আজঃ শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদন আবারও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদনপত্রে মতামত দিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ফেরত পাঠিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। তবে আইন মন্ত্রণালয় কী মতামত দিয়েছে, তা জানা যায়নি।

মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) বেলা তিনটার দিকে আইনমন্ত্রীর দফতর থেকে এ সংক্রান্ত ফাইল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এখন প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের ওপরে বাকিটা নির্ভর করছে। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে উন্নত চিকিৎসার জন্য মুক্তি চেয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে গত সপ্তাহে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বরাবর আবেদন করা হয়েছিল। পরবর্তীতে আইনগত মতামত জানতে চেয়ে আবেদনটি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রস্তাবটি আমার কাছে এসেছিল। আমি তাতে মতামত দিয়ে মঙ্গলবার বেলা তিনটায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ফেরত পাঠিয়েছি। এটি এখন চূড়ান্ত মতামতের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দফতরে যাবে। এর পরই বিষয়টি চূড়ান্ত হবে খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাবেন কী যাবেন না। এর আগে কিছু বলা ঠিক হবে না বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



মামলা করতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে যাচ্ছেন নুসরাত?

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনকে। ৮ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মুনিয়ার মৃত্যুকে হত্যাকাণ্ড এবং ধর্ষণ বলে অভিযোগ করেন তাঁর বোন নুসরাত তানিয়া। ট্রাইব্যুনাল এই মামলা তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছে পিবিআইকে।

মনোজ কুমার মজুমদারের নেতৃত্বে পিবিআই পুলিশের তদন্তকারী সংস্থা গুলোর মধ্যে আলাদা একটা আভিজাত্যমন্ডিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইতিমধ্যে স্বীকৃতি পেয়েছে। অনেক জটিল মামলার তদন্ত করে এই সংস্থাটি ইতিমধ্যে প্রশংসা কুড়িয়েছে এবং পুলিশের অন্যতম প্রশংসিত একটি সংগঠন হিসেবে এটি ইতিমধ্যে জনগণের কাছে স্বীকৃত হয়েছে।

পিবিআই ইতিমধ্যে মামলা তদন্তের প্রাথমিক কাজকর্ম শুরু করেছে বলে পিবিআই সূত্রে জানা গেছে। এই মামলা তদন্তে পিবিআই পাঁচটি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে এগুচ্ছে বলে পিবিআই সূত্রে জানা গেছে। যে পাঁচটি বিষয় সামনে রেখে পিবিআই মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করবে তার মধ্যে রয়েছে:

১. পোস্টমর্টেম রিপোর্ট: যেকোনো একটি মৃত্যুর বড় উপজীব্য সাক্ষ্য হলো পোস্টমর্টেম রিপোর্ট। মুনিয়ার মৃত্যুর পোস্টমর্টেম রিপোর্টটি পিবিআই প্রথমে খতিয়ে দেখবে এবং প্রয়োজনে চিকিৎসকের সঙ্গে পোস্টমর্টেম রিপোর্ট নিয়ে কথা বলবে। পোস্টমর্টেম রিপোর্টের উপর ভিত্তি করেই একটি মামলার তদন্ত এগুবে। ইতিমধ্যে, যে পোস্টমর্টেম রিপোর্ট দেয়া হয়েছে তাতে মুনিয়ার আত্মহত্যার কথা বলা হয়েছে। সেখানে হত্যার কোনো আলামত পাওয়া যায়নি বলেই উল্লেখ করা হয়েছে। সে বিবেচনায় পোস্টমর্টেম রিপোর্টটি পিবিআই আবার নতুন করে নিরীক্ষা করবে বলে জানা গেছে।

২. ভিডিও ফুটেজ: মুনিয়ার মৃত্যুর আগে এবং পরে মুনিয়ার ফ্লাটে কারা গিয়েছিল সেই সংক্রান্ত ভিডিও ফুটেজগুলো পিবিআই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে। মুনিয়ার মামলার যদি হত্যাকাণ্ডের ন্যূনতম উপজীব্য বিষয় থাকে তাহলে অবশ্যই ভিডিও ফুটেজে মুনিয়ার বাসায় কারা গেছে তার একটি চিহ্ন-প্রমাণ থাকবে এবং এখানে যে ৮ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে সে ৮ জনের কাউকে না কাউকে এই ঘটনাস্থলে যাওয়ার প্রমাণ থাকতে হবে এবং সেই প্রমাণটি যদি না করা যায় তাহলে যাদেরকে অভিযুক্ত করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ টিকিয়ে রাখা অসম্ভব হয়ে পড়তে পারে।

৩. ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা: মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা নিয়ে পিবিআই তদন্ত করবে। বিশেষ করে সংশ্লিষ্টদের কর্মতৎপরতা গুলো বিচার করবে। কোন বিচারে কিভাবে নুসরাত ঘটনাস্থলে আসলেন এবং কীভাবে তিনি মামলা করলেন সে বিষয়টিও পিবিআই বিচার-বিশ্লেষণ করবে বলে পিবিআইয়ের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

৪. অভিযুক্তদের সংশ্লিষ্টতা: এই মামলায় অভিযুক্তদের কোনরকম সংশ্লিষ্টতা আদৌ আছে কি না বা থাকলে কিভাবে আছে সেটি পিবিআই তদন্ত করে দেখবে। এ সংক্রান্ত যে সমস্ত নথিপত্র কাগজপত্র ইত্যাদি রয়েছে তাও পিবিআই বিবেচনা করবে।

৫. নুসরাতের স্বার্থ: এই মামলায় নুসরাতের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়টি পিবিআই তদন্ত করে দেখবে। প্রথম নুসরাতের মামলা করা, বিভিন্ন জায়গায় নুসরাতের মামলার নিয়ে অতি উৎসাহী কথাবার্তা এবং তাকে সমর্থন দেয়া বিভিন্ন গোষ্ঠীর সঙ্গে নুসরাতের সম্পর্ক কি তা বিচার বিশ্লেষণ করবে।

পিবিআই সূত্র বলছে, যেকোনো একটি মামলায় কেবল অভিযুক্তের ঠিকুজি দেখতে হয় না সঙ্গে সঙ্গে যিনি মামলার বাদী তারও উৎসাহ এবং স্বার্থ দেখতে হয়। বিভিন্ন ব্যক্তি বিভিন্ন স্বার্থে অনেক সময় মামলা করেন আর সেটিও পিবিআই বিচার-বিশ্লেষণ করবে। বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে এই সমস্ত বিচার-বিশ্লেষণ শেষে পিবিআই একটি চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করবে। আর এটি করতে গেলে অনেকেই মনে করছেন যে মামলার বাদী নুসরাত তানিয়া নিজেই এই মামলায় ফেঁসে যেতে পারে। কারণ পিবিআই এই মামলা তদন্ত করবে অত্যন্ত নিরপেক্ষতার সঙ্গে এবং তথ্য-উপাত্ত আলামত সংগ্রহ করেই।

নিউজ ট্যাগ: নুসরাত পিবিআই

আরও খবর
স্বামী হত্যায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




অর্ধ-উলঙ্গ করে দুই সাংবাদিককে বেধড়ক মারধর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১৪৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তালেবানের মারধরে আহত সাংবাদিকদের মর্মপীড়াদায়ক কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর আফগানিস্তানের কট্টর ইসলামপন্থী এই গোষ্ঠীর শাসনকালীন গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। মানবাধিকার রক্ষা, বাক-স্বাধীনতা এবং অতীতের মতো এবারের শাসন হবে না বলে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তালেবান, সেসব এই গোষ্ঠী আদৌ রক্ষা করতে পারবে কিনা তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন অনেকে।

তালেবানের নতুন সরকার গঠনের পর নিজেদের অধিকারের দাবিতে বিক্ষোভ করছেন দেশটির অনেক নারী। এই বিক্ষোভের সংবাদ প্রকাশ করায় আফগানিস্তানের অন্তত দুজন সাংবাদিককে বেধড়ক মারপিটের পর হাসপাতালে পাঠিয়েছে তালেবানের সদস্যরা। তালেবানের মারধরে আহত দুই সাংবাদিকের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার অনেকে সমালোচনা করছেন।

ছবি দুটির সত্যতা নিশ্চিত করেছে আফগানিস্তানের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম এতিলাত্রোজ ও যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলস টাইমসের প্রতিবেদক মারকাস ইয়াম। মারকাস ইয়ামের টুইট করা ছবিতে দেখা যায়, স্থানীয় দুই সাংবাদিকের অন্তর্বাস ছাড়া সব পোশাক খুলে ফেলা হয়েছে। তাদের পিঠ এবং পায়ে অসংখ্য মারপিটের দাগ। তালেবানের বেধড়ক মারপিটে রক্তাক্ত ও কালো হয়ে গেছে তাদের শরীর।

এতিলাত্রোজের টুইট করা ছবিতেও ওই দুই ব্যক্তিকে দেখা যায়। আফগান এই দৈনিক বলেছে, তালেবানের মারধরের শিকার দুই সাংবাদিক তাদের প্রতিষ্ঠানেই কর্মরত। একজনের নাম তাকি দারিয়াবি এবং অন্যজন নেমাতুল্লাহ নাকদি। তাদের দুজনের শরীরের জখম প্রায় একই।

বুধবার দেশটির রাজধানী কাবুলের পশ্চিমাঞ্চলের কারট-ই-চার এলাকায় নারীদের বিক্ষোভের সংবাদ কভার করছিলেন এতিলাত্রোজের ভিডিও সম্পাদক তাকি দারিয়াবি এবং প্রতিবেদক নেমাতুল্লাহ। সংবাদ কভার করার সময়ই নারীদের বিক্ষোভের স্থান থেকে তাদের তুলে নিয়ে যায় তালেবান। অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে তাদের বদ্ধ কক্ষে আটকিয়ে বেধড়ক মারপিট ও নির্যাতন করে তালেবানের সদস্যরা।

লস অ্যাঞ্জেলস টাইমসকে নাকদি বলেন, আমরা চিৎকার করে বলেছিলাম যে, আমরা সাংবাদিক। কিন্তু তারা কোনও পরোয়া করেনি। আমি ভেবেছিলাম তারা আমাদের মেরে ফেলতে যাচ্ছে। তারা আমাদের নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করেছিল।

তালেবানের সদস্যরা লস অ্যাঞ্জেলস টাইমসের প্রতিবেদকদেরও নারীদের বিক্ষোভের সংবাদ সংগ্রহে বাধা দিয়েছে। পরে তাদের ওই এলাকা ছাড়তে বাধ্য করা হয় বলে জানিয়েছে মার্কিন এই সংবাদমাধ্যম।

অ্যাঞ্জেলস টাইমস বলেছে, ইউরোনিউজের স্থানীয় প্রধানসহ ফ্রান্সের একটি টেলিভিশন চ্যানেলের তিন সাংবাদিককেও অপহরণ করে তালেবান। তবে তাদের অক্ষত অবস্থায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ইউরোনিউজের আফগান প্রধান বলেছেন, তালেবানের সদস্যরা তাকে বারবার চড় মেরেছেন।

এছাড়া আফগানিস্তানের সংবাদমাধ্যম তোলো নিউজের ক্যামেরাপারসন ওয়াহিদ আহমাদি এবং আরিয়ানা নিউজের প্রতিবেদক সামি জাহেশ, ক্যামেরাম্যান সামিমকেও বিক্ষোভস্থল থেকে আটক করে তালেবানের সদস্যরা।

আফগানিস্তানের কট্টর এই গোষ্ঠী সাংবাদিকদের ওপর আরও চড়াও হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে দ্য কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট (সিপিজে)।


আরও খবর



নেত্রকোনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উৎসবের আমেজ

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৮৫জন দেখেছেন
Image

নেত্রকোনা থেকে মোনায়েম খান: নেত্রকোনায় খুলে দেওয়া হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সরকারের দেয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেওয়া হচ্ছে ক্লাস। করোনা মহামারির কারণে দেড় বছর বন্ধ পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ায় খুশি শিক্ষার্থীরা। এতে করে নেত্রকোনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেগুলোতে বইছে  উৎসবের আমেজ।

দীর্ঘ ১ বছর ৫ মাস ২৪ দিন পর আজ রবিবার প্রথম শ্রেণী থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্থর পর্যন্ত প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে উৎসবের আমেজ লক্ষ্য করা গেছে।

নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান সকালে পৌর শহরের সাতপাই মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়, নেত্রকোনা উচ্চ বিদ্যালয়, আদর্শ শিশু বিদ্যালয়, নেত্রকোনা সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেন।

এ সময় তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষার্থী ও অভিবাবকদের সাথে কথা বলেন এবং করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত থাকার জন্য মাস্ক ব্যবহারসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে সকলের সহযোগীতা কামনা করেন। পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ ওবায়দুল্লাহ,উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকতা আবু হাসান মোঃ রেজাউল করিম, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন, জেলা প্রেসক্লাব সম্পাদক এম, মোখলেছুর রহমান খান, পিটিআই সুপার জাহানারা খাতুনসহ অন্যরা।

নেত্রকোনা আদর্শ শিশু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মাজারুল ইসলাম বলেন, আমাদের কোমলমতি শিশুদের করোনাভাইরাস সক্রমণ প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহারসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রেখেছি।

সাতপাই মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মমতাজ মহল বলেন, দীর্ঘদিন পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পর শিক্ষার্থীদের আমরা আনুষ্ঠানিক ভাবে ফুল দিয়ে বরণ করেছি। শিক্ষার্থীরাও বিদ্যালয়ে এসে শিক্ষক এবং সহপাঠিদের পেয়ে খুব খুশি হয়েছে।


আরও খবর



কুড়িগ্রামে ৭০ হাজার বানভাসির দুর্ভোগ চরমে

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

উজানের ঢলে কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বাড়তে থাকায় উলিপুর, চিলমারী, রৌমারী ও চর রাজিবপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। অপর দিকে আবারো ধরলায় পানি বাড়তে শুরু করেছে।

এতে ধরলা ও ব্রহ্মপুত্র অববাহিকায় প্রায় ৮০ হাজার মানুষ পানিবন্দি রয়েছে।

বাড়ি-ঘরে পানি ওঠায় বন্যার্ত মানুষজন পরিবার-পরিজন নিয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধসহ নিরাপদ স্থানে বা আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। চারদিকে পানি ওঠায় দেখা দিয়েছে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট।

বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে বয়স্ক ও নারীদের জন্য শৌচাগার সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে। তৃণভূমি তলিয়ে যাওয়ায় গবাদিপশুর তীব্র খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। অনেকে আশ্রয় নিয়েছেন নৌকায়।

শুক্রবার (০৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানি চিলমারী পয়েন্টে ৪৯ সেন্টিমিটার এবং ধরলা নদীর পানি ব্রিজ পয়েন্টে ৪১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ধরলায় পানি বেড়েছে ৩০ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্রে কমেছে ২ সেন্টিমিটার।

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ব্রহ্মপুত্র অববাহিকার হাতিয়া ইউনিয়নে বাঁধে আশ্রিতরা জানান, বাড়ি-ঘরে পানি ওঠায় শতাধিক পরিবার বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। পানি বাড়তে থাকায় আরও অনেক পরিবার আসছে বাঁধে আশ্রয় নিতে। পরিবারগুলোর জন্য বিশুদ্ধ পানি ও ল্যাট্রিন সমস্যা দেখা দিয়েছে।

উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিএম আবুল হোসেন জানান, উজান ঢলে ব্রহ্মপুত্রে পানি বাড়ায় তার ইউনিয়নে আড়াই থেকে তিন হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। বন্যা কবলিতদের জন্য উপজেলা পরিষদ থেকে ৬ মে.টন চাল বরাদ্দ পেয়েছি। যা বিতরণ করা হচ্ছে।

উলিপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন মন্টু জানান, উলিপুরে ৮টি ইউনিয়নে প্রায় ৩০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। বিশুদ্ধ পানি ও শৌচাগারের ব্যবস্থা করার কাজ চলছে।

কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মঞ্জুরুল হক জানান, বন্যার ফলে জেলায় প্রায় ২৮ হাজার হেক্টর রোপা আমন ক্ষেত, শাকসবজি ও বীজতলা তলিয়ে গেছে।


আরও খবর
শিয়ালের ফাঁদে মানুষের মৃত্যু

শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১




মারা গেছেন আলজেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট বুতেফ্লিকা

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আলজেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদেল আজিজ বুতেফ্লিকা মারা গেছেন। ৮৪ বছর বয়সী বুতেফ্লিকা শুক্রবার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি দুই দশক ধরে দেশটি শাসন করেছেন। পঞ্চম মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ব্যাপক বিক্ষোভ ও সামরিক বাহিনীর চাপে ২০১৯ সালের এপ্রিলে ক্ষমতা থেকে সরে যান। তাঁর মৃত্যুর খবর ঘোষণা করেছে দেশটির সরকারি টেলিভিশন।

ক্ষমতা ছেড়ে দেয়ার পরে জনসাধারণের দৃষ্টির বাইরে পশ্চিম আলজিয়ার্সে নিজ বাসভবনে কাটিয়েছেন তিনি। এক দশকের গৃহযুদ্ধের পর বুতেফ্লিকা ১৯৯৯ সালে প্রাক্তন ফরাসি উপনিবেশ হিসাবে আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এই গৃহযুদ্ধে প্রায় ২ লাখ লোকের মৃত্যু হয়েছে।

শান্তি প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখার জন্য আলজেরিয়রা তাকে বুতেফ বলে অভিহিত করেছেন। প্রাথমিকভাবে তিনি সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন। এতে উদ্ভুদ্ধ হয়ে হাজার হাজার ইসলাম পন্থী তাদের অস্ত্র সমর্পন করে।


আরও খবর