আজঃ শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২
শিরোনাম

জাকিয়া হত্যা মামলার রায় ২৭ জানুয়ারি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গোপালগঞ্জের বেদগ্রামের চাঞ্চল্যকর জাকিয়া মল্লিক হত্যা মামলার রায় ঘোষণার জন্য ২৭ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মো. জাকির হোসেন এ আদেশ দেন।

আসামিরা হলেন ভুক্তভোগীর স্বামী মোর্শেদায়ান নিশান, এহসান সুজন, আনিচুর রহমান ও হাসান শেখ। তাদের মধ্যে নিশান পলাতক। মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০০৫ সালে ভুক্তভোগী জাকিয়ার সঙ্গে মোর্শেদায়ান নিশানের বিয়ে হয়। বিয়ের পাঁচ বছর পর নিশান যৌতুক দাবি করেন। এ নিয়ে সংসারে অশান্তি শুরু হয়। এর ধারবাহিকতায় ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি রাতে জাকিয়াকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় জাকিয়ার বাবা জালাল উদ্দিন মল্লিক বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় মোর্শেদায়ান নিশানকে প্রধান আসামি করে মামলা করেন। এছাড়া এহসান সুজন, আনিচুর রহমান, হাসান শেখকে মামলাটিতে আসামি করা হয়। এ মামলার বিচার চলাকালীন বিভিন্ন সময়ে মোট ২০ জন আদালতে সাক্ষী দেন।


আরও খবর
রিফাত হত্যা: খালাস চেয়ে মিন্নির জেল আপিল

বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারী ২০22




নতুন বিধিনিষেধে যেভাবে চলবে ট্রেন, জানালেন রেলমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ মোকাবিলায় ট্রেনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন শুরু হবে। কবে থেকে এ নিয়ম কার্যকর হবে তা এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে তা নির্ধারণ করে শিগগিরই জানিয়ে দেওয়া হবে। মঙ্গলবার রেল ভবনে এক চুক্তি সই অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান রেলমন্ত্রী।

রেলে কবে থেকে ৫০ শতাংশ যাত্রী পরিবহন শুরু হবে সে বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করে শিগগিরই আপনাদের জানাব।

তিনি আরও বলেন, রেলে ১৩ জানুয়ারির অগ্রিম টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে। ওই দিন থেকে ৫০ শতাংশ যাত্রী বহন করা সম্ভব হবে না।

পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপে বন্দর নগরীর চট্টগ্রাম স্টেশনের কাছে রেলওয়ের জমিতে শপিং মল, হোটেল কাম রেস্ট হাউস এবং অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণের জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ে মঙ্গলবার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করে। রেলওয়ের পক্ষে আহসান জাবের এবং এপিক প্রপার্টিজ লিমিটেডের পরিচালক আনোয়ার হোসেন এই চুক্তিতে সই করেন।

এর আগে করোনা সংক্রমণ মোকাবেলায় আগামী বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) থেকে সারাদেশে ১১ দফা বিধি-নিষেধ কার্যকর করতে যাচ্ছে সরকার। গত সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

প্রজ্ঞাপন অনুসারে, করোনা আক্রান্তের হার ক্রমবর্ধমান হওয়ায় উন্মুক্ত স্থানে সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান ও সমাবেশ পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখতে হবে। একই সঙ্গে দোকান, শপিংমল ও বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতা এবং হোটেল-রেস্তোরাঁসহ সব জনসমাগমস্থলে বাধ্যতামূলকভাবে সবাইকে মাস্ক পরিধান করতে হবে, অন্যথায় আইনানুগ শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে বলেও জানানো হয়।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



হঠাৎ দেবে গেছে ২৫ বাড়ি, ভাঙন আতঙ্কে কুমারপাড়ের বাসিন্দারা

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ফরিদপুর শহরের পশ্চিম খাবাসপুর এলাকার কুমার নদীর পাড়ে ২৫টি বাড়ি হঠাৎ করে দেবে গেছে। এছাড়া ওই এলাকার একাধিক বাড়িতে ফাটল দেখা দিয়েছে। এ কারণে কুমারপাড়ের বাসিন্দারা তীব্র ভাঙন আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। অনেকে বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র বসবাস শুরু করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, কুমার নদীর তীরবর্তী এলাকায় হঠাৎ ফাটল দেখা দেয়। এরপর একে একে বেশ কিছু বাড়ি ৫ থেকে ১০ ফুট দেবে যায়। অনেকে বাড়িঘর অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া শুরু করেছেন। এলাকার পক্ষ থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানানো হয়েছে। তবে এখনো তাদের পক্ষ থেকে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। অতি দ্রুত সরকারের পক্ষ থেকে ওই এলাকা রক্ষায় পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো।

খাবাসপুর এলাকার লিয়াকত হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, দিপু ফকির, মোশাররফ হোসেন, ননী গোপাল বিশ্বাস, তপন বিশ্বাসের বাড়িসহ অন্তত ২৫টি পরিবারের বসত বাড়ি দেবে গেছে।

এ বিষয়ে ১৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান বাবলু বলেন, কোনো কারণ ছাড়াই হঠাৎ করে দেবে গেছে বাড়িগুলো। এতে করে আতঙ্কে আছে ওই এলাকার মানুষ।

ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পার্থ প্রতিম সাহা বলেন, ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গে আমরা ওই স্থানে গিয়েছি। ওই স্থানের একটি ডিজাইন তৈরি করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। আসলে ওখানে মাটির তলদেশে ধ্বস হওয়ার কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে। তবে এটা নিয়ে বেশি ভয়ের কিছু নেই, যেটা ঘটার সেটা ঘটেছে। আর তেমন ভয় নেই।

নিউজ ট্যাগ: ফরিদপুর

আরও খবর



আমাদের র‌্যাব কাজকর্মে অত্যন্ত দক্ষ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জানুয়ারী ২০২২ | ২৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেছেন, আমাদের র‍্যাব কাজে-কর্মে দক্ষ। তারা খুব ইফেক্টিভ, ভ্যারি ইফিসিয়েন্ট এবং তাদের দুর্নীতি নেই। এজন্যই তারা জনগণের আস্তা অর্জন করেছে। আমাদের দেশের সন্ত্রাসী তাদের কারণেই কমে গেছে।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার নগদীপুর ছয়হারা ইসলামিয়া আরবিয়া মাদরাসা, সৈয়দ মনোহর আলী অষ্টগ্রাম মহাবিদ্যালয়, শিরিলব চৌধুরী চাইল্ড কিন্ডারগার্টেন পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে হলি আর্টিজানের পর আর কোনো সন্ত্রাসী তৎপরতা হয়নি। এটা সম্ভব হয়েছে র‍্যাবের কারণে। কিছু লোক যারা আইনশৃঙ্খলা পছন্দ করে না তারাই র‍্যাবের বিরুদ্ধে কাজ করছে; এটা খুবই দুঃখজনক। আবার যারা সন্ত্রাস পছন্দ করে কিংবা অন্য ধরনের ড্রাগ পছন্দ করে তারাই র‍্যাবকে পছন্দ করে না।

তিনি আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্রকে আমরা জানাবো, হয়তো ঠিক মতো তাদের জানাতে পারিনি। কারণ, অনেকেই তাদরকে একতরফা তথ্য দিয়েছে। যারা ওদেরকে পছন্দ করে না। সব দেশেই ল-অ্যান্ড ফোস বিং এজেন্সিতে কিছু মৃত্যু হয়। বাংলাদেশেরও কিছু হয়েছে। আগে বেশি ছিল এখন কম হয়েছে। যখনই একটা মৃত্যু হয় তখন জুডিশিয়ালভাবে সেটির তদন্ত হয়।

তিনি বলেন, ওরা বলেছে যে গত ১০ বছরে ৬০০ জন মিসিং হয়েছে। আমেরিকাতে প্রতিবছর এক লাখ মিসিং হয়। তো এর দায়দায়িত্ব কে নেবে? আর আমাদের দেশে মিসিং যারা হয় পরবর্তীতে দেখা যায় আবার সে বের হয়ে আসছে।

তিনি বলেন, আর এসব তথ্য যাচাই-বাছাই না করে বড় বড় বিদেশি লোক অভিযোগ করেন। যারা অভিযোগ করেছে আমি তাদের আহ্বান করি। বলি আসেন, দেখেন, লোকজনের সঙ্গে কথা বলেন, সত্য ঘটনা জানা যাবে। তারপর আপনারা সিদ্ধান্ত নেবেন।


আরও খবর
ট্রলি-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ২

রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2




শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য ১১ দফা নির্দেশনা

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | ২২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে করোনার ঊর্ধ্বগতির কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সশরীর শ্রেণি কার্যক্রম আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হলেও এ সময়ে অনলাইন বা ভার্চ্যুয়াল প্ল্যাটফর্মে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য মোট ১১ দফা নির্দেশনা দেওয়া হয়।

আজ শনিবার অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (রুটিন দায়িত্ব) প্রফেসর মো. শাহেদুল খবির চৌধুরী স্বাক্ষরিত এ ১১ দফা নির্দেশনা জারি কর হয়।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাসজনিত রোগ কভিড-১৯ এর বিস্তার রোধকল্পে নির্দেশনাসমূহ যথাযথভাবে মেনে সামগ্রিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

১. আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সশরীরে শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

২. এ সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ বাস্তবতার ভিত্তিতে অনলাইন/ভার্চ্যুয়াল প্ল্যাটফরমে শিখন-শেখানো কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

৩. যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১২-১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের কভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম চলমান থাকবে। এ ক্ষেত্রে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের আঞ্চলিক অফিস, জেলা শিক্ষা অফিস ও উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস স্থানীয় প্রশাসন ও সিভিল সার্জনের সাথে সমন্বয় অব্যাহত রাখবে।

৪। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধকালীন শ্রেণিকক্ষ, গ্রন্থাগার, গবেষণাগারসহ প্রতিষ্ঠানের সকল বিদ্যুৎ, টেলিফোন, ইন্টারনেট, পানি এবং গ্যাস সংযোগ নিরবচ্ছিন্ন ও নিরাপদ রাখতে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

৫. এ সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সব সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণ ও সামগ্রিক নিরাপত্তার বিষয়টির প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে।

৬. শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান প্রতিষ্ঠানের জরুরি প্রয়োজনে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনপূর্বক শিক্ষক ও কর্মচারীদের দায়িত্বে নিয়োজিত রাখতে পারবেন।

৭. যে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রবাস/ছাত্রীনিবাসে বৈধ আবাসিক শিক্ষার্থীরা অবস্থান করছে তাদের সুবিধার্থে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ছাত্রাবাস/ছাত্রীনিবাসসমূহ খোলা থাকবে। তবে সংশ্লিষ্ট সবাইকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে।

৮. অধিদপ্তরের অধীন সব দপ্তর ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরত সব কর্মকর্তা, শিক্ষক ও কর্মচারীকে অবশ্যই টিকা সনদ নিতে হবে।

৯. শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কার্যালয় যথারীতি চালু থাকবে। সেখানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

১০. জাতীয় স্কুল, মাদরাসা ও কারিগরি ক্রীড়া সমিতির আয়োজনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চলমান ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

১১. শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে।

আদেশে কভিড ১৯ সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত সব স্বাস্থ্যবিধি ও অন্যান্য বিধিনিষেধ যথাযথভাবে প্রতিপালনপূর্বক পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপর্যুক্ত নির্দেশনাসমূহ বাস্তবায়নের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়।


আরও খবর
গণ-অনশনে শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২




ইসি শুরু থেকেই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড দেয়নি: তৈমূর

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | ২৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নির্বাচন কমিশন (ইসি) শুরু থেকেই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড দেয়নি বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার। তিনি বলেছেন, নির্বাচন কমিশন শুরু থেকেই আমাকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড দেয়নি। ১৬ ডিসেম্বর ২০ হাজার নেতাকর্মীর র‍্যালিতে আমার সভাপতিত্ব করার কথা ছিল। নির্বাচন কমিশনের অনুরোধে আমি সেই র‍্যালিতে যাইনি। একাধিকবার অভিযোগ দেওয়ার পরেও ক্ষমতাসীন দল এমপি, বড় বড় নেতা এনে উসকানিমূলক কথাবার্তা বলছে।

আজ মঙ্গলবার সকালে তৈমূর তাঁর শহরে নির্বাচনী ক্যাম্পে এক সংবাদ সম্মেলনে এই কথা বলেন। এ সময় তাঁর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ও মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল উপস্থিত ছিলেন।

তৈমূর বলেন, একজন সম্মানিত মেহমান বলেছেন তৈমূরকে মাঠে নামতে দেওয়া হবে না। আরেকজন সম্মানিত নেতা বলেছেন, তৈমূর ঘুঘু দেখেছে ফাঁদ দেখেনি। তিনি ২৪ ঘণ্টায় আমাকে রেজাল্ট দেখানোর কথা বলেছেন। এই ঘোষণার ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই আমি ঘুঘু এবং ঘুঘুর ফাঁদ দেখা শুরু করেছি। সোমবার সন্ধ্যায় জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও আমার নির্বাচনের সিদ্ধিরগঞ্জ সমন্বয়ক মনিরুল ইসলাম রবি গ্রেপ্তার হয়েছে।

তৈমূর আরও বলেন, যেদিন আমি নমিনেশন ক্রয় করি, জমা দেই, প্রতীক বরাদ্দের দিনেও রবি আমার সঙ্গে ছিল। এত দিন তাঁর ওয়ারেন্ট নিয়ে মাথাব্যথা ছিল না। ঘুঘু দেখানোর জন্য জাহাঙ্গীর কবির নানক সাহেব যখন বললেন তারপরেই গ্রেপ্তার। আপনারা কী চান না নারায়ণগঞ্জে একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হোক? আমার ওয়ার্ড বিএনপির নেতা মোশাররফ হোসেনের বাসায় পুলিশ তল্লাশি করেছে। মাজহারুল ইসলাম জোসেফের বাড়িতে তল্লাশি হয়েছে, তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করেছে।

তৈমূর আলম প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, সরকারি দল শুধু বলে বিএনপি নির্বাচনে আসে না, ভয় পায় ৷ এখন প্রমাণ দেখেন কেন রাজনৈতিক দল নির্বাচন বয়কট করে। কেন তারা আসতে চায় না এর জলজ্যান্ত উদাহরণ আপনারা দেখতে পাচ্ছেন। জনগণের রায়ই চূড়ান্ত রায়। এই কাজের কারণে সবচেয়ে বেশি ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। আমি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি আপনি অবশ্যই নারায়ণগঞ্জের জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষা প্রতিফলন ঘটাবেন। এরপরে এর পুনরাবৃত্তি ঘটতে থাকলে এসপি অফিসের সামনে বসে পড়া ছাড়া আমার অন্য কোন উপায় থাকবে না।


আরও খবর