আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

করোনা: বিশ্বজুড়ে দৈনিক শনাক্ত ৬ লাখ

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেড়েছে। একইসঙ্গে আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন দেড় হাজারের বেশি মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে প্রায় ৬ লাখে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রাণহানির তালিকায় এরপরই রয়েছে জার্মানি, ব্রাজিল, ইতালি, ফ্রান্স, রাশিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়া। এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫১ কোটি ৮৩ লাখের ঘর। অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬২ লাখ ৭৯ হাজার।

বুধবার (১১ মে) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৭০৬ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে সাত শতাধিক। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬২ লাখ ৭৯ হাজার ৯৮৮ জনে।

একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৯২ হাজার ৯৫৭ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় পৌনে তিন লাখ। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫১ কোটি ৮৩ লাখ ৩৫ হাজার ২৭৯ জনে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৪ হাজার ৪৪৯ জন এবং মারা গেছেন ২০২ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে ইউরোপের এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৫৪ লাখ ৯০ হাজার ১৫৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৩৭ হাজার ২২২ জন মারা গেছেন।

অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৯ হাজার ৯০৭ জন এবং মারা গেছেন ২৭৯ জন। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৮ কোটি ৩৭ লাখ ৭৮ হাজার ৭১৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১০ লাখ ২৫ হাজার ১০৪ জন মারা গেছেন।

ফ্রান্সে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬ হাজার ৪৪৯ জন এবং মারা গেছেন ১২৩ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৯০ লাখ ২১ হাজার ২২৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৪৬ হাজার ৯৭৯ জন মারা গেছেন। একইসময়ে স্পেনে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১২ হাজার ৪৫৮ জন এবং মারা গেছেন ৬২ জন।

রাশিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১০১ জন এবং নতুন করে ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ৪ হাজার ৫৩১ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৮২ লাখ ৩৭ হাজার ২২৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ১৫০ জনের। একইসময়ে থাইল্যান্ডে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ২৩০ জন এবং মারা গেছেন ৫৩ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় দক্ষিণ কোরিয়ায় নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৯ হাজার ৮৯৬ জন এবং মারা গেছেন ৬২ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে পূর্ব এশিয়ার এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৭৬ লাখ ১৪ হাজার ৮৯৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ২৩ হাজার ৪৬২ জন মারা গেছেন। গত একদিনে অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ২২ জন এবং মারা গেছেন ২২ জন।

ইতালিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬ হাজার ১৫ জন এবং মারা গেছেন ১৫৮ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে ইউরোপের এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৬৮ লাখ ৭২ হাজার ৬১৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৬৪ হাজার ৭৩১ জন মারা গেছেন। একইসময়ে জাপানে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৩ হাজার ৬৬৪ জন এবং মারা গেছেন ৩০ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৯৫ জন এবং নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ২০ হাজার ১৪৩ জন। অপরদিকে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩ কোটি ৫ লাখ ৯৪ হাজার ৩৮৮ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ৬৪ হাজার ৪৪৩ জনের।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যার তালিকায় দেশটির অবস্থান তৃতীয়। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২ হাজার ৪৯৬ জন। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪ কোটি ৩১ লাখ ১০ হাজার ১৮৫ জন এবং মারা গেছেন ৫ লাখ ২৪ হাজার ১০৩ জন।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় অস্ট্রেলিয়ায় নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৭ হাজার ৭২৪ জন এবং মারা গেছেন ৪৩ জন। একই সময়ে কানাডায় নতুন করে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ১০২ জন এবং মারা গেছেন ৬৭ জন। গ্রিসে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ৪৫৩ জন এবং মারা গেছেন ২৭ জন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



নিউ মার্কেটে সংঘর্ষের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ৩ জন গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | ৪২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর নিউ মার্কেট এলাকায় ঘটে যাওয়া সংঘর্ষের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট তিন জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। বৃহস্পতিবার (৫ মে) র‌্যাব সদর দপ্তরের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকা নিউ মার্কেট এলাকায় সংঘর্ষে দু'জন নিহত হওয়ার ঘটনায় হত্যাকাণ্ডে জড়িত ১ জন এবং সংঘর্ষের সূত্রপাতকারী ২ জনসহ মোট ৩ জনকে শরীয়তপুর ও কক্সবাজার থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও তিনি জানান।


আরও খবর



নিষেধাজ্ঞা উঠলেও টুইটার ব্যবহার করবেন না ট্রাম্প

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টুইটারের মালিকানা পরিবর্তন হচ্ছে। এই অবস্থায় যদি নতুন কার্য নির্বাহি পরিষদ ট্রাম্পের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেন তবু আর টুইটার ব্যবহারের ইচ্ছে নেই বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প। সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজকে এমনটি জানিয়েছে ট্রাম্প।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানান, পরিকল্পনা অনুযায়ী আগামী সাত দিনের মধ্যে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে তার নিজের মালিকানাধীন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ট্রুথ সোশ্যালে যোগ দেবেন।  আমি টুইটারে যাচ্ছি না। আমি আশা করি ইলন টুইটার কিনেছেন কারণ তিনি এটির উন্নতি করবেন। তিনি একজন ভালো মানুষ।

সোমবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৪ হাজার ৪০০ কোটি ডলারে টেক জায়ান্ট টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্কের কাছে টুইটার বিক্রি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদ।

প্রসঙ্গত, ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হেরে যাওয়ার পর ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে হামলা হয়। এ ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ানোর অভিযোগে ট্রাম্পের টুইটার ও ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড করা হয়। এরপরই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম চালুর ঘোষণা দেন ট্রাম্প।


আরও খবর



মুখের ভেতর জ্বালাপোড়া হলে কী করবেন?

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ২৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুখে নানা জটিল সমস্যা হয়ে থাকে। নানা রকম রোগ থেকে বাঁচতে জিহ্বা ও মাড়িরর সঠিক পরিচর্যা করা দরকার। আপনি যদি গর্ভবতী হয়ে থাকেন এবং মাড়ি রোগ থাকে, সে ক্ষেত্রে আপনার শিশু নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম নিতে পারে, শুধু তাই নয়, এই শিশু আকার আকৃতিতে স্বাভাবিকের চেয়ে ছোট হবে।

অন্তঃসত্ত্বা মায়ের মাড়ি রোগে যথাযথ চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে নির্দিষ্ট সময়ে। মাড়ি রোগের মাধ্যমে যদি ব্যাকটেরিয়া ভিরিড্যান্স স্ট্রেপটোকক্কাই রক্ত প্রবাহে সংক্রমিত হয় তাহলে হার্টের ভাল্ব নষ্ট হওয়ার আশংকা থাকে। এসব বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন মুখ ও দন্তরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মো. ফারুক হোসেন।

আপনার জিহ্বার রং কমলার রঙের মতো হতে পারে যদি ঠিকভাবে মুখ ও জিহ্বার যত্ন না নেওয়া হয়। যেমন জিহ্বা যদি নিয়মিত ব্রাশ বা পরিষ্কার করা না হয়।

ভিটামিন বি এবং ফলিক এসিডের অভাবে জিহ্বা লাল অথবা কমলা রং হতে পারে। অধিকাংশ সময় হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস সুপ্ত অবস্থায় নার্ভ সেলে থাকে।

তাই এ ভাইরাসের সংক্রমণের ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।

হাইপারথাইরয়ডিজমের রোগীরা মুখে জ্বালাপোড়া এবং অস্বস্তির কথা বলে থাকেন বিশেষ করে জিহ্বার ওপর এবং গালের অভ্যন্তর ভাগে।

চিকিৎসা না হলে মুখের জ্বালাপোড়া এবং অস্বস্তিভাব একটি লম্বা সময়ব্যাপী থাকতে পারে।

সাইকোসোমাটিক ব্যথাও মুখে একটি লম্বা সময় ধরে থাকতে পারে। উভয় ক্ষেত্রেই রোগী রাতের বেলা ঠিকভাবে ঘুমাতে পারে না।

রোগী কখনও কখনও অস্থিরতা ও মানসিক চাপে ভুগে থাকেন। রোগীদের উচিত মুখস্ত ওষুধ সেবন না করে চিকিৎসকের কাছে সবকিছু খুলে বলা। তবেই একটি সমাধান বের হয়ে আসবে।

ব্যথানাশক ওষুধ যখন সেবন করবেন বিশেষ করে এনএসএআইডি গোত্রভুক্ত ওষুধ সেক্ষেত্রে আপনার এলকোহল সেবনের অভ্যাস থাকলে অবশ্যই এলকোহল সেবন করবেন না।

প্রায় চারশর বেশি ওষুধ শুষ্ক মুখ সৃষ্টি করতে পারে। এর মধ্যে এন্টিহিসটামিন, ডিকনজেসটেন্টস, ব্যথানাশক ওষুধ এবং বিষণ্ণতানাশক ওষুধ উল্লেখযোগ্য যা শুষ্ক মুখের সৃষ্টি করে থাকে।


আরও খবর



সাগরেই বিলীন হতে পারে ঘূর্ণিঝড় অশনি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৬২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঘূর্ণিঝড় নিয়ে আগেভাগে কিছু বলা যায় না। বঙ্গোপসাগর ফানেল আকৃতির হওয়ায় ঘূণিঝড়ের পূর্বাভাসের সমীকরণ মেলানো আরও জটিল। আর এই জটিলতার কারণে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর বিগত কয়েক বছর ধরে পর্যবেক্ষণ করে পূর্বাভাস দিয়ে আসছে এবং শেষ পর্যন্ত মিলছেও। ভারতীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর ও উইন্ডি সফটওয়্যারসহ অনেক মডেলকে ভুল প্রমাণ করে ভারতের বিশাখাপত্তম উপকূলের কাছে এসে ডান দিকে টার্ন নিচ্ছে অশনি। আর এতে তা সোজা বাংলাদেশের সাতক্ষীরা-খুলনা উপকূলের দিকে ধাবিত হওয়ার কথা। কিন্তু শক্তি হারিয়ে ফেলে তা ভুবনেশ্বরের কাছে এসেই দুর্বল হয়ে নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে।

ভারতীয় আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপাত্ত অনুযায়ী, মঙ্গলবার ভোরে বিশাখাপত্তম উপকূলে এসে পৌঁছানোর পর তা ডান দিকে টার্ন নিয়ে সোজা উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হওয়ার কথা। বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরও এমন গতিপথ দেখিয়েছে অশনির। ঘূর্ণিঝড়টি শক্তি হারিয়ে মঙ্গলবার মধ্যরাতের শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় থেকে ঘূর্ণিঝড় ঝড়ে রূপ নিতে পারে। দুর্বল হয়ে ঘূর্ণিঝড়টি উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে বুধবার গভীর নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে এবং বৃহস্পতিবার ভুবনেশ্বর উপকূলে আসার আগেই তা নিম্নচাপে পরিণত হয়ে সাগরে বিলীন হতে পারে। এবিষয়ে কথা হয় আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদের সঙ্গে। তিনি বলেন, যেহেতু মঙ্গলবার সকালে ঘূর্ণিঝড়টি দুর্বল হয়ে ডান দিকে বাঁক নেবে তখন সংকেত বাড়িয়ে তিন নম্বর করা হতে পারে। পরবর্তীতে ঝড়টি সাগরে যে কয়েকদিন থাকবে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত বহাল রাখা হতে পারে।

বাংলাদেশ উপকূলে বৃষ্টি ঝরাবে অশনি:

কিন্তু ডান দিকে বাঁক নিয়ে বাংলাদেশ উপকূলে কোনো প্রভাব পড়বে কিনা জানতে চাইলে বজলুর রশিদ বলেন, বাংলাদেশ উপকূল পর্যন্ত আসার শক্তি থাকবে না। তবে এর প্রভাবে দেশের দক্ষিণাঞ্চল সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাট উপকূলীয় ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া চট্টগ্রামসহ দেশের সমগ্র উপকূলীয় বৃষ্টি হতে পারে।

এবিষয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর পতেঙ্গা কার্যালয়ের বিশ্বজিৎ চৌধুরী বলেন, ঝড়টি ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। সে হিসেবে বিশাখাপত্তম ও ভুবনেশ্বরের মধ্যবর্তী এলাকায় তা বিলীন হয়ে যাওয়ার কথা। তবে এর প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টি হতে পারে।

বৃষ্টি কতোদিন থাকতে পারে জানতে চাইলে বিশ্বজিৎ চৌধুরী বলেন, ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী নিম্নচাপ পর্যন্ত যতোদিন থাকবে ততোদিন থেমে থেমে বৃষ্টি হতে পারে। এদিকে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে সোমবার সকালের পর থেকেই থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে নগরীতে। এরমধ্যে বিকেলের পর আবার মুষলধারে বৃষ্টিও হয়েছে। আকাশে প্রচুর মেঘ।

ব্যতিক্রমী ঘূর্ণিঝড় অশনি:

৭ মে ভারত মহাসাগরের আন্দামান সাগরে সৃষ্ট হওয়া লঘুচাপটি দ্রুত সুস্পষ্ট লঘুচাপ, নিম্নচাপ, গভীর নিম্নচাপের পর ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে। কিন্তু প্রথম দিকে যতো বড় আয়তন নিয়ে তা তৈরি হচ্ছিল শেষ পর্যন্ত তা আর থাকেনি। আর একারণে এর পূর্বাভাস গতিপথ নিয়ে আবহাওয়াবিদদের সমস্যায় পড়তে হয়েছে।

এ বিষয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রের আবহাওয়াবিদ শাহীনুল ইসলাম বলেন, ঝড়টি যেমন ভাবা হয়েছিল তেমন হয়নি। একারণে এর গতিপথ আবহাওয়াবিষয়ক একেক মডেলে একেক রকম আসছে। মঙ্গলবার সকালে হয়তো চূড়ান্তভাবে বলা যাবে তা কোনদিকে যাচ্ছে।

এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ১০ নম্বর বিশেষ বুলেটিনের তথ্যমতে, ঘূর্ণিঝড় অশনি গতকাল সন্ধ্যা ৬টায় চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ১১০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার থেকে ১০৪৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা থেকে ৯৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা থেকে ৯৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরো ঘনীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৮৯ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১১৭ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশের উপকূলীয় এলাকার বন্দরগুলোকে দুই নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। একইসাথে মাছ ধরার সকল নৌকা ও ট্রলারসমূহে উপকূলের কাছাকাছি নিরাপদে থাকতে বলা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: ঘূর্ণিঝড় অশনি

আরও খবর



এপ্রিলে রেমিট্যান্স এলো ২০০ কোটি ডলার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এপ্রিল মাসে প্রবাসীরা ২০০ কোটি ৯৫ লাখ মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে। এটি আগের ১১ মাসের মধ্যে অর্থ্যাৎ ২০২১ সালের মে মাসের পর এক মাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স।

এর আগে, গত বছরের মে মাসে ২১৭ কোটি ১১ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল। মে মাসের পর এবার সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এলো। বাংলাদেশি মুদ্রায় (১ ডলার ৮৬ টাকা ৫০ পয়সা ধরে) ১৭ হাজার ৩৮২ কোটি টাকা। এ ছাড়াও গত মার্চ মাসে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৮৬ কোটি মার্কিন ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম সারাবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রেমিট্যান্সের ওপর সরকারের প্রণোদনা বেড়েছে। এ ছাড়া পবিত্র রমজান এবং ঈদকে কেন্দ্র করে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠানোর পরিমাণ বাড়িয়েছে।’

তিনি বলেন, সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ২/৩ মাস রেমিট্যান্স প্রবাহ আরও বাড়বে।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী সদ্যবিদায়ী এপ্রিলে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ৩৫ কোটি ৪৯ লাখ মার্কিন ডলার। অন্যদিকে বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১৬১ কোটি ২৭ লাখ মার্কিন ডলার। এছাড়াও বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৭৩ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার এবং বিশেষায়িত ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩ কোটি ৫৪ লাখ মার্কিন ডলার।

বরাবরের মতো এবারই রেমিট্যান্স আনার ক্ষেত্রে শীর্ষে রয়েছে ইসলামী ব্যাংক। ব্যাংকটির মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৪২ কোটি ৯৪ লাখ ডলার। যা বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। দ্বিতীয় স্থানে রযেছে ডাচ–বাংলা ব্যাংক। এ ব্যাংকের মাধ্যমে রোমট্যান্স এসেছে ২৮ কোটি ২৮ লাখ ডলার। এছাড়াও অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে ১২ কোটি ৫৭ লাখ ডলার, সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে ১০ কোটি ৮ লাখ ডলার এবং ব্যাংক এশিয়ায় মাধ্যমে ৯ কোটি ৪১ লাখ ডলার রেমিট্যান্স দেশে এসেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে প্রবাসীরা ১৯৬ কোটি ২৬ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠায়। ফেব্রুয়ারিতে তা কমে ১৭৮ কোটি ৫০ লাখ ডলারে নেমে আসে। মার্চ থেকে তা আবার বাড়তে শুরু করে। গত মার্চে ১৯১ কোটি ৬৬ লাখ ডলার, এপ্রিলে ২০৬ কোটি ৬৭ লাখ ডলার, মে মাস ২১৭ কোটি ১১ লাখ ডলার, জুন মাসে ১৯৪ কোটি ৮ লাখ ডলারে। গত বছরের প্রথম ছয় মাসে রেমিট্যান্স আসে ১ হাজার ১৮৪ কোটি ১২ লাখ ডলার।

অন্যদিকে চলতি ২০২১-২০২২ অর্থবছরের জুলাই মাস থেকে নভেম্বর পর‌্যন্ত রেমিট্যান্স প্রবাহ কমতে আবার শুরু করে। গত জুলাই মাসে রেমিট্যান্স আসে ১৮৭ কোটি ১৫ লাখ ডলার, আগষ্টে ১৮১ কোটি, সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ৬৩ লাখ ডলার, অক্টোবরে ১৬৪ কোটি ৬৮ লাখ ডলার, নভেম্বরে ১৫৫ কোটি ৩৭ লাখ ডলার, ডিসেম্বরে ১৬২ কোটি ৯০ লাখ ডলার।

সদ্য বিদায়ী জানুয়ারি মাসে রেমিট্যান্স আসে ১৭০.৪৪ কোটি ডলার এবং ফেব্রুয়ারিতে ১৪৯ কোটি ৬০ লাখ ডলার এবং মার্চে ১৮৬ কোটি ডলার।এপ্রিলে ২০০.৯৫ কোটি ডলার। চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে রেমিট্যান্স আসে এক হাজার ৭৩০ কোটি ৩৫ লাখ ডলার।

অর্থবছর ভিত্তিক রেমিট্যান্স:

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবাসীরা রেকর্ড পরিমাণ ২৪.৭৭ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। এর আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১ হাজার ৮২০ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ১ হাজার ৬৩১ কোটি ডলার, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১ হাজার ৪৯৮ কোটি ডলার, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১ হাজার ২৭৬ কোটি ৯৪ লাখ ডলার, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১ হাজার ৪৯৩ কোটি ডলার এবং ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রেমিট্যান্স আসে ১ হাজার ৫৩১ কোটি ৬৯ লাখ ডলার।

অন্যদিকে পঞ্জিকা বছর হিসাবে রেমিট্যান্স :

২০২১ সালে করোনার মধ্যেও প্রবাসীরা অতিথের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে রেমিট্যান্স পাঠায় ২ হাজার ২০৭ কোটি ৮৫ লাখ ডলার। ২০২০ সালে প্রবাসীরা ২ হাজার ১৭৪ কোটি ১৮ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন।এর আগে ২০১৯ সালে প্রবাসীরা ১ হাজার ৮৩৩ কোটি মাকির্ন ডলার, ২০১৮ সালে ১ হাজার ৫৫৩ কোটি ৭৮ লাখ ডলার, ২০১৭ সালে ১ হাজার ৩৫৩ কোটি ডলার, ২০১৬ সালে ১ হাজার ৩৬১ কোটি ডলার এবং ২০১৫ সালে ১ হাজার ৫৩১ কোটি মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স আসে।


আরও খবর