আজঃ শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২
শিরোনাম

কবর খুঁড়ে ১১ কঙ্কাল চুরি

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ধারণা করা হ‌চ্ছে, সোমবার রাতে দুর্বৃত্তরা কবর খুঁড়ে কঙ্কাল চুরি করে নিয়ে গেছে। ত‌বে এক‌টি কব‌রের কঙ্কাল চক্রটি ফে‌লে রে‌খে যায়

শেরপুরে কবর খুঁড়ে ১১‌টি কঙ্কাল চুরির ঘটনা ঘটেছে। ধারণা করা হ‌চ্ছে রোববার (২ জানুয়ারি) রা‌তের কোন একসময় চোরচক্র কবর খুঁড়ে কঙ্কাল চু‌রি করে। সদর উপজেলার রৌহা ইউনিয়নের হালগড়া স্কুল সংলগ্ন ফটিয়ামারী সার্বজনীন কবরস্থানে এ ঘটনা ঘ‌টে। এসময় এক‌টি কব‌রে কঙ্কাল ফে‌লে চ‌লে যায় চক্রটি।

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল কাইয়ুম জানান, ফটিয়ামারীর সবচেয়ে বড় কবরস্থান এটি। সোমবার সকালে স্থানীয় লোকজন দেখেন বেশ কয়েকটি কবরের মাটি খোঁড়া। প‌রে সেগু‌লো‌তে দেখা যায়, ১১টি কঙ্কাল নেই।  ধারণা করা হ‌চ্ছে, সোমবার রাতে দুর্বৃত্তরা কবর খুঁড়ে কঙ্কাল চুরি করে নিয়ে গেছে। ত‌বে এক‌টি কব‌রের কঙ্কাল চক্রটি ফে‌লে রে‌খে যায়।

এ ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। বাকি কবরগুলোর নিরাপত্তা নিয়েও শঙ্কায় রয়েছেন স্বজনরা।

এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুনছুর আহম্মেদ বলেন, কঙ্কাল চুরির ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

নিউজ ট্যাগ: শেরপুর

আরও খবর



বসুন্ধরা গ্রুপের সহযোগিতায়

রাজশাহী, কুমারখালী, শাহজাদপুর, নাচোল ও নাটোরে শীতবস্ত্র বিতরণ

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রায় নব্বই বছরের বৃদ্ধা জমেলা। লাঠিতে ভর করে এসেছেন কম্বল নিতে। শীতে যেন হাতগুলো তখনো কাঁপছে থরথর করে। এ সময় হাতে পেলেন বসুন্ধরা গ্রুপের একটি কম্বল। মুহূর্তেই কম্বলটি গায়ে জড়িয়ে নিলেন তিনি। তারপর একটি দীর্ঘশ্বাস ছাড়লেন। যেন হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন বৃদ্ধা জমেলা।

কম্বল পেয়ে অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি বলেন, 'এই প্রথম কেউ সহযোগিতা করলো বাপু। এর আগে এভাবে ম্যালা শীত গেছে। ছিঁড়া ক্যাথা, পুরিনা কাপুড়-চুপুড় দিয়ে কুনোমতে শীত তাড়ায়ছি। এই বছরও শীতে অনেক কষ্টে আছুনু। এখন কম্বলডা গায়ে দিয়ে অনেক শান্তি লাগছে। আল্লাহ বসুন্ধরার লোকজনকে ভালো করুক। গরিব মানুষের ভালো করলে আল্লাহ ভালো করবি।'

রাজশাহীর দুর্গাপুরের আমগাছী শাহার বানু উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বসুন্ধরা গ্রুপের সহযোগিতায় জমেলা বানুর মতো ৮০০ শীতার্তকে কম্বল বিতরণ করেছে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ।

মজিরন নেছা থাকেন কুমারখালীর গড়াই নদীর পাড়ের খুপড়ি ঘরে। শারীরিক প্রতিবন্ধী মজিরনের বয়স ৭২ বছর। বুধবার সকাল ৮টায় ক্রাচে ভর দিয়ে তিনি এসেছিলেন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা অডিটরিয়াম মাঠে বসুন্ধরা গ্রুপের কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে।

আবেগে আপ্লুত মজিরন কম্বল হাতে পেয়ে বলেন, 'চরম শীতের এই সময় এই কম্বলই আমার জীবন বাঁচাবে। কম্বল-ডা পায়ে দিয়ে আইড় রাইতি শান্তিতে ঘুমাবো।'

দেশের শীর্ষ স্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে এবং কালের কণ্ঠ শুভসংঘের আয়োজনে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় দুস্থ দুই হাজার শীতার্ত মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ কার্যক্রমের তৃতীয় দিন এখানে ৪৫০ জন অসহায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে ২০০ শীতার্তের মাঝে কম্বল বিতরণ করেছে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ। বুধবার (০৫ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় শাহজাদপুর শাখা শুভসংঘ উদ্যোগে এবং বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় এই কম্বল বিতরণ করা হয়।

শৈত্যপ্রবাহ আর কনকনে শীতের মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে ৩০০ শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেছে দেশের বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপ।

বুধবার বিকেলে নাচোল উপজেলার জেলা পরিষদ ডাকবাংলা প্রাঙ্গণে কালের কন্ঠ শুভ সংঘর উদ্যোগে এসব কম্বল বিতরণ করেন প্রধান অতিথি নাচোল পৌর মেয়র আব্দুর রশিদ খান ঝালু।

এদিকে কম্বল পেয়ে আনন্দ প্রকাশ করেছেন শীতার্ত নারী-পুরুষ। এসময় তারা বসুন্ধরা গ্রুপের মঙ্গল কামনা করেছেন।

এছাড়া নাটোরের রেলস্টেশন এলাকায় ২০০ শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেছে দেশের বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপ।


আরও খবর



টিকটক ব্যবহারকারীদের সকল তথ্য জানতে পারবে সিআইডি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর ২০২১ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টিকটক ব্যবহারকারীরা কোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের পর চাইলেই এখন আর নিজেদের লুকাতে পারবে না। এখন থেকে টিকটক ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে তথ্য জানতে পারবে বাংলাদেশ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। পুলিশের এ বিশেষ শাখার কাছ থেকে পাওয়া কনটেন্ট রিমুভ্যাল রিকোয়েস্ট এবং সেটি নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে টিকটক কর্তৃপক্ষ।

আজ বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে সিআইডির সাইবার ক্রাইম কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টারের বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) মুহাম্মদ রেজাউল মাসুদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শর্ট-ভিডিও প্ল্যাটফর্ম টিকটক কে বাংলাদেশে নিরাপদ ও গ্রহণযোগ্য প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহারের জন্য সিআইডি ও টিকটক কর্মকর্তাদের মধ্যে গতকাল বুধবার (২২ ডিসেম্বর) বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ বিষয়ে এসএসপি রেজাউল মাসুদ বলেন, টিকটকের সাউথ এশিয়ার পাবলিক পলিসি ম্যানেজার প্রাচী ভূচার সঙ্গে সিআইডির সাইবার ক্রাইম ইউনিটের এ মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। দেশের আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা সিআইডির কাছ থেকে পাওয়া টিকটক ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে তথ্যপ্রাপ্তির অনুরোধ সম্পর্কিত বিষয় এখন সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাবে। সিআইডির কাছ থেকে পাওয়া কনটেন্ট রিমুভ্যাল রিকোয়েস্ট এবং সেটি নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপও নেবে টিকটক।

তিনি আরও বলেন, প্রাণবন্ত ও বৈচিত্র্যময় কমিউনিটির জন্য টিকটক এখন থেকে একটি নিরাপদ ও গ্রহণযোগ্য প্লাটফর্ম হিসেবে পরিচিতি পাবে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ও অপপ্রচার রোধেও সিআইডির সঙ্গে কাজ করবে টিকটক।


আরও খবর
পরনে কেবল শাড়ি, মেহেদি দিয়েই ব্লাউজ!

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1




পিকআপ-অটোরিকশার সংঘর্ষে মা মেয়েসহ টাঙ্গাইলে নিহত ৩

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৩০জন দেখেছেন

Image

টাঙ্গাইলের মধুপুরে পিকআপ-সিএনজিচালিত অটোরিকশার সঙ্গে সংঘর্ষে মা, মেয়েসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। একই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন।

শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে টাঙ্গাইল-জামালপুর সড়কের মধুপুর পৌর এলাকার কাইতকাই রূপালী ফিলিং স্টেশনের পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

হতাহতরা সবাই সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও পিকআপের যাত্রী ছিলেন বলে জানা গেছে। হতাহতদের উদ্ধার করে ১০০ শয্যার মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জের জনৈক সাইদুর রহমানের স্ত্রী শারমিন (৩১), মেয়ে সোহাগী (৩) এবং শেরপুরের শ্রীবরদীর বড়বাড়ীর মিনার হোসেনের ছেলে রাসেল (২২)।

 সিএনজিচালিত অটোরিকশার যাত্রী আহত আবু জাফর যাচ্ছিলেন শেরপুরে একটা পরীক্ষায় অংশ নিতে।

তিনি জানান, সকাল ৭টার দিকে যাত্রী নিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশা মধুপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে জামালপুরের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। এক থেকে দেড় কিলোমিটার যাওয়ার পর রূপালী ফিলিং স্টেশনের পাশে মহাজন সরকারের বাড়ির মোড়ে পৌঁছামাত্র বিপরীত দিক থেকে দ্রুতবেগে আসা পিকআপভ্যানের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। তাদের অটোরিকশা রাস্তা থেকে খাদে ভুট্টাক্ষেতে পড়ে যায়। রাস্তায় উল্টে যায় পিকআপভ্যান।

এদিকে খবর পেয়ে মধুপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুর্ঘটনায় কবলিতদের উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক হাসান শিশু সোহাগী ও রাসেলকে মৃত ঘোষণা করেন। 

ডা. হাসান জানান, বাকি আহতদের মধ্যে শারমিন ও রাহেনা (৫৫) নামে  দুজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করার সময়ই নিহত সোহাগীর মা শারমিনের মৃত্যু হয়। চারজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয় মধুপুর থানার ওসি তারিক কামাল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। পিকআপভ্যান ও সিএনজি পুলিশি হেফাজতে আছে। মামলার প্রক্রিয়া চলছে।


আরও খবর



ঢাবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, লেখক ভট্টাচার্যের মাথায় আঘাত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
তার মাথায় সেলাই পড়েছে বলে কয়েকটি সূত্রে জানা গেছে। এ ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জসিম উদ্দীন হলের আরও ৮-১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে সামনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য আহত হয়েছেন। তিনি মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে। এসময় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস ও  সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ অন্যান্য সিনিয়র নেতাকর্মীরা মঞ্চে ছিলেন।

পরিচয় গোপন করার শর্তে ঘটনাস্থল থেকে ছাত্রলীগের এক কর্মী জানান, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার পরপরই ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগ কর্মীদের সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কবি জসিম উদ্দীন হলের ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের মাঠের সামনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে প্রথমে বাকবিতন্ডা, ধাক্কাধাক্কি পরে হাতাহাতি ও পাথর ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে মঞ্চ থেকে নামার পর একটি পাথর লেখক ভট্টাচার্যের কপালে লাগে। পরে তাকে হেলমেট পরিয়ে সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়।

তার মাথায় সেলাই পড়েছে বলে কয়েকটি সূত্রে জানা গেছে। এ ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জসিম উদ্দীন হলের আরও ৮-১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

এ ঘটনার পর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ অন্যান্য সিনিয়র নেতাকর্মীদের মঞ্চে দেখা গেলেও লেখক ভট্টাচার্যকে দেখা যায়নি।

এ প্রসঙ্গে জানতে আল নাহিয়ান খান জয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাসের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাদেরকে পাওয়া যায় নি।

কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক ও লেখকের ঘনিষ্ঠ কর্মী আবদুল জব্বার রাজ সাংবাদিকদের জানান, লেখক ভট্টাচার্য মাথায় সামান্য আঘাত পেয়েছেন। এখন বিষয়টি মিটমাট হয়ে গেছে। 


আরও খবর



টাঙ্গাইলে গায়েব প্রাথমিকের ১০ হাজার বই

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ ডিসেম্বর ২০২১ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিনামূল্যে বিতরণের ১০ হাজার পাঠ্যবই গায়েব হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে করে অনেক কোমলমতি শিশু পহেলা জানুয়ারি বই হাতে পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন বলে মনে করছেন শিক্ষকরা।

জানা যায়, উপজেলার ১৬১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য প্রাক প্রাথমিক থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ৩৫ হাজার পাঠ্য বইয়ের চাহিদা পাঠানো হয়। গত ৮ ডিসেম্বর গোপালপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মর্জিনা পারভীনকে চালানমূলে এসব বই বুঝিয়ে দেন ঠিকাদার পরিবহন। কিন্তু শিক্ষা অফিসার এসব বই উপজেলা পরিষদের স্টোর রুমে না রেখে নিজ দায়িত্বে পৌর শহরের সূতি সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে রেখে দেন। সেখানে ছিল না কোন পাহারার ব্যবস্থা। গত ২২ ডিসেম্বর সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক বই বুঝিয়ে দেয়ার সময় গায়েব হওয়া বইয়ের বিষয়টি ধরা পড়ে। এতে দেখা যায় পঞ্চম শ্রেণির প্রাথমিক বিজ্ঞান ৪ হাজার ৯৫০ টি এবং ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা ৫ হাজার ৫০টি সহ মোট ১০ হাজার বই গায়েব হয়ে গেছে।

গোপালপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক কল্যাণ সমিতির সভাপতি আব্দুল করিম জানান, সকল পাঠ্যবই চালানমূলে ঠিকাদারের নিকট থেকে বুঝে নেন প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মর্জিনা পারভীন। বই সংরক্ষণ রাখার কক্ষের চাবিও ছিল তার নিকট। তাহলে এসব পাঠ্য বই কীভাবে গায়েব হয়ে গেলো তা নিয়ে ধোঁয়াশার সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জন্য স্থানীয় প্রশাসন এমনকি থানা পুলিশকেও জানানো হয়নি। পাঠ্যপুস্তক গায়েব হওয়ার অভিযোগে শিক্ষা অফিসার মর্জিনা পারভীনকে গত ২৩ ডিসেম্বর কারণ দর্শানো নোটিশ দেন টাঙ্গাইল জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আব্দুল আজিজ।

পাঠ্যপুস্তক গায়েব হওয়ার বিষয়ে পরিবহন ঠিকাদার সোহেল রানা জানান, চালান রশিদে স্বাক্ষর নিয়ে সকল পাঠ্যবই উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। বই গায়েব হওয়ার বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।

অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মর্জিনা পারভীন বলেন, ঠিকাদার বই কম দিয়েছে। এতগুলো বই এক সঙ্গে গুণে নেয়া সম্ভব ছিল না। চালান বুঝে নেয়ার সময় তিনি তড়িঘড়ি করে স্বাক্ষর করেছেন। তিনি জানতেন না ঠিকাদার ফাঁকি দিয়েছেন। এখন বিকল্পভাবে নানাস্থান থেকে এসব বই সংগ্রহের চেষ্টা চালাচ্ছেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে গোপালপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোশারফ হোসেন বলেন, বই গায়েব হওয়ার মতো চাঞ্চল্যকর ঘটনায় উপজেলা শিক্ষা অফিস তাদেরকে কিছুই জানায়নি। পুলিশ নিজ উদ্যোগে তদন্ত করে দেখবে।

উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. পারভেজ মল্লিক বলেন, বই গায়েব হওয়ার খবরটি তিনি শুনেছেন। খোজঁখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আব্দুল আজিজ বলেন, দ্বায়িত্বহীনতার জন্য তাকে শোকজ করা হয়েছে। অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজ ট্যাগ: টাঙ্গাইল

আরও খবর