আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

পাথরঘাটায় ছাত্রলীগ নেতা কারাগারে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৬৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অলিউল্লাহ্ ইমরান, বরগুনা:

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার গাববাড়িয়া এলাকায় জমি দখলের মামলায় ছাত্রলীগ নেতা নাইমুল রাব্বিকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। একই মামলায় ১ নম্বর আসামি এনামুল হোসাইনকে ২০ দিনে জামিন মঞ্জুর করেন এবং অন্য আসামিদের স্থায়ী জামিন দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) আসামিরা আদালতে হাজির হলে তাদের এ আদেশ দেন পাথরঘাটা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট আদালতের বিচারক (অতিরিক্তি) রাসেল মজুমদার। নাইমুল রাব্বি পাথরঘাটা ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি।

মামলার বাদী রফিকুল ইসলাম জানান, আমরা স্থানীয়রা গুচ্ছগ্রামের জমি ঘর তুলে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছি। সেই জমি ছেড়ে দেওয়ার জন্য আসামিরা বিভিন্ন সময়ে হুমকি দিয়ে আসছে। পরে এনামুল হোসাইন, নাইমুল রাব্বিসহ কয়েকজনকে নিয়ে হঠাৎ করে হামলা করে আমাদের ওপর। এ নিয়ে বিভিন্ন জনের কাছে বিচার চাইলেও কোনো বিচার পাইনি। পরে প্রধানমন্ত্রী বরাবার স্বারকলিপি দিয়ে আদালতে মামলা দায়ের করি।

বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাইফুর ইসলাম জানান, এ মামলায় মোট ১২ জনকে আসামি করে পাথরঘাটা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট আদালতে মামলা দয়ের করেন রফিকুল ইসলাম সিকদার। এতে এনামুল ও রাব্বিসহ প্রায় ১২ জনকে আসামি করা হয়। পরে ১২ মে আসামিরা স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে জামিন চাইলে ২ নম্বর আসামি রাব্বিকে  কারাগারে পাঠান আদালত এবং ১ নম্বর আসামি এনামুলকে আহতদের মেডিক্যাল রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত ২০ দিনের জামিন দেন।

এ ব্যাপারে বিবাদীপক্ষের আইনজীবী মো. ফারুক হোসেনের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নিউজ ট্যাগ: বরগুনা

আরও খবর



ভারতের করোনার প্রভাব দেশেও পড়তে পারে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৪৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রতিবেশী দেশগুলোতে ফের করোনা সংক্রমণ বাড়ছে আমাদেরও সংক্রমণ বাড়তে পারে। এজন্য সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রোববার (২৪ এপ্রিল) মহাখালী জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান (নিপসম) অডিটোরিয়ামে জাতীয় পুষ্টি দিবস ২০২২ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, যারা টিকা পায়নি তারা টিকা দিতে চায় না। অনেকে নেপাল ও ভুটানের সঙ্গে মিলায়, কিন্তু তাদের জনসংখ্যা অনেক কম। আমরা দিনে এক কোটি টিকাও দিয়েছি। আমরা ১৩ কোটি মানুষকে টিকা দিয়েছি।

জাহিদ মালেক আরও বলেন, মানুষের গড় আয়ু এখন ৭৩ বছর। ভালো খাবার খেলে শরীর সুস্থ থাকে। ভালো খাওয়া বলতে পুষ্টিকর খাবার। আমাদের দেশে পুষ্টি সেবার অনেক উন্নতি হয়েছে। উন্নয়ন হয়েছে প্রাইমারি হেলথ কেয়ারে। মানুষকে এর মাধ্যমে সেবার পাশাপাশি কী খেতে হবে কী খাওয়া উচিৎ নয় তাও শিক্ষা দেওয়া হয়। আমরা লবণ পরিহার করতে বলি। অতিরিক্ত তেলযুক্ত খাবার বর্জন করতে বলা হয়।

তিনি বলেন, সংক্রামক ব্যাধি টিবি, পোলিও, ম্যালেরিয়ার মতো রোগ আমরা কন্ট্রোলে রাখতে পেরেছি। এজন্য মৃত্যু হার কমেছে। কিন্তু আমাদের অসংক্রামক রোগ অনেক বাড়ছে। ক্যানসারের মতো রোগ বাড়ছে। এসবের জন্য খাদ্যাভ্যাস ও জীবনাচরণের দিকে নজর দিতে হবে। এমন খাবার খেতে হবে যেটা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে।

এখন মানুষ গড়ে ১২০টা ডিম খায় উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে মানুষের ক্যালোরিও আশপাশের দেশ থেকে বেশি। এখনো দরিদ্রসীমার নিচে ১০-১৫ শতাংশ মানুষ আছে তা জানি। কিন্তু আমাদের খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা আছে।

তিনি বলেন, এখন ফলের সিজন। বেশি করে ফল খেলে শরীর সুস্থ থাকবে। এর সঙ্গে ডিম-দুধ খাওয়াতে হবে। দেশের মানুষ আগে খর্বাকৃতির ছিল। যেটা আগে ৫০ শতাংশ ছিল তা এখন ৩০ শতাংশে নেমে এসেছে।

অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব লোকমান হোসেন মিয়া বলেন, আধুনিকতায় আমাদের এগিয়ে নিয়ে গেলেও কিছু জায়গায় পিছিয়ে গেছে। সন্তানের জন্য মায়ের থেকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বাচ্চার শাল দুধ। কিন্তু সেটা ঠিকমতো বাচ্চারা পায় না। অধিকহারে সিজার হওয়ায় প্রবণতা বেড়েছে। কিন্তু নরমাল ডেলিভারি হওয়া ভালো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল বাশার খুরশিদ আলম বলেন, স্বাধীনতার শুরু থেকে আমাদের নানা পুষ্টি সমস্যা ছিল। মানুষের ওজন কম ছিল, স্বাস্থ্য কম ছিল। এখন তা কমে এসেছে।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন- স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) চেয়ারম্যান এম ইকবাল আর্সলান, স্বাচিপের মহাসচিব এম এ আজিজ, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের অধিনায়ক (বিএমএ) এহতেশামুল হক চৌধুরী, জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক ডা. জোবায়দা নাসরিন, জাতীয় পুষ্টি কার্যক্রমের পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।


আরও খবর



সৌদি আরবে বালির ঝড়ে হাসপাতালে ভর্তি কয়েক হাজার মানুষ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এক হাত দূরের জিনিসও অস্পষ্ট। আকাশ লাল। বাতাসে ভাসছে বালি। শ্বাস নেওয়াও দুষ্কর। ভয়াবহ ধুলোর ঝড়ে বিপর্যস্ত পশ্চিম এশিয়া। এর মধ্যে সর্বশেষ আক্রান্ত সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াধ। বুধবার ধুলোর ঝড়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন হাজার হাজার মানুষ। শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন অন্তত ১২৮৫ জন। রাতারাতি বন্ধ করে দিতে হয়েছে স্কুল-কলেজ। বিশেষজ্ঞেরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফল!

ব্যস্ত শহর রিয়াধ অবশ্য আজও সচল ছিল। কিন্তু রাস্তায় দৃশ্যমানতা ছিল ভয়ানক কম। তাই ট্র্যাফিকের গতি ছিল ঢিমে। কয়েকশো মিটার দূর থেকেও গগণচুম্বী বাড়িগুলো দেখার উপায় নেই। বাড়ি থেকে বেরোনোর উপায় ছিল না বাসিন্দাদের। খুব প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় কমই লোকজন বেরিয়েছিলেন। এক পাকিস্তানি নির্মাণকর্মী বলেন, খোলা আকাশের নীচে কাজ করতে খুব কষ্ট হচ্ছিল। প্রায় অসম্ভব। কাপড় দিয়ে ঢেকে রেখেছিলাম মুখ। তাতেও বারবার মুখ ধুতে হচ্ছিল। দেশের আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, পূর্ব থেকে এই বালির ঝড় ক্রমে ধেয়ে এসেছে পশ্চিমের দিকে। ইরাক, ইরান, জর্ডন আগেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাদের আশঙ্কা, পুরু ধূসর বালির স্তর ক্রমশ ঢেকে ফেলবে মক্কা, মদিনাকেও।

পশ্চিম এশিয়ার বেশ কিছু দেশ এ বছর বালির ঝড়ে বিপর্যস্ত হয়েছে বারবার। মাঝ-এপ্রিল থেকে অন্তত আটটি বালুঝড়ে আক্রান্ত ইরাক। বিশেষজ্ঞেরা বলছেন, ভূমিক্ষয়, প্রবল খরা, কম বৃষ্টিপাত এই সবের জন্য এই পরিস্থিতি। আর এর পিছনে রয়েছে অবশ্য জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব। বাগদাদে শেষ বালির ঝড় উঠেছিল গত সোমবার। শ্বাসকষ্ট নিয়ে অন্তত ৪ হাজার মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে হয়। স্কুল-কলেজ-অফিস বন্ধ করে দিতে হয় রাতারাতি। থমকে যায় বিমানবন্দরও।

ইরানেও একই পরিস্থিতি। গত কাল তারা ঘোষণা করেছে, খারাপ আবহাওয়ার জন্য সরকারি কার্যালয় বন্ধ রাখতে হচ্ছে। স্কুলগুলিও বন্ধ করা হয়েছে। তেহরান জানিয়েছে, বাতাসে প্রতি ঘন মিটারে ভাসছে ১৬৩ মাইক্রোগ্রাম বালিকণা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-র রিপোর্ট অনুযায়ী, বাতাসে ধুলোবালির উপস্থিতির সর্বোচ্চ সীমা প্রতি ঘনমিটারে ২৫ মাইক্রোগ্রাম। অর্থাৎ সর্বোচ্চ সীমার থেকেও ৬ গুন বেশি।

কুয়েতে সোমবার বালির ঝড়ে বন্ধ করে দিতে হয় বিমান পরিষেবা। এমনকি দেশের তিনটি সমুদ্র বন্দরেও কাজকর্ম থমকে যায়। মঙ্গলবারও স্কুল-কলেজ বন্ধ ছিল এ দেশে। আজ থেকে কিছুটা স্বাভাবিক হয়েছে।

পশ্চিম এশিয়ায় বালির ঝড় অচেনা নয়। কিন্তু সাম্প্রতিক কালে তা মারাত্মক বেড়েছে। এর জন্য জলবায়ু পরিবর্তনকেই কাঠগড়ায় তুলছে বিশেষজ্ঞেরা। কিন্তু জলবায়ুর ভোলবদলের জন্য দায়ী অনিয়ন্ত্রিত ভাবে মাটি কাটা, জঙ্গল ধ্বংস করা, নদীর জলের অনিয়ন্ত্রিত ভাবে ব্যবহার, নদীর গতিপথ আটকে কৃত্রিম জলাধার তৈরি। এমন অসংখ্য কারণ।


আরও খবর



রাজধানীর খিলগাঁওয়ে কিশোরীর রহস্যজনক মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর খিলগাঁও মেরাদিয়া বড়বাড়ি এলাকায় মোছা. সুমা আক্তার (১৪) নামের এক কিশোরীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (২৫ এপ্রিল) বিকেলের দিকে এ ঘটনা ঘটে। অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মৃত ঘোষণা করেন।

সুমার গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম থানার কাঁচতুল গ্রামে। বর্তমানে খিলগাঁও মেরাদিয়া বড়বাড়ি এলাকায় ভাড়া থাকতেন। তিন বোনের মধ্যে সুমা ছিল বড়। ওই এলাকায় একটি অ্যামব্রয়ডারি কারখানায় কাজ করতেন।

নিহতের বাবা আব্দুল জব্বার জানান, বাড়ির পাশে খলিল নামের এক যুবকের সঙ্গে সুমার সম্পর্ক হয়। আজ তাদের দুজনের মধ্যে মনোমালিন্য হয়। একপর্যায়ে রুমে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানায় জানানো হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: রহস্যজনক মৃত্যু

আরও খবর



বাংলাদেশের জন্য পাটের বাজার পুরোপুরি উন্মুক্ত করার চিন্তা ভারতের

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | ৪৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশি পাটের অন্যতম বড় বাজার প্রতিবেশী ভারত। একসময় দেশটিতে শুল্কমুক্ত পাট রপ্তানির সুবিধা পেতো বাংলাদেশ। কিন্তু স্থানীয় পাটচাষিদের স্বার্থ বিবেচনায় ২০১৭ সালে বাংলাদেশি পাট আমদানিতে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করে ভারত সরকার। ফলে ভারতীয় বাজারে বেড়ে যায় বাংলাদেশি পাটের দাম। শুরু থেকেই এ শুল্ক প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আসছিল বাংলাদেশ। এতদিনে সেই দাবি পূরণ হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।

ভারতের পাটকলমালিকদের সংগঠন আইজেএমএ সম্প্রতি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বাংলাদেশ থেকে পাট আমদানিতে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক থাকবে কি না, তা বিবেচনা করছে ভারত সরকার। তবে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে পাটচাষিদের ভর্তুকি দেওয়া নিয়ে আপত্তি রয়েছে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের।

স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত কোনো পণ্যের দেশীয় বাজারে যে দাম, তার চেয়ে কম দামে যদি সেটি বিদেশ থেকে আমদানি হয়, তাহলে দেশীয় শিল্পকে সুরক্ষা দিতে পণ্যটির ওপর যে শুল্ক আরোপ করা হয়, তার নাম অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে পাঁচ বছরের জন্য বাংলাদেশি পাটের ওপর এই শুল্ক আরোপ করেছিল ভারত।

শুক্রবার (৬ মে) আইজেএমএর উদ্ধৃতি দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু জানিয়েছে, অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক সত্ত্বেও সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ থেকে ভারতে পাট রপ্তানি বেড়েছে। গত ৫ মে এক বিবৃতিতে ভারতীয় পাটকলমালিকরা দাবি করেছেন, বাংলাদেশি পাটে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ না করলে এতদিনে ভারতীয় পাটশিল্প পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতো।

আইজেএমএর বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার নতুন ও উদ্ভাবনী পণ্য এবং নতুন বাজার বিকাশের জন্য ভারতীয় পাটশিল্পকে বাংলাদেশের জন্য পুরোপুরি উন্মুক্ত করে দেওয়ার সম্ভাব্য প্রভাবগুলো মূল্যায়ন করছে বলে মনে হচ্ছে। তবে এদিকের সব প্রচেষ্টা বাংলাদেশি উৎপাদকদের প্রচুর ভর্তুকি দেওয়ার কারণে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। বাংলাদেশের সরকার প্রতিবেশী দেশগুলোর খরচে তাদের নিজস্ব পাটের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি দেখতে বদ্ধপরিকর। ভারতীয় পাটকলমালিকদের সংগঠনটি আরও উল্লেখ করেছে, বাংলাদেশ কয়েক বছর ধরেই সুতা, চটের বস্তা ও চট রপ্তানিতে নগদ ভর্তুকি বাড়িয়েছে।

আইজেএমএর এই বিবৃতি এমন সময়ে এলো যখন পাটপণ্যের তীব্র ঘাটতিতে ভুগছে ভারত। গত কয়েক মাসে শুধু পশ্চিমবঙ্গেই এক ডজনের বেশি পাটকল বন্ধ হয়ে গেছে। এতে বেকার হয়ে পড়েছেন অন্তত ৬০ হাজার শ্রমিক। এই সংকট কাটাতে প্রতি কুইন্টাল (১০০ কেজি) কাঁচা পাটের দাম সাড়ে ছয় হাজার রুপির বিষয়টি সংশোধনের আহ্বান জানিয়েছেন ভারতীয় পাটকলমালিকরা।

নিউজ ট্যাগ: বাংলাদেশি পাট

আরও খবর



শ্রীলঙ্কার জনগণের আস্থা অর্জন করতে চাইছে ভারত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ২৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চরম অর্থনৈতিক মন্দার কবলে শ্রীলঙ্কা। জ্বালানি তেল ও ভোগ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির মধ্যে দেশটির জনগণের আস্থা অর্জন করতে চাইছে ভারত। বিবিসি বলছে, শ্রীলঙ্কার সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতা ভারতের পররাষ্ট্র নীতিকে নতুন জীবন দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়া রনিল বিক্রমাসিংহে বলেছেন, দেশের অর্থনৈতিক সমস্যা আরও খারাপ হবে। এমন পরিস্থিতিতে ভারতসহ বন্ধু দেশগুলোর কাছে আর্থিক সাহায্যের জন্য আবেদন করা হয়েছে।

শ্রীলঙ্কার প্রধান ঋণদাতা না হলেও ধীরে ধীরে দেশটির সবচেয়ে বড় সাহায্য প্রদানকারী দেশ হতে যাচ্ছে ভারত। এরইমধ্যে, ১ দশমিক ৯ বিলিয়ন ডলার সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে দেশটি। এছাড়া, ৬৫ হাজার টন সার ও ৪ লাখ টন জ্বালানি পাঠিয়েছে দিল্লী। পাশপাশি আরও চিকিৎসা সামগ্রী পাঠানোরও প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

শ্রীলঙ্কার সাধারণ মানুষ গত কয়েকমাস ধরে বিদ্যুৎ, খাদ্য, জ্বালানি তেল এবং ঔষধের সংকটে ভুগছেন৷ এ অবস্থায় গত কয়েকসপ্তাহ ধরে অনেকটাই শান্তিপূর্ণ সরকারবিরোধী আন্দোলন চলছিল দেশটিতে এ অবস্থায় দেশটিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে৷ আন্দোলনের মুখে পদত্যাগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী মাতিন্দ্রা রাজাপাকসে।


আরও খবর