আজঃ রবিবার ২৪ অক্টোবর ২০২১
শিরোনাম

রাতে বিধবার ঘরে প্রবেশের অভিযোগে এএসআই ক্লোজড

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | ৮২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাতে এক বিধবা নারীর (৪০) ঘরে প্রবেশ করার অভিযোগে বাউফল থানার এএসআই রফিকুল ইসলামকে পটুয়াখালীর পুলিশ লাইন্সে ক্লোজড করা হয়েছে। শনিবার (৯ অক্টোবর) তাকে ক্লোজড করা হয়।

বাউফল থানার ওসি আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, শুক্রবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে এএসআই রফিকুল ইসলাম (৪২) বাউফল সদর ইউনিয়নের যৌতা গ্রামে এক বিধবা নারীর ঘরের প্রবেশ করেন। কিছু সময় ওই নারীর সঙ্গে কাটানোর পর ঘর থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় প্রতিবেশী কয়েকটি বাড়ির শতাধিক লোকজন তাকে আটক করে। একপর্যায়ে তাকে মারধর করেন। এসময় ওই এএসআই বিব্রতকর পরিস্থিতি এড়াতে স্থানীয় কয়েক যুবকের তিনটি বিকাশ নম্বরে ৪৫ হাজার টাকা দেন। পরে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার হস্তক্ষেপে তিনি ছাড়া পান। এরপর সাড়ে ১১টার দিকে থানা থেকে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনা জেলা পুলিশ সুপার অবহিত হওয়ার পরে ওই এএসআইকে পটুয়াখালী পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে।

বাউফল থানার ওসি আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চি করে বলেন, অভিযুক্ত এএসআই রফিকুল ইসলামকে পটুয়াখালী পুলিশ লাইন্সে ক্লোজড করা হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



সিনহা হত্যা মামলা : পঞ্চম দফায় দ্বিতীয় দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

প্রকাশিত:সোমবার ১১ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১১ অক্টোবর ২০২১ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
এর আগে আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে মামলার ১৫ আসামিকে প্রিজন ভ্যানে করে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আদালতে নেওয়া হয়

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় পঞ্চম দফার দ্বিতীয় দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ২৭তম সাক্ষী সেনাসদস্য সার্জেন্ট জিয়াউর রহমানের সাক্ষ্যগ্রহণের মধ্য দিয়ে আদালতের বিচারিক কার্যক্রম শুরু হয়।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম জানিয়েছেন, আজ সিনহা হত্যা মামলায় পাঁচজন সাক্ষীকে আদালতে উপস্থাপন করা হয়। এর মধ্যে দুজন সেনাসদস্য, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতালের দুজন কর্মচারী (ডোম) ও একজন পুলিশ কনস্টেবল রয়েছেন।

অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম আরও জানান, গতকাল রোববার পর্যন্ত এ মামলার ২৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। গতকাল এক সেনা কর্মকর্তাসহ ছয়জন সেনাসদস্য সাক্ষ্য দিয়েছেন।

এর আগে আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে মামলার ১৫ আসামিকে প্রিজন ভ্যানে করে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আদালতে নেওয়া হয়।

মামলার নথি থেকে জানা গেছে, গত বছরের ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

এ ঘটনায় সে সময় সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ নয় পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

মামলায় প্রধান আসামি করা হয় লিয়াকত আলীকে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে র‌্যাবকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় একটি এবং রামু থানায় আরেকটি মামলা করে। এরপর মেজর সিনহা নিহতের ছয় দিন পর লিয়াকত আলী ও ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে ঘটনায় সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার অভিযোগে টেকনাফ থানায় পুলিশের করা মামলার তিন সাক্ষী এবং শামলাপুর চেকপোস্টে ঘটনার সময় দায়িত্ব পালনকারি আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর টেকনাফ থানার সাবেক কনস্টেবল রুবেল শর্মাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। গত ২৪ জুন মামলার অন্য পলাতক আসামি টেকনাফ থানার সাবেক এএসআই সাগর দেব আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

আসামিদের মধ্যে ওসি প্রদীপ ও কনস্টেবল রুবেল শর্মা ছাড়া অন্য ১২ জন আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তদন্ত শেষে গত বছর ১৩ ডিসেম্বর মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা তৎকালীন র‌্যাব-১৫-এর সহকারী পুলিশ সুপার মো. খাইরুল ইসলাম ১৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে সাক্ষী করা হয় ৮৩ জনকে।


আরও খবর
ইকবালসহ ৪ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১




‘টাকা ফেরত পাবেন ডেসটিনি ও যুবকের গ্রাহকরা’

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন, ডেসটিনি ও যুবকের প্রতারিত গ্রাহকেরা অন্তত ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ টাকা ফেরত পেতে পারেন। রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন আয়োজিত এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ডেসটিনি ও যুবকের যে সম্পদ রয়েছে তার দাম অনেক বেড়েছে। ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করলেও যে টাকা পাওয়া যাবে তা দিয়ে গ্রাহকদের ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ টাকা ফেরত দেওয়া যাবে।

এ বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের সঙ্গে কথা বলেছেন বলে জানান। তবে বাণিজ্যমন্ত্রীর এমন কথা নাকোচ করে দিয়েছেন আইনমন্ত্রী। এদিকে গ্রাহকদের অন্তত সাত হাজার কোটি টাকা আটকে রেখেছে ডেসটিনি ও যুবকের মালিকপক্ষ। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

এ সময় তিনি ই-কমার্স নিয়ে কথা বলতে গিয়ে বলেন, কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের জন্য অন্তত ৩০ হাজার প্রতিষ্ঠানকে আমরা বিপদে ফেলতে পারি না। এ খাত এগিয়ে যাচ্ছে।


আরও খবর
নাটকীয় উত্থানে ঘুরে দাঁড়াল পুঁজিবাজার

বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর 20২১




দেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতি কিছুটা স্থিতিশীল

প্রকাশিত:বুধবার ১৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৩ অক্টোবর ২০২১ | ৪৪৫জন দেখেছেন
Image

দেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতি কিছুটা স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র ও নন কমিউনিকেবল ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রামের লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ রোবেদ আমিন।

তিনি বলেন, আগস্ট ও সেপ্টেম্বর ছিল ডেঙ্গু আক্রান্তের কঠিন সময়। এ দুটি মাসে ৭ হাজারের বেশি রোগী হাসপাতালে ভর্তি হন। চলতি মাসে মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) পর্যন্ত ২ হাজার ৩২১ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১১ জন মারা গেছেন।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ভার্চুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে তিনি এ তথ্য জানান।

অধ্যাপক ডা. রোবেদ আমিন বলেন, মঙ্গলবার রাজধানীসহ সারাদেশে ১৮২ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তার মধ্যে ঢাকায় ১৪৩ জন ও ঢাকার বাইরে ৩৯ জন। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে মোট ৯১৬ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় ৭৪২ ও ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ১৪৪ জন।

তিনি জানান, চলতি বছর হাসপাতালে ভর্তি হওয়া মোট ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ২০ হাজার ৫১৮ জন। এর মধ্যে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৯ হাজার ৫২২ জন। এর মধ্যে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৮০ জন। মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে অনেক তরুণও রয়েছেন।

নিউজ ট্যাগ: ডেঙ্গু আক্রান্ত

আরও খবর



১১ অক্টোবর খুলছে জাবির হল

প্রকাশিত:রবিবার ০৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ অক্টোবর ২০২১ | ৫০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. রাশেদা আখতার তথ্যটি নিশ্চিত করে বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের সুবিধার কথা চিন্তা করে সিন্ডিকেট সভায় হল খোলার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হয়েছে

আগামী ১১ অক্টোবর থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। একইসঙ্গে ২১ অক্টোবর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনের পাশাপাশি অফলাইনেও পাঠদান চলবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। শনিবার  (২ অক্টোবর)  বিকেল সাড়ে ৪টায় অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের সভা থেকে আবাসিক হলগুলো আগামী ২১ অক্টোবর থেকে খোলার সুপারিশ করা হলেও তা এগিয়ে ১১ অক্টোবর করা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. রাশেদা আখতার তথ্যটি নিশ্চিত করে বলেন, শিক্ষার্থীদের সুবিধার কথা চিন্তা করে সিন্ডিকেট সভায় হল খোলার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হয়েছে।’

এর আগে শনিবার দুপুর ১২টায় হল প্রভোস্ট কমিটির পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভার আয়োজন করলে সাংবাদিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ৫ অক্টোবর হল খুলে দেওয়ার দাবি জানান।


আরও খবর



সিঙ্গাপুরে আসছে করোনার ট্যাবলেট

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৬ অক্টোবর ২০২১ | ৬৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুখে খাওয়ার করোনার ট্যাবলেট মলনুপিরাভ বিক্রি ও সরবরাহের জন্য সিঙ্গাপুরের সঙ্গে একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে বহুজাতিক ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা মেরেক। নির্দিষ্ট কিছু মাইলফলক অর্জিত হলেই সিঙ্গাপুর মলনুপিরাভ ক্রয়-বিক্রয় ও সরবরাহের অনুমতি পাবে বলে বুধবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে মেরেক। তবে কী ধরনের মাইলফলক অর্জন করতে হবে সে ব্যাপারে মার্কিন এই ওষুধ প্রস্তুতকারক  সংস্থাটি বিস্তারিত কিছু জানায়নি।

এ ব্যাপারে মেরেকের বানিজ্যিক শাখা এমএসডির সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্যাং লাই লি এক বিবৃতিতে জানান, মহামারি ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে সিঙ্গাপুরের দূরদর্শী কৌশল এবং মহামারি মোকাবেলায় উদ্ভাবনী ওষুধ ও ভ্যাকসিনে বিনিয়োগে সরকারের অঙ্গীকারের আরেকটি উদাহরণ এই চুক্তি। বহুজাতিক ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা মেরেকের তৈরি মুখে খাওয়ার কোভিড ট্যাবলেটের পরীক্ষামূলক প্রয়োগে উল্লেখযোগ্য সাফল্য পেয়েছে।

মলনুপিরাভের ব্যবহারিক প্রয়োগে দারুণ সাফল্যের পর এই ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা দাবি করেছিল মুখে খাওয়ার এই ওষুধ করোনার মৃত্যুর ঝুঁকি ও হাসপাতালে ভর্তির হার অন্তত ৫০ শতাংশ কমিয়ে আনতে পারবে।

কয়েকদিন আগে মেরেক জানিয়েছিল, তাদের তৈরি মুখে খাওয়ার ওষুধ মলনুপিরাভির কোভিড আক্রান্তদের মৃত্যুর হার ৫০ শতাংশ কমিয়ে আনতে পারছে বলে পরীক্ষামূলক প্রয়োগে দেখেছেন তারা। এছাড়া ওই ওষুধ প্রয়োগের ফলে কোভিড আক্রান্তদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার হার কমিয়ে দেওয়ার ব্যাপারেও সাফল্য পেয়েছে মেরেক।

অংশীদার প্রতিষ্ঠান রিজব্যাকের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে এ ওষুধের জরুরি ব্যবহারের অনুমতি চাওয়া হবে বলে এর আগে জানিয়েছিল মেরেক। এছাড়া মলনুপিরাভিরের জরুরি ব্যবহারের জন্য অন্যান্য দেশের ওষুধ নিয়ন্ত্রণক সংস্থার কাছেও অনুমতি চাইবে মেরেক ও রিজব্যাক বায়োথেরাপিউটিকস।

পরীক্ষামূলক প্রয়োগে সাফল্য পাওয়ার পর ওই ওষুধের তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সমাপ্তি ঘোষণা করে মেরেক ও রিজব্যাক।


আরও খবর