আজঃ মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১
শিরোনাম

মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাজীপুরে নিহত-২

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ নভেম্বর ২০২১ | ৫৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গাজীপুরে সড়কে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেল চালকসহ দুজন নিহত হয়েছেন।

রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে সিটি করপোরেশনের কাশিমপুর থানার বাড়ইপাড়া এলাকার চন্দ্র-নবীনগর সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের পরিচয় জানা যায়নি।

সালনা হাইওয়ে থানার ওসি মীর গোলাম ফারুক জানান, রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাড়ইপাড়া এলাকায় একটি মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পথচারীকে ধাক্কা দিয়ে উল্টে যায়।

এতে পথচারী ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং মোটরসাইকেল চালক গুরুতর আহত হন।

পরে চালককে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনিও মারা যান। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতদের লাশ উদ্ধার করেছে।

দুর্ঘটনাকবলিত মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে বলে জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

 

নিউজ ট্যাগ: সড়ক দুর্ঘটনা

আরও খবর
গাজীপুর সিটির মেয়র কিরন

রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১




বাংলাদেশের বিপক্ষে পাকিস্তানের দল ঘোষণা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | ২৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টিরর জন্য দল ঘোষণা করেছে পাকিস্তান। ১২ সদস্যের দলে অধিনায়ক হিসেবে রয়েছেন বাবর আজম।

আজ বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) ম্যাচ পূর্ববর্তী আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক বাবর আজম প্রথম ম্যাচের জন্য ১২ জনের নামের তালিকা প্রকাশ করেন। এই ম্যাচে অভিজ্ঞদের উপরেই আস্থা রেখেছে পাকিস্তান।

প্রথম ম্যাচের জন্য পাকিস্তানের ১২ সদস্যের স্কোয়াড-

বাবর আজম (অধিনায়ক), শাদাব খান, ফখর জামান, হায়দার আলী, হারিস রউফ, হাসান আলী, খুশদিল শাহ, মোহাম্মদ নওয়াজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র, শাহীন শাহ আফ্রিদি ও শোয়েব মালিক।

 


আরও খবর
হারের শঙ্কায় টাইগাররা

সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১




৩০ লক্ষ ছুঁয়ে উচ্ছ্বসিত মিমি চক্রবর্তী

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ | ১৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইনস্টাগ্রামে ৩০ লক্ষ ফলোয়ার ছুঁলেন মিমি চক্রবর্তী। অর্থাৎ বর্তমানে এত সংখ্যক মানুষ অভিনেত্রীর ছবি, ভিডিয়ো ইত্যাদির জন্য তাঁকে ফলোবা অনুসরণ করেন।

অনুরাগীদের থেকে এই ভালবাসা পেয়ে উচ্ছ্বসিত মিমি। তাঁর কথায়, টলিউড থেকে সম্ভবত আমি প্রথম ইনস্টাগ্রামে অ্যাকাউন্ট তৈরি করেছিলাম। আমার আশেপাশের সকলকে বলেছিলাম ইনস্টাগ্রাম জিনিসটা কতটা মজার। সহকর্মীদেরও একই কথা বলতাম।

কাজের ক্ষেত্রে তিনি খুঁতখুঁতে। বেছে বেছে ছবি করেন। তাই বড় পর্দায় তাঁর দেখা মেলে অনেক অপেক্ষার পর। ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে তাই অনুরাগীদের সঙ্গে যোগাযোগ বজায় রাখেন সাংসদ-অভিনেত্রী। তাঁর পেশাগত দিক থেকে ব্যক্তি জীবন, সব কিছুর হদিশ পাওয়া যায় সেখানেই।

 আমি ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করতে ভালবাসি। আমাকে এত ভালবাসার দেওয়ার জন্য আমার ফলোয়ারদের অসংখ্য ধন্যবাদ। আমি এ ভাবেই আপনাদের বিনোদনে ভরিয়ে রাখব। মিমিকে শেষ দেখা গিয়েছিল বাজি ছবিতে। জিতের বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন তিনি। আপাতত এক গুচ্ছ কাজ নিয়ে ব্যস্ত গানের ওপারের পুপে।

নিউজ ট্যাগ: মিমি চক্রবর্তী

আরও খবর
শাকিব খানের ব্যাংক হিসাব তলব

সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১




করোনায় আরও ৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫৩

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৯ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ নভেম্বর ২০২১ | ৪০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনা আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও সাতজন মারা গেছেন। এ নিয়ে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজার ৯৪৬ জনে। এছাড়া ২৫৩ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এর আগেরদিন বৃহস্পতিবার দেশে করোনায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছিল এবং ২৪৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছিল। সেই তুলনায় আজ করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত বেড়েছে।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত বিশেষ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়।

বুলেটিনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ হাজার ১২৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হলে ২৫৩ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। এ নিয়ে দেশে শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৫ লাখ ৭৩ হাজার ৭১১ জনে। যেখানে শনাক্তের হার ১ দশমিক ৪০ শতাংশ। একদিনে নতুন করে সুস্থ হয়েছেন ২৯৮ জন। এ নিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীর সংখ্যা ১৫ লাখ ৩৭ হাজার ৮১৬ জন।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া চারজন পুরুষ ও তিনজন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে একজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে একজন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে একজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে দুইজন ও ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন। এদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ছয়জন ও চট্টগ্রাম বিভাগের একজন।


আরও খবর
করোনায় ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২২৭

সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১




জেলহত্যা দিবস আজ

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ নভেম্বর ২০২১ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ বুধবার (৩ নভেম্বর) জেল হত্যা দিবস। স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কলঙ্কময় দিন। ১৯৭৫ সালের এই দিনে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনাকারী বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, মন্ত্রিসভার সদস্য ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালো রাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার ধারাবাহিকতায় আড়াই মাসের মাথায়  জাতীয় এই চার নেতাকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে ঘাতকরা। কারাগারের মতো কঠোর নিরাপত্তা প্রকোষ্ঠে এ ধরনের নারকীয় হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর ইতিহাসে নজিরবিহীন।

বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর এই চার জাতীয় নেতাকে যথাযথ শ্রদ্ধা প্রদর্শনের মাধ্যমে দেশের ইতিহাসে অন্যতম বর্বরোচিত এই কালো অধ্যায়টিকে স্মরণ করবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সংগঠন। দিনটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাণী দিয়েছেন। এছাড়া আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাঁর বাণীতে জাতীয় চার নেতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, বঙ্গবন্ধু পাকিস্তান কারাগারে বন্দি থাকাবস্থায় তাঁর অবর্তমানে ১৯৭১ সালে জাতীয় চার নেতা মুজিবনগর সরকার গঠন, রণনীতি ও রণকৌশল প্রণয়ন, প্রশাসনিক কর্মকাণ্ড ও মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা, কূটনৈতিক তৎপরতা, শরণার্থীদের তদারকিসহ মুক্তিযুদ্ধকে জনযুদ্ধে পরিণত করতে অসামান্য অবদান রাখেন। জাতি তাদের অবদান চিরদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে বিপন্ন করার পাশাপাশি জাতিকে নেতৃত্বহীন করার লক্ষ্যে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ধারাবাহিকতায় ১৯৭৫ সালের ৩ রা নভেম্বর স্বাধীনতাবিরোধী চক্র কারাবন্দি অবস্থায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে জাতীয় চার নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। ঘাতকচক্রের উদ্দেশ্য ছিল দেশে অগণতান্ত্রিক স্বৈরশাসনের উত্থানের পাশাপাশি নতুন প্রজন্মের চেতনা থেকে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শকে মুছে ফেলা। কিন্তু ঘাতকচক্রের সেই উদ্দেশ্য সফল হয়নি। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর আদর্শ চির অম্লান থাকবে। বঙ্গবন্ধু সুখী সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। তাঁর অসমাপ্ত কাজ বাস্তবায়নে সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখবেন এটাই হোক জেলহত্যা দিবসে আমাদের অঙ্গীকার।

জাতীয় চার নেতার আত্মত্যাগ বাঙালি জাতি চিরকাল শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী তাঁর বাণীতে বলেন, কারাগারের নির্জন প্রকোষ্ঠে জাতীয় চার নেতার হত্যাকাণ্ড ছিল জাতির পিতাকে পরিবারের বেশিরভাগ সদস্যসহ হত্যার ধারাবাহিকতা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও জাতীয় চার নেতার জঘন্য হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে স্বাধীনতাবিরোধী পরাজিত শক্তি ও দেশবিরোধী চক্র বাংলার মাটি থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নাম চিরতরে মুছে ফেলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংস এবং বাঙালি জাতিকে নেতৃত্বশূন্য করার অপচেষ্টা চালিয়েছিল। ঘাতকদের উদ্দেশ্যই ছিল অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের রাষ্ট্রকাঠামোকে ভেঙে আমাদের কষ্টার্জিত স্বাধীনতাকে ভূ-লুণ্ঠিত করা। অবৈধ শাসকরা মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করে বাংলাদেশকে পেছনের দিকে ঠেলে দেয়।

তিনি বলেন, আমরা সপরিবারে জাতির পিতাকে হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করার মধ্যে দিয়ে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছি। জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার সম্পন্ন হয়েছে। পলাতক খুনিদের খুঁজে বের করে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। জনগণকে দেওয়া ওয়াদা অনুযায়ী একাত্তরের মানবতাবিরোধী-যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকর করা হচ্ছে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করে দেশে শান্তি ও গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমরা দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় বদ্ধপরিকর।

বাংলাদেশ আত্মমর্যাদাশীল দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, আমরা জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছি। এই সময়ে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জন করেছে। বর্তমান প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যেও আমরা আমাদের অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী এবং উন্নয়ন ও গণতন্ত্রবিরোধী অপশক্তি এখনও নানাভাবে দেশের বিরুদ্ধে চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে উল্লেখ করে বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই অপশক্তির যে কোনও অপতৎপরতা-ষড়যন্ত্র ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করার জন্য সব সময় প্রস্তুত থাকতে হবে।

কর্মসূচি

জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় ধানমন্ডির বঙ্গবন্ধুভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ। এছাড়া, ৯টায় বনানী কবরস্থানে ১৫ আগস্টের শহীদ ও জাতীয় নেতাদের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। একইভাবে রাজশাহীতে জাতীয় নেতা শহীদ কামরুজ্জামানের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে সকাল ১১টায় আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে জেলহত্যা দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে পালনের জন্য দলের সকল শাখা এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সব নেতাকর্মীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।


আরও খবর



২৫ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে শোকজ

প্রকাশিত:রবিবার ২১ নভেম্বর 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ নভেম্বর 20২১ | ৪৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অস্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করায় ২৫ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে (শোকজ) বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশিন (ইউজিসি)।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কেউ কেউ স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করলেও কোনোটির বিরুদ্ধে অননুমোদিত প্রোগ্রাম পরিচালনা, কোনোটির বিরুদ্ধে সনদ বাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তির আগে এগুলো যাচাই করে ভর্তি হতে বলেছে ইউজিসি।এ সংক্রান্ত তথ্য ইউজিসি ওয়েবসাইটে www.ugc.gov.bd  প্রকাশ করেছে।

গত ২০১০ সাল থেকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে স্থায়ী ক্যাম্পাসে পাঠদানের তাগাদা দিয়ে আসছে সরকার। তবে সরকারের সেই নির্দেশনা অমান্য করে দেশের অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয় বছরের পর বছর ভাড়া করা ভবনে ক্লাস-পরীক্ষা নিচ্ছে। এর কারণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নোটিশ পাঠিয়েছে ইউজিসি।

ইউজিসি সূত্রে জানা গেছে, দেশে বর্তমানে ১০৮টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে ২০১০ সালের আগে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছে ৫২টি। এই ৫২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে পাঠদান শুরু করেছে ২৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। ২৫টি বিশ্ববিদ্যালয় এখনও ভাড়া করা ভবনে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। আর একটি বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

রোববার (২১ নভেম্বর) ইউজিসি সদস্য (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়) অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, প্রতিষ্ঠানগুলোকে দীর্ঘদিন ধরে স্থায়ী ক্যাম্পাসে আইন মেনে কার্যক্রম পরিচালনার তাগাদা দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তারা এতদিন পরও কেন আদেশ অনুযায়ী স্থায়ী ক্যাম্পাসে ফিরে যাচ্ছে না সেটা জানতে চাওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ইউজিসির নিয়মানুযায়ী স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণের জন্য একটি বিশ্ববিদ্যালয় ১২ বছর সময় পায়। এর মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। কিন্তু তারা সেটা ফলো করেনি। তাই শোকজ করা হয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



আরও খবর