আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

হাজী সেলিমের খালাসের বিরুদ্ধে দুদকের আপিল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৪৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় তথ্য গোপনের অভিযোগে তিন বছরের সাজা থেকে সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মোহাম্মদ সেলিমকে খালাসের বিরুদ্ধে আপিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার (১০ মে) দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, তিন বছরের সাজা থেকে হাজী সেলিমকে হাইকোর্ট খালাস দিয়েছিলেন। তার বিরুদ্ধে আমরা আপিল করেছি।

এর আগে ২০০৭ সালের ২৪ অক্টোবর হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ মামলায় ২০০৮ সালের ২৭ এপ্রিল তাকে দুই ধারায় ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। ২০০৯ সালের ২৫ অক্টোবর এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন হাজী সেলিম। ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি হাইকোর্ট এক রায়ে তার সাজা বাতিল করেন।

পরবর্তী সময়ে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে দুদক। ওই আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি হাইকোর্টের রায় বাতিল করে পুনরায় হাইকোর্টে শুনানির নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ।

এরপর গত ৯ মার্চ অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মোহাম্মদ সেলিমকে বিচারিক আদালতের দেওয়া ১০ বছর কারাদণ্ডাদেশ বহাল রাখেন হাইকোর্ট। তবে একই মামলায় তথ্য গোপনের অভিযোগে তিন বছরের দণ্ড থেকে খালাস পান তিনি। রায় ঘোষণার ৩০ দিনের মধ্যে তাকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। বিচারপতি মো. মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

ওই রায় ঘোষণার পর আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান বলেছিলেন, দুদক আইনে (২৬ এর ২ ধারা) করা মামলায় সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে হাজী সেলিমকে বিচারিক আদালত ৩ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন। সেই অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত না হওয়ায় হাজী সেলিমকে তথ্য গোপনের অভিযোগ থেকে খালাস দিয়েছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, দুদক এ অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেনি।

কিন্তু দুদক আইনের ২৭ (১) ধারা অনুসারে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে হাজী সেলিমকে বিচারিক আদালত ১০ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন। ওই অভিযোগে তার সাজা বহাল রেখেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ১০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশের রায় দেন আদালত।


আরও খবর



মুরগির মাংস কি আদৌ ধোয়া উচিত? ভুল করেন অধিকাংশ মানুষই

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ২৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নিয়মিত মাংস খেতে ভালবাসেন অনেকেই। কিন্তু পাতে পড়ার আগে মাংসের টুকরো ভাল করে ধুতে সময় চলে যায় অনেকটাই। কিন্তু জানেন কি আমেরিকার সর্বোচ্চ ওষুধ নিয়ামক সংস্থা ও ইংল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, রান্নাঘরে মুরগির মাংস ধুতে গেলে হিতে বিপরীত হওয়ার আশঙ্কাই বেশি? শুনতে অবাক লাগলেও সত্যি।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, যে কোনও মাংসের মতো মুরগির মাংসেও একাধিক জীবাণু থাকতে পারে। কিন্তু ভাল করে রান্না করলে, আগুনের তাপে এমনিই ধ্বংস হয়ে যায় জীবাণু। রান্নার আগে রান্নাঘরে মুরগির মাংস ধুতে গেলে উল্টে মাংস থেকে জীবাণু ছড়িয়ে পড়তে পারে অন্যান্য বাসনপত্র ও শরীরে। সেখান থেকে তা অন্যান্য খাবারে ছড়িয়ে পড়লে দেখা দিতে পারে একাধিক রোগ।

কিন্তু বলা বাহুল্য এখানে মাংস কাটার সময় বাইরের দেশের মতো পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা সম্ভব হয় না অধিকাংশ ক্ষেত্রেই। তাই মাংস ধুয়ে নেওয়া ছাড়া উপায় থাকে না। তা হলে কী করণীয়? মিনেসোটা স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মাংস যদি ধুতেই হয় তবে কল থেকে পানি ছেড়ে তার তলায় মাংসের টুকরো ধরে রাখাই ভাল। তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন পানি ছিটে বেশি দূর না যায়। মাংস ধোয়া হয়ে গেলে পানির কল সংলগ্ন অঞ্চল ও বাসনপত্র ভাল করে জীবাণুমুক্ত করাও খুবই জরুরি।


আরও খবর



হাতিয়ার সাথে সারা দেশের নৌ যোগাযোগ বন্ধ

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৪১০জন দেখেছেন

Image

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

ঘূর্ণিঝড় অশনি এর কারণে নদী উত্তাল থাকায় হাতিয়া দ্বীপের সঙ্গে সারা দেশের নৌ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.সেলিম হোসেন। এতে করে দূর্ভোগে পড়েছে হাতিয়া থেকে ঢাকা, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী সহ বিভিন্ন জায়গায় যাওয়ার জন্য অপেক্ষমান যাত্রীরা।

সোমবার (৯ মে) সকাল থেকে বৈরী আবহাওয়ার কারণে উপজেলা প্রশাসন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নৌ চলাচল বন্ধ থাকবে।

উপজেলা প্রশাস সূত্রে জানা যায়, এছাড়া মাছ ধরার সকল প্রকার নৌকা ও ট্রলারগুলো কে উপকূলের কাছাকাছি থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এদিকে দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার উপর দিয়ে সকাল থেকে দমকা হাওয়া ও ভারি বর্ষণ অব্যাহত রয়েছে। ফলে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হয়ে পড়েছে।


আরও খবর



হোয়াইট হাউসে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী প্রেসসচিব

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৬ মে ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন হোয়াইট হাউসের নতুন প্রেস সেক্রেটারি (সচিব) হিসেবে কারিন জ্যঁ-পিয়ারের নাম ঘোষণা করেছেন। তিনি প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করতে যাচ্ছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ তথ্য জানায়। এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম বারের মতো প্রশাসনের মুখপাত্র হিসেবে একজন কৃষ্ণাঙ্গ নারীকে দেখবে বিশ্ব।

জো বাইডেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে ৪৪ বছর বয়সি জ্যঁ-পিয়ার তাঁর প্রশাসনের মুখ্য উপ-প্রেস সচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। আগামী সপ্তাহের শেষ দিকে কারিন ৪৩ বছর বয়সি বর্তমান প্রেস সচিব জেন সাকির স্থলাভিষিক্ত হবেন। প্রেস সচিবেরা হোয়াইট হাউসের সাংবাদিকদের সঙ্গে দৈনিক সংবাদ সম্মেলন করেন।

হোয়াইট হাউসের বর্তমান প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি নিউইয়র্ক-ভিত্তিক নিউজ চ্যানেল এমএসএনবিসিতে যোগদান করবেন। তাই, সাকির স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন জ্যঁ-পিয়ার।

এক টুইটে জেন সাকি তাঁর উত্তরসূরিকে নৈতিক গুণাবলী সমৃদ্ধ এক অসাধারণ নারী হিসেবে উল্লেখ করেছেন। জেন সাকি বলেন, তাঁর চমক দেখার জন্য আমার আর তর সইছে না, কারণ কর্মক্ষেত্রে তিনি তাঁর নিজস্ব শৈলী ও প্রতিভার দারুণ সমন্বয় নিয়ে আসেন। হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি হলেন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের কাছে প্রেসিডেন্টর মুখপাত্র।


আরও খবর



হলের ছাদ থেকে পড়ে জাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হলের ছাদ থেকে পড়ে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। ওই শিক্ষার্থীর নাম অমিত কুমার বিশ্বাস। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের ৪৫ তম ব্যাচের (২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষ) স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী এবং শহীদ রফিক-জব্বার হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।

মঙ্গলবার (১০ মে) বিকেল ৫টা ১৮ মিনিটে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান অমিত কুমার।

এ বিষয়ে শহীদ রফিক-জব্বার হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক সোহেল আহমেদ বলেন, পাঁচতলার ছাদ থেকে পড়ে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। ওই অবস্থায় তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসাকেন্দ্রে নেওয়া হয়। সেখানকার চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র পাঠানোর সুপারিশ করলে তাঁকে সাভারের বেসরকারি হাসপাতাল এনাম মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়।’

প্রাধ্যক্ষ বলেন, তাঁর প্রচুর রক্তপাত হচ্ছিল। হাসপাতালে নেওয়ার পর কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়। প্রক্টরিয়াল টিমসহ আমরা হাসপাতালেই ছিলাম। তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক পর্যায়ে ছিল।’

পরে বিকেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা অমিতের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এ ব্যাপারে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ এর মেডিকেল অফিসার ডা. ইফরান বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সে ভবনের ছাদ থেকে পড়ে গুরুতর আহত হয়। তবে তাঁর শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। পরবর্তীতে আইসিইউতে থাকা অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়েছে। আমরা তাঁর অভিভাবকের অনুমতি নিয়ে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র থেকে বের করি।’

অমিত শহীদ রফিক জব্বার হলের ৩১৫ নম্বর কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি খুলনায়। বাবা অজয় কুমার বিশ্বাস বাংলাদেশ নৌ বাহিনীতে কর্মরত। অমিত পরিবারের একমাত্র সন্তান।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের ৪৪ ব্যাচের ছাত্র শাহরিয়ার খান হৃদয় বলেন, আমি তিন তলায় থাকা অবস্থায় ভারী কিছু ছাদ থেকে পড়ার শব্দ শুনি। তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে অমিতকে পড়ে থাকতে দেখি এবং সঙ্গে সঙ্গে হলের কিছু ছাত্রদের সহায়তায় তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেলে নিয়ে আসি। সেখান থেকে তাঁকে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।’ 


আরও খবর



রেলওয়ের ৪৬ ইঞ্জিন যাত্রা করছে ২৭ এপ্রিল

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অবেশেষে বাংলাদেশ রেলওয়ের ৪৬টি লোকোমোটিভের (ইঞ্জিন) আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হচ্ছে আগামী ২৭ এপ্রিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রডগেজ ও মিটারগেজের এ লোকোমোটিভগুলো উদ্বোধন করবেন। দেশে আসা এবং রেল বহরে যুক্ত হওয়ার কয়েক মাস পর এগেুলো উদ্বোধন হচ্ছে। বাংলাদেশ রেলওেয়ের যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৮৬২ সালে দর্শনা থেকে জগতি পর্যন্ত ৫৩ দশমিক ১১ কিলোমিটার লাইন স্থাপনের মধ্য দিয়ে। রেলওয়ের সেই যে পথ চলা শুরু তারপর আর থেমে নেই। কিন্তু চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে।

১৯৫৩ সালে বাংলাদেশ রেলওয়েতে যুক্ত হয়েছিল ২৪৩টি লোকোমোটিভ(ইঞ্জিন)। তারপর প্রায় ৭৭ বছর পার হয়ে গেলেও দেশের রেলওয়েতে নতুন ইঞ্জিন বা লোকোমোটিভ সংযোজন হয়নি। যার ফলে সাড়ে ৭১ শতাংশ লোকোমোটিভ বয়সের ভারে জীর্ণ। এগুলোকে মেরামত করে ঠেলাধাক্কায় চলছিল রেল।

রেলওয়েতে গতি আনতে সরকার নতুন লোকোমোটিভ কেনার উদ্যোগ নেয়। ২০০৯ সালে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর রেলওয়েকে নিয়ে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করে। ওই পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই রেলওয়ের জন্য ৫০টি মিটারগেজ ও ৪২টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ বা ইঞ্জিন কেনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এরই অংশ হিসেবে ২০১৯ সালে এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে ৪০টি ব্রডগেজ লোকমোটিভ ক্রয়ের জন্য বাংলাদশে রেলওয়ে আমেরিকান কোম্পানির সঙ্গে। একইভাবে এডিবির অর্থায়নে ২০১৮ সালে ১০টি মিটারগেজ ডিজেল ইলেকট্রিক লোকোমোটিভ ক্রয়ের চুক্তি স্বাক্ষর করে। আর ২০১৯ সালে ইডিসিএফ, কোরিয়ার অর্থায়নে আরও ২০টি মিটারগেজ ডিজেল ইলেকট্রিক লোকোমোটিভ ক্রয়ের চুক্তি স্বাক্ষর করে রেলওয়ে।

চুক্তি অনুযায়ি ক্রয়কৃত ব্রডগেজ ও মিটারগেজ লোকোমোটিভগুলোর মধ্যে ২০২০ ও ২০২১ সালে মোট ৪৬টি লোকোমোটিভ দেশে আসে রেলওয়ের বহরে যুক্ত হয়। এরমধ্যে মিটারগেজ লোকোমোটিভের সংখ্যা হচ্ছে ৩০টি এবং ব্রডগেজের সংখ্যা হচ্ছে ১৬টি। বাকিগুলো আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে রেলওয়েতে যুক্ত হবে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, দেশে আসা লোকোমোটিভগুলোর মধ্যে মিটারগেজের লোকেোমোটিভগুলো ইতিমধ্যে পূর্বাঞ্চল রেলে চলাচল করছে। আর ব্রডগেজ মিটারগুলো পশ্চিমাঞ্চল রেলে ট্রায়াল রান দিচ্ছে। লোকোমোটিভগুলো ২০২০ সালে দেশে আসলেও কোভিড-১৯ এর সংক্রমণের কারণে লোকোমোটিভগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা যায়নি। এই অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী সম্মতি দিয়েছেন আগামী ২৭ এপ্রিল লোকোমোটিভগুলো আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের।

জানতে চাইলে রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, 'আমরা ৪৬টি লোকোমোটিভ উদ্বোধনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে সময় চেয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী ২৭ এপ্রিল সময় দিয়েছেন। আশা করছি ওই দিন লোকোমোটিভগুলো উদ্বোধন হবে। মিটারগেজের লোকোমোটিভগুলো চলছে। তবে ব্রডগেজেরগুলো ট্রায়াল রান দিচ্ছে।'

শুধু এই লোকোমোটিভই নয়, রেলওয়ের গতি, যাত্রী সেবা এবং পণ্য পরিবহনের মান বাড়াতে সরকার আরও ৪৬টি নতুন ব্রডগেজ লোকোমোটিভ, ৫৬০টি নতুন ব্রডগেজ যাত্রীবাহী ক্যারেজ, ১৫০টি নতুন মিটারগেজ যাত্রীবাহী ক্যারেজ, ১২৫টি আধুনিক লাগেজ ভ্যান, ১ হাজার ৩১০টি নতুন ওয়াগন সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে রেলওয়ে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ আশা করছে, আগামী দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে এসব লোকোমোটিভ ও ক্যারজেগুলো রেলওয়েতে যুক্ত হবে। বাড়বে যাত্রী সেবার মানও।

নিউজ ট্যাগ: বাংলাদেশ রেলওয়ে

আরও খবর