আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে আমিরাতে ৪০ দিনের শোক ঘোষণা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | ৪৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট ও আবুধাবির শাসক শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের মৃত্যুতে দেশটিতে ৪০ দিনের শোক ঘোষণা করা হয়েছে। আজ থেকে পতাকা অর্ধনমিত রেখে এই শোক পালন করা হবে।

সেইসঙ্গে শনিবার থেকে দেশটির সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান তিন কার্যদিবস বন্ধ থাকবে। আমিরাতের প্রেসিডেনশিয়াল অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রণালয় এই ঘোষণা দিয়েছে।

আমিরারের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থার (ওয়াম) বরাতে এই খবর দিয়েছে আরব নিউজ ও খালিজ টাইমস।

আজ শুক্রবার ৭৩ বছর বয়সে মারা যান সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট ও আবুধাবির শাসক শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান।


আরও খবর



ঈদে চাই জায়নামাজ, আতর, তসবি ও নতুন টুপি

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০১ মে ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঈদের বাকি আর মাত্র দুই দিন। ঈদের কেনাকাটার শেষ পর্যায়ে সবাই কমবেশি ভিড় করেন আতর, টুপি, জায়নামাজ ও তসবির দোকানগুলোতে। ঈদের দিনটিতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা সবসময় নিজেকে রাখতে চান পরিপাটি। মূলত ঈদের নামাজকে ঘিরেই এই কেনাবেচার ধুম পড়ে, যা চলে চাঁদরাত পর্যন্ত। নতুন কেনা ভাঁজ ভাঙা পাঞ্জাবিতে আতরের সুবাস, নতুন টুপি আর হাতে জায়নামাজবাঙালি মুসলমানদের চিরচেনা রূপ ঈদগাহে যাওয়ার। কেউ কেউ হাতে রাখেন তসবি।

আতর: এই সময়ে বিভিন্ন রকমের আতরের সুবাসের মধ্যে বড়রা কড়া গন্ধের খোঁজ করলেও তরুণেরা নিচ্ছেন হালকা সুবাসের আতর। বাজারে দেশি, ভারতীয় ও পাকিস্তানি ছাড়াও ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের আতর পাওয়া যায়। জান্নাতুল নাঈম, জান্নাতুল ফেরদাউস, শাইখা, হাজরে আসওয়াদ, সুলতান, উদ, কিং হোয়াইট, আল-ফারেজ, কুল ওয়াটার, হুগো বস, গুচি, রামান্স, সিলভার, মশক আম্বার ইত্যাদি নামের আতরের প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ বেশি থাকে। সাধারণত আতর বিক্রি হয় তোলা হিসাবে। তবে অল্প পরিমাণই সবাই কিনে থাকেন। আতরের ছোট বোতলের দাম ১০০ থেকে শুরু করে ৫০০ টাকা ছাড়াও বিত্তবান ক্রেতারা ২ হাজার থেকে শুরু করে ২৫ হাজার টাকার আতরও কিনে থাকেন।

টুপি: ঈদে চাই নতুন টুপি। বাজারে দেশি টুপির পাশাপাশি বাহারি ডিজাইন এবং আকৃতির চীনা, আফগান, দুবাই, মালয়েশিয়া, তুুর্কী, ভারতীয় ও পাকিস্তানি টুপিও পাওয়া যাচ্ছে। দেশি বিভিন্ন টুপির দাম ৪০ থেকে ৩০০ টাকা এবং বিদেশি টুপিগুলো ৩৫০-২০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত। বিদেশি টুপিগুলোতে দেখা যাচ্ছে জরি-সুতার ভরাট কাজ এবং ছোট্ট পুঁতি বসানো প্যাঁচের নকশার মতো নান্দনিক সব ছোঁয়া।

জায়নামাজ: মূলত জায়নামাজের দাম নির্ধারণ হয় এর বুনন, কোমলতা ও নকশার ওপর। বাজারে দেশি জায়নামাজ ছাড়াও তুরস্ক, পাকিস্তান, ভারত বেলজিয়াম, চীন ও সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের তৈরি জায়নামাজ পাওয়া যাচ্ছে। দেশি জায়নামাজ ১৫০-৫০০ টাকা, বেলজিয়ামের ৮০০-৫০০০ টাকা, পাকিস্তানি ৬০০-১২০০ টাকা, তুরস্কের ৫০০-৩০০০ টাকা, তুর্কি মখমলেরগুলো ৩০০-১০০০ টাকা, মধ্যপ্রাচ্যেরগুলো ৮০০-২০০০ টাকা এবং চীন ও ভারতের জায়নামাজ ৫০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

তসবি: প্লাস্টিকের পুঁতি ও সাধারণ পাথরের তসবি তুলনামূলক বেশি পরিচিত এবং দামও কম। এ ছাড়া  চন্দন কাঠ, জয়তুন কাঠ, হাতির হাড়, দাঁত, হরিণের শিং, দামি পাথর ও ক্রিস্টালের তৈরি তসবিও পাওয়া যায়। যেগুলোর দাম ৫০ থেকে শুরু করে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

কোথায় পাবেন: রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স, কাঁটাবন, এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, গুলিস্তান, ফার্মগেট, পল্টন, মতিঝিল, শান্তিনগর, মালিবাগ, চকবাজার, বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর ও দক্ষিণের গেট-সংলগ্ন ফুটপাতের দোকানগুলো, চকবাজার, লালবাগ, রামপুরা, উত্তরা, বনানী, এবং মিরপুর।  


আরও খবর



জিআই সনদ পেল বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | ৩৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জিআই সনদ (ভৌগলিক নির্দেশক পণ্যের স্বীকৃতি) পেয়েছে বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি। শিল্প মন্ত্রণালয়ের পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তরের রেজিস্ট্রার জনেন্দ্র নাথ সরকার স্বাক্ষরিত ভৌগলিক নির্দেশক নিবন্ধন সনদে ‌বাংলাদেশের বাগদা চিংড়িকে এ স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

সম্প্রতি দেওয়া এই স্বীকৃতি সনদে বলা হয়েছে, প্রত্যায়ন করা যাচ্ছে যে, ভৌগলিক নির্দেশক নিবন্ধন বইতে মৎস্য অধিদপ্তরের নামে ২৯ ও ৩১ শ্রেণিতে জিআই-১১ নম্বরে বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি পণ্যের জন্য ০৪.০৭.২০১৯ থেকে নিবন্ধিত হলো।

জানা গেছে, ২০১৯ সালের মে মাসে বাগদা চিংড়ির জিআই সনদ পেতে আবেদন করেছিল বাংলাদেশ। গত বছরের ৬ অক্টোবর গেজেট এবং আন্তর্জাতিক জার্নালে বিষয়টি প্রকাশ করে ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস বিভাগ। নিয়ম অনুযায়ী, জার্নালে প্রকাশের দুই মাসের মধ্যে কেউ আপত্তি না করলে সেই পণ্যের জিআই সনদ পেতে আর কোনো বাধা থাকে না। গত বছরের ৬ ডিসেম্বর ছিল এ বিষয়ে আপত্তি দেওয়ার শেষ দিন। এই সময়ের মধ্যে অন্য কোনো দেশ এতে আপত্তি না করায় প্রথম আবেদনকারী হিসেবে বাংলাদেশ জিআই সনদ পেয়ে যায়। ফলে বাগদা চিংড়ির একক স্বত্ব এখন শুধুই বাংলাদেশের।

উল্লেখ্য, কোনো একটি স্থানের মাটি, পানি, আবহাওয়া, জলবায়ু এবং ওই স্থানের জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতি যদি কোনো একটি অনন্য গুণমানসম্পন্ন পণ্য উৎপাদনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, তাহলে সেটিকে জিআই হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। একই গুণমানসম্পন্ন সেই পণ্য ওই এলাকা ছাড়া অন্য কোথাও উৎপাদন করা সম্ভব নয়।

দেশে প্রথম জিআই সনদ পায় জামদানি। পরে ঢাকাই মসলিন, রাজশাহীর সিল্ক, রংপুরের শতরঞ্জি, নেত্রকোনার সাদামাটি, দিনাজপুরের কাটারিভোগ, কালিজিরা চাল, ইলিশ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম জিআই পণ্যের স্বীকৃতি পায়। এসব পণ্য বাংলাদেশের নিজস্ব পণ্য হিসেবে সারা বিশ্বে পরিচিতি পেয়েছে।


আরও খবর



অডিটর পদে জনবল নিয়োগ দিচ্ছে ওয়ালটন

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | ২০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডে অডিটর পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ২৩ মে পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড

পদের নাম: অডিটর

পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমবিএ

অভিজ্ঞতা: ০৫-১০ বছর

বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম

প্রার্থীর ধরন: পুরুষ

বয়স: ৩০-৪০ বছর

কর্মস্থল: যে কোনো স্থান

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা (jobs.bdjobs.com) এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ২৩ মে ২০২২

 

নিউজ ট্যাগ: চাকরির খবর

আরও খবর



দিল্লির তাপমাত্রা পৌঁছাতে পারে ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসে

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৩৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আরও একবার তাপপ্রবাহ উত্তর-পশ্চিম ভারতে। আবহাওয়া অধিদফতরের পক্ষ থেকে তীব্র তাপপ্রবাহের আশঙ্কার কারণে কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে রাজধানী দিল্লিতে। বলা হয়েছে, দিল্লির তাপমাত্রা পৌঁছে যেতে পারে ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

গত দুদিন ধরে তাপপ্রবাহ চলছে দিল্লি ও আশপাশের এলাকায়। রোববারের জন্য হলুদ সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনার সাক্ষী থাকছে ভারতের জাতীয় রাজধানী। প্রবল গরমে পুড়ছে দিল্লির বিস্তীর্ণ এলাকায়।

গত দুই দিন ধরেই এই অবস্থা রয়েছে। পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলেও সংকেত দিয়েছে ভারতের আবহাওয়া দফতর। বলা হয়েছে রোববার ও সোমবার দিল্লির কোনও কোনও এলাকার তাপমাত্রা ৪৬-৪৭ ডিগ্রি থাকতে পারে। রোববারের জন্য দিল্লিতে হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

শুক্রবারই নাজাফগড়ের তাপমাত্রার পারদ ৪৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াল হয়েছে। জাফরপুরও মুঙ্গেসপুরের তাপমাত্রা  ছিল ৪৫.৬ ও ৪৫.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই অস্থায় প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে প্রশাসন। আগামী সপ্তাহের প্রথম দিকে বজ্র বিদ্যুৎসহ বৃষ্টি হলে তাপমাত্রা সাময়িক কিছুটা কমবে। হাওয়া অফিস আরো জানিয়েছে এই মৌশুমে এই নিয়ে এখনও পর্যন্ত পাঁচবার তাপপ্রবাহের কবলে পড়ল দিল্লি।


আরও খবর



হানিকুইন আনারসে সয়লাব রাঙামাটির বাজার

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পার্বত্য জেলা রাঙামাটির হানিকুইন আনারস দেশজুড়ে বিখ্যাত। মৌসুমী রসালো মিষ্টি ফলটি বর্তমানে জেলার বাজার দখল করে আছে। বিক্রেতাদের হাঁক-ডাক এবং ক্রেতা সমাগমে হাটগুলো বেজায় ব্যস্ত। চলতি বছর জেলায় আবহাওয়া ভালো থাকায় অন্যান্য বছরের তুলনায় ফলনও বেশ ভালো হয়েছে। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে রসালো ফলটি জেলার বাইরে চট্টগ্রাম ও ঢাকার বাজারে যাচ্ছে।

পাহাড়ের মাটি আনারস চাষের উপযোগী হওয়ায় আবাদ বাড়ছে দিনদিন। পাহাড়ে উৎপাদিত কেমিক্যালমুক্ত রসালো ফলটির স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি জেলার বাইরে চাহিদা রয়েছে বেশ। পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে কৃষকরা চাষ করে ফলটি। কৃষকরা ইঞ্জিন চালিত নৌকায় করে রাঙামাটি শহরের সমতাঘাট, তবলছড়ি, পৌর ট্রাক টার্মিনাল এবং রিজার্ভ বাজারে নিচ্ছেন এবং সেখান থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা আনারস কিনে ট্রাকে করে জেলার বাইরে নিয়ে যাচ্ছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাঙামাটি কার্যালয় সূত্র জানায়, হানিকুইন জাতের এ আনারস জেলায় চলতি মৌসুমে দুই হাজার একশ হেক্টর জমিতে চাষ করা হয়েছে। বর্তমানে আনারসের ব্যাপক চাহিদা। সেই সঙ্গে উৎপাদন ভালো হওয়ায় কৃষকদের আনারস চাষে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

এদিকে রাঙামাটির বনরূপা, কলেজগেট, তবলছড়ি এবং রিজার্ভবাজার হাটগুলো ঘুরে দেখা গেছে, বড় প্রতিজোড়া আনারস ৬০ টাকা, মাঝারি ৪০ এবং ছোটগুলো ২০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। ফলন ভালো হওয়ায় এবং দাম হাতের নাগালে থাকায় বেজায় খুশি ক্রেতারা। রসালো ফলটি খেয়ে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলছেন তারা।

নানিয়ারচর উপজেলার আনারস চাষি দীপ্তিময় চাকমা বলেন, এ বছর ১০ একর পাহাড়ি জমিতে আনারস চাষ করেছি। উৎপাদনও হয়েছে বেশ। তবে উৎপাদন বেশি হওয়ায় বাজারে আনারসের দাম পূর্বের তুলনায় কিছুটা কম। জেলার আনারস ব্যবসায়ী রহমত মিয়া বলেন, কখনো লাভ বেশি আবার কখনো লোকসান গুণতে হয়। এ বছর উৎপাদন ভালো হওয়ায় আনারসের দাম অন্যান্য বছরের তুলনায় কিছুট কম। 

রাঙামাটিতে আনারস কিনতে আসা চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী আসাদ সওদাগর বলেন, প্রতি বছর লাখ পিস আনারস কিনি রাঙামাটি থেকে। এ অঞ্চলের আনারস অত্যন্ত সুস্বাদু এবং ক্রেতাদের চাহিদা ব্যাপক রয়েছে। তাই প্রতি মৌসুমে এখান থেকে আনারস কিনে চট্টগ্রামে নিয়ে যাই। আনারস কিনতে আসা আবুল ফজল বলেন, আমাদের অঞ্চলের মতো এত সুস্বাদু আনারস আমি এখনো খাইনি। দাম বেশি থাকুক বা না থাকুক, প্রতি বছর পরিবারের জন্য আনারস কিনে থাকি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাঙামাটি কার্যালয়ের উপ-পরিচালক তপন কুমার পাল বলেন, চলতি মৌসুমে জেলায় হানিকুইন জাতের আনারসের ফলন ভালো হয়েছে। প্রতি বছর আনারসের চাহিদা বাড়ায় জেলায় আনারসের ফলন বাড়ছে। যে কারণে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর চাষিদের আনারস চাষে সব ধরনের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে। কৃষকরাও লাভের মুখ দেখছেন।

কৃষক এবং ব্যবসায়ীদের অনেক বছরের দাবি, রাঙামাটিতে একটি হিমাগার দরকার। হিমাগার না থাকায় প্রতি বছর হাজার টন আনারসসহ অন্যান্য ফসল পচে যায়। যে কারণে উৎপাদিত ফল সংরক্ষণের জন্য একটি হিমাগার খুবই গুরত্বপূর্ণ। তাই জেলায় একটি হিমাগার তৈরির জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানান ব্যবসায়ী এবং কৃষকরা।

নিউজ ট্যাগ: হানিকুইন আনারস

আরও খবর
যেসব কারণে ভেড়া পালন লাভজনক

মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২