আজঃ রবিবার ২৪ অক্টোবর ২০২১
শিরোনাম

শাহরুখের ছেলের বান্ধবী কে এই মুনমুন ?

প্রকাশিত:সোমবার ০৪ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ অক্টোবর ২০২১ | ৬১৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পার্টি থেকে আরিয়ানের সঙ্গেই গ্রেপ্তার হয়েছেন মুনমুন। তাঁর স্যানিটারি প্যাডে লুকিয়ে রাখা ছিল মাদক। শাহরুখের ছেলের সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্ব নিয়েও কথা উঠেছে ভারতীয় নানা সংবাদমাধ্যমে। কে এই মুনমুন? কী করেন তিনি?

জানা গিয়েছে, ধনার্ঢ্য ব্যবসায়ী পরিবারের মেয়ে মুনমুন। পেশায় মডেল। পেশার সূত্রেই বলিউড তারকাদের সঙ্গেও তাঁর ওঠাবসা। গুরু রান্ধাওয়া, অর্জুন রামপালের মতো বলিউড তারকা রয়েছেন সেই তালিকায়। ইনস্টাগ্রামেও বেশ জনপ্রিয় মুনমুন। সেখানে তাঁর অনুসারীর সংখ্যা দশ হাজারেরও বেশি।

নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (এনসিবি) এর জিজ্ঞাসাবাদে মাদক নেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন মুনমুন। সোমবার আরিয়ানের সঙ্গেই আদালতে তোলা হয় তাঁকে। তাদেরকে ৭ অক্টোবর পর্যন্ত এনসিবি হেফাজতে রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এনসিবির দাবি, জুতো থেকে শুরু করে চোখের লেন্সের বাক্সে লুকানো ছিল আরিয়ানদের মাদক। আরিয়ানদের কাছ থেকে পাওয়া গেছে ১৩ গ্রাম কোকেন, ৫ গ্রাম এমডি, ২১ গ্রাম চরস, ও এমডিএমএর ২২ টি পিল এবং নগদ এক লক্ষ তেত্রিশ হাজার টাকা। একাধিক ধারায় মামলা করা হয়েছে আরিয়ানের বিরুদ্ধে। নারকোটিক ড্রাগস অ্যান্ড সাইকোট্রপিক সাবস্ট্যান্সেস ১৯৮৫ আইনের ৮সি, ২৭, ২২ নম্বর ধারা, এছাড়া এমডিএমএ ও এক্সট্যাসি আইনের  অন্তর্গত ১৪(১), ১৪ (বি), ২০(বি) ধারায় মামলা করা হয়েছে আরিয়ানের বিরুদ্ধে।

এনসিবির সূত্রে জানা গেছে, আরিয়ান খান এবং আরবাজ মার্চেন্ট এনসিবিকে সঠিকভাবে বলছেন না যে, কে তাদের মাদক সরবরাহ করতেন? আরবাজ বলছেন যে গোয়ার একজন মাদক সরবরাহকারী তাকে মাদক সরবরাহ করত। মুনমুন জানান, আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে একটি পাঁচতারা হোটেলের কাছে একজন মাদক ব্যবসায়ী তাকে কিছু মাদকদ্রব্য দিয়েছিলেন। কিন্তু সঠিক নাম কেউই বলছেন না। জেরা করার জন্য সোমবার আরবাজ ও আরিয়ানের বিশেষ বন্ধু শ্রেয়স নায়ারকে গ্রেপ্তার করতে পারে এনসিবি।

শনিবার রাতে এক মাদক পার্টি থেকে শাহরুখ খানের পুত্র আরিয়ান খান সহ আটজনকে আটক করে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। আরিয়ানের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য সেবন ও মাদক কেনা বেচার গুরুতর অভিযোগ এনেছে এনসিবি। দীর্ঘ ১৬ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর বাজেয়াপ্ত করা হয় আরিয়ানের ফোন। খতিয়ে দেখা হয়, শেষ কয়েকদিন কার কার সঙ্গে ফোনে ও হোয়াটস অ্যাপে কথা বলেছেন আরিয়ান।

এরপরই আরিয়ান খান, আরবাজ মার্চেন্ট ও মুনমুন ধামেচা, নুপূর সারিকা, ইশমিত সিং, মোহক জয়সওয়াল, বিক্রান্ত চোকার, গোমিত চোপড়াকে গ্রেপ্তার করে এনসিবি। রবিবার আদালতে আরিয়ানের আইনজীবী সতীশ মানশিণ্ডে জানান যে এই পার্টিতে যাওয়ার টিকিটও ছিল না আরিয়ানের কাছে, তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। এমনকি আরিয়ানের কাছে কোনও মাদকদ্রব্য ছিল না। তাই তাঁকে গ্রেপ্তার করাই ভুল, বলে দাবি করেন আইনজীবী।

নিউজ ট্যাগ: শাহরুখের ছেলে

আরও খবর
গাছের সঙ্গে বিয়ে হবে নয়নতারার

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১




তিস্তায় হঠাৎ ভয়াবহ বন্যায় রেড অ্যালার্ট জারি

প্রকাশিত:বুধবার ২০ অক্টোবর ২০21 | হালনাগাদ:বুধবার ২০ অক্টোবর ২০21 | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
কার্তিক মাসের এমন হঠাৎ বন্যা এলাকাবাসীকে পথে বসিয়ে দিচ্ছে। এলাকার ছোটখাতা,বাইশপুকুর, সুপারীপাড়া গ্রাম এখন নদীতে পরিণত হয়েছে

ভারতের ভয়াবহ বন্যার প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশের তিস্তা নদীতে। এতে নীলফামারী ও লালমনিরহাট ও রংপুর জেলার তিস্তা নদীবেষ্টিত এলাকা তলিয়ে যেতে শুরু করেছে।

আজ বুধবার সকাল ৬টা থেকে নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার (৫২.৬০) ৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে (৫৩.১০) প্রবাহিত হয়। যা সকাল ৯টায় আরও ১০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার (৫৩.২০) উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তিস্তা অববাহিকায় পানি উন্নয়ন বোর্ড রেড অ্যালার্ট (লাল সংকেত) জারি করে মানুষজনকে নিরাপদে সরে যাওয়ার জন্য ঘোষণা দিয়েছে। উজান ও ভাটি অংশ তীব্র স্রোতে নদীর দুই ধারের সকল ফসলি জমি ডুবে গেছে।

তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে রেখেও তিস্তার পানি সামাল দিতে পারছে না সংশ্লিষ্টতা। এতে তিস্তা ব্যারাজ রক্ষায় উত্তর পার্শ্বে অবস্থিত ফ্লাড ফিউজ হুমকির মুখে পড়েছে। যে কোনো সময় তা বিধ্বস্ত হতে পারে। এটি ভেঙে গেলে তিস্তা ব্যারাজের সঙ্গে লালমনিরহাট জেলার বুড়িমারী, পাটগ্রাম, হাতিবান্ধার সঙ্গে নীলফামারী জেলার সড়ক পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। তিস্তার ভয়াবহ বন্যায় এলাকার হাজার হাজার পরিবার ঘরবাড়ি ছেলে উঁচু স্থানে আশ্রয় নিয়েছে।

কার্তিক মাসে তিস্তা নদীতে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতি এলাকাবাসী ১৯৬৮ সালে একবার দেখেছিল। দীর্ঘ ৬২ বছর পর ফের তিস্তায় এমন বন্যা দেখে তিস্তা পাড়ের প্রবীণ ব্যক্তি হাতেম আলী (৮৮) এ কথা জানান।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের পানি পরিমাপক নুরুল ইসলাম জানান, গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত তিস্তার পানি বিপৎসীমার অনেক নিচে প্রবাহিত হচ্ছিল। সেই পানি ১২ ঘণ্টায় ১০৭ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে সকাল ৬টায় বিপৎসীমার ৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। যা সকাল ৯টায় আরও ১০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পায়।

ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে তিস্তা নদীর পানি ভয়ানকভাবে বেড়েছে। ভারী বৃষ্টিপাত পাহাড়ি ঢলে তিস্তার পানি দো-মহনী পয়েন্টে বুধবার সকাল ৬টায় বিপৎসীমার (৮৫.৯৬) ৬৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে (৮৬.৬৩) প্রবাহিত হচ্ছে। সেই পানি সকাল ৭টায় আরও ২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারতের শিলিগুড়ি, জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, আলিপুর দুয়ার এলাকা তলিয়ে গেছে।

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান জানান, এলাকার জিরো পয়েন্টে তিস্তার ডান তীর ও গ্রোয়েন বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। বিশেষ করে গ্রোয়েন বাঁধটির উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। ওই গ্রোয়েনটি বিধ্বস্ত হলে ডান তীর বাঁধসহ এলাকার শত শত বাড়ি তিস্তা নদীতে ভেসে যাবে।

টেপাখড়িবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হক বলেন, পরিস্থিতি খুব খারাপ। তিস্তা বাজার, তেলিরবাজার, দোলাপাড়া, চরখড়িবাড়ি এলাকা তলিয়ে গেছে। চরের ফসলের জমি সব পানির নিচে। ঘরবাড়ি ছেড়ে মানুষজন গবাদি পশুসহ নিরাপদে সরে গেছে।

খালিশাচাঁপানী ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, কার্তিক মাসের এমন হঠাৎ বন্যা এলাকাবাসীকে পথে বসিয়ে দিচ্ছে। এলাকার ছোটখাতা,বাইশপুকুর, সুপারীপাড়া গ্রাম এখন নদীতে পরিণত হয়েছে।

এ ছাড়া নীলফামারীর ডিমলাও জলঢাকা উপজেলার ২২টি চরের ৫০ হাজার পরিবার বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে।

অপরদিকে লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্ধা ও পাটগ্রাম কালিগঞ্জ,আদিতমারী উপজেলার দহগ্রাম,  সানিয়াজান, গড্ডিমারী, সিন্দুর্না, পাটিকাপাড়া, সিংগিমারী, ভোটমারী, কাকিনা, অ মহিষখোচা, পলাশী খুনিয়াগাছ, রাজপুর, গোকুন্ডা ইউনিয়নের নদীর তীরবর্তী মানুষেরা পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। তবে কতগুলো পরিবার পানিবন্দী তা এখনো জানা যায়নি।

হঠাৎ তিস্তায় পানি প্রবাহ বৃদ্ধি পাওয়ায় চরাঞ্চলের সবজিসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। ফসল ইতিমধ্যে পানিতে তলিয়ে গেছে। পানিবন্দী পরিবারগুলো শিশু, বৃদ্ধ ও গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

চরাঞ্চলের রমজান আলী (৬৫) জানান, রাতে হঠাৎ তিস্তার পানি বেড়ে যাবে ভাবতে পারিনি। রাতে পরিবার নিয়ে কোথায় যাব ভেবে পাচ্ছি না। পানি উন্নয়নের লোকজন আগে কোনোরকম ঘোষণা দেয়নি যে বাড়ি সরিয়ে ফেলতে হবে। পরিবার নিয়ে চরম বিপাকে আছি।

এদিকে রংপুরের গঙ্গাচড়ায় তিস্তার পানির তীব্র স্রোতে কোলকোন্দ ইউনিয়নে বিনবিনা চরে সদ্য নির্মিত স্বেচ্ছাশ্রমের বাঁধের প্রায় আধা কিলোমিটার বিলীন হয়ে গেছে। বাঁধটি ভেঙে যাওয়ার কারণে তলিয়ে গেছে চাষাবাদকৃত বিভিন্ন ফসল ও হুমকিতে পড়েছে কয়েক গ্রামের বাড়ি ও রাস্তাঘাট।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আশফাউদ্দৌলা প্রিন্স বলেন, উজানের ঢলে তিস্তা নদীর পরিস্থিতি ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে। তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে রেখেও পানি সামাল দেয়া যাচ্ছে না। আমরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজখবর রাখছি। পরিস্থিতি খারাপের দিকে গেছে।

যে কোনো সময় তিস্তা ব্যারাজের ফ্লাড ফিউজ বিধ্বস্ত হতে পারে। আমরা তিস্তা অববাহিকায় লাল সংকেত দিয়ে মানুষজনকে নিরাপদে আশ্রয় নিতে বলা হয়েছে।


আরও খবর



যুক্তরাষ্ট্রে বিদ্যালয়ে বিমান বিধ্বস্তে নিহত ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১২ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১২ অক্টোবর ২০২১ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যুক্তরাষ্ট্রে একটি বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বিমান বিধ্বস্ত হয়ে দুজন নিহত হয়েছেন। স্থানীয় সময় সোমবার (১১ অক্টোবর) দেশটির ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সান দিয়াগোতে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটে। এতে আহত হয়েছেন আরও দুজন। মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) স্থানীয় গণমাধ্যম ও কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

স্কুল ক্যাম্পাসে বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার পর আগুনে পুড়ে গেছে পার্শ্ববর্তী বেশ কয়েকটি বাড়ি ও বেশ কয়েকটি গাড়ি। পরবর্তীতে তা নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন দমকল কর্মীরা। স্থানীয় এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ক্যালিফোর্নিয়ার সান্টি শহরের এই দুর্ঘটনার পর ছড়িয়ে পড়া আগুনে কমপক্ষে দুটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সোমবার স্থানীয় সময় দুপুর ১২টার দিকে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়।

স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, বিধ্বস্ত বিমানটি সি৩৪০ মডেলের দুই ইঞ্জিন বিশিষ্ট বিমান। সোমবার সান দিয়াগোর মন্টেগোমেরি ফিল্ড থেকে অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যের ইউমাতে যাচ্ছিল বিমানটি। তবে বিমানটি উড্ডয়নের পরপরই সমস্যা দেখা দেয়। এরপর বিমানটিকে একটি মাধ্যমিক স্কুলের পাশে গিলেস্পি ফিল্ডে অবতরণের চেষ্টা করা হয়। তবে এর আগেই সেটি বিধ্বস্ত হয়।

দুর্ঘটনায় আহত দুজনকে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। তবে বিমানটিতে মোট কতজন আরোহী ছিলেন, সে ব্যাপারে কিছু জানা যায়নি।



আরও খবর



দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ফেরিঘাটে ৭ কিলোমিটার তীব্র যানজট

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৭ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৭ অক্টোবর ২০২১ | ২৭১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ফোরিঘাটের দৌলতদিয়া প্রান্তে প্রায় ৭ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের তৈরি হয়েছে। এ কারণে ভোগান্তিতে পড়েছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার যাত্রীরা।বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) সকালে সরেজমিনে গিয়ে এই চিত্র দেখা যায়। ঘাটের ড্রেজিং কাজ চালু থাকায় এমন যানজটের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে ঘাট কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) সকাল থেকেই ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া ঘাট এলাকার প্রায় ৭ কিলোমিটার অংশ জুড়ে যাত্রীবাহী বাস, কাচা পণবাহী ট্রাক এবং কাভার্ডভ্যানসহ ব্যক্তিগত গাড়ীর জট রয়েছে। এই কারণে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

খুলনা থেকে আগত সোহাগ পরিবহনের ড্রাইভার কালাম মিয়া বলেন, বুধবার (৬ অক্টোবর) রাতে ঘাট এলাকায় আসলেও ফেরিতে উঠতি পারি নাই। জ্যামে আটকে আছি। আর এখানে হোটেল, বাথরুম না থাকায় আমাদের ভোগান্তি হচ্ছে।

যশোর থেকে কাচা পণ্য নিয়ে আসা ট্রাক-চালক মোসলেম উদ্দিন বলেন, বুধবার (৬ অক্টোবর) রাত ১টার সময় ফেরিঘাটে আসলেও এখনো ফেরিতে উঠতে পারি নাই। এই গরমে কাচা পণ্য নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। খুব ভয়ে আছি জ্যাম নিয়ে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডাব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক মো. শিহাব উদ্দিন (বাণিজ্য) জানান, ঘাটের ড্রেজিং কাজ চলার কারণে যানবাহন পারাপারে একটু সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। তবে সেটি নিরসনের জন্য কাজ করা হচ্ছে। এখন ২০টি ফেরির চলাচল করছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস ও কাঁচা-পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করা হচ্ছে। আশা করা হচ্ছে দ্রুত সময়ে এই যানজট কেটে যাবে।


আরও খবর



আরও ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ গেল ভারতে

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ইলিশ রফতানি নিষিদ্ধ। তবে দুর্গাপূজা উপলক্ষে দেশের সরকার এবার ৪০ মেট্রিক টন করে ১১৫টি প্রতিষ্ঠানকে চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন ভারতে রফতানির অনুমতি দিয়েছে

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রতিবেশী দেশ ভারতে চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন ইলিশ রফতানির অনুমতি দিয়েছিলো বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তৃতীয় দিনের আরও ১৮৬ মেট্রিক টনসহ তিন দিনে ভারতে গেলো মোট ৪৯৮ মেট্রিক টন ইলিশ। গত বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) ১০৩ ও বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) ২০৯ মেট্রিক ইলিশ যায় ভারতে।

বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে আজ শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টা পর্যন্ত ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে প্রবেশের জন্য গেট পাস নিয়েছে।

শার্শা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল হাসান জানান, ইলিশ রফতানি নিষিদ্ধ। তবে দুর্গাপূজা উপলক্ষে দেশের সরকার এবার ৪০ মেট্রিক টন করে ১১৫টি প্রতিষ্ঠানকে চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন ভারতে রফতানির অনুমতি দিয়েছে। এর মধ্যে গত ২০ সেপ্টেম্বর ৫২টি দেশের প্রতিষ্ঠানকে দুই হাজার ৮০ ও ২৩ সেপ্টেম্বর ৬৩টি প্রতিষ্ঠানকে দুই হাজার ৫২০ মেট্রিক টন ইলিশ পাঠানোর অনুমতি দেওয়া হয়। নির্দেশনা রয়েছে, আগামী ১০ অক্টোবরের মধ্যে সব ইলিশ রফতানি করতে হবে।

ইলিশ মাছ রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান অর্পিতা ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মালিক বিশুদানন্দা আচার্জী বলেন, এবার ভারতে চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন ইলিশ রফতানি করা হবে। প্রতি কেজি ইলিশের রফতানিমূল্য ১০ মার্কিন ডলার যা বাংলাদেশি টাকায় প্রতি কেজি ৮৫০ টাকা। ভারত ও বাংলাদেশ দুই দেশের কাস্টমস থেকে শুল্কমুক্ত সুবিধায় ইলিশের এ চালান ছাড় করানো হচ্ছে।

আরও বলেন, ১০ অক্টোবরের মধ্যে রফতানির নির্দেশনা থাকলেও সরকার ৪ অক্টোবর থেকে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। ফলে রফতানিকারকরা কীভাবে এত ইলিশ এ সময়ের মধ্যে রফতানি করবে সেটাই ভাবনার বিষয়।

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমান জানান, বেনাপোল বন্দর দিয়ে ইলিশ রফতানির তৃতীয় চালান ভারতে গেছে। তিন চালানে গেলো ৪৯৮ মেট্রিক টন ইলিশ। দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে কাস্টমসের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের।


আরও খবর
নাটকীয় উত্থানে ঘুরে দাঁড়াল পুঁজিবাজার

বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর 20২১




নাজিরপুরে কালীগঙ্গা নদীর অতুলনগরে হচ্ছে সেতু : এলাকাবাসীর উচ্ছ্বাস

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১৫২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার কালীগঙ্গা নদীর ওপর সেতু নির্মিত হচ্ছে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব আব্দুল্লাহ-আল- মাসুদ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে তা জানানো হয়েছে। সেতু নির্মাণের আগাম এ খবরে এলাকাবাসীর মনে আনন্দ যেন বাধ মানছে না।

পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এ সংক্রান্ত চিঠিটি তার ফেসবুকে শেয়ার করেন। সেখানে সেতুর বিষয়ে মন্ত্রী জানান, গত ৫ সেপ্টেম্বর তিনি পিরোজপুর-গোপালগঞ্জ-ঢাকা মহাসড়কের চেইনেজ ৩ হাজার ১৫০ মিটার অংশে পার্শ্ববর্তী কালিগঙ্গা নদীর উপর অতুলনগর ঘাটে ১ হাজার মিটার ব্রিজ নির্মাণের ডিও লেটার দিয়েছন তিনি। মূলত তার প্রচেষ্টাতেই এই সেতু হতে যাচ্ছে বলে স্থানীয় জনসাধারণ জানিয়েছেন।

অন্যদিকে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের ওই চিঠিতে কালিগঙ্গা নদীর উপর অতুলনগর ঘাটে ব্রিজ নির্মাণের ফিজিবিলিটি ষ্টাডি করে প্রতিবেদন প্রেরণ করতে বলা হয়েছে।

বহু আকাঙ্ক্ষিত এ সেতু নির্মাণের খবরে উচ্ছ্বাস বইছে স্থানীয়দের মাঝে। মালিখালী এলাকার বাসিন্দা কৃষ্ণবসু জানান, কালীগঙ্গা নদীর (উপর অতুল নগর এলাকায়) সেতু হচ্ছে এটা খুবই আনন্দের সংবাদ। এ নদীটি পারাপারে আমাদেরকে খেয়ার ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। বর্ষাকালে এ নদী খুবই উত্তাল থাকে। খেয়া পার হতে গিয়ে অনেক সময় নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে।

মালিখালী ইউনিয়নের ৪ নং মালিখালী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য তপন মন্ডল বলেন, মালিখালী এলাকার মানুষের রোগব্যাধি হলে চিকিৎসা করাতে যেতে হয় টুঙ্গিপাড়ায়। সেতু হলে তারা নাজিরপুরে চিকিৎসা করাতে যেতে পারবেন। তাই সেতু হচ্ছে এ খবর আমাদের জন্য খুবই আনন্দের।


আরও খবর