আজঃ শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে নির্মম নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশিত:বুধবার ১০ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ মার্চ ২০২১ | ২০৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক


চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায় মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের এক শিশু শিক্ষার্থীকে শিক্ষকের নির্মম নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে। মায়ের কাছে ছুটে যাওয়ায় মো. ইয়াসিন ফরহাদ (৮) নামে ওই শিশু শিক্ষার্থীকে অমানবিকভাবে পিটিয়েছেন ওই শিক্ষক। এই ঘটনায় সমালোচনার ঝড় বইছে। এদিকে এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে হাটহাজারী পৌরসভার ফটিকা গ্রামের মারকাজুল কোরআন ইসলামিক একাডেমিতে অভিযান চালিয়ে ওই মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষক হাফেজ মো. ইয়াহইয়াকে আটক করে পুলিশ। তবে ওই শিক্ষার্থীর বাবা-মা অভিযুক্ত ওই মাদ্রাসাশিক্ষককে ক্ষমা করে দিয়েছেন মর্মে একটি লিখিত বক্তব্য দেয়ায় প্রশাসন এ ঘটনায় দোষী শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি।

এর আগে বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে মাদ্রাসা থেকে বের হয়ে মায়ের পেছনে ছুটে যাওয়ার কারণে ওই শিক্ষক অমানুষিকভাবে হেফজ বিভাগের শিক্ষার্থী ইয়াসিন ফরহাদকে প্রহার করে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও শিক্ষার্থীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকাল ৫টার দিকে শিক্ষার্থী ইয়াসিন ফরহাদকে দেখতে যায় তার মা পারভিন আক্তার। দেখা শেষে ফিরে আসার সময় ইয়াসিন ফরহাদ তার মায়ের পেছন পেছন ছুটে আসে। এ সময় হেফজ বিভাগের শিক্ষক হাফেজ মো. ইয়াহইয়া তাকে ধরে এনে বেদম প্রহার করে। এদিকে ওই শিক্ষার্থীর ওপর শিক্ষকের অমানুষিকভাবে বেদম প্রহারের একটি ৩৩ সেকেন্ডের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়।

ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা যায়, তাকে নির্মমভাবে প্রহার করা হচ্ছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন অনেকেই। তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিষয়ে একাডেমিপ্রধানের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।


আরও খবর
সাড়ে ৪ লাখ ইয়াবাসহ আটক ৫

শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

কক্সবাজারে পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি

বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১




লুডু খেলা নিয়ে শিশুকে হত্যা

প্রকাশিত:বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৩০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মোবাইলে লুডু খেলার সময় গালি দেওয়ায় রতন মোল্লা নামে এক শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় সোহান নামে আরও এক শিশুকে হত্যাচেষ্টা করা হয়েছে। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাতে আটক মেহেদী প্রাথমিকভাবে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, জেলার শিবচর উপজেলার কাদিরপুর ইউনিয়নের চরকান্দি এলাকার আনসু বেপারির বাড়িতে কয়েক দিন আগে ঢাকা থেকে বেড়াতে আসে মেয়ের ছেলে মেহেদী হাসান (১৮)। বাড়িতে আসার পর মেহেদী পার্শ্ববর্তী কৃষক জসিম মোল্লার একমাত্র ছেলে রতন মোল্লা (৮) ও নাসির সিকদারের ছেলে সোহানের (৯) সঙ্গে মোবাইলে গেম খেলত। মঙ্গলবার সকালে সোহানের মায়ের মোবাইলে আবারও তিনজন লুডু খেলে। খেলার সময় রতন ও সোহান মেহেদীকে গালি দেয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে মেহেদী শিশু দুটিকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

শিবচর থানা পুলিশ জানায়, মেহেদী মঙ্গলবার বিকেলে ঘোরানো ও নতুন রেস্টুরেন্টে খাওয়ানোর কথা বলে পদ্মা সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়ক সংলগ্ন নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে সোহানকে পানি আর চানাচুর কেনার জন্য দোকানে পাঠায়। সোহান খাবার নিতে চলে গেলে মেহেদী রতনকে নির্জন স্থানে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। প্রায় ২০ মিনিট পর সোহান এসে রতন কোথায় জানতে চায়।

মেহেদী জানায়, রতন বাড়ি চলে গেছে। এ কথা বলে মেহেদী সোহানকে নিয়ে বাংলাবাজার ঘাট এলাকায় যায়। সেখানে নিয়ে সোহানকেও শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা করে। সোহানের চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে মেহেদী নানা বাড়ি পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা সোহানকে উদ্ধার করে। নানা বাড়িতে পৌঁছালে মেহেদীর সারা শরীরে কাদা মাখা দেখে তারা রতন ও সোহানের খোঁজ জানতে চায়। কৌশলে মেহেদী বিষয়টি এড়িয়ে যেতে চাইলে স্বজনরা শিবচর থানায় খবর দেয়।

সহকারী পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান, শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন, পরিদর্শক (তদন্ত) আমির সেরনিয়াবাতসহ পুলিশের একাধিক টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে মেহেদীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে মেহেদী হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি স্বীকার করে। মঙ্গলবার মধ্যরাতে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।

ঘাতক মেহেদী সাংবাদিকদের বলেন, মোবাইলে লুডু খেলার সময় ওরা আমার বাবা-মাকে গালি দেয়। তাই আমি ওকে হত্যা করেছি।

আহত শিশুর মামা ইউসুফ মাতবর জানান, আমার মেঝ বোনের একমাত্র ছেলেকেও মেহেদী হত্যার চেষ্টা করেছিল। আল্লাহর রহমতে সে বেঁচে আছে। তবে ওর বন্ধুকে গলা টিপে মেরে ফেলেছে। আমরা এই নির্মম হত্যার কঠোর বিচার চাই।

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিরাজ হোসেন বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মোবাইলে লুডু খেলার সময় গালি দেওয়া নিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্ত করলে বিষয়টি বোঝা যাবে।

নিউজ ট্যাগ: শিশুকে হত্যা

আরও খবর



নিখোঁজের ৪দিন পর সিএনজি চালকের লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৭ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ আগস্ট ২০২১ | ১৩৯৫জন দেখেছেন
Image

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারে নিখোঁজ হওয়ার চারদিন পর ডোবা থেকে সিএনজি চালকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (২৭ আগস্ট) বিকেলে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার বাউরঘড়িয়া গ্ৰাম থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত সিএনজি চালক হোসেন আহমদ (২৪) শহরের বড়হাট এলাকায় বসবাস করতেন। তার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়, পিতার নাম রইছ মিয়া। পরিবার নিয়ে মৌলভীবাজার শহরে বসবাস করতেন ও সিএনজি চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। হোসেন আহমদের স্ত্রী ও ২ মেয়ে রয়েছে। তিনি কুসুমবাগ-চৌমোহনা সড়কে সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালাতেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাউরঘড়িয়া গ্রামের দিঘীর পাড়ের কাছে ডোবায় মানুষের একটি হাত ভেসে থাকতে দেখেন গ্রামের লোকজন। পরে পুলিশকে খবর দেয়া হয়, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্য সদর হাসপাতালে পাঠায়।

নিহতের খালাতো ভাই সুমন শুক্রবার (২৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় জানান, আজ থেকে চারদিন আগে মঙ্গলবার রাতে আমার সাথে তার দেখা হয়। এরপর আর হোসেন আহমদ বাড়ি ফিরে আসে নি। পরে আমরা থানায় অভিযোগ করি। দুইদিন আগে তার মোবাইল নাম্বার থেকে একটি কল আসে যে তাকে পেতে হলে দেড় লক্ষ টাকা দিতে হবে। পরে আমরা বিকাশে পঞ্চাশ হাজার টাকা পাঠাই। আজ তার লাশ পেলাম। যে সিএনজি নিয়ে সে বের হয়েছিল, সে সিএনজিও নিখোঁজ।

মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াসিনুল হক বলেন, লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে। ঘটনাটি পুলিশ অনুসন্ধান করছে এবং সত্য উদঘাটন করতে সব ধরনের অভিযান পরিচালনা করা হবে।


আরও খবর



৭ ঘণ্টার পর চট্টগ্রামের সঙ্গে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

প্রকাশিত:রবিবার ২৯ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৯ আগস্ট ২০২১ | ৬২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুমিল্লায় ট্রেন ও সবজিবাহী পিকআপ ভ্যানের সংঘর্ষের পর চট্টগ্রামের সঙ্গে বন্ধ হয়ে পড়া ঢাকা ও সিলেটের রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়েছে। শনিবার (২৮ আগস্ট) দিনগত রাত ২টার দিকে পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড এলাকায় রেলক্রসিংয়ে সংঘর্ষ ঘটে। পরে রবিবার (২৯ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়।

কুমিল্লা রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইসমাইল হোসেন সিরাজী জানান, দুঘর্টনায় তেমন কোন হতাহত হয়নি। দুই একজন সামান্য আহত হলেও প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তারা সুস্থ হয়েছেন।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজ সকাল ৮টায় চট্টগ্রাম বিভাগীয় রেলওয়ে পরিবহন কর্মকর্তা স্নেহাশীষ দাসকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়।

এদিকে উদ্ধার কাজে আসা কুমিল্লা রেলওয়ে পথ বিভাগের ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রকৌশলী লিয়াকত (পথ) আলী মজুমদার জানান, দুর্ঘটনা কবলিত ট্রেনটির মাঝের ৩টি বগি রেখে সামনের ৭টি বগি লাকসাম জংশনে এবং বাকী ৭টি কুমিল্লা রেলওয়ে স্টেশনে নেয়া হয়েছে। লাকসাম জংশন লোকোসেড থেকে রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধার কাজ করেছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসছেন। তদন্তের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে কর্তৃপক্ষ।


আরও খবর



জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ফল প্রকাশ

প্রকাশিত:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
প্রথম মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের কোনো শিক্ষা কার্যক্রমে ভর্তি হয়ে থাকলে তাকে অবশ্যই ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখের মধ্যে পূর্ববর্তী

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষে ভর্তির ফল প্রকাশ করেছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এ ফল প্রকাশ করা হয়।

ভর্তির ফল জানতে মোবাইল এসএমএস গিয়ে (nuathnroll no ক্যাপিট্যাল অক্ষরে টাইপ করে) ১৬২২২ নম্বরে সেন্ড করতে হবে। এর মাধ্যমে ফল পাওয়া যাবে। ভর্তি বিষয়ক ওয়েবসাইটে রাত ৯টা থেকে ফল পাওয়া যাবে।

প্রথম মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের কোনো শিক্ষা কার্যক্রমে ভর্তি হয়ে থাকলে তাকে অবশ্যই ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখের মধ্যে পূর্ববর্তী শিক্ষাবর্ষের ভর্তি বাতিল করে চূড়ান্ত ভর্তি ফরম উত্তোলন করতে হবে। ভর্তিসংক্রান্ত তথ্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে Prospectus (Honours)/Important Notice অপশন থেকে জানা যাবে।


আরও খবর
১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




রাগীব আহসান ১৭ হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নেন যেভাবে

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২৩৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ধর্মীয় অনুভূতিকে কাজে লাগিয়ে শরিয়াহভিত্তিক সুদমুক্ত বিনিয়োগের ধারণা প্রচার করে ১০ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে ১১০ কোটি টাকা সংগ্রহ করেন। এরপরই বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান খুলে হাতিয়ে নেন ১৭ হাজার কোটি টাকা। এমনটিই দাবি করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-১০ এর একটি দল রাজধানী ঢাকার শাহাবাগ থানার তোপখানা রোড এলাকায় অভিযান চালিয়ে রাগীব আহসান (৪১) ও তার সহযোগী আবুল বাশার খানকে (৩৭) গ্রেফতার করে। এসময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ভাউচার বই ও মোবাইল ফোন।

শুক্রবার বিকালে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে তার অবৈধ কর্মকাণ্ডের বিষয়ে অবহিত করতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, রাগীব আহসান ১৯৮৬ সালে মাদরাসায় পড়াশোনা শুরু করেন। ১৯৯৯ সালে হাটহাজারী মাদরাসা থেকে তিনি পাস করেন। ২০০০ সালে খুলনার একটি মাদরাসা থেকে মুফতি ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর মসজিদে ইমামতি করেন।

২০০৬-০৭ সালের দিকে ইমামতির পাশাপাশি এহসান এস মাল্টিপারপাস নামে একটি এমএলএম কোম্পানিতে ৯০০ টাকা বেতনে চাকরি করার মাধ্যমে এমএলএম কোম্পানির আদ্যপান্ত রপ্ত করেন রাগীব। ২০০৮ সালে এহসান রিয়েল এস্টেট নামে নিজেই একটি এমএলএম কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। ওই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ১০ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে ১১০ কোটি টাকা নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন।

রাগীবের তত্ত্বাবধানে ৩০০ মাঠ পর্যায়ের কর্মী ছিল। যাদের কোনো বেতন ছিল না। যদিও তাদের বিনিয়োগ আনার পরিমাণের ওপর ২০ শতাংশ লভ্যাংশ দেওয়ার কথা ছিল। এসব পরিকল্পনার মাধ্যমে দ্রুত গ্রাহক সংখ্যা বাড়াতে সক্ষম হন রাগীব। কর্মী-গ্রাহক সবার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন তিনি। কর্মী-গ্রাহকদের কাউকেই লভ্যাংশ পরিশোধ করেননি।


আরও খবর