আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

ডেসটিনির রফিকুলের ১২ বছরের কারাদণ্ড

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৩৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মানিলন্ডারিং মামলায় ডেসটিনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমডি রফিকুল আমিনের ১২ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে গ্রুপের চেয়ারম্যান সাবেক সেনাপ্রধান হারুন-অর-রশিদের ৪ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলম এ রায় ঘোষণা করেন। এর আগে গত ২৭ মার্চ আদালত রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ধার্য করেছিলেন।

২০১৪ সালের ৪ মে মামলার চার্জশিট দাখিল করে দুদক। এতে ডেসটিনির গ্রাহকদের চার হাজার ১১৯ কোটি ২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে পাচারের অভিযোগ আনা হয়। চার্জশিটে কো-অপারেটিভ সোসাইটির মামলায় ৪৬ জনকে আসামি করা হয়।

তাদের মধ্যে জামিনে রয়েছেন লে. কর্নেল (অব.) মো. দিদারুল আলম, লে. জেনারেল (অব.) হারুন-অর-রশিদ, মিসেস জেসমিন আক্তার (মিলন), জিয়াউল হক মোল্লা ও সাইফুল ইসলাম রুবেল। কারাগারে আছেন এমডি রফিকুল আমীন ও প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন। অন্য ৩৯ আসামি পলাতক।

পলাতক আসামিরা হলেন- ডেসটিনির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোফরানুল হক, পরিচালক মেজবাহ উদ্দিন, ফারাহ দীবা, সাঈদ-উর-রহমান, সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন, জমশেদ আরা চৌধুরী, ইরফান আহমেদ, শেখ তৈয়বুর রহমান, নেপাল চন্দ্র বিশ্বাস, জাকির হোসেন, জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া, এসএম আহসানুল কবির, জুবায়ের হোসেন, মোসাদ্দেক আলী খান, আবদুল মান্নান, আবুল কালাম আজাদ, আজাদ রহমান, মো. আকবর হোসেন সুমন, মো. সুমন আলী খান, শিরীন আকতার, রফিকুল ইসলাম সরকার। মো. মজিবুর রহমান, ড. এম হায়দারুজ্জামান, মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন, কাজী মো. ফজলুল করিম, মোল্লা আল আমীন, মো. শফিউল ইসলাম, ওমর ফারুক, সিকদার কবিরুল ইসলাম, মো. ফিরোজ আলম, সুনীল বরণ কর্মকার ওরফে এসবি কর্মকার, ফরিদ আকতার, এস সহিদুজ্জামান চয়ন, আবদুর রহমান তপন, মেজর (অব.) সাকিবুজ্জামান খান, এসএম আহসানুল কবির (বিপ্লব), এএইচএম আতাউর রহমান রেজা, গোলাম কিবরিয়া মিল্টন, মো. আতিকুর রহমান, খন্দকার বেনজীর আহমেদ, একেএম সফিউল্লাহ, শাহ আলম, মো. দেলোয়ার হোসেন ও মো. শফিকুল হক।

মামলা সূত্রে জানা যায়, মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভের নামে ডেসটিনি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ১ হাজার ৯০১ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। সেখান থেকে আত্মসাৎ করা হয় ১ হাজার ৮৬১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। যার কারণে ক্ষতির মুখে পড়েন সাড়ে ৮ লাখ বিনিয়োগকারী।


আরও খবর



গাড়ির তেলের ট্যাংকে ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকার আইস

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | ৬৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের টেকনাফে মাইক্রোবাসের তেলের ট্যাংক থেকে ৭০০ গ্রাম ক্রিস্টাল মেথ (আইস) ও ১০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে ডিবি পুলিশ। যার বাজার মূল্য আনুমানিক ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

এ সময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাস জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তার করা হয় মো. আলী (৪১) নামে এক মাদক কারবারিকে। সোমবার (২৫ এপ্রিল) রাত ৯টার দিকে টেকনাফ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে তাকে আটক করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের গোয়েন্দা ইউনিটের (ডিবি) ইনচার্জ সাইফুল আলম।

তিনি জানান, বিপুল ক্রিস্টাল মেথ আইস চালান পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে রাত ৯টার দিকে টেকনাফ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ট্রাকের জ্বালানি তৈলের ট্যাংকের ভেতরে লুকিয়ে অভিনব পদ্ধতিতে পাচারকালে ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকার ক্রিস্টাল মেথ আইস ও ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ এক মাদক কারবারিকে আটক করা হয়েছে।

আটক আসামি দীর্ঘদিন ধরে মাদক পাচারের সঙ্গে জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছেন।


আরও খবর



হাসপাতালে মাশরাফি, পায়ে ২৭ সেলাই

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | ৪২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা আবার ইনজুরিতে পড়েছেন। এবার অবশ্য চোটটা খেলার মাঠ থেকে আসেনি। আহত হয়েছেন নিজ বাসাতেই। তার বাম পায়ের পেছনের অংশ কেটে গেছে। সেখানে ২৭টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। শনিবার (০৭ মে) নিজ বাসায় অবস্থান করছিলেন মাশরাফি। সেখানে কাচের টেবিলের সঙ্গে ধাক্কা লাগে তার। টেবিলে ধাক্কা লাগায় ওপর থেকে তার পায়ের পেছন দিকে কাচ পড়ে। এতে বেশ খানিকটা অংশ কেটে যায়।

দুর্ঘটনার পর তাকে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে সেখানে চিকিৎসার পর শঙ্কা কেটে যায় তার। এখন তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে মাশরাফির পারিবারিক সূত্র।

এমনিতেই ইনজুরিতে জর্জর মাশরাফির ক্যারিয়ার। সদ্য শেষ হওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ শুরুর আগেও চিকিৎসার জন্য ভারতে গিয়েছিলেন। যার জন্য টুর্নামেন্টটির প্রথম ম্যাচ খেলতে পারেননি। ঝুঁকি আছে জেনেও খেলা চালিয়ে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক। 


আরও খবর



মারিউপোলের ইস্পাত কারখানা থেকে সব নারী ও শিশু উদ্ধার

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইউক্রেনের মারিউপোল শহরের অবরুদ্ধ আজভস্তাল ইস্পাত কারখানা থেকে সব বেসামরিক নারী, শিশু ও বয়স্ক মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে। রুশ বাহিনীর হামলার মধ্যেই গত এক সপ্তাহ ধরে কয়েক শ মানুষকে এ কারখানা থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ইউক্রেনের উপ-প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। উপ-প্রধানমন্ত্রী ইরিনা ভেরেশচুক এক টেলিগ্রাম পোস্টে বলেছেন, মারিউপোলে মানবিক উদ্ধার অভিযান শেষ হয়েছে।’

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আজভস্তাল ইস্পাত কারখানাটি সোভিয়েত যুগের। ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে দশ সপ্তাহ ধরে চলমান যুদ্ধে মারিউপোলের এই একটি কারখানাই ইউক্রেনের সেনারা এখন পর্যন্ত নিজেদের দখলে রাখতে পেরেছে। ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চল দখলের জন্য মরিয়া হয়েছে রুশ বাহিনী। তাদের দখল প্রচেষ্টায় প্রতিরোধের প্রতীক হয়ে উঠেছে এই ইস্পাত কারখানাটি।

আজভস্তাল কারখানার ভূগর্ভস্থ বাংকারে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ইউক্রেনের কয়েক শ বেসামরিক মানুষ ও যোদ্ধা অবরুদ্ধ অবস্থায় ছিল। রুশ বাহিনীর গোলাবর্ষণের মধ্যে খাদ্য, পানি ও ওষুধের অভাবে আটকে পড়া এই মানুষেরা অবর্ণনীয় অবস্থায় বেঁচে ছিলেন। ইউক্রেনের একজন সামরিক কমান্ডার জানিয়েছেন, ইউক্রেনের বন্দরনগরী মারিউপোল কৌশলগত কারণে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই শহর থেকে ইউক্রেনের সেনাদের সরিয়ে দেওয়ার জন্য এবং আজভস্তালের দখল নেওয়ার জন্য শনিবার আবার কামানের গোলাবর্ষণ করা হয়েছে এবং ট্যাংক দিয়ে আক্রমণ চালানো হয়েছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, কয়েক সপ্তাহ ধরে রুশ বাহিনীর অবিরাম গোলাবর্ষণে মারিউপোল ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। আজভস্তাল ইস্পাত কারখানাও অনেকাংশে ধ্বংস হয়ে গেছে। এই কারখানায় আটকে পড়া কয়েক শ মানুষকে সরিয়ে নিতে গত সপ্তাহে জাতিসংঘ এবং রেড ক্রসের আন্তর্জাতিক কমিটির মধ্যস্থতায় অপসারণ কার্যক্রম শুরু হয়।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি  এক ভাষণে বলেছেন, ইস্পাত কারখানা থেকে ৩০০ জনেরও বেশি বেসামরিক নাগরিককে উদ্ধার করা হয়েছে। আমরা এখনকার চিকিৎসক ও আহত বেসামরিক মানুষদের সরিয়ে নেওয়ার দিকে মনোযোগ দেব। আমরা চেষ্টা করব কারখানার আশপাশের জনবসতি থেকেও লোকজনকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নেওয়ার।’

এদিকে রুশ সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরাও আজভস্তাল ইস্পাত করখানা থেকে ১৭৬ জনকে সরিয়ে নেওয়ার খবর দিয়েছে। আরও বেসামরিক মানুষ সেখানে আছেন কি না তা এখনো জানা যায়নি।  কারখানার ভেতরে থাকা যোদ্ধারা আত্মসমর্পণ করবে না বলে জানিয়েছে। সেখানে কতজন যোদ্ধা এখনো রয়েছেন তা স্পষ্ট নয়। ইউক্রেনের কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন যে সোমবারের মধ্যে রুশ বাহিনী সম্ভবত এ কারখানা গুঁড়িয়ে দেবে।  এদিকে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালক উইলিয়াম বার্নস বলেছেন, এ যুদ্ধে পুতিন হারতে পারেন তা এখনো বিশ্বাস করতে পারছেন না।’

গত ২১ এপ্রিল রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন মারিউপোলে বিজয় ঘোষণা করেছিলেন এবং আজভস্তাল ইস্পাত কারখানা সিল করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। তারপর ইউক্রেন যোদ্ধাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানিয়েছিলেন। কিন্তু ইউক্রেন বাহিনী এ আহ্বানে সাড়া না দিলে রুশ বাহিনী হামলা শুরু করে।

নিউজ ট্যাগ: ইউক্রেন

আরও খবর



শিমুলিয়া-বাংলাবাজার-মাঝিরকান্দি নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বৈরী আবহাওয়ার কারণে অভ্যন্তরীণ নৌপথে সন্ধ্যা ৭টা থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে ঈদে ঘরমুখো হাজারো যাত্রী।

শিমুলিয়া ঘাটের বিআইডব্লিউটিএর  কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন জানান, অভ্যন্তরীণ নৌপথে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত বলবৎ থাকা ও কালবৈশাখী ঝড়ের আশঙ্কায় সক ধরনের লঞ্চ চলাচল সন্ধ্যা ৭টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।ঘাটে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশনাক্রমে যাত্রীদের ফেরিতে পারাপারের জন্য মাইকিং করা হচ্ছে।

ঈদকে সামনে রেখে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঘরমুখো মানুষ ও যানবাহনের ঢল নামে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে। শনিবার (৩০ এপ্রিল) সকাল থেকে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ও মাঝিকান্দি নৌরুটে পদ্মা পাড়ি দিয়ে গন্তব্যে পৌঁছতে ঘাটে আসছেন হাজার হাজার যাত্রী। মোটরসাইকেল ও যাত্রী পারাপারে হিমশিম অবস্থায় ঘাট কর্তৃপক্ষ। ফেরির পাশাপাশি লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটেও যাত্রীদের প্রচণ্ড ভিড়। এর মধ্যে বৈরী আবহাওয়ার কারণে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছে হাজারো যাত্রী। 


আরও খবর



পাম তেল রপ্তানির নিষেধাজ্ঞা তুলে নিচ্ছে ইন্দোনেশিয়া

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ২৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাম তেল রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে নিচ্ছে ইন্দোনেশিয়া। আগামী সোমবার (২৩ মে) থেকে এ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। ইন্দোনেশীয় সরকারের লক্ষ্য ছিল, স্থানীয় বাজারে ভোজ্যতেলের দাম লিটারপ্রতি ১৪ হাজার রুপিয়ায় (প্রায় ৮৩ টাকা) নামানো। কিন্তু সেই লক্ষ্য পূরণ না হওয়ার আগেই দেশের ভেতরে ও বাইরে থেকে তীব্র চাপের মুখে শেষপর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বাধ্য হলো উইদোদো প্রশাসন।

ইন্দোনেশিয়ায় পাম তেল রপ্তানি বন্ধের প্রতিবাদে গত মঙ্গলবার (১৭ মে) রাজধানী জাকার্তায় বিক্ষোভ করেছেন শত শত কৃষক। সরকারের ওই সিদ্ধান্তে রোজগার অর্ধেকে নেমে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন তারা। নিষেধাজ্ঞা দ্রুততম সময়ে প্রত্যাহার না হলে এর চেয়েও বড় আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন দেশটির পাম চাষিরা। এছাড়া পাম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পর দ্রুত জনপ্রিয়তা হারাচ্ছিলেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট। এরই মধ্যে তার জনসমর্থন গত ছয় বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে গেছে।

ইন্ডিকেটর পলিটিক ইন্দোনেশিয়া নামে স্থানীয় একটি সংস্থার পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, চলতি মে মাসে জোকো উইদোদোর জনসমর্থন ৫৮ দশমিক ১ শতাংশে নেমে গেছে, যা ২০১৫ সালের ডিসেম্বরের পর থেকে সর্বনিম্ন। সেসময় ৫৩ শতাংশে নেমেছিল তার জনসমর্থন। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিলের মধ্যেই জনপ্রিয়তায় ১২ পয়েন্ট হারিয়েছেন ইন্দোনেশীয় প্রেসিডেন্ট। স্থানীয় বাজারে দাম কমানোর কথা জানিয়ে গত ২২ এপ্রিল পাম তেল রপ্তানি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন উইদোদো, ২৮ এপ্রিল থেকে কার্যকর হয় এ সিদ্ধান্ত। ঘোষণার সময় তিনি বলেছিলেন, দেশীয় বাজারে মূল্য নিয়ন্ত্রণে আসলেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হবে। তবে দেশটিতে এখনো তেলের দাম চড়া।

ইন্দোনেশীয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, গত শুক্রবার পর্যন্ত দেশটিতে প্রতি লিটার ভোজ্যতেলের দাম ছিল গড়ে ১৭ হাজার ৩০০ রুপিয়া (১০৩ টাকা প্রায়)। ইন্দোনেশিয়ার মুখ্য অর্থমন্ত্রী এয়ারলাঙ্গা হার্তার্তো জানিয়েছিলেন, প্রতি লিটার ভোজ্যতেলের দাম গড়ে ১৪ হাজার রুপিয়ায় (প্রায় ৮৩ টাকা) নামলেই রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার ইন্দোনেশীয় প্রেসিডেন্ট এক ভিডিওবার্তায় বলেছেন, দেশটির ১ কোটি ৭০ লাখ পাম চাষির জীবিকার কথা বিবেচনায় রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হচ্ছে।

বৈশ্বিক ভোজ্যতেলের বাজারে দীর্ঘদিন ধরে রাজত্ব করে আসছে ইন্দোনেশিয়া। বৈশ্বিক চাহিদার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ ভোজ্যতেল সরবরাহ করে দেশটি। তবে তাদের অননুমেয় রপ্তানি নীতির কারণে প্রায়ই সমস্যায় পড়তে হয় আমদানিকারকদের। এর সবশেষ উদাহরণ, হুট করে পাম অয়েল রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়া। ইন্দোনেশীয় সরকারের এমন একক সিদ্ধান্তের প্রভাবে এরই মধ্যে বিশ্বব্যাপী বেড়ে গেছে ভোজ্যতেলের দাম, চাহিদা মেটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানের মতো দেশগুলোকে। তবে পাম অয়েল রপ্তানি নিষিদ্ধ করে ইন্দোনেশিয়াও খুব একটা স্বস্তিতে ছিল না। একদিকে অচল হয়ে পড়েছে রপ্তানি আয়ের বিশাল একটি অংশ, প্রতিদিন লাখ লাখ ডলার বৈদেশিক মুদ্রা হারাতে হচ্ছে তাদের। অন্যদিকে, বন্ধুত্ব তো বটেই, বিশ্বব্যাপী ভোজ্যতেলের বাজারও হারাচ্ছিল দেশটি। ইন্দোনেশিয়ার অনুপস্থিতির সুযোগে বৈশ্বিক ভোজ্যতেলের বাজারে তাদের অংশ ধীরে ধীরে দখল করে নিচ্ছিল প্রতিদ্বন্দ্বী মালয়েশিয়া।

বিশ্বের বৃহত্তম পাম অয়েল উৎপাদক ইন্দোনেশিয়া। গত ২৮ এপ্রিল তারা পাম রপ্তানি বন্ধ করার পর থেকে ভোজ্যতেল আমদানিকারক দেশগুলো মালয়েশিয়ার দিকে আরও বেশি ঝুঁকতে শুরু করে। ইন্দোনেশিয়ার উৎপাদনের অর্ধেক হলেও বিশ্বের মধ্যে পাম অয়েল উৎপাদনে মালয়েশিয়ার অবস্থান দ্বিতীয়। শুধু ইন্দোনেশিয়ার অনুপস্থিতির সুযোগই নয়, রপ্তানি শুল্ক কমানোর মাধ্যমেও বিশ্ববাজারে নিজেদের অবস্থান আরও সুসংহত করার পরিকল্পনা নেয় মালয়েশিয়া। গত সপ্তাহে মালয়েশীয় ভোগ্যপণ্য মন্ত্রী জুরাইদা কামরুদ্দিন রয়টার্সকে জানিয়েছেন, পাম অয়েলে রপ্তানি শুল্ক প্রায় অর্ধেক কমানোর জন্য দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রস্তাব করা হয়েছে। এরই মধ্যে বিষয়টি পর্যালোচনায় একটি কমিটিও করা হয়েছে। তাছাড়া পাম অয়েল রপ্তানি নিষিদ্ধ করে চাপে পড়ে ইন্দোনেশীয় সরকারও। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে এ নিয়ে চলছিল ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা।

ইন্দোনেশিয়ান পাম অয়েল অ্যাসোসিয়েশনের তথ্যমতে, ২০২০ সালে দেশটি ৩ কোটি ৪০ লাখ টন পাম অয়েল রপ্তানি করে ১ হাজার ৫০০ কোটি মার্কিন ডলারের বেশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় করেছিল। কিন্তু এ বছর সেই আয়ে ধস নামার আশঙ্কা রয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমে গেলে দেশটির সার্বিক অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

নিউজ ট্যাগ: ইন্দোনেশিয়া

আরও খবর