আজঃ শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২
শিরোনাম

হবিগঞ্জে এসপিসহ ৫৪ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | ৫২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলিসহ ৫৪ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আমলি (১) আদালতে মামলাটি দায়ের করেন বিএনপি জেলা আহবায়ক কমিটির সদস্য ও আইনজীবী মো. শামছুল হক।

জানা গেছে, মামলায় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুক আলী, ডিবির ওসি আল আমিন, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) দৌস মোহাম্মদ, একজন এসআই, দুজন এএসআই এবং ৪৬ জন কনস্টেবলকে আসামি করা হয়েছে।

গত ২২ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে হবিগঞ্জে বিএনপির সভা-সমাবেশে পুলিশ বাধা দেয়। সে সময় শর্টগানের গুলি, টিয়ারশেল, লাঠিচার্জ করে দলটির নেতাকর্মীদের গুরুতর আহত করার অভিযোগ রয়েছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

এদিকে, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধান মামলাটি আমলে নিলেও তাৎক্ষণিক কোন আদেশ দেননি।

নিউজ ট্যাগ: হবিগঞ্জ বিএনপি

আরও খবর



পাকিস্তানে বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৪০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন অধিনায়ক বাবর আজম।আর টি-টোয়েন্টিতে বর্ষসেরার খেতাব জিতেছেন দলটির উইকেটকিপার-ব্যাটার মোহাম্মদ রিজওয়ান।

বৃহস্পতিবার ৮টি ক্যাটাগরিতে বছরের সেরা ক্রিকেটারদের নাম ঘোষণা করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।

সেখানে বাবর-রিজওয়ানের খেতাব ছাড়াও পুরস্কার পেয়েছেন তরুণ পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি।  এ বছর ইমপ্যাক্টফুল পারফরম্যান্স অব দি ইয়ার খেতাব জিতেছেন তিনি।  আর ইমার্জিং ক্রিকেটার হয়েছেন মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র।

টি-টোয়েন্টির বর্ষসেরা রিজওয়ান মোস্ট ভেলুয়েবল ক্রিকেটার অব দি ইয়ারও হয়েছেন।  আর টেস্টে বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন পেসার হাসান আলি। পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের মধ্যে বর্ষসেরা হয়েছেন নিদা দার।

একনজরে পিসিবির বর্ষসেরাদের তালিকা

ইমপ্যাক্টফুল পারফরম্যান্স অব দি ইয়ার : শাহীন শাহ আফ্রিদি

ইমার্জিং ক্রিকেটার অব দি ইয়ার মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র

ওয়ানডে ক্রিকেটার অব দি ইয়ার বাবর আজম

টেস্ট ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার: হাসান আলী

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটার অব দি ইয়ার: মোহাম্মদ রিজওয়ান

উইমেনস ক্রিকেটার অব দি ইয়ার: নিদা দার

ডমেস্টিক ক্রিকেটার অব দি ইয়ার: শাহিবজাদা ফারহান

মোস্ট ভেলুয়েবল ক্রিকেটার অব দি ইয়ার: মোহাম্মদ রিজওয়ান

আম্পায়ার অব দি ইয়ার: আসিফ ইয়াকুব

স্পিরিট অব ক্রিকেট: বিশ্বকাপে নামিবিয়ার ড্রেসিংরুমে গিয়ে পাকিস্তানের অভিবাদন


আরও খবর



মানিকগঞ্জের হাজারী গুড়ে মুগ্ধ ইউরোপ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারী ২০২২ | ২০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাটির তৈরি বিশেষ চুলায় খেজুরের রস জ্বালানো হচ্ছে। ইনসেটে হাজারী গুড়।মাটির তৈরি বিশেষ চুলায় খেজুরের রস জ্বালানো হচ্ছে। ইনসেটে হাজারী গুড়। লোকজ গান আর হাজারী গুড়, মানিকগঞ্জের প্রাণের সুর। জেলার ঐতিহ্য বহন করায় এভাবেই হাজারী গুড়ের নামে মানিকগঞ্জ জেলাকে ব্রান্ডিং করা হয়েছে। মানিকগঞ্জের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঙ্গে মিশে আছে এ গুড়ের নাম। অতুলনীয় স্বাদ আর মনমাতানো সুগন্ধের কারণে শুধু দেশেই নয়, বিদেশেও রয়েছে এ গুড়ের চাহিদা। সুদূর ইউরোপেও ছড়িয়েছে হাজারি গুড়ের ঘ্রাণ ও স্বাদ।

হাজারী গুড়ের উৎপত্তি জেলার হরিরামপুর উপজেলার ঝিট্কা অঞ্চলে। এ অঞ্চলের কিছু পরিবার এখানো হাজারী গুড় তৈরি করছে। একসময় ব্যাপকভাবে হাজারী গুড়ের উৎপাদন হলেও খেজুর গাছের স্বল্পতা ও বৈরী আবহাওয়ার কারণে তা কমে এসেছে।

জনশ্রুতি আছে, ইংল্যান্ডের রানি এলিজাবেথকেও এই গুড় উপহার দেওয়া হয়েছিল। রানি এলিজাবেথ গুড় খেয়ে অভিভূত হয়েছিলেন। গুণমুগ্ধতা প্রকাশ করতে আগ্রহী হয়ে হাজারী নামে একটি সিলমোহরও তৈরি করে দিয়েছিলেন রানি। তিনি নিজেই ছড়িয়ে দিয়েছিলেন এ গুড়ের নাম।


হাজারী গুড়ের ইতিহাস: হাজারী গুড় নিয়ে এলাকায় প্রচলিত গল্প থেকে জানা যায়, প্রায় দেড়শ বছর আগে হরিরামপুর উপজেলার ঝিট্কা অঞ্চলে মো. হাজারী প্রামানিক নামে একজন গাছি ছিলেন। যিনি খেজুরের রস দিয়ে গুড় তৈরি করতেন। একদিন বিকেলে খেজুর গাছে হাঁড়ি বসিয়ে গাছ থেকে নামামাত্রই একজন দরবেশ তার কাছে রস খেতে চান। তখন হাজারী প্রামানিক ওই দরবেশকে বলেছিলেন, সবেমাত্র গাছে হাঁড়ি বসানো হয়েছে। এতো অল্প সময়ে বড় জোর ১০-১৫ ফোঁটা রস হাঁড়িতে পড়েছে। তবুও দরবেশ তাকে গাছে উঠে হাঁড়ি নামিয়ে রস খাওয়ানোর অনুরোধ জানান। দরবেশের অনুরোধে আবারো খেজুর গাছে ওঠেন হাজারী প্রামানিক। তিনি দেখতে পান, রসে হাঁড়ি ভরে গেছে। রসভর্তি হাঁড়ি নিয়ে তিনি গাছ থেকে নেমে দরবেশকে রস খাওয়ান এবং দরবেশের পা জড়িয়ে ধরেন। তখন দরবেশ তাকে বুকে জড়িয়ে ধরে বলেন, তুমি যতো গুড় তৈরি করবে, তার সুনাম দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে পড়বে। এরপর থেকেই গাছি হাজারী প্রামানিকের নামেই এই গুড়ের নাম হাজারী গুড় নামে প্রচলিত হয়।


যেভাবে তৈরি হয় হাজারী গুড়: কয়েকজন গাছি জানান, আগের দিন বিকেলে গাছ কেটে হাঁড়ি বেঁধে দেওয়া হয়। পরদিন ভোরে গাছ থেকে রস নামিয়ে ছেঁকে ময়লা পরিষ্কার করে মাটির তৈরি পাত্রে (জালা) অথবা টিনের তৈরি পাত্রে (তাপাল) চুলায় জ্বাল দিয়ে বিশেষ পদ্ধতিতে গুড় তৈরি করতে হয়। মিষ্টি ও টলটলে রস ছাড়া এ গুড় হয় না। এক কেজি হাজারী গুড় তৈরিতে প্রায় ১২ থেকে ১৫ কেজি রস প্রয়োজন। প্রচুর চাহিদা থাকায় গুড় নেওয়ার জন্য আগে থেকেই গাছিদের বলে রাখতে হয়। প্রতি কেজি গুড় বিক্রি হয় ১৪০০-১৬০০ টাকায়।

ঝিট্কা গাছিপাড়া এলাকার আব্দুস সালাম গাছি বলেন, দিন দিন খেজুর গাছের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। নানা কারণে কমে যাচ্ছে রসের পরিমাণও। যে কারণে চাহিদা মোতাবেক গুড় তৈরি করা যাচ্ছে না। এছাড়া বছরের অল্প কিছু সময় খেজুরের রস থেকে গুড় তৈরি করা যায়। বাকি সময় গাছিদের প্রায় বেকারই থাকতে হয়। তাই অনেকে পেশাও বদল করেছে। এখন ঝিটকা এলাকায় ১০-১২টি পরিবার এই গুড়ের ঐহিত্য টিকিয়ে রাখতে সংগ্রাম করে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি। প্রতিনিয়ত গাছ ও গাছির সংখ্যা কমে যাওয়ার কারণে অদূর ভবিষ্যতে হাজারী গুড় অস্তিত্ব সংকটে পড়তে পারে বলেও জানান তিনি।


সিদ্দিক প্রামানিক নামের এক গাছি বলেন, চাহিদা বেশি থাকায় অসাধু কিছু ব্যবসায়ী নকল সীল ও অল্প দামে ভেজাল গুড় তৈরি করে হাজারী গুড় বলে বিক্রি করে আসছে। এতে নষ্ট হচ্ছে হাজারী গুড়ের সুনাম।

হাজারী প্রোডাক্টস, মানিকগঞ্জ-এর স্বত্ত্বাধিকারী শফিকুল ইসলাম হাজারী শামীম বলেন, ঝিট্কা এলাকার ১০ থেকে ১২টি পরিবার প্রতিদিন ৪০ থেকে ৫০ কেজি গুড় তৈরি করেন। খেজুর গাছ কমে যাওয়ায় গুড়ের উৎপাদনও কমছে। ভেজাল প্রতিরোধ করতে গতবছর থেকে রেজিস্টার্ড ট্রেডমার্কযুক্ত প্যাকেটের মাধ্যমে গুড় বাজারজাত করা হচ্ছে। হাজারী গুড় টিকিয়ে রাখতে হলে রাস্তাঘাট ও পতিত জমি এবং ভিটে-বাড়ির আঙিনায় বেশি বেশি করে খেজুরগাছ রোপণ করতে এলাকাবাসীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

হরিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, ঐতিহ্যবাহী হাজারী গুড়কে টিকিয়ে রাখতে হলে খেজুর গাছের পরিমাণ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। আমরা সে লক্ষ্যে কাজ করছি। এছাড়া, গুড়ের মান বজায় রাখতে প্রবীণ কারিগরদের সঙ্গে আলোচনা করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। শীত আগমনের শুরুতেই খেজুর রস সংগ্রহে ব্যস্ত  সময় পার করছে জেলার বিভিন্ন উপজেলার গাছিরা।


আরও খবর



আমীর খসরুর বক্তব্যের সময় ভেঙে পড়ল মঞ্চ

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামে নেতাকর্মীদের ধাক্কাধাক্কিতে ভেঙে পড়েছে বিএনপির সভা মঞ্চ। এ সময় নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কর্ণফুলী থানার সিডিএ আবাসিক মাঠে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে দক্ষিণ জেলা বিএনপির আয়োজন অনুষ্ঠিত সমাবেশে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেওয়ার সময় নেতাকর্মীদের ধাক্কাধাক্কিতে হঠাৎ মঞ্চ ভেঙে পড়ে। এ সময় নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। তবে কেউ গুরুতর আহত হননি বলে জানিয়েছেন উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

এর আগে সকাল থেকেই বিএনপির নেতাকর্মীরা সমাবেশ স্থলে আসতে থাকে নানা উপজেলা থেকে নেতাকর্মীরা। অনুষ্ঠান শুরুর কিছুক্ষণ পরই থেকে হেলে পড়ে মঞ্চ। পরে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বক্তব্য দেওয়ার সময় ধাক্কাধাক্কিতে মঞ্চ একেবারে ভেঙে পড়ে। এরপরও ভাঙা মঞ্চে দাঁড়িয়ে বক্তব্য দেন তিনি।

এ সময় আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ১৪৪ ধারা দিয়ে সমাবেশ ঠেকানো আর অনুমতি নিয়ে সমাবেশ করার দিন শেষ। জনগণের জোয়ারে সব ভেসে যাবে। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই না। তাকে আন্দোলনের মাধ্যমে মুক্ত করে আনব।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্যসচিব আবুল হাশেম প্রমুখ।


আরও খবর



যেসব এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ ডিসেম্বর ২০২১ | ৪৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর কিছু এলাকায় পাইপলাইন মেরামতের জন্য আজ মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ৪ ঘণ্টা গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখা হবে। সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্যাস পাইপ লাইনের জরুরি টাই-ইন কাজের জন্য আগামীকাল (২৮ ডিসেম্বর) মঙ্গলবার সকাল ৯টা হতে রাত ৯টা পর্যন্ত ১২ ঘণ্টা নর্থ সারকুলার রোড, ভুতের গলি, হাতিরপুল এলাকা, সেন্ট্রাল রোড, ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, এলাকায় সব শ্রেণির গ্রাহকের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে এবং আশপাশের এলাকায় গ্যাসের স্বল্প চাপ বিরাজ করতে পারে।

গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখায় সাময়িক অসুবিধার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ।


আরও খবর



রাবির কবরস্থান এখন মাদকের আস্তানা, চলে জুয়ার আসর!

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৩০জন দেখেছেন

Image

রাবি প্রতিনিধি:

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) কবরস্থান, যেখানে শায়িত আছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক গুণী শিক্ষক। সেখানেই বসে নিয়মিত মাদকের আড্ডা। এমনকি জুয়ার আসরও।

নির্জনতাকে পুঁজি করে স্থানীয় মাদকসেবীরা পবিত্র এই স্থানটিকে মাদকের আখড়ায় পরিণত করলেও সেটি বন্ধে কার্যকর উদ্যোগ নেই প্রশাসনের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কবরস্থানের উত্তর-পশ্চিম পার্শ্বের দেয়াল ঘেঁষে যথারীতি আস্তানা গেড়ে বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য সেবন করছেন তারা। বড় আকারে গর্ত করে মাদকদ্রব্যের উচ্ছিষ্ট রাখার ব্যবস্থাও করা হয়েছে সেখানে। ফেনসিডিল, গাঁজা, মদ ও ইয়াবা সেবনের নানা উপকরণে ভর্তি সেই গর্ত।

প্রতিদিন সন্ধ্যা গড়ালেই শুরু হয় তাদের এসব কর্মকান্ড এবং চলতে থাকে মধ্যরাত পর্যন্ত। শুধু মাদক নয় সেখানে প্রায় সময় অনৈতিক কার্যক্রমের ঘটনাও ঘটতে দেখেছেন স্থানীয় লোকজন।

কবরস্থানে দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তা রক্ষীরা বলেন, জায়গাটি খুবই ভয়ংকর যেজন্য তারাও সেখানে যান না ছিনতাইয়ের ভয়ে। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কবর জিয়ারতে আসলে তারা বিষয়টি অবহিত করেন। পরে প্রশাসন পুলিশের সাথে এ বিষয়ে কথা বলবেন বলে জানান।

তারা আরো বলেন, কবরস্থান মসজিদে প্রায়শই চুরির ঘটনাও ঘটছে। দু-একদিনের মধ্যে জুতা চুরি হয়েছে এবং মাঝে মাঝে সাইকেলও চুরি হয় বলে তারা মন্তব্য করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, বহিরাগত লোকজন গ্রæপ আকারে প্রতিদিন রাত ৭-৮ টার দিকে এখানে এসে মাদকের আড্ডা বসায়। প্রায় সারারাত চলতে থাকে এমনসব  আড্ডা। লক্ষ লক্ষ টাকার জুয়া খেলাও চলে এই পবিত্রস্থানে। এমনকি মাঝে মাঝে নারী নিয়েও তাদেরকে আসতে দেখেন তিনি। এই নির্জন জায়গায় প্রতিনিয়তই ছিনতাইয়ের ঘটনাও ঘটছে বলে অভিযোগ তার।

বিশ্ববিদ্যালয় কবরস্থানে এমন মাদকের আড্ডার ব্যাপারটি দুঃখজনক’ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বিভাগের অধ্যাপক ড. ইফতেখারুল আলম মাসউদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কবরস্থান যাকে রক্ষা করা বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন  ইচ্ছে করলে দুদিনের মধ্যেই মাদকমুক্ত করতে পারে। এতে একটি সংঘবদ্ধ চক্র সক্রিয় রয়েছে যাদের সাথে প্রশাসনের হাত আছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, প্রশাসনের দায়িত্বের অবহেলার কারণেই এসব মাদকসেবীরা সেখানে মাদকের আস্তানা গেড়ে বসেছেন। তারা কবর বাসীর নিরাপত্তাটুকুও দিতে পারছেনা বলে তার অভিযোগ। এটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের চরম ব্যর্থতা বলে অভিহিত করেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয় কবরস্থান আমাদের সম্পদ এবং তাকে রক্ষা করাও আমাদের দায়িত্ব। তাই প্রশাসনে উচিত সেই জায়গাগুলোকে মাদকমুক্ত করা।

কবরস্থান নিকটবর্তী চন্দ্রিমা থানার পুলিশ পরিদর্শক এমরান হোসেন বলেন, আমাদের কাছে মাদকসেবন ও জুয়ার আসর সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কোনো তথ্য আসেনি সেজন্য আমরা এ বিষয় সম্পর্কে অবগত ছিলাম না। তবে বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখছি বলে তিনি জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর লিয়াকত আলী বলেন, কবরস্থানের এমন অপকর্ম সম্পর্কে আমরা জানতাম না  জানতাম না তবে আজকে ঘটনাটি শুনেছি এবং অতিদ্রæত পদক্ষেপ নিচ্ছেন বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য মো.সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে পরপর ছিনতায়ের ঘটনা ঘটায় আমরা সকল স্থান নিয়ে সচেতন আছি এবং সর্বাত্বকভাবে কাজ করে যাচ্ছি। আমরা গতকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে এলার্ট জারি করেছি এবং পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে পর্যাপ্ত লাইট, সিসি ক্যামারা এবং পুলিশ মোতায়েনসহ গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে তিনি জানান।


আরও খবর