আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

মানিকগঞ্জে অবৈধভাবে তেল মজুদ করায় ১ লাখ জরিমানা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | ৪৮০জন দেখেছেন

Image

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:

বাজারে সরবরাহ না করে অবৈধভাবে তেল মজুদ করে সংকট সৃষ্টির অপরাধে মানিকগঞ্জ শহর বাজারের তীর তেলের পরিবেশক প্রতিষ্ঠান মেসার্স কালিপদ এন্ড সন্স কে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী ১,০০,০০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৩ মে) সকালে ভোক্তা অধিকার মানিকগঞ্জের পরিচালনায় এ অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় অভিযুক্ত  প্রতিষ্ঠানে ১৩০০ লিটারের অধিক তেল পাওয়া যায়।

ভোক্তা অধিকার মানিকগঞ্জের সহকারী পরিচালকের তত্ত্বাবধায়নে অভিযান চলাকালে জেলা ক্যাব ও ভিজিএফ আইসহ পুলিশের একটি টিম সহযোগিতা করে।

ভোক্তা অধিকার মানিকগঞ্জের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান রুমেল বলেন, বাজারে সয়াবিন তেলের বেশ চাহিদা রয়েছে। এরপরও ওই ডিলার বাজারে তেল বিক্রি না করে অবৈধভাবে মজুত করে খোলাবাজারে বিক্রি করে আসছিলেন। কৃত্রিম সংকট তৈরি না করতে এবং তেলে সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে ওই বাজারের ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়েছে। অভিযানের পরে মজুত করা তেল ক্রেতাদের মাঝে ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করা হয়। তিনি আরো জানান ভোক্তা অধিকার নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসক আবদুল লতিফ এর নির্দেশে তাদের অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।

উল্লেখ্য দেশের মাঝে তেল ব্যাবসায়ীদের কৃত্রিম সংকট তৈরির ক্ষেত্রে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে প্রাতিষ্ঠানিক অভিযান চালিয়ে সারা দেশের মাঝে ভোক্তা অধিকার কাজ করে যাচ্ছে, যার ধারাবাহিকতায় মানিকগঞ্জে গেল কয়েক দিন ধরে ভোক্তা অধিকার মানিকগঞ্জের অভিযান লক্ষ্য করা গেছে।


আরও খবর



নাটোরে ২ হাজার ৮৮০ পিস ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | ২৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নাটোরের গুরুদাসপুরে ২৮৮০ পিস ইয়াবাসহ সাদ্দাম (২৮) নামে একজন যুবককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। মঙ্গলবার (১৭ মে) সকাল ৮টার দিকে কাছিকাটা টোলপ্লাজা এলাকা থেকে তাকে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত সাদ্দাম নাটোর সদরের ঘোড়াঘাট আমহাটি গ্রামের অহেদ আলীর ছেলে।

র‌্যাব জানায়, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গুরুদাসপুর কাছিকাটা (আত্রাই) টোলপ্লাজা এলাকায় চেক পোস্ট বসিয়ে মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানের নেতৃত্ব দেন কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরহাদ হোসেন ও কোম্পানি উপ-অধিনায়ক সহকারী পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম।

এ সময় ২ হাজার ৮৮০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ সাদ্দামকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার ব্যক্তি জব্দকৃত ইয়াবা ট্যাবলেট চট্টগ্রাম থেকে ক্রয় করে বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে নিজ হেফাজতে রেখেছে বলে স্বীকার করে।

র‌্যাব আরও জানায়, গ্রেফতার ব্যক্তি একজন পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ গোপনে দেশের বিভিন্নস্থানে ইয়াবা ট্যাবলেট ক্রয় ও বিক্রয় করে আসছে। তার বিরুদ্ধে নাটোর জেলার গুরুদাসপুর থানায় মামলা করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: ইয়াবাসহ আটক

আরও খবর



কলকাতার সিনেমায় তাসনিয়া ফারিণ

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলা নাটকের জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। দক্ষ অভিনয়ের সুবাদে মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর মতো নির্মাতার প্রজেক্টে কাজ করেছেন এই অভিনেত্রী। এবার আরও একধাপ এগিয়ে টালিউডের প্রশংসিত নির্মাতা অতনু ঘোষের পরিচালনায় নির্মিতব্য সিনেমায় নাম লিখিয়েছেন ফারিণ। সিনেমাটির নাম আরও এক পৃথিবী

অতনু ঘোষ বরাবরই ভিন্ন ধাঁচের গল্প নিয়ে আসেন পর্দায়। তার নির্মিত রোববার সিনেমায় অভিনয় করে ভারতের ফিল্মফেয়ার পুরস্কার জিতেছেন বাংলাদেশের জয়া আহসান। এবার তারই নির্দেশনায় অভিষেক হতে যাচ্ছে ফারিণের।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম থেকে জানা গেছে, এ সিনেমার প্রেক্ষাপট লন্ডনকে ঘিরে। তাই পুরো শুটিং সেখানেই হবে। এসকে ফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত হবে এটি। এখানে কলকাতার খ্যাতিমান নির্মাতা-অভিনেতা কৌশিক গাঙ্গুলিও অভিনয় করবেন। এছাড়াও থাকছেন সাহেব ভট্টাচার্য, অনিন্দিতা বসু প্রমুখ।

অতনু ঘোষ জানান, আরও এক পৃথিবী সিনেমা মূলত চারজনের গল্প বলবে। যে চারজন মানুষের মাথার ওপর নিজস্ব ও বিশ্বস্ত ছাদ নেই। সেই ছাদ খোঁজার গল্প ফুটে উঠবে সিনেমায়। আবার চারটি আলাদা চরিত্র এক সুতোয় বাঁধা পড়বেন গল্পের প্রয়োজনেই।

গুণী এই নির্মাতা বলেন, কয়েক দিন আগে ফোর ফিট আন্ডার নামে একটা বই পড়েছিলাম। সেখান থেকেই ভাবনাটা। এই সিনেমায় লন্ডন একেবারে অন্যভাবে ধরা পড়বে। এতদিন সিনেপর্দায় যেভাবে লন্ডন দেখানো হয়েছে- সেটার চেয়ে অনেক আলাদা।

নিউজ ট্যাগ: তাসনিয়া ফারিণ

আরও খবর



সমুদ্র সম্পদ রক্ষায় সবাইকে সচেতন হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ২২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সমুদ্রের প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার লক্ষ্যে সরকার পরিকল্পনা নিয়েছে। দেশের বিশাল প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে সম্পদ অপচয় রোধে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সরকারপ্রধান।

বুধবার (১৮ মে) সকাল ১১টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃর্পক্ষের নব-নির্মিত পরিবেশ-বান্ধব বহুতল ভবনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। সে সময়ে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে অপরিকল্পিত অবকাঠামো না করতে হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী ভবন নির্মাণের তাগিদ দেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, সমুদ্র সীমায় অধিকার প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। এখন সমুদ্র সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহারের জন্য সুনীল অর্থনীতি নিয়ে কাজ চলছে। বাংলাদেশের সমুদ্র সীমা ও পাহাড় মিলিয়ে একটি ভূখণ্ড আমরা পেয়েছি। এর প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা করা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, সমুদ্র সম্পদ রক্ষা করতে হবে। পর্যটকদের জন্য ব্যবস্থা থাকবে, কিন্তু প্রাকৃতিক পরিবেশ নষ্ট করা যাবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পর্যটন নগরীকে আকর্ষণীয় করতে অনেক ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বিশেষ ধরনের আধুনিক ব্যবস্থাগুলোও ধীরে ধীরে নেওয়া হবে। বিশ্বের বুকে সবচেয়ে উন্নত, সমৃদ্ধ ও সুন্দর দেশ হিসেবে গড়ে উঠবে বাংলাদেশ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ এমপি, সচিব মো. শহীদুল্লা খন্দকার ও কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফোরকান আহমেদ বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী শরীফ আহমেদ এমপি, একই মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লাহ খন্দকার, কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, কক্সবাজার-২ আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ কানিজ ফাতেমা মোস্তাক, জেলা প্রশাসক মো. মানুনুর রশীদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান প্রমুখ।

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান জানান, নানা সংকট ও সীমাবদ্ধতা পেরিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক প্রচেষ্টায় কউকের ভবনসহ বড় বড় উন্নয়ন কাজগুলো সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে।

১ দশমিক ২১ একর জমিতে ১শ ১৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের স্থায়ী কার্যালয়ের জন্য ১০ তলা নির্মাণের প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পর ৪ কোটি ৩১ লাখ টাকা উদ্বৃত্ত রয়ে যায়।

ইতিমধ্যে ওই টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন কউক চেয়ারম্যান ফোরকান আহমেদ।


আরও খবর



৫ ভুল ধারণা: হাঁপানি রোগীদের কী কী করা মানা

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | ৫২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হাঁপানি বা অ্যাজমার সমস্যা অনেকেরই থাকে। বয়স নির্বিশেষে ফুসফুসে এই দীর্ঘ রোগে ভোগেন বহু মানুষ। ধোঁয়া, দূষণ, ধুলো বা ভ্যাপসা জায়গায় গেলে হাঁপানির সমস্যা বেড়ে যায়। শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া, বুকে টান ধরা, কাশির মতো উপসর্গ দেখা যায় হাঁপানি রোগীদের মধ্যে। বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ মানুষে এই রোগে আক্রান্ত। অথচ এখনও এই রোগ নিয়ে নানা ভ্রান্ত ধারণা ঘোরে মানুষের মনে। সবচেয়ে বড় ভ্রান্ত ধারণাগুলি জেনে রাখা ভাল।

১। শরীরচর্চা: হাঁপানির রোগ থাকলেই যে কোনও রকম খেলাধুলো করা যাবে না বা কঠিন শরীরচর্চা করা যাবে না এমন নয়। চিকিৎসা করালেই হাঁপানির বিভিন্ন উপসর্গ নিয়ন্ত্রণ করা যায় এবং সম্পূর্ণ স্বাভাবিক জীবনযাপন করা যায়।

২। শৈশবের অসুখ: একমাত্র ছোটদেরই অ্যাজমার সমস্যা দেখা দিতে পারে, তা নয়। এটা যেমন ঠিক যে অনেকেরই শৈশব থেকে এই রোগ ধরা পড়ে, আবার এটিও ঠিক যে বয়স নির্বিশেষে এই রোগে আক্রান্ত হতে পারেন যে কোনও ব্যক্তি।

৩। শ্বাসের সমস্যা: অ্যাজমা থাকলেই শ্বাস নিতে অসুবিধা হবে, তেমন নয়। অনেক হাঁপানির রোগীই টানা কাশির সমস্যা হয়, কিন্তু শ্বাস নিতে তেমন কোনও সমস্যা হয় না।

৪। অকেজো ওষুধ: অনেকে মনে করেন, সময়ের সঙ্গে হাঁপানির ওষুধের কার্যকারিতা কমে যায়। কারণ রোগীরা ওষুধের উপরই সারা ক্ষণ নির্ভরশীল হয়ে পড়েন। এই ধারণাও সম্পূর্ণ ভুল। বাড়তি নির্ভরশীলতা তৈরি করার মতো কোনও উপাদান থাকে না এই রোগের ওষুধে।

৫। তেমন গুরুতর নয়: অ্যাজমার সমস্যা খুব বেশি দেখা যায় বলে অনেকেই মনে করেন, তেমন গুরুতর নয় এই রোগ। কিন্তু দীর্ঘদিন ফুসফুসের সমস্যা থাকলে এবং ঠিক চিকিৎসা না হলে, পরিস্থিতি গুরুতর হয়ে উঠতেই পারে।

নিউজ ট্যাগ: হাঁপানির রোগী

আরও খবর



ঢাকাসহ ৭ অঞ্চলের ৮০ কি.মি. বেগে ঝড়ের আভাস

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ১০৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকাসহ দেশের সাতটি অঞ্চলের ওপর দিয়ে সর্বোচ্চ ৮০ কিলোমিটার বেগে কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে। তাই ওইসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে দুই নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) সন্ধ্যায় এমন পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

আবহাওয়াবিদ মো. শাহীনুল ইসলাম জানিয়েছেন টাংগাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, কুমিল্লা এবং সিলেট অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে পশ্চিম/উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০-৮০ কি.মি. বেগে বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া দেশের অন্যত্র পশ্চিম/উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কি.মি. বেগে বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে এক নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

অন্য এক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ভারতের অন্ধ্র উপকূলের অদূরে পশ্চিম মধ্য-বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় অশনি পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে প্রথমে গভীর নিম্নচাপ এবং পরবর্তীতে ক্রমাগতভাবে নিম্নচাপ, সুস্পষ্ট লঘুচাপ ও লঘুচাপে পরিণত হয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় অন্ধ্র উপকূলীয় এলাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থান করছে।

পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। এই অবস্থায় শুক্রবার (১৩ মে) সন্ধ্যা পর্যন্ত ময়মনসিংহ, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়ার সাথে বিজলি চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে। সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পাবে। ঢাকায় দক্ষিণ/দক্ষিণপূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ থাকবে ১০-১৫ কি.মি., যা অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়া আকারে ঘণ্টায় ৫০-৬০ কি.মি. পর্যন্ত উঠে যেতে পারে।

শনিবার নাগাদ বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা হাস পাবে। বর্ধিত ৫ (পাঁচ) দিনের আবহাওয়া সামান্য পরিবর্তন হতে পারে।

বৃহস্পতিবার দেশে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে কক্সবাজারে ৬৮ মিলিমিটার। রাজধানীতে বৃষ্টিপাত হয়েছে ১৮ মিলিমিটার। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে ৩৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

নিউজ ট্যাগ: ঝড়ের আভাস

আরও খবর