আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

অপরাধ দমনে নিরলসভাবে কাজ করছে পুলিশ: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | ৭৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশের অভ্যন্তরীণ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আগামী রোববার (২৩ জানুয়ারি) পুলিশ সপ্তাহ ২০২২ উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে এ মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

সরকারপ্রধান বলেন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমন, মাদক নির্মূল এবং চোরাচালান দমনে পুলিশের ভূমিকা বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল করেছে। এছাড়া জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশের সাহসী সদস্যরা উল্লেখযোগ্য প্রশংসনীয় অবদান রেখে চলেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, জনগণের সেবা করাই পুলিশ বাহিনীর প্রতিটি সদস্যের পবিত্র দায়িত্ব। সেখানে কোনো ধরনের অনুরাগ বা বিরাগের সুযোগ নেই। দায়িত্ব অবহেলা বা নৈতিক পদস্থলন অমার্জনীয় অপরাধ।

পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা মানবিক মূল্যবোধ সমুন্নত রেখে দক্ষতা, পেশাদারিত্ব ও নিরপেক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবেন এবং জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করবেন বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

পুলিশ বাহিনীর উন্নয়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার গঠনের পর বাংলাদেশ পুলিশের জনবল ধাপে ধাপে ব্যাপকহারে বাড়িয়েছি। পেশাগত উৎকর্ষ সাধনে পুলিশের পদোন্নতি ও পদমর্যাদা বাড়াতে আমাদের সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ পুলিশে নতুন পদ সৃষ্টির মাধ্যমে পুলিশ কর্মকর্তাদের পদোন্নতি পাওয়ার জটিলতা নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। একইসঙ্গে গ্রেড-১ ও গ্রেড-২ পদের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। তাছাড়া শিল্পাঞ্চলের জন্য ২০১০ সালে শিল্প পুলিশ ইউনিট ও পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য ২০১৩ সালে ট্যুরিস্ট পুলিশ ইউনিট গঠন করি।

শেখ হাসিনা বলেন, আকাশ পথে সক্ষমতা অর্জনের মাধ্যমে পুলিশের গতিশীলতা ত্রিমাত্রিক পর্যায়ে উন্নীতকরণের জন্য ইতোমধ্যে রাশিয়া থেকে দুটি হেলিকপ্টার কেনার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। পুলিশ বাহিনীকে একটি আধুনিক, যুগোপযোগী, দক্ষ ও জনবান্ধব বাহিনীতে রূপান্তরিত করার লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। ফলে পুলিশ সদস্যদের কার্যক্রমে এসেছে গতিশীলতা ও কর্মচাঞ্চল্য।

সরকার থানা, ফাঁড়ি তদন্ত কেন্দ্র, ব্যারাক, আবাসিক ভবন নির্মাণের জন্য জমি বরাদ্দসহ পুলিশ বাহিনীর সদস্যের কল্যাণে নেওয়া পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা সেবার লক্ষ্যে ১০ তলা বিল্ডিং করে রাজারবাগে পুলিশ হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়েছে। সেখানে পুলিশ সদস্যরা চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন। প্রতি বিভাগে একটা করে হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে জনগণের সেবায় ১০৬ জন নির্ভীক পুলিশ সদস্য জীবন উৎসর্গ করেছেন উল্লেখ করে তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে ও বিভিন্ন সময়ে দেশের জন্য আত্মোৎসর্গকারী পুলিশ সদস্য ও তাদের পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা ও শ্রদ্ধা জানান।

প্রধানমন্ত্রী পুলিশ সপ্তাহ ২০২২র সব কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।


আরও খবর



২ বিমানের ধাক্কা : প্রধান প্রকৌশলীসহ বরখাস্ত ৫

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৩৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে (উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণের স্থান) বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের দুটি উড়োজাহাজের সংঘর্ষের ঘটনায় সংস্থাটির প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ বদরুল ইসলামসহ ৫ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। বুধবার (১১ মে) বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও ড. আবু সালেহ মোস্তফা এই তথ্য জানিয়েছেন।

বরখাস্ত হওয়া অপর চারজন হলেন- বিমানের প্রকৌশলী মো. মাইনুল ইসলাম, সৈয়দ বাহাউল ইসলাম, সেলিম হোসেন খান এবং জিএসই অপারেটর মো. হাফিজুর রহমান।

জানা গেছে, চলতি বছরের ১০ এপ্রিল বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে আগে থেকেই বিমানের একটি বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য রাখা ছিলো।এরপর আরেকটি বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য হ্যাঙ্গারের দিকে নেওয়া হয়। হ্যাঙ্গারের ভেতরে প্রবেশ করানোর সময় ৭৩৭ উড়োজাহাজের সামনের অংশের সঙ্গে ভেতরে থাকা ৭৭৭ উড়োজাহাজের পেছনে অংশের সংঘর্ষ বাঁধে। এতে দুই উড়োজাহাজই ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

এ ঘটনায় বিমানের প্রধান প্রকৌশলী (কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স) আলী নাসেরকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি এবং বিমানের চিফ অব সেফটির নেতৃত্বে আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়। এ ছাড়া বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়।

আজ বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ওই পাঁচ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনে বাংলাদেশ বিমান করপোরেশন এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন (১৯৭৯) প্রবিধানমালার ৫৫ ধারা লঙ্ঘনের জন্য তাদের দায়ী করা হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।


আরও খবর



আকস্মিক ইউক্রেন সফরে মার্কিন ফার্স্ট লেডি

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেন এক অঘোষিত সফরে ইউক্রেন গেছেন। রুশ আগ্রাসনে বিধ্বস্ত ইউক্রেনের প্রত্যন্ত একটি ছোট শহরে যান তিনি। সিএনএন জানায়, সেখানে একটি স্কুল ভবনের অস্থায়ী শিবিরে আশ্রয় নেওয়া বাস্তুচ্যুত মানুষদের দেখতে গিয়ে ইউক্রেনের ফার্স্ট লেডি ওলেনা জেলেনস্কার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন জিল বাইডেন। স্কুলের ওই শিবিরে ৪৮ জন শিশুসহ আশ্রয় নিয়ে আছে ইউক্রেইনীয়রা।

২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরুর পর থেকে ওলেনাকে জনসম্মুকে দেখা যায়নি। তার সঙ্গে দেখা করে জিল বলেন, আমি মা দিবসে ইউক্রেনে আসতে চেয়েছিলাম। আমরা ভেবেছি এই ‍যুদ্ধ বন্ধ হওয়া দরকার সেটি ইউক্রেনের জনগণকে দেখানোটা গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, এই ‍যুদ্ধ নৃশংস। যুক্তরাষ্ট্রের জনগণ ইউক্রেনের জনগণের পাশে আছে।” মার্কিন কর্মকর্তারা সিএনএন-কে বলেছেন, ইউক্রেনের ফার্স্ট লেডি ওলেনা রাশিয়ার আগ্রাসনের শুরুর দিকে জিল বাইডেনকে চিঠি দিয়েছেন এবং সম্প্রতি কয়েকসপ্তাহে তার সঙ্গে চিঠি চালাচালি করেছেন।

এবার জিল বাইডেনের সাক্ষাৎ পাওয়ার পর ওলেনা বলেন, প্রথমত এ যুদ্ধের মধ্যে, যখন প্রতিদিনই সামরিক তৎপরতা চলছে, বোমা পড়ছে, সাইরেন বাজছে, এমন একটি সময়ে সাহস নিয়ে ইউক্রেনে আসার জন্য আমি আপনাকে ধন্যবাদ জানাতে চাই।

ওলেনা আরো বলেন, আমরা আপনার সমর্থন উপলব্ধি করতে পারি এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নেতৃত্বকে অনুধাবন করতে পারি। তবে আমরা এটিও বিশেষভাবে উল্লেখ করতে চাই যে, মাদার্স ডে (মা দিবস) আমাদের জন্য একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রতীকী দিবস। কারণ, এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ দিনে আমরা আপনাদের ভালোবাসা এবং সমর্থনকেও অনুভব করতে পারছি।” সফরকালে স্কুলের ওই উদ্বাস্তু শিবিরেই দুই ফার্স্ট লেডির মধ্যে এক ঘণ্টার বৈঠক হয়েছে।


আরও খবর



শ্রীলঙ্কায় এমপিদের পালানো ঠেকাতে বিমানবন্দর অবরোধ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৪৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শ্রীলঙ্কায় চলমান বিক্ষোভ-সহিংসতার মধ্যে সংসদ সদস্যরা যেন দেশ ছেড়ে পালাতে না পারেন, সেজন্য দেশটির প্রধান বিমানবন্দর অবরোধ করেছেন সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা।

মঙ্গলবার (১০ মে) লঙ্কান সংবাদমাধ্যম ডেইলি মিরর এ তথ্য জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, কাতুনায়েকে অবস্থিত শ্রীলঙ্কার প্রধান বিমানবন্দর অবরোধ করেছে একদল তরুণ। বন্দরনায়েক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রবেশদ্বারে গাড়ি রেখে অবস্থান নিয়েছে তারা। চলমান বিক্ষোভের মধ্যে এমপিদের দেশত্যাগ ঠেকাতে এ ব্যবস্থা নিয়েছে বিক্ষোভকারীরা।

এর আগে, সোমবার বিক্ষোভে অগ্নিগর্ভ শ্রীলঙ্কায় এক এমপির অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে, আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আরেকজন। এদিন শ্রীলঙ্কায় অন্তত অর্ধশতাধিক রাজনীতিবিদের বাড়িতে আগুন দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা।

শ্রীলঙ্কার পুলিশ জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীরা কলম্বো উপকণ্ঠে সরকার দলীয় এমপি অমরাকীর্তি আথুকোরালার গাড়িতে হামলা চালালে তিনি দুজনকে গুলি করেন। এতে একজন মারা যান। এরপর সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা তাকে ঘিরে ধরেন। পরে নিজের পিস্তল দিয়ে আত্মহত্যা করেন ওই সংসদ সদস্য।

এছাড়া, সোমবার রাতে হোমগমার মহাকুম্বুরা এলাকায় সংসদ সদস্য কুমারা ওয়েল্গামার গাড়িতে হামলা চালিয়েছে একদল লোক। এতে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ওই এমপি।

শ্রীলঙ্কায় দেশব্যাপী কারফিউ সত্ত্বেও ব্যাপক বিক্ষোভ-সহিংসতায় সোমবার থেকে এ পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত সাতজন, আহত হয়েছেন দেড়শর বেশি মানুষ।

নিউজ ট্যাগ: শ্রীলঙ্কা

আরও খবর



রানা প্লাজা ধসের ৯ বছর: ভালো নেই তারা

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৩৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

২৪ এপ্রিল ২০১৩, সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে সাভার বাসস্ট্যান্ডের পাশে রানা প্লাজা নামের বহুতল ভবনটি ধসে পড়ে। ওই ঘটনায় হতাহত হন কয়েক হাজার শ্রমিক। সেদিন কেউ মা-বাবা, কেউ ভাই-বোন, কেউ স্ত্রী-সন্তান-স্বামী হারিয়েছেন। কেউ হয়ে গেছেন চিরতরে নিঃস্ব। এখনো কেউ কেউ শারীরিক প্রতিবন্ধিতাকে সঙ্গী করে চলছেন। আজও আহত ও নিখোঁজ পরিবারের সদস্যদের দেওয়া হয়নি ক্ষতিপূরণ। হতাহতের ঘটনায় করা হত্যা মামলার বিচারও এগিয়েছে খুব সামান্যই। সবমিলিয়ে এটুকু বলা যায়–ভালো নেই তারা।

কী ছিল রানা প্লাজায়: সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডের রানা প্লাজার ভবনটি ছিল নয়তলা। ভবনের প্রথম তলায় ছিল বিভিন্ন দোকান। দোতলায় ছিল দোকান আর ব্যাংক। তিনতলায় নিউ ওয়েভ বটমস লিমিটেড, চার ও পাঁচতলায় নিউ ওয়েভ স্টাইল লিমিটেডে এবং ফ্যানটম লিমিটেড, ছয় ও সাততলায় ছিল ইথারটেক্স লিমিটেড গার্মেন্টস। আট ও নয়তলায়ও ছিল পোশাক কারখানা। শ্রমিকদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ভবনের তিনতলা থেকে নয়তলা পর্যন্ত ছিল পাঁচটি পোশাক কারখানা।

এতে প্রায় চার হাজার পোশাকশ্রমিক কাজ করতেন। প্রতিদিনের মতো ওই দিন সকাল ৮টায় হাজির হন কর্মস্থলে। উৎপাদনও শুরু করেন নির্ধারিত সময়ে। হঠাৎ সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিকট শব্দ। আশপাশে উড়তে থাকে ধুলাবালু। ধসে পড়ে রানা প্লাজা। শুরু হয় শ্রমিকদের আহাজারি। উদ্ধারে এগিয়ে আসেন স্থানীয়রা। পরে তাদের সঙ্গে যুক্ত হন সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস, আনসার, র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা। চলে বিরতিহীন উদ্ধার অভিযান। ভবন ধসের সঙ্গে সঙ্গে ভেতরে চাপা পড়েন চার হাজার পোশাকশ্রমিক। বাঁচাও, পানি দাও, আমার হাতটি কেটে বের করো; এমন নানা আহাজারিতে ভারী হয়ে ‍উঠে চারপাশ।

আহতদের দ্রুত হাসপাতালে নেওয়ার জন্য ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক বন্ধ করে দিয়ে মহাসড়কের দুই পাশে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয় অ্যাম্বুলেন্স। তাদের হাসপাতালে পাঠানো, প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়াসহ সব ধরনের সহযোগিতার জন্য বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ছুটে আসেন হাজারো স্বেচ্ছাসেবী। একে একে বের করা হয় আহত ও নিহতদের। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই লাশের সংখ্যা বেড়ে যায়। হাসপাতালের মর্গ ভর্তি হয়ে যায়। পরে লাশগুলো নিয়ে যাওয়া সাভারের অধরচন্দ্র স্কুলের মাঠে। স্কুল বারান্দায় সারিবদ্ধভাবে লাশ রেখে দেওয়া হয়।

হতাহতের সংখ্যা: রানা প্লাজা ধসে এক হাজার ১৩৬ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করেছেন উদ্ধারকর্মীরা। দুই হাজার ৪৩৮ শ্রমিককে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। আহতদের মধ্যে অনেকেই পঙ্গু হয়ে গেছেন। অনেকে আবার মানসিক রোগী হয়ে আছেন।

আহাজারির সাক্ষী অধরচন্দ্র স্কুল মাঠ: বেদনার সাক্ষী হয়ে আছে সাভারের অধরচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ। ঘটনার দিন থেকে টানা ১৭ দিন ওই বিদ্যালয়ের মাঠে নিহতদের নিয়ে রাখা হতো। আর সেখান থেকে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হতো। প্রিয় মানুষটির সন্ধান পেতে সেসময় স্বজনরা চারদিকে ছোটাছুটি করেছেন। রানা প্লাজা থেকে বিদ্যালয়ের মাঠ দেড় কিলোমিটারজুড়ে সেসময় অ্যাম্বুলেন্সের শব্দ সবাইকে জাগিয়ে তুলতো। অপেক্ষারত স্বজনরা হুমড়ি খেয়ে পড়তেন। এই বুঝি এলো নিখোঁজ মানুষটি। আজও সেই মাঠটি আছে, তবে নেই সেই চিত্র। তবে মাঠটি যেন আগের মতো আর হাসে না। প্রাণচঞ্চলতা হারিয়ে গেছে।

অধরচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ফরিদ জানান, আগে সকাল-দুপুর-রাত এমন কোনো সময় নেই যে মাঠে না আসতাম, কোনো ভয় ছিল না। তবে রানা প্লাজার ধসে পড়ার পর মৃত লাশগুলো সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়েছিল। এরপর থেকে আর সাহস পাই না।

উদ্ধারকাজের ৫ম দিনে (২৮ এপ্রিল) ভবনের ভেতরে একজনের প্রাণের স্পন্দন পাওয়া যায়। কাছে গিয়ে উদ্ধারকর্মীরা জানতে পারেন তার নাম শাহীনা। তাকে বাঁচাতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়ে কায়কোবাদ নামে এক উদ্ধারকর্মী গুরুতর আহত হন। টানা সাতদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে ৫ মে রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় না ফেরার দেশে চলে যান শাহীনা।

ভবন ধসের ১৭তম দিনে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে উদ্ধারকাজ সমাপ্ত ঘোষণা করার আগ মুহূর্তে ঘটে এক অলৌকিক ঘটনা। ধ্বংসস্তূপের ভেতরে পাওয়া যায় আরেকজনের প্রাণের স্পন্দন। অলৌকিকভাবে চারটি বিস্কুট ও এক বোতল পানি খেয়ে বেঁচে ছিল রেশমা। ১৭তম দিন বিকাল ৩টার দিকে ভেতর থেকে তাকে কাঠি নাড়াতে দেখেন উদ্ধারকর্মীরা। পরে রেশমাকে জীবিত দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে সাভারের সিএমএইচ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অলৌকিকভাবে বেঁচে যাওয়া রেশমাকে দেখতে হাসপাতালে হেলিকপ্টারযোগে ছুটে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকারের মন্ত্রিপরিষদের ব্যক্তিবর্গ।

২০তম দিনে আনুষ্ঠানিকভাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে রানা প্লাজার উদ্ধারকাজ সমাপ্ত ঘোষণা করেন উদ্ধারকাজে গঠিত সমন্বয় কমিটির প্রধান নবম পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল চৌধুরী হাসান সোহরাওয়ার্দী। তিনি উদ্ধারকাজ শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে এক হাজার ১৩৬ জনের মৃত্যু ও দুই হাজার ৪৩৮ জনকে জীবিত উদ্ধারের কথা জানান। পরদিন জায়গাটি ঢাকা জেলা প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

বাংলাদেশ গার্মেন্টস অ্যান্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি রফিকুল ইসলাম সুজন বলেন, নয় বছর হলো, অথচ এই ঘটনার মূলহোতা সোহেল রানার সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত হয়নি। এখন পর্যন্ত হতাহত শ্রমিকদের দেওয়া হয়নি ক্ষতিপূরণ। করা হয়নি চিকিৎসার ব্যবস্থা। এজন্য আজও এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেছি আমরা। রানা প্লাজার জায়গা অধিগ্রহণ করে ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিক ও পরিবারের পুনর্বাসন এবং ২৪ এপ্রিলকে শোক দিবস ঘোষণা করার দাবি জানাই।  শুধুমাত্র রানা প্লাজা নয়, তাজরীন ফ্যাশন অগ্নিকাণ্ড, স্পেকট্রাম গার্মেন্টস ভবন ধসসহ এ পর্যন্ত দেশের যেসব গার্মেন্টেসে হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, আজ পর্যন্ত বিচার হয়নি। তাই সোহেল রানাসহ সব অপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানাই।

গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক খাইরুল ইসলাম মিন্টু বলেন, রানা প্লাজার ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের এখন পর্যন্ত বিচারের আওতায় আনা হয়নি। যখনই ২৪ এপ্রিল আসে বিচার নিয়ে কথা ওঠে। কিন্তু বছরের বাকি ১১ মাস এ নিয়ে কোনও কথা হয় না। শ্রম আইন সংশোধনের মাধ্যমে কারখানাগুলো নিরাপদ করতে সরকার উদ্যোগ নিয়েছিল। এরপর অ্যাকোর্ড, অ্যালায়েন্স এসেছে। কিন্তু কারখানায় নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়নি। এখনও বিভিন্ন কারখানায় ঘটছে দুর্ঘটনা। শ্রমিকরা জীবন দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। এখনও রানা প্লাজার যেসব শ্রমিক জীবিত আছেন তারা এই দিনে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য আসতে চাইলে কারখানার মালিকরা ছুটি দেন না। সরকার ও কারখানার মালিকরা এই দিন ভুলিয়ে দিতে চায়। কিন্তু আমরা এ ঘটনার বিচার চাই এবং চাইবো।

রানা প্লাজার আহত শ্রমিক নিলুফা আক্তার বলেন, আমি ক্ষতিপূরণ চাই। আমার চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। পাশাপাশি রানার সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করুন। রানা প্লাজায় নিহত শ্রমিক রাব্বির মা রাহেলা খাতুন বলেন, ছেলে হারানোর নয় বছর হলো। কিন্তু আমরা বিচার পেলাম না। দোষীদের বিচার এখনও নিশ্চিত করতে পারেনি সরকার।

রানা প্লাজা ধসে চার মামলা: রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় চারটি মামলা করা হয়। এর মধ্যে হত্যা, ইমারত নির্মাণ আইন ভঙ্গসহ তিনটি মামলার বিচার কাজ এখনো শেষ হয়নি। শুধু ভবন ধসের ঘটনার পর সম্পদের হিসাব চেয়ে রানা প্লাজার সোহেল রানাকে নোটিশ দেয় দুদক। কিন্তু হিসাব না দেওয়ায় তার বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। সেই মামলায় সোহেল রানাকে তিন বছরের সাজা দিয়েছেন বিশেষ জজ আদালত।

রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় পরদিন সাভার থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওয়ালী আশরাফ ভবন নির্মাণে অবহেলা ও ত্রুটিজনিত হত্যার অভিযোগে মামলা করেন। ২০১৫ সালের ২৬ এপ্রিল সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার বিজয়কৃষ্ণ কর ভবন মালিক সোহেল রানাসহ ৪১ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন। মামলায় অভিযোগপত্রে ৫৯৪ জনকে সাক্ষী করা হয়। আসামি ৪১ জনের মধ্যে তিন আসামি মারা যান। বর্তমানে আসামির সংখ্যা ৩৮ জন। ২০১৬ সালের ১৮ জুলাই ঢাকার তত্কালীন জেলা ও দায়রা জজ এস এম কুদ্দুস জামান আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। কিন্তু ঐ অভিযোগ গঠন আদেশ চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে যান আট আসামি। স্থগিত হয় বিচার কাজ। গত ছয় বছরে ২৫ বার পেছায় সাক্ষ্যগ্রহণ। অবশেষে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হওয়ায় চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে শুরু হয় কাঙ্ক্ষিত সেই সাক্ষ্যগ্রহণ।

আসামি পক্ষের আইনজীবীরা বলছেন, রাষ্ট্রপক্ষ এই মামলায় প্রায় ৬০০ জনকে সাক্ষী করেছে। দীর্ঘ এই তালিকার সাক্ষীদের সাক্ষগ্রহণ করে বিচার শেষ করতে আরো কয়েক বছর লাগবে। তবে আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একটি হত্যা মামলা প্রমাণে সকল সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণের প্রয়োজন নাই। যেসব সাক্ষী গুরুত্বপূর্ণ তাদের সাক্ষ্য নিয়ে বিচার শেষ করার সুযোগ রয়েছে। এতে বিচার বিলম্বের যে নজির রয়েছে তা থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব হবে।

আইন না মেনে রানা প্লাজা নির্মাণ করায় ইমারত নির্মাণ আইনে সাভার থানায় আরেকটি মামলা করে রাজউক। ২০১৫ সালের ২৬ এপ্রিল সিআইডি ভবনের মালিক সোহেল রানাসহ ১৮ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ১৩০ জনকে মামলায় সাক্ষী করা হয়েছে। ২০১৬ সালের ১৪ জুন ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমান আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। তবে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকায় এ মামলার বিচার কাজ এখন বন্ধ রয়েছে।


আরও খবর



আজকের ভালো মন্দ

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

৭ মে ২০২২ শনিবার, চন্দ্র দিনরাত কর্কট রাশিতে থাকবে। চন্দ্র তার রাশিচক্রে খুব শক্তিশালী অবস্থানে থাকবে। চন্দ্রের শুভ অবস্থানের কারণে মে মাসের প্রথম শনিবার কর্কট রাশির জাতকদের জন্য অনেক দিক থেকেই শুভ হতে চলেছে। তারকারা আজ আপনার জন্য কী বলছেন, দেখুন আপনার ভবিষ্যদ্বাণী।

মেষ রাশি

ব্যবসায়ীদের আজকের দিনটি মোটামুটি কাটবে। আজ আপনাকে কোনও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। চাকুরিজীবীরা অফিসের সমস্ত নিয়মকানুন মেনে চলুন। আজ যদি আপনি সামান্য অবহেলাও করেন, তবে আপনাকে তার ফল ভোগ করতে হতে পারে। ঘরের পরিবেশ শান্ত থাকবে। প্রিয়জনের সঙ্গে সম্পর্ক মজবুত হবে। আর্থিক দিক দিয়ে আজকের দিনটি মোটামুটি কাটবে। আপনার স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।

বৃষ রাশি

যাঁরা পার্টনারশিপে ব্যবসা করছেন, তাঁদের জন্য আজকের দিনটি লাভদায়ক হতে চলেছে। ভাল আর্থিক লাভ হতে পারে। পার্টনারের সঙ্গে সম্পর্কও ভাল হবে। যাঁরা দীর্ঘদিন ধরে চাকরি পরিবর্তন করার চেষ্টা করছেন, আজকের দিনটি তাঁদের জন্য শুভ হতে চলেছে। আপনি একটি বড় কোম্পানিতে উচ্চ পদ পেতে পারেন, আপনার আয়ও বাড়বে। পারিবারিক জীবনের পরিস্থিতি ভাল থাকবে না। বাড়ির বড়দের সঙ্গে আপনার মতপার্থক্য হতে পারে। আর্থিক অবস্থা ভাল থাকবে। আজ আপনি অর্থ সংক্রান্ত কোনও কাজও করতে পারেন। স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে হলে, দীর্ঘক্ষণ খালি পেটে থাকা এড়িয়ে চলুন।

মিথুন রাশি

যদি আপনার ভাই বা বোন বিবাহযোগ্য হয়, তবে আজ তাঁদের জন্য বিয়ের প্রস্তাব আসতে পারে। শীঘ্রই আপনার বাড়িতে মাঙ্গলিক অনুষ্ঠানের আয়োজন হতে পারে। আজ খরচ বাড়তে পারে। ঋণ পরিশোধের চাপও থাকবে আপনার ওপর। অফিসে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সহযোগিতা পাবেন। আপনার কঠিন কাজগুলোও খুব সহজে সম্পন্ন হবে। ব্যবসায়ীদের আশানুরূপ ফলাফল পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। স্বাস্থ্য মোটামুটি থাকবে।

কর্কট রাশি

অফিসের পরিবেশ খুব ভাল থাকবে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আপনাকে গাইড করতে পারেন। আজ আপনি কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ সময়মতো সম্পন্ন করতে সক্ষম হবেন। ব্যবসায়ীরাও আজ খুব ভাল সুযোগ পেতে পারেন। ঘরের পরিবেশ ভাল থাকবে। গুরুজনদের আশীর্বাদ পাবেন। পিতা-মাতার স্বাস্থ্যের উন্নতি হতে পারে। আর্থিক পরিস্থিতি ঠিকঠাক থাকবে। স্বাস্থ্যের যত্ন নিন। 

সিংহ রাশি

আজ আপনার স্বাস্থ্যের অবনতি হতে পারে। অত্যধিক মানসিক চাপ নেওয়া থেকে বিরত থাকুন। অর্থের দিক দিয়ে আজকের দিনটি ভাল কাটবে। অফিসে খুব সাবধানে কথাবার্তা বলুন। ব্যবসায়ীরা আজ খুব ব্যস্ত থাকবেন।

কন্যা রাশি

কন্যা রাশির জাতকরা আজ খুব ব্যস্ত থাকবেন। ব্যক্তিগত ও পেশাগত জীবনে দায়িত্ব বেশি থাকবে। অফিসে অমীমাংসিত কাজের তালিকা বাড়তে পারে। আজ বসও আপনার প্রতি অসন্তুষ্ট থাকবেন। এই সময়ে কাজে ভুল করা এড়িয়ে চলুন, অন্যথায় আপনার অগ্রগতি থেমে যেতে পারে। ছোটো ব্যবসায়ীরা ভাল লাভ করতে পারেন। আজ আপনাকে তাড়াহুড়ো করে কোনও সিদ্ধান্ত না নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। বাড়ির পরিবেশ ভাল থাকবে। অর্থের দিক দিয়ে দিনটি ভাল কাটবে। আজ স্বাস্থ্যের অবনতি হতে পারে।

তুলা রাশি

আজ কাজের চাপ কম হবে, তবে অফিসে আপনার আচরণ ঠিক রাখার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। অত্যধিক হাসাহাসি করা এবং কথা বলা এড়িয়ে চলুন। খুচরা ব্যবসায়ীদের লাভ হবে। আজ আপনি ভাল আর্থিক লাভ করতে পারেন। পারিবারিক জীবনের পরিস্থিতি অনুকূল থাকবে। পরিবারের সদস্যদের সাপোর্ট পাবেন। জীবনসঙ্গীর সঙ্গে সম্পর্ক ভাল থাকবে। আজ আপনার প্রিয়জনের সঙ্গে অতিরিক্ত সময় কাটানোর সুযোগ পাবেন। আর্থিক দিক দিয়ে আজকের দিনটি সাধারণ কাটতে চলেছে। আজ আপনার হাত ও পায়ে ব্যথা হতে পারে

বৃশ্চিক রাশি

ঘরের পরিবেশ খুব ভাল থাকবে। আজ বাড়িতে কোনও ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন হতে পারে। মানসিকভাবে আপনি খুব ভাল বোধ করবেন। ব্যবসায়ীদের আর্থিক ক্ষতি হতে পারে। চাকুরিজীবীদের অফিসে বসের সামনে ভাল আচরণ করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। আর্থিক অবস্থার উন্নতি হতে পারে। অর্থ প্রাপ্তির সম্ভাবনা রয়েছে। স্বাস্থ্য মোটামুটি থাকবে।

ধনু রাশি

আজ ব্যবসায়ীদের লাভ হতে পারে। আপনি আপনার ব্যবসায় ইতিবাচক পরিবর্তন দেখতে পাবেন। চাকুরিজীবীদের কঠোর পরিশ্রম করতে হতে পারে। ব্যক্তিগত জীবনের পরিস্থিতি উত্থান-পতনে পূর্ণ হবে। অর্থ সংক্রান্ত দুশ্চিন্তা বাড়তে পারে। সুস্থ থাকতে হলে সময়মতো খাবার খেতে হবে, পাশাপাশি দুশ্চিন্তা করা চলবে না।

মকর রাশি

ব্যবসায়ীরা অন্যের নির্দেশে কোনও ব্যবসায়িক সিদ্ধান্ত নেবেন না। চাকুরিজীবীদের অফিসে বসের কথা মেনে চলতে হবে। যদি বস আপনাকে কোনও কাজ দেন, তবে তা কঠোর পরিশ্রমের সাথে সম্পন্ন করুন। এই সময়ে ভুল করলে সমস্যায় পড়তে পারেন। পারিবারিক জীবনে সুখ-শান্তি থাকবে। জীবনসঙ্গীর মেজাজ খুব ভাল থাকবে। স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।

কুম্ভ রাশি

ব্যবসায়ীদের আজ বড় কোনও সমস্যার সমাধান হতে পারে এবং আপনার কাজ সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে যাবে। আজ আর্থিক লাভও হতে পারে। চাকুরিজীবীরা অফিসে বসের কাছ থেকে প্রশংসা পাবেন। সরকারি চাকুরিজীবীদের পদোন্নতি হতে পারে। বাড়ির পরিবেশ ভাল থাকবে। জীবনসঙ্গীর সঙ্গে আপনার ঝগড়া হতে পারে। তবে আপনাদের মধ্যে ভাল বোঝাপড়ার কারণে বড় সমস্যা হবে না। আজ আপনি অর্থের দিক থেকে ভাল ফল পেতে পারেন। অর্থ উপার্জনের ভাল সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। স্বাস্থ্যের উন্নতি হতে পারে এবং আপনি আজ বেশ ভাল বোধ করবেন।

মীন রাশি

চাকুরিজীবীদের দিনটি ভাল কাটতে পারে। ব্যবসায়ীদের সমস্ত সিদ্ধান্ত খুব ভেবেচিন্তে নিলে ভাল হবে। আর্থিক পরিস্থিতি ঠিকঠাক থাকবে। আজ আপনার গলার কোনও সমস্যা হতে পারে।

 


আরও খবর