আজঃ শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২
শিরোনাম

খুলনায় মঙ্গলবার থেকে রাত ৮টার পর বন্ধ মার্কেট-দোকান

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৫২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

খুলনায় করোনার সংক্রমণ রোধে মার্কেট ও দোকানপাটের সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। আগামী মঙ্গলবার থেকে রাত ৮টার পর নগরীতে খোলা রাখা যাবে না মার্কেট ও দোকান। তবে, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য পরিবহণ ও কাঁচামালের আড়তের ক্ষেত্রে এই সময়সীমা প্রযোজ্য হবে না।

খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক জেলা ও মহানগর করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির এক সভায় এ কথা জানান। সভার সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র বলেন, করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ছড়িয়ে পড়ার আগেই আমাদের সচেতন হতে হবে। আগামী মঙ্গলবার থেকে রাত ৮টার পর নগরীতে মার্কেট ও দোকান খোলা রাখা যাবে না। তবে, নিত্য প্রয়োজনীয় কাঁচামাল পরিবহণ ও কাঁচামালের আড়তের ক্ষেত্রে বাধ্যবাধকতা নেই।

সভায় সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ জানান, গত নভেম্বরে জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। ডিসেম্বর মাসে করোনায় জেলায় কোনো প্রাণহানি হয়নি। হঠাৎ সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনায় স্বাস্থ্যবিধি মানা ও মাস্ক পরার বিকল্প নেই।

সিভিল সার্জন আরও বলেন, টিকা নেওয়ার পর করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে মৃত্যুহার অনেক কম। তাই টিকা গ্রহণে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করা প্রয়োজন।


আরও খবর
ভাষাসৈনিক জিয়াউল হক আর নেই

শনিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২২

খুলনায় বিড়ি শ্রমিকদের মানববন্ধন

বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২




নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে যমুনা গ্রুপ

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ১৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে যমুনা গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটিতে প্রডাক্ট ম্যানেজার পদে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহী যোগ্য প্রার্থীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

পদের নাম : প্রজেক্ট ম্যানেজার (ইলেকট্রনিকস ডিভিশন)।

যোগ্যতা :

স্বীকৃত যেকোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে যেকোনো বিষয়ে স্নাতকোত্তর/ এমবিএ পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে প্রার্থীর ন্যূনতম পাঁচ বছরের কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। ব্র্যান্ড প্রমোশন, প্রডাক্ট মার্কেটিং, সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং বিষয়ে জানাশোনা থাকতে হবে। এ ছাড়া কোম্পানি, ইলেক্ট্রনিক ইকুইপমেন্ট বিষয়ে সাম্যক ধারণা থাকতে হবে। যোগাযোগদক্ষতা ও নেগোশিয়েশন করার সক্ষমতা থাকতে হবে। সমস্যা সমাধানে পারদর্শী হতে হবে। অনূর্ধ্ব ৩০ বছর বয়স পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।

বেতন : আলোচনা সাপেক্ষে। উৎসব ভাতা বছরে দুবার, মোবাইল বিল, ভ্রমণ ভাতা, উৎসব ভাতা প্রদান করা হবে। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা অনুসারে অন্যান্য সুবিধা প্রদান করা হবে।

কর্মস্থল : ঢাকা

আবেদন প্রক্রিয়া : আগ্রহী প্রার্থীরা বিডিজবস অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ তারিখ  : ২০ জানুয়ারি, ২০২২।

সূত্র : বিডিজবস।

নিউজ ট্যাগ: যমুনা গ্রুপ

আরও খবর



দেড় মাসে অর্ধশতাধিক ধর্ষণ করেছে আশিক ও তার সাঙ্গোপাঙ্গরা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ১১২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্বামী-সন্তান জিম্মি করে কক্সবাজারে পর্যটক নারীকে ধর্ষণকাণ্ডের মূলহোতা আশিকুল ইসলাম আশিকের একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য বের হয়ে আসছে। পুলিশ বলছে, তার নামে শুধু কক্সবাজার সদর থানায় অস্ত্র, ইয়াবা, ছিনতাইসহ অন্তত ১৬টি মামলা রয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, গত দেড় মাসে কক্সবাজার শহরের কটেজ জোন লাইটহাউস সরণি এলাকায় যৌনপল্লী হিসেবে পরিচিত লাভ করা কয়েকটি কটেজে নিয়মিত হানা দিয়ে সেখানকার অর্ধশতাধিক তরুণীকে (যৌনকর্মী) বিভিন্ন সময় ধর্ষণ করেছে আশিক এবং তার সাঙ্গোপাঙ্গরা।

শুধু তাই নয়, অভিযোগ আছে- সেখানে মনোরঞ্জনের জন্য আসা শতাধিক পর্যটক, কটেজ ও কর্মরত কর্মচারীদের উলঙ্গ ভিডিও ধারণ করে অর্থ আদায়ের অভিযোগও উঠেছে। বাদ যাননি পুলিশও। তবে এসব বিষয়ে মৌখিকভাবে তার বিষয়ে কটেজ ব্যবসায়ীরা পরিচিত পুলিশ সদস্যদের কাছে নালিশ দিলেও নিজেদের দুর্বলতা লুকাতে ও ভয়ে আশিকের বিরুদ্ধে মামলা করেনি কেউ।

আশিকের পাশবিক ধর্ষণের শিকার হয়েছেন (ছদ্মনাম) আঁখি আক্তার নামের এক তরুণী। ঢাকার একটি পাবলিক ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী বলে দাবি করে আঁখি আক্তার বলেন, আমার বাবা মারা গেছে বেশ কয়েক বছর আগেই। এরপরও আমি পরিবারের ভার বহনের পাশাপাশি নিজেও পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছি। করোনার ধাক্কায় টিউশনি বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর সীমাহীন আর্থিক সংকটে পড়ে যায়। অসুস্থ মায়ের চিকিৎসা ছোট-ভাইবোনদের পড়াশোনা প্রায় বন্ধের উপক্রম। একপর্যায়ে আমার এক বান্ধবীর ফাঁদে পড়ে গত ৬ মাস ধরে কক্সবাজারে চলে আসি। এরপর বাধ্য হয়ে অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়ি।

তার দাবিমতে, গত মাসে ২৪ বা ২৫ নভেম্বর রাতে আমের ড্রিম কটেজে হানা দেয় আশিক। তখন তার ভয়ে সেখানকার কর্মচারী সবাই সটকে পড়েন। আশিক প্রথমে ছুরি মারার ভয় দেখিয়ে কটেজে থাকা সব মেয়েদের পাশাপাশি সেখানে মনোরঞ্জনের জন্য অবস্থান করা অন্তত ১৫ জন পর্যটকের মোবাইল ও টাকা-পয়সা কেড়ে নেয়। পরে পর্যটকদের উলঙ্গ করে মেয়েদের সঙ্গে দাঁড় করিয়ে ভিডিও ধারণ করে। পরে কারো কারো মোবাইল ফিরিয়ে দিয়ে তাদের মোবাইল নাম্বার নেয় আশিক ও তার লোকজন।

আঁখি আক্তার বলেন, ওই দিন আমাকে উলঙ্গ অবস্থায় ভিডিও করে আশিক। তবে যাওয়ার সময় মোবাইল নাম্বার নিয়ে তার ফোনটি ফেরত দিয়ে মোবাইল বন্ধ পেলে ভিডিও ভাইরালের হুমকি দেয় আশিক।

তিনি বলেন, ঘটনার একদিন পর আমাকে সৈকতের লাবনী পয়েন্টে দেখা করতে বলে আশিক। দেখা করার পর ওই রাতে অপরিচিত একটি বাড়ির ফ্ল্যাটে নিয়ে ইয়াবা সেবন করে রাতভর দফায় দফায় ধর্ষণ করে আশিক আর তার আরেক বন্ধু।

তার দাবি, আশিক অন্তত ৪০ থেকে ৫০ জন মেয়ের সঙ্গে একই ধরনের আচরণ করেছে বলে শুনেছেন তিনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এসব অভিযোগ অকপটে স্বীকার করেছেন ওই সব কটেজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একাধিক ব্যক্তি।

তারা জানান, শুধু কটেজের অর্ধশতাধিক মেয়েদের জোরপূর্বক ধর্ষণ ও তাদের টাকা-পয়সা কেড়ে নিয়েছেন তা নয়; গত এক মাসে এসব কটেজে মনোরঞ্জনের জন্য আসা কয়েকজন পর্যটক ও কটেজের মালিক-কর্মচারীদের ধরে নিয়ে তাদের লেংটা করে মেয়েদের সঙ্গে ছবি তুলে মুক্তিপণ আদায় করেছে আশিক।

সংশ্লিষ্টদের দেওয়া তথ্যমতে, গত কয়েক দিন আগে আমের ড্রিম কটেজের স্টাফ আমান উল্লাহ ও ঢাকার বাড়ি কটেজের স্টাফ নাহিদকে তুলে নিয়ে গিয়ে তাদের মারধর ও উলঙ্গ করে ভিডিও ধারণ করে আশিক। এরপর তাদের জিম্মি করে পরিবারের কাছ থেকে মোটা অংকের মুক্তিপণ আদায় করে।

এসব কটেজের ব্যবসায়ীরা জানান, নিজেরা অসামজিক কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত থাকায় আশিকের বিরুদ্ধে মামলা করতে ভয় পেয়েছেন তারা। তবে মাসিক মাসোহারা আদায় করা পরিচিত পুলিশ অফিসারদের আশিকের বিষয়ে অভিযোগ দিলে তারা ব্যবস্থা নেবেন বলে আশ্বস্ত করেছিলেন।

কক্সবাজার শহরের এসব অবৈধ কার্যকলাপ বন্ধের পাশাপাশি ধর্ষণে জড়িতের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে সচেতন মহল।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান বলেন, কটেজ ব্যবসায়ী বা পর্যটকদের কেউ অবগত করেননি। এরপরও অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে। একই সঙ্গে অসামাজিক কার্যকলাপ চলা কটেজগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

একই কথা বলেছেন কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের এসপি মো. জিল্লুর রহমান।


আরও খবর



মাসুদ রানা-খ্যাত কাজী আনোয়ার হোসেন আর নেই

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | ২৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাঠকনন্দিত মাসুদ রানার স্রষ্টা, সেবা প্রকাশনীর প্রতিষ্ঠাতা, লেখক, অনুবাদক কাজী আনোয়ার হোসেন আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে কাজী আনোয়ার হোসেনের পুত্রবধূ মাসুমা মাইমুর এক স্ট্যাটাসে বরেণ্য এ লেখকের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন।

মাসুমা মাইমুর লিখেছেন, নিভে গেছে দীপ জনমের তরে জ্বলিবে না সে তো আর। দূর আকাশের তারা হয়ে গেছে আমার ছেলেটা। আমার ছোট্ট ছেলেটা। আর কোনও দিনও আমার পিছু পিছু ঘুরে খুঁজবে না মায়ের গায়ের মিষ্টি গন্ধ। কোনও দিনই না। কিন্তু মাকে ছেড়ে থাকবে কীভাবে ওই অন্ধকার ঘরে আমার ছেলেটা? একা, শুধু একা? কী সব বকছি জানি না। আব্বা (কাজী আনোয়ার হোসেন) আর নেই। চলে গেছেন আমাদের ছেড়ে।

মাসুমা মাইমুর জানান, গত বছরের ৩১ অক্টোবর কাজী আনোয়ার হোসেনের প্রোস্টেট ক্যানসার ধরা পড়ে। মাঝে পাঁচ বার হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

মাসুমা মাইমুর আরও লিখেছেন, চিকিৎসার সুযোগ খুব একটা পাওয়া যায়নি। একটা ব্রেইন স্ট্রোক ও হার্ট অ্যাটাক হয়ে সব শেষ হয়ে গেল। ১০ জানুয়ারি থেকে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। আজ চলে গেলেন আমাদের ছেড়ে।

কাজী আনোয়ার হোসেন প্রায় এক হাতেই বাংলাদেশে দাঁড় করিয়েছেন রহস্য-রোমাঞ্চ গল্পের জনপ্রিয় সাহিত্যধারা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সেবা প্রকাশনী পাঠক তৈরিতে বিশাল ভূমিকা রেখেছে।

কাজী আনোয়ার হোসেন ১৯৩৬ সালের ১৯ জুলাই ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পুরো নাম কাজী শামসুদ্দিন আনোয়ার হোসেন। ডাক নাম নবাব। তাঁর বাবা প্রখ্যাত বিজ্ঞানী, গণিতবিদ ও সাহিত্যিক কাজী মোতাহার হোসেন; মা সাজেদা খাতুন।

কাজী আনোয়ার হোসেন ছদ্মনাম হিসেবে বিদ্যুৎ মিত্র ও শামসুদ্দীন নওয়াব নাম ব্যবহার করতেন। কুয়াশা সিরিজের মাধ্যমে লেখালেখির জগতে বিচরণ ঘটে। তাঁর ভাষাশৈলী অসাধারণ। মৌলিক রচনাগুলোও চমকপ্রদ।


আরও খবর
অমর একুশে গ্রন্থমেলার প্রস্তুতি চলছে

বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২




কোভিড : ভারতে দিনে শনাক্ত ১৬% ছাড়াল

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভারতে গত এক দিনে ২ লাখ ৬৮ হাজার ৮৩৩ জন কোভিড রোগী ধরা পড়েছে। দিনে শনাক্তের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬ দশমিক ৬৬ শতাংশে। ওমিক্রনের দাপটের মধ্যে আগের দিন শুক্রবারও দেশটিতে দুই লাখ ৬০ হাজারের বেশি শনাক্ত হয়েছিল। শনাক্তের হার ছিল ১৪ দশমিক ৭ শতাংশ।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য উদ্ধৃত করে ভারতের গণমাধ্যম শনিবার জানিয়েছে,গত এক দিনে ওমিক্রমে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৫ শতাংশ বেড়েছে। বৃহস্পতিবার দেশটিতে শনাক্তের সংখ্যা ছিল আড়াই লাখের নিচে। তবে একদিনের ব্যবধানেই শুক্রবার ৬ দশমিক ৭ শতাংশ রোগী বেড়ে আড়াই লাখ পার হয়ে যায়।

গত মে মাসের পর এখন পর্যন্ত এটাই একদিনে রোগী শনাক্তের সর্বোচ্চ সংখ্যা। ডেল্টার দাপটে গতবছর মার্চ-এপ্রিল-মে মাসে ভয়ঙ্কর বিপর্যয়ের মধ্যে দিয়ে যেতে হয় ভারতকে। সে সময় ৭ মে রেকর্ড ৪ লাখ ১৪ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছিল।

এনডিটিভি জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিডে আক্রান্ত ৪০২ জনের মৃত্যু হয়েছে, আগের দিন এই সংখ্যা ছিল ৩১৫ জন। মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪ লাখ ৮৫ হাজার ৭৫২।

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ৪১ জন। কোভিডে সব থেকে বেশি বিপর্যস্ত মহারাষ্ট্র, নতুন করে সেখানে শনাক্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ২১১ জন। এরপরের অবস্থানেই রয়েছে দিল্লি। শুক্রবার সেখানে দৈনিক শনাক্তের হার বেড়ে দাঁড়ায় ৩০ দশমিক ৬৪ শতাংশে।

ভারতে সব মিলিয়ে শনাক্ত কোভিড রোগীর সংখ্যা ৩ কোটি ৬৭ লাখে পৌঁছেছে। মোট সক্রিয় কোভিড রোগীর সংখ্যা ১৪ লাখ ১৭ হাজার ৮২০ জন। মোট আক্রান্তের ৩.৮৫ শতাংশ এখন ভাইরাস সংক্রমিত অবস্থায় রয়েছে।

দেশটিতে এই মহামারীর সংক্রমণ ঠেকাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশবাসীকে টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, তার সরকার এখন পর্যন্ত দেশের ৭০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ককে দুই ডোজ কোভিড টিকা দিতে পেরেছে।

মাস্ক পরিধানসহ কোভিড প্রটোকল মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ভারতে একদিনে সুস্থ ১ লাখ ২২ হাজার ৬৮৪ জনকে মোট সুস্থ হয়েছেন তিন কোটি ৪৯ লাখ ৪৭ হাজার ৩৯০ জন।


আরও খবর
হাসপাতালে ভর্তি মাহাথির মোহাম্মদ

শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২




বান্দরবানের লামা রুপসী পাড়ায় যুবককে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বান্দরবানে লামা উপজেলার রুপসী পাড়া এলাকায় মংক্যচিং মার্মা (৩৫) নামে এক যুবককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার গভীর রাত ১টার দিকে বান্দরবানের লামা উপজেলার রূপসী পাড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। নিহত যুবকের নাম মংক্যচিং মার্মা (৩৫)। তিনি রাঙ্গামাটির রাজস্থলীর বাঙ্গালহালীয়া এলাকার বাসিন্দা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মংক্যচিং মার্মা রাঙ্গামাটির রাজস্থলীর বাঙ্গালহালিয়া থেকে বান্দরবানের লামার রূপসী পাড়ার ৩ নম্বর ওয়ার্ড অংহ্লা পাড়ায় শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসেন। রাত সাড়ে ১২টার সময় ছয় জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা বাড়িটি ঘিরে ফেলে। পরে তারা ঘরের সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ও মংক্যচিং মার্মাকে গুলি করে হত্যা করে। এ সময় সন্ত্রাসীরা তিন রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে বলেও জানান স্থানীয়রা।

তবে রাজনৈতিক কারণে জেএসএস এর সক্রিয় সন্ত্রাসীরা এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে জানান পরিবারের সদস্যরা। তবে কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা জানাতে পারেনি পুলিশ। এ ঘটনার পর এলাকায় আতংক বিরাজ করছে।

লামা থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, রাতে একজনকে গুলি করে হত্যা করেছে বলে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর