালেদ আহমদ, দৈনিক বাংলাদেশ খবরের দক্ষিণ সুরমা প্রতিনিধি গোলাম মর্তুজা বাচ্চু, পিডিবির কন্ট্রাকটার আইনুল হক, ভাইভাই সেচ প্রকল্পের দোয়ারাবাজারের পরিচালক মহরম আলী সুমন, পায়রা সমাজকল্যাণ সংঘের যুগ্ন সম্পাদক মুছাদ্দিকুননবী ও সিলেট গেজেট এর স্টাফ রিপোর্টার কামরুল হাসান। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী আবুল হোসেন, শাহজালাল দরগা রহ. মাজারের খাদেম আব্দুল মঈন চৌধুরী, এম আর কে রাশেদ, জমির হোসেন জমির, জাবেদ আহমদ, আরিফ হোসেন মারুফ, রায়হান আহমদ প্রমুখ। আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে বক্তারা দেশের সূর্য সন্তান শেখ আবুল বাশারের স্মৃতিচারণ করে বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অনবধ্য কৃতিত্বের কথা এদেশের মানুষ চিরদির স্বরণ করবে। মুক্তিযোদ্ধাদের অবিস্বরণীয় কৃতিত্বের কারনে আজ আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পেয়েছি। তাই সকল বীর সেনানীদের কথা আমাদেরকে আজীবন স্মরণ রাখতে হবে। পরে মরহুমের মাগফেরাত ও দেশের সমৃদ্ধি কামনা করে মোনাজাত করেন মাওলানা আব্দুন নুর।


আরও খবর



ফেলে দেওয়া ফোন দিয়ে চলে কোটি টাকার কারবার

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৭ অক্টোবর ২০২১ | ৬৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সব মোবাইল ফোনেই সোনা থাকে। শুধু সোনাই নয়, রুপো, তামাও লাগে মোবাইল ফোন তৈরির ক্ষেত্রে। সোনা বিদ্যুতের সুপরিবাহী। সেই সঙ্গে এর ক্ষয় হয় না, মরচে ধরে না। এই কারণেই মোবাইল ফোনের ইন্টিগ্রেটেড সারকিট (আইসি) বোর্ডের ছোট্ট কানেক্টারগুলিতে সোনা ব্যবহৃত হয়। এটা ঠিক যে খুবই সামান্য সোনা থাকে। কিন্তু অনেক বাতিল ফোন থেকে অনেক সামান্য মিলে বড় পরিমাণে সোনা সংগ্রহ হয়। আর তা দিতে চলে কোটি কোটি টাকার কারবার।

সাধারণ মোবাইল ফোন থেকে স্মার্টফোন বা আইফোন সব তৈরিতেই লাগে সোনা। তার পরিমাণ আলাদা আলাদা। হিসেব বলছে, এক একটি ফোনে ৩৪ থেকে ৫০ মিলিগ্রাম পর্যন্ত সোনা থাকে। একটি ফোনের হিসেবে সোনার পরমাণ সামান্যই। কিন্তু এখন যে হারে বর্জ্য মোবাইলের সংখ্যা বাড়ছে তাতে সংগৃহীত সোনার পরিমাণ অনেক।

আবর্জনা থেকে সোনার মতো দামী ধাতু বের করার ব্যবসা চলছে রমরমিয়ে। সেখানে টন টন আবর্জনা থেকে এক গ্রাম সোনা পাওয়া যায়। সেখানে একটি হিসেব বলছে, ৪১টি মোবাইল ফোন থেকেই ১ গ্রাম সোনা পাওয়া যায়। ভারতীয় মুদ্রায় এখন যার গড় মুল্য সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা। ওই হিসেবেই দেখা গিয়েছে, বিশ্বে প্রতি বছর বাতিল মোবাইল ফোন থেকে চার হাজার কোটি টাকার সোনা পাওয়া যায়।

মোবাইল ফোনে সোনা ব্যবহারের প্রধান কারণ এই ধাতু ভাল বিদ্যুৎ পরিবাহী। সোনা ছাড়া আর দুই ধাতু বিদ্যুতের সুপরিবাহী। রুপো এবং তামা। ফোনে সোনার কানেকটরগুলি ডিজিটাল ডাটা দ্রুত এবং যথাযথ স্থানান্তর করার জন্যও ব্যবহৃত হয়। মোবাইল ফোনের মত, সোনা কম্পিউটার ও ল্যাপটপের আইসিগুলিতেও ব্যবহৃত হয়। আর এই ভাবেই বাতিল মোবাইল, ল্যাপটপ ইত্যাদি দিয়ে চলে বড় আর্থিক অঙ্কের কারবার।

 

নিউজ ট্যাগ: পুরনো ফোন

আরও খবর



সব রাজনৈতিক দলের ঐক্যে নতুন কমিশন হওয়া উচিত: সিইসি

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
সাংবিধানিক যে ব্যবস্থা আছে সে অনুযায়ী করার কথা। এটা আমরা টেলিভিশন, পত্রপত্রিকায় দেখি। এ বিষয়ে তাদের সঙ্গে আমাদের কোনো আলোচনা হয়নি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, সব রাজনৈতিক দলের ঐকমত্যের ভিত্তিতে নতুন নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন হওয়া উচিত।

বুধবার কমিশন সভা শেষে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, পরবর্তী কমিশন গঠন রাজনৈতিক দলের ঐকমত্যের ভিত্তিতে হওয়া উচিত। অবশ্যই এটা হওয়া উচিত। আমি এটাকে সমর্থন করি। যেন নতুন কমিশন সবার সমর্থনযোগ্য হয়, সেরকম একটি কমিশন হওয়া উচিত।

নতুন কমিশন গঠনে ইসির কোনো মতামত আছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নতুন কমিশন কী হবে সে বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের কোনো মতামত থাকে না। কমিশনের কাছে সাধারণত মতামত চাওয়া হয় না। যদি চাওয়া হয় তাহলে আমরা কমিশন বসে দেখবো, আমাদের কোনো মতামত আছে কি না।

কমিশন গঠনে আইন প্রণয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আইন তো তৈরি করে সংসদ। আইন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আমাদের আইনগুলো হয়। তাদের কাছ থেকে এ রকম কোনো ইঙ্গিত আসেনি যে, আইন তৈরি করতে হবে কি না। তারা বলেন, সাংবিধানিক যে ব্যবস্থা আছে সে অনুযায়ী করার কথা। এটা আমরা টেলিভিশন, পত্রপত্রিকায় দেখি। এ বিষয়ে তাদের সঙ্গে আমাদের কোনো আলোচনা হয়নি। আইন করার বিষয়ে আমাদের সঙ্গে কোনো আলোচনা হয়নি।

ঐকমত্য কীভাবে হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, এটা তো রাষ্ট্রপতি করতে পারেন। গতবার তিনি সব রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছিলেন। এটা তো রাষ্ট্রপতির বিষয়। সেটা বলতে পারবো না। এটা ওই স্টেজে হতে পারে। আমাদের করণীয় কিছু নেই। ঐকমত্যের বিষয়ে আমাদের কোনো ভূমিকা থাকে না।

আইন হলেই আস্থার সংকট দূর হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা কী ধরনের আইন হবে তার ওপর নির্ভর করবে। এ বিষয়ে আগে বলা যাবে না।

তিনি বলেন, সংবিধানে সুস্পষ্টভাবে আইনের বিধানাবলি সাপেক্ষে নির্বাচন কমিশনে নিয়োগ প্রদানের নির্দেশনা থাকলেও গত ৫০ বছরে কোনো সরকারই এমন একটি আইন প্রণয়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেনি।

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ইসি মোটেই অনাস্থার জায়গা নয়। জনগণের আস্থা নেই একথা বলা যাবে না, জনগণ তো বলেনি আস্থা নেই। রাজনৈতিক দলের লোকেরা যেটা বলেন, অনেক সময় নির্বাচনে প্রতিযোগিতা করে তারা বলেন জনগণের আস্থা নেই। যদি আস্থা না থাকে, যেসব নির্বাচন হচ্ছে তাতে উপচেপড়া ভোটার থাকে কীভাবে? লাইন থাকে, ৬০-৮০ শতাংশ লোক ভোট দেয়। এটা আস্থার জায়গা।

এছাড়া রাশিয়ার নির্বাচন পর্যবেক্ষণ নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন সিইসি।

এ সময় ইসির অতিরিক্ত সচিব, এনআইডি উইংয়ের ডিজি ও ইসির অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর
মুনিয়া-শারুন আলাপ কী প্রমাণ করে?

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১




শাহরুখপুত্রের জামিন নাকচ

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | ৪৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদককাণ্ডে জামিন পাননি বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান। শুক্রবারও আদালতে শুনানিতে আইনজীবীর মাধ্যমে লিখিতভাবে শাহরুখপুত্র বিনীত অনুরোধ করে জানান, তিনি ভালো ঘরের ছেলে। তিনি ভারতীয় পাসপোর্টধারী।  তিনি কোথাও পালিয়ে যাবেন না। তথ্য-প্রমাণ লোপাটের কোনো চেষ্টাও করবেন না। মামলায় তদন্ত কর্মকর্তাদের সহায়তা করবেন।

কিন্তু এরপরও আরিয়ানের জামিন মঞ্জুর নাকচ করে দেন মুম্বাই মেট্রোপলিটন আদালত।

এতে অসন্তুষ্ট বলিউড অভিনেত্রী রাভিনা টেন্ডন।  রীতিমতো ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে টুইটে লিখলেন,  লজ্জাজনক রাজনীতি খেলা হচ্ছে। তবে লজ্জাজনক রাজনীতি' বলতে কী বোঝাতে চেয়েছেন রাভিনা? সেটা স্পষ্ট করেননি।

বৃহস্পতিবার আরিয়ানকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।  শুক্রবার থেকে মুম্বাইয়ের আর্থার রোডের কারাগারে রয়েছেন আরিয়ান।  স্টার কিড হলেও বাড়তি কোনো সুবিধা দেওয়া হচ্ছে না শাহরুখপুত্রকে।

ভারতীয় গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশের দিনই কারও নাম না উল্লেখ করে টুইটে অভিনেত্রী রাভিনা টেন্ডন লেখেন, লজ্জাজনক রাজনীতি চলছে একটা যুবকের সারা জীবন, ভবিষ্যৎ নিয়ে খেলা হচ্ছে হৃদয়বিদারক ।

রাভিনার মতো শাহরুখ খানের এমন বিপদের দিনে তার পাশে দাঁড়িয়েছেন সালমান খান, দীপিকা পাড়ুকোন, হৃতিক রোশনের সাবেক স্ত্রী সুজানার মতো তারকারা।

হৃত্বিক তো রীতিমতো দীর্ঘ এক খোলা চিঠি লিখেছেন আরিয়ানের সমর্থনে।  তাকে সাহস জুগিয়েছেন। ভেঙে না পড়তে পরামর্শ দিয়ে শান্ত থাকতে বলেছেন।

নিউজ ট্যাগ: আরিয়ান খান

আরও খবর
গাছের সঙ্গে বিয়ে হবে নয়নতারার

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১




বঙ্গবন্ধু টানেলের দ্বিতীয় চ্যানেল খুলে দেওয়া হবে শুক্রবার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৫ অক্টোবর ২০২১ | ৭৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগামী শুক্রবার মধ্যরাতে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেলের দ্বিতীয় চ্যানেল উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি সম্মেলন কক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, একনেক সভায় চলাকালীন অবস্থায় আমরা জানতে পারলাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল (কর্ণফুলী টানেল) ডিসেম্বরে খুলে দেওয়ার কথা ছিল। তবে কাজ শেষ হয়ে যাওয়ায় আগামী শুক্রবার খুলে দেওয়া হচ্ছে। এটা খুবই আনন্দের সংবাদ।

তিনি বলেন, আশা ছিল ২০২২ সালের ডিসেম্বরে এটি উদ্বোধন হবে। এখন আশা করা হচ্ছে, এত দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে না, তার অনেক আগেই উদ্বোধন করা যাবে। তবে সুনির্দিষ্ট কিছু বলতে পারছি না, এটা কর্তৃপক্ষ ঠিক করবে।

মন্ত্রী বলেন, এটা সরকারের জন্য অবশ্যই অনেক বড় আনন্দের ব্যাপার। প্রায় সময় কথা উঠেছে, কোনো প্রকল্প সময়মতো শেষ হয় না, আগায় না। এটি একটি বড় অভিযোগ। এ প্রকল্পে তেমনটি হয়নি, সময়ের আগেই শেষ হচ্ছে। মূল কাজ এখন শেষ হচ্ছে। তবে আরো অনেক কাজ বাকি আছে।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক প্রধান শেখ হাসিনা।


আরও খবর
মুনিয়া-শারুন আলাপ কী প্রমাণ করে?

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১




অনুমোদনহীন ১১ পরিবহনকে জরিমানা

প্রকাশিত:রবিবার ০৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ অক্টোবর ২০২১ | ৬০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাস রুট রেশনালাইজেশন কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। ফলে রুট পারমিটহীন বাস-মিনিবাস বন্ধে বিআরটিএ এর সঙ্গে যৌথ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে গুলিস্তান বঙ্গবন্ধু স্কয়ার সংলগ্ন এলাকায়।

এই অভিযানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ঢাকা সিটির ভেতরে চলাচল করার অনুমোদন নেই এমন বাস ও মিনিবাসগুলোকে জরিমানা করেছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

রবিবার (০৩ অক্টোবর) দুপুর ১২টা থেকে শুরু হওয়া এই অভিযান চলে দুপুর ২টা পর্যন্ত। এই সময়ের মধ্যে রুট পারমিটহীন ও রুট পারমিটের মেয়াদহীন বাসগুলোকে সর্বোচ্চ ৮ হাজার ও সর্বনিম্ন ৩ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

এসময় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ও বিআরটিএ'র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা কবির ত্রপা ও ফিরোজা পারভীনের অধিনে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতে মোট ১০টি বাসকে ৫৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এর মধ্যে ৫২ হাজার টাকা আদায় ও ৫ হাজার টাকা অনাদায় রয়েছে।

অভিযানের বিষয়ে বিআরটিএ ভ্রাম্যমাণ আদালত-৪ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফিরোজা পারভীন জানান, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ও বিআরটিএ'এর যৌথ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এই অভিযান মূলত ঢাকা সিটিতে চলাচলের অনুমোদন নেই তবুও সিটিতে চলছে এমন বাস ও ফিটনেসবিহীন যানবাহনের বিরুদ্ধে। আমাদের অভিযানে কোনো ফিটনেসহীন পরিবহন পাওয়া না গেলেও রুট পারমিট ভায়োলেন্স করেছে এবং রুট পারমিটের মেয়াদ নেই এমন বাসগুলোকে জরিমানা করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য এসব রুটপারমিটহীন বাস চলাচল বন্ধ করা। যেহেতু এসব পরিবহনকে মোটা অংকের জরিমানা করা হচ্ছে সেহেতু এটার মাধ্যমে এই মেসেজটা তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে তারা যেন দ্রুত কাগজটা ঠিক করে নেয়।

অভিযানে সর্বোচ্চ ৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় রুপান্তর পরিবহনের একটি বাসকে। এই বাসটি ঢাকার বাইরের রুটে চলাচলের অনুমোদন থাকলেও ঢাকা সিটির ভেতর চলাচল করছিল।

রুট পারমিট ভায়োলেসন ও রুট পারমিটের মেয়াদ না থাকায় বন্ধন পরিবহনের একটি বাসকে ৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এই বাসটি সায়েদাবাদ থেকে নারায়নগঞ্জ রুটে চলাচলের অনুমতি নিয়ে ঢাকা সিটির ভেতরে চলাচল করছিল।

সাভার ও ঘিওড় রুটে চলাচলের অনুমতি নিয়ে মোহাম্মদপুর থেকে সাইনবোর্ড রুটে চলাচল করা মিডলাইন পরিবহনের একটি বাসকেও ৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া রজনীগন্ধা পরিবহনের দুটি বাস, দোয়েল, খাজাবাবা, স্বদেশ, দোলা, বন্ধন, হিমাচল ও বাহন পরিবনের একটি করে বাসকে জরিমানা করা হয়।


আরও খবর
ইকবালসহ ৪ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১