আজঃ শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

হবিগঞ্জে স্কুল পরিষ্কার করতে ব্যয় সাড়ে ৫ কোটি টাকা

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১২৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হবিগঞ্জে খুলে দেওয়া হয়েছে ১ হাজার ৩২১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। স্কুল, কলেজ ও মাদরাসায় ফিরছে ৪ লক্ষাধিক শিক্ষার্থী।

তবে প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকা প্রতিষ্ঠানগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে ব্যয় হয়েছে সাড়ে ৫ কোটি টাকা।

জানা গেছে, সরকারি-বেসরকারি ও এমপিওভুক্ত মিলিয়ে হবিগঞ্জ জেলায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১ হাজার ৩২১টি। এর মধ্যে শুধু প্রাথমিক বিদ্যালয় ১ হাজার ৫২টি ও বাকি ২৬৯টি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল, কলেজ, মাদরাসা।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আমিরুল ইসলাম জানান, ১ হাজার ৫২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিষ্কার ও এগুলোতে স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী কেনা হয়েছে। এজন্য প্রতিটি বিদ্যালয়ে গড়ে ৫০ হাজার করে মোট ব্যয় হয়েছে ৫ কোটি ২৬ লাখ টাকা।

একই কাজে ২৬৯টি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল কলেজ এবং মাদরাসায় ব্যয় হয়েছে ১০ হাজার করে ২৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা। ফলে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক মিলিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ব্যয় দাঁড়ায় ৫ কোটি ৫২ লাখ ৯০ হাজার টাকা।

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল্লাহ জানান, নির্দেশনা আসার পর থেকেই প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল। গতকাল শনিবার পর্যন্ত কর্মকর্তা ও শিক্ষক-কর্মচারী মিলে শ্রম দিয়েছেন। সফলভাবে প্রথমদিনের পাঠদান সম্পন্ন হবে বলে আশাবাদী তারা।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ সারাদেশের মতো হবিগঞ্জের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়। ১ বছর ৫ মাস ২৫ দিন পর প্রতিষ্ঠানগুলো খুলছে আজ।  

নিউজ ট্যাগ: হবিগঞ্জ

আরও খবর



নেতাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব, কাবুল ছেড়েছেন বারাদার

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে তালেবান নেতাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। দেশটির নতুন সরকার গঠন নিয়ে দ্বন্দ্বের পর তর্ক-বিতর্কে জড়িয়েছেন তারা। এর জের ধরে কাবুল ছেড়ে চলে গেছেন তালেবানের অন্যতম শীর্ষ নেতা ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা আব্দুল গনি বারাদার।

তালেবানের জ্যেষ্ঠ নেতাদের বরাত দিয়ে বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। তালেবানের ওই নেতারা জানিয়েছেন, দেশটির নতুন অন্তর্বর্তী সরকার গঠন নিয়ে কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে মোল্লা আব্দুল গনি বারাদার এবং নতুন সরকারে স্থান পাওয়া এক মন্ত্রীর মধ্যে বাক-বিতণ্ডা হয়।

তালেবানের অন্যতম শীর্ষ নেতা ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা আব্দুল গনি বারাদারকে সম্প্রতি প্রকাশ্যে দেখা না যাওয়ার পর থেকেই আফগানিস্তানে নতুন সরকার গঠন নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছে বলে খবর বের হয়েছে। তবে তালেবান আনুষ্ঠানিকভাবে এসব খবর প্রত্যাখ্যান করেছে।

গত ১৫ আগস্ট কাবুল দখলের মাধ্যমে আফগানিস্তানের শাসন ক্ষমতা দখলে নেয় তালেবান। এরপরই আফগানিস্তানকে ইসলামিক আমিরাত হিসেবে ঘোষণা করে করে গোষ্ঠীটি।

গত সপ্তাহে আফগানিস্তানে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার ঘোষণা করে তালেবান। দেশটির নতুন এই সরকারের নেতৃত্বে রয়েছেন মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দ। কোনো নারীর স্থান না হওয়া নতুন এই সরকারে এমন সব জ্যেষ্ঠ ও কট্টরপন্থি তালেবান নেতাদেরকে স্থান দেওয়া হয়েছে, যারা গত দুই দশক ধরে দেশটিতে মার্কিন বাহিনীর ওপর জঘন্য সব হামলা পরিচালনার জন্য অভিযুক্ত।

আফগানিস্তানের নতুন সরকারের প্রধান হলেও মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দ জাতিসংঘের কালো তালিকায় রয়েছেন। ১৯৯৬-২০০১ সালে তালেবানের প্রথম দফার সরকারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। অবশ্য বিশ্বের কোনো দেশই এখন পর্যন্ত তালেবানের এই সরকারকে স্বীকৃতি দেয়নি।

তালেবানের একটি সূত্র বিবিসি পশতুকে জানিয়েছে, আফগানিস্তানে গঠন করা নতুন অন্তর্বর্তীকালীন সরকার নিয়ে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে বাক-বিতণ্ডায় লিপ্ত হন মোল্লা আব্দুল গনি বারাদার এবং নতুন সরকারের শরণার্থী বিষয়ক মন্ত্রী খলিল-উর রহমান হাক্কানি। এসময় তাদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়।

খলিল-উর রহমান হাক্কানি দেশটির প্রভাবশালী হাক্কানি নেটওয়ার্কের একজন শীর্ষস্থানীয় নেতা। উভয় নেতার বাক-বিতণ্ডার সময় আশপাশে থাকা তাদের অনুসারীরাও ঝগড়ায় লিপ্ত হন বলেও ওই সূত্রটি জানিয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, কাতারে অবস্থান করছেন তালেবানের এমন একজন শীর্ষ নেতাও এই ঘটনার কথা স্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, গত সপ্তাহের শেষের দিকে কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে এই ঘটনা ঘটেছে।

সূত্রগুলো জানিয়েছে, আফগানিস্তানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া মোল্লা আব্দুল গনি বারাদার সদ্য গঠনকৃত সরকার নিয়ে অসন্তুষ্ট ছিলেন এবং এ কারণেই মূলত বাক-বিতণ্ডার ওই ঘটনা ঘটেছে। বলা হচ্ছে- আফগানিস্তানে তালেবানের বিজয়ের পেছনে কাদের অবদান বেশি; এটি নিয়েও তাদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়।

গত সপ্তাহ থেকে বারাদারকে আর প্রকাশ্যে দেখা যায়নি। এরপরই নিজেদের মধ্যে গোলাগুলিতে বারাদার নিহত হয়েছেন বলে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। তবে তা অস্বীকার করেছে তালেবান।

তালেবানের কয়েকটি সূত্র বিবিসিকে জানিয়েছে, বাক-বিতণ্ডার পর মোল্লা আব্দুল গনি বারাদার কাবুল ছেড়ে কান্দাহারে চলে গেছেন।

 

নিউজ ট্যাগ: তালেবান নেতা

আরও খবর



সুনীল অর্থনীতির বিকাশে সামুদ্রিক মৎস্যসম্পদের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে: শ ম রেজাউল করিম

প্রকাশিত:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২৬১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা পরবর্তীতে দূরদৃষ্টি দিয়ে ঘোষণা করেছিলেন, মাছ হবে দ্বিতীয় প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী সম্পদ

সুনীল অর্থনীতির বিকাশে সামুদ্রিক মৎস্যসম্পদের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি।

বুধবার (০১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ফার্মগেটের বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল মিলনায়তনে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২১ উপলক্ষ্যে আয়োজিত উপকূলীয় মৎস্যসম্পদ উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা: সুনীল অর্থনীতি ও রুপকল্প ২০৪১ প্রেক্ষিত শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী একথা জানান। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই) এ সেমিনার আয়োজন করে।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেস্ট ডিপ্লোমেসির মাধ্যমে বাংলাদেশের প্রায় সমপরিমাণ সমুদ্রসীমায় আমাদের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এই সমুদ্র আমাদের সুনীল অর্থনীতির সবচেয়ে বড় সম্ভার। সমুদ্রে থাকা জলজ সম্পদ তথা প্রচলিত বা অপ্রচলিত মাছ, সীউইড সঠিকভাবে সংগ্রহ করতে পারলে এগুলো বহির্বিশ্বে রপ্তানির ক্ষেত্রে আমাদের সবচেয়ে বড় যোগান হবে। সুনীল অর্থনীতির বিকাশ ঘটাতে হলে প্রচলিত মৎস্য, অপ্রচলিত মৎস্য এবং সীউইডকে পরিচর্যা করে এ ক্ষেত্রকে উপযুক্ত করে নিয়ে আসতে হবে। সামুদ্রিক এ মৎস্যসম্পদ আমাদের খাদ্য ও পুষ্টির যোগানের পাশাপাশি রপ্তানির মাধ্যমে সুনীল অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করবে

এ সময় মন্ত্রী আরো বলেন, রূপকল্প ২০৪১ হচ্ছে সুখী, সমৃদ্ধ, আধুনিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা পরিপূর্ণভাবে প্রতিষ্ঠা করা। বাংলাদেশকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ করতে পারলে বাংলাদেশ উন্নত হবে। অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ করতে হলে আমাদের অর্থনীতিকে জাগ্রত করতে হবে। আর অর্থনীতিকে জাগ্রত করতে আমাদের সম্পদ রপ্তানি করতে হবে। এজন্য সুনীল অর্থনীতির বিকাশ ঘটাতে হবে। সুনীল অর্থনীতিকে কার্যকর করতে হবে। আর এ কাজে সামুদ্রিক মৎস্যসম্পদ ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারে

এ সময় তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা পরবর্তীতে দূরদৃষ্টি দিয়ে ঘোষণা করেছিলেন, মাছ হবে দ্বিতীয় প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী সম্পদ। একসময় নানা কারণে দেশে মাছের সংকট দেখা দিয়েছিল। মাছ দুর্লভ হয়ে গিয়েছিল, হারিয়ে যাচ্ছিলো। সে জায়গা থেকে গবেষণা ও সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে ৩১ প্রজাতির বিলুপ্তপ্রায় মাছ আমরা ফিরিয়ে এনেছি। সরকারের সঠিক ভূমিকা ও ব্যবস্থাপনার কারণে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে।

মন্ত্রী আরো যোগ করেন, সমুদ্রের মৎস্যসম্পদ আহরণে সরকার গভীর সমুদ্রে টুনা ও সমজাতীয় মাছ অহরণে প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। ইলিশ ব্যবস্থাপনা ও গবেষণা প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। দেশের উপকূলীয় অঞ্চল, পার্বত্য অঞ্চলসহ ভিন্ন ভিন্ন অঞ্চলে স্থান উপযোগী প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। মৎস্য খাতে রাষ্ট্রের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে।

উপকূলীয় মৎস্য সম্পদ উন্নয়নের মাধ্যমে বেকারত্ব দূর হতে পারে, উদ্যোক্তা তৈরি হতে পারে, খাবারের বড় জোগান তৈরি হতে পারে এবং গ্রামীণ অর্থনীতি সচল হতে পারে। এ জন্য মৎস্যসম্পদের উন্নয়সে সবাই মিলে কাজ করতে হবে- যোগ করেন মন্ত্রী।

মৎস্য খাতে যারা গবেষণা করছেন, বিভিন্ন প্রকল্প পরিচালনা করছেন, মাঠে কাজ করছেন এবং যারা ব্যবস্থাপনা করছেন তাদের সবার দায়িত্ব রয়েছে। তাদের নিজ নিজ কাজের ক্ষেত্রকে ধারণ করতে হবে, দায় নিতে হবে। সুন্দর বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রত্যেককেই অবদান রাখতে হবে।-জানান মন্ত্রী।

বিএফআরআই-এর মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদের সভাপতিত্বে সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব রওনক মাহমুদ। সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকার ও মৎস্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক খ. মাহবুবুল হক। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএফআরআই-এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ আব্দুল লতিফ। মন্ত্রণালয়, মৎস্য অধিদপ্তর ও বিএফআরআই এর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, মৎস্য বিজ্ঞানী, গবেষক, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও মৎস্যজীবী প্রতিনিধি সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর
কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নতুনভাবে ভাবতে হবে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




পাবনায় মাইক্রোবাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেলের তিন আরোহী নিহত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২1 | ৬০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় মাইক্রোবাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেলের তিন আরোহী নিহত হয়েছেন। উপজেলার জয়নগর শিমুলতলা মোড়ে ঈশ্বরদী-কুষ্টিয়া মহাসড়কে গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবির এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, গতকাল রাতে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিহত দুজনের নাম-পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন, ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুর গ্রামের লালন হোসেনের ছেলে ইব্রাহিম হোসেন (২৫) ও জহুরুল ইসলামের ছেলে জয় ইসলাম (২৭)। অপরজনের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে পুলিশ জানান, গতকাল রাতে দুটি মোটরসাইকেল পাল্লা দিয়ে দ্রুতগতিতে পাকশীর দিকে যাচ্ছিল। জয়নগর শিমুলতলা পার হওয়ার সময় বিপরীত দিক থেকে আসা রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে নিযুক্ত একটি কোম্পানির মাইক্রোবাসের সঙ্গে মোটরসাইকেলটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় স্থানীয়রা ওই তিনজনকে উদ্ধার করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে কর্মরত আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) সাকিব হাসান জানান, হাসপাতালে নিয়ে আসার পর ওই তিনজনকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে।


আরও খবর
রামেক হাসপাতালে আরও ৫ জনের মৃত্যু

শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১




ভারতে পাচার ৭ যুবতীকে বেনাপোলে হস্তান্তর

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভালো কাজের প্রলোভনে ভারতে পাচারের শিকার সাত যুবতীকে দুই বছর পর বেনাপোল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে ফেরত পাঠিয়েছে ভারতীয় পুলিশ। বৃহস্পতিবার বিকালে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাদের ট্রাভেল পারমিট প্রক্রিয়ায় বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশে হস্তান্তর করে।

ফেরত আসা যুবতীরা হলেন, যশোরের অভয়নগর উপজেলার শিরিনা বিশ্বাস (২৪), কুড়িগ্রামের আজ্ঞুমা সুমি (২২), ফরিদপুরের মৌসুমি খাতুন (২৩), চট্রগ্রামের রিয়া আক্তার (২৪), মাগুরা জেলার শ্রীপুর থানার সোহাগী আক্তার মিম (২৪), খাগড়াছড়ির জাকিয়া আক্তার (২৩) ও সুনামগঞ্জের সুমি আক্তার (২৩)। গত দুই বছরে বিভিন্ন সময়ে তারা ভারতে পাচার হন। পাচারের শিকার ওই সাত জন নারী জানান, ভাল কাজ দেওয়ার নাম করে তাদের অবৈধপথে ভারতে নেয় দালালরা।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব জানান, ইমিগ্রেশনের কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে আইনী সহায়তা দিতে জাস্টিস এন্ড কেয়ার নামে একটি এনজিও সংস্থা এই সাত নারীকে গ্রহণ করেছে।

এনজিওর সিনিয়ার প্রোগ্রাম অফিসার এবিএম মুহিত হোসেন জানান, দালাল চক্রের খবর পেয়ে ভারতীয় পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে। পরে অবৈধ অনুপ্রবেশ আইনে মামলা দিয়ে আদালতে সোপর্দ করে। সেখান থেকে ভারতীয় একটি এনজিও সংস্থা তাদেরকে ছাড়িয়ে নিজেদের হেফাজতে রাখে। পরে দুই দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি চালাচালির এক পর্যায়ে বিশেষ ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যেমে তাদের দেশে ফেরত আনা হয়।

বর্তমান কোভিড পরিস্থিতির কারণে ফেরত আসা সাতজনকে যশোর গাজীর দরগায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ১৪ দিন পর তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।


আরও খবর
রামেক হাসপাতালে আরও ৫ জনের মৃত্যু

শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১




সাকিবের সর্বকালের সেরা আইপিএল একাদশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আইপিএলের সর্বকালের সেরা একাদশের ওপেনার হিসেবে সাকিবের পছন্দ হিটম্যান খ্যাত ভারতীয় তারকা ওপেনার ও মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে

বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) খেলা পারফরমারদের নিয়ে সর্বকালের সেরা একাদশ সাজিয়েছেন।

সাকিব আল হাসানের সেই একাদশে জায়গা হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স, ক্রিস গেইল ও ম্যাক্সওয়েলের মতো তারকা ক্রিকেটাররের। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান আইপিএলের সেরা একাদশে বিদেশিদের মধ্যে রেখেছেন ডেভিড ওয়ার্নার, বেন স্টোকস, লাসিথ মালিঙ্গাকে। 

আইপিএলের সর্বকালের সেরা একাদশের ওপেনার হিসেবে সাকিবের পছন্দ হিটম্যান খ্যাত ভারতীয় তারকা ওপেনার ও মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে। তার সঙ্গী হিসেবে সাকিব ওপেনিংয়ে রেখেছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকে।

তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ের জন্য সাকিবের পছন্দ বিরাট কোহলিকে। চার ও পাঁচে ব্যাটিং দেখতে চান চেন্নাই সুপার কিংসের সুরেশ রায়না এবং মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। মিডলঅর্ডারে সাকিব রেখেছেন ভারতীয় ওপেনার লোকেশ রাহুলকে। তবে অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের পছন্দ মহেন্দ্র সিং ধোনি।

রাজস্থান রয়্যালসের বেন স্টোকস আর চেন্নাই সুপার কিংসের রবীন্দ্র জাদেজাকে অলরাউন্ডার হিসেবে দলে রেখেছেন সাকিব। পেস বোলিংয়ে সাকিবের পছন্দ লাসিথ মালিঙ্গা, জসপ্রিত বুমরাহ এবং ভুবনেশ্বর কুমার।

সাকিবের আইপিএল সেরা একাদশ: রোহিত শর্মা, ডেভিড ওয়ার্নার, বিরাট কোহলি, সুরেশ রায়না, মহেন্দ্র সিং ধোনি (অধিনায়ক), লোকেশ রাহুল, বেন স্টোকস, রবিন্দ্র জাদেজা, লাসিথ মালিঙ্গা, জসপ্রীত বুমরাহ ও ভুবনেশ্বর কুমার।


আরও খবর
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের থিম সং প্রকাশ

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

মেসিকে পেছনে ফেললেন সিআর সেভেন

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১