আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

সাকিব করোনা পজেটিভ, অনিশ্চিত চট্টগ্রাম টেস্টে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৪৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আবারও সাকিব আল হাসানকে দলে পাওয়া নিয়ে শঙ্কা জেগেছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরার পর করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফর অসমাপ্ত রেখেই পরিবারের সদস্যদের অসুস্থতার কারণে দেশে ফিরে এসেছিলেন সাকিব। তারপর তিনি উড়াল দিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের পক্ষে কিছু ম্যাচও খেলেছিলেন তিনি। তারপর আবারও যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের কাছে ছুটেছিলেন সাকিব।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজের দলে আছেন সাকিব। ফলে এই সিরিজ খেলতে আবারও দেশে ফেরেন তিনি। রবিবার (৯ মে) দেশে আসেন সাকিব। তারপর দুই দফা করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছে তার। দুইবারই পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন সাকিব। বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বিসিবির নির্ভরযোগ্য সূত্র।

প্রধানমন্ত্রীর সাথে আগামীকাল (১১ মে) একটি ক্রীড়া অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার কথা ছিল এই অলরাউন্ডারের। কিন্তু করোনা পজিটিভ হওয়ায় এখন আর সেখানে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই। বরং এখন চট্টগ্রাম টেস্টে খেলা নিয়েই তৈরি হয়েছে শঙ্কা।

আসন্ন এই সিরিজের প্রথম ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে সাগরিকা খ্যাত চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে, যে ম্যাচ শুরু হবে ১৫ মে। এই ম্যাচ শেষে দুই দল পাড়ি জমাবে রাজধানী ঢাকায়। হোম অব ক্রিকেট খ্যাত মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুই ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট মাঠে গড়াবে ২৩ মে।


আরও খবর



টিকটক ব্যবহারকারীদের জন্য সুসংবাদ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | ৪৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এখন থেকে টিকটকের রাজস্বের অংশ পাবেন নির্মাতারা। বুধবার এই সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করে যে, জনপ্রিয় টিকটক নির্মাতাদের সঙ্গে বিজ্ঞাপন রাজস্বের একটি অংশ শেয়ার করা হবে।

সংক্ষিপ্ত-ভিডিও ফরম্যাটের অ্যাপটি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এক শ কোটিরও বেশি সক্রিয় ব্যবহারকারী নিয়ে বিশ্বব্যাপী তুমুল জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। যদিও টিকটক নির্মাতাদের ঠিক উপায়ে অর্থ প্রদান না করার জন্য সমালোচিত হয়েছে প্ল্যাটফর্মটি।

টেক এক্সপ্লোরের প্রতিবেদনে জানা যায়, নতুন টিকটক পালস প্রোগ্রামের অধীনে হেলথ, ফ্যাশন, রান্না, গেমিং এবং অন্যান্য নির্দিষ্ট বিভাগে ব্যবহারকারীর বিষয়বস্তুর পাশে বিজ্ঞাপন রাখা যাবে। এবং নির্মাতারা এই বিজ্ঞাপন থেকে অর্জিত রাজস্বের একটি অংশ পাবেন।

টিকটকের সহযোগী সংস্থা চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান বাইটড্যান্স এক বিবৃতিতে জানায়, আমরা নির্মাতা, পাবলিক ব্যক্তিত্ব এবং মিডিয়া প্রকাশকদের সঙ্গে প্রথমে আমাদের বিজ্ঞাপনের রাজস্ব শেয়ারের বিষয়টি পরীক্ষামূলক ভাবে প্রয়োগ করব।

বাইটড্যান্স আরও জানায়, আমরা মনিটাইজেশনের বিষয়ে মনোনিবেশ করছি যাতে নির্মাতারা টিকটকে নিজেদের মূল্যবান এবং সম্মানিত বোধ করেন।

টিকটক বলছে, প্রথম পর্যায়ে একটি অ্যাকাউন্টে অন্তত ১ লাখ সাবস্ক্রাইবার হলে মনিটাইজেশন পরিকল্পনার জন্য যোগ্য হবে।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালে টিকটক আনুমানিক ৪৬০ কোটি ডলার আয় করেছে। এই সংখ্যা আগের বছরের রাজস্বের দ্বিগুণেরও বেশি।

ভিডিওতে ফোকাস করে প্রতিষ্ঠিত এমন অন্যান্য সোশ্যাল নেটওয়ার্ক যেমন ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম এবং স্ন্যাপচ্যাট ইতিমধ্যেই ব্যবহারকারীদের সঙ্গে রাজস্ব শেয়ারের বিষয়টি চালু করেছে।


আরও খবর



গর্ভপাত অবৈধ হচ্ছে আমেরিকায়

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গর্ভপাত অবৈধ হতে চলেছে আমেরিকায়। সুপ্রিম কোর্টের সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারপতি এই মর্মে একটি খসড়া প্রস্তাবে সই করেছেন বলে দাবি আমেরিকার প্রথম সারির একটি সংবাদ সংস্থার। এই প্রস্তাব গৃহীত হলে পাল্টে যাবে গর্ভপাত সংক্রান্ত সে দেশের প্রায় অর্ধশতক পুরনো আইন।

১৯৭৩-এ রো ভার্সেস ওয়েড মামলায় সুপ্রিম কোর্টের তৎকালীন বিচারপতিরা রায় দিয়েছিলেন, কেন্দ্রীয় বা প্রাদেশিক সরকার গর্ভপাত নিষিদ্ধ করতে পারে না। কিছু শর্ত আরোপ করতে পারে মাত্র। এক জন মহিলার নিজের দেহের উপরে একশো শতাংশ নিয়ন্ত্রণ রাখার অধিকার রয়েছে। তাই সরকারি নিষেধাজ্ঞার চোখরাঙানি এড়িয়ে তাঁরা গর্ভপাত করাতেই পারেন। সেই থেকে আমেরিকার প্রতিটি প্রদেশে গর্ভপাতে অনুমতি দেওয়া হয়।

সব থেকে কড়া শর্ত রয়েছে টেক্সাসে। সেখানে গর্ভসঞ্চারের ছসপ্তাহের পরে আর গর্ভপাত করানো যায় না। কিন্তু ক্যালিফর্নিয়ার মতো প্রদেশে পরিস্থিতি বুঝে যখন হোক গর্ভপাত করানোর অনুমতি দেওয়া রয়েছে। আমেরিকান সংবাদ সংস্থাটির দাবি, সুপ্রিম কোর্টের খসড়া প্রস্তাবে ১৯৭৩-এর সেই রায় সম্পূর্ণ খারিজ করে বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি মানুষের নয়, গর্ভপাত সম্বন্ধে বলার অধিকার রয়েছে শুধু সরকারের।

প্রবল দক্ষিণপন্থী বিচারপতি স্যামুয়েল অ্যালিটোর লেখা এই খসড়া প্রস্তাব গৃহীত হলে আগামী এক মাসের মধ্যে কম পক্ষে ২৬টি প্রদেশে গর্ভপাত সম্পূর্ণ অবৈধ হয়ে যাবে বলে মত আইন বিশেষজ্ঞদের। শুধু তা-ই নয়, চাইলে সেই প্রদেশ থেকে সীমানা পেরিয়ে অন্য প্রদেশে গিয়ে গর্ভপাত করানোর বিষয়েও নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারে প্রাদেশিক সরকারগুলি।

দিন কয়েক আগেই সুপ্রিম কোর্টের প্রথম মহিলা কৃষ্ণাঙ্গ বিচারপতি হিসেবে কেটানজি ব্রাউন জ্যাকসনের নাম মনোনীত করেছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। কিন্তু এখনও দেশের শীর্ষ আদালতের সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারপতিই দক্ষিণপন্থী রিপাবলিকান এবং তাঁরা বরাবরই গর্ভপাতকে আইনি স্বীকৃতি দেওয়ার বিরুদ্ধে।

ওই দক্ষিণপন্থী বিচারপতিদের মধ্যে অন্তত তিন জন আবার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। এই খসড়া প্রস্তাব লিখেছেন যে বিচারপতি স্যামুয়েল অ্যালিটো তাঁকে আবার মনোনীত করেছিলেন প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ জুনিয়র। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজেও গর্ভপাতের বিরুদ্ধে আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন এবং গর্ভপাত যে অবিলম্বে অবৈধ ঘোষণা করা উচিত, সেই মর্মে একাধিক বক্তৃতাও দিয়েছেন।

আদালতের এই খসড়া প্রস্তাব প্রকাশ্যে আসার পরে সরব হয়েছেন ডেমোক্র্যাটেরা। আজ প্রেসিডেন্ট বাইডেনের তরফে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউস। সেখানে বলা হয়েছে, আদালত যদি সত্যিই (গর্ভপাত বিষয়ে) রো-র সিদ্ধান্ত নাকচ করে দেয়, তা হলে মহিলাদের অধিকার রক্ষা করার দায়িত্ব এসে পড়বে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের উপরে। হাউস ও সেনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিনিধি যদি গর্ভপাতের পক্ষে রায় দেন, তা হলে আমার প্রশাসন নতুন আইন আনার জন্য লড়ে যাবে।

হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার, প্রবীণ ডেমোক্র্যাট নেত্রী ন্যান্সি পেলোসি এবং সেনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা চাক শুমার একটি যৌথ বিবৃতি দিয়ে বলেছেন, এই রিপোর্ট সত্য হলে, এটি সুপ্রিম কোর্টের অন্যতম জঘন্য সিদ্ধান্ত হবে। শুধু মহিলাদের নয়, এই সিদ্ধান্ত প্রতিটি দেশবাসীর অধিকার খর্ব করবে। রিপাবলিকানদের নিয়োগ করা বিচারপতিদের এই পদক্ষেপের কঠোর বিরোধিতা করছি। গোটা রিপাবলিকান দলের সমালোচনা করে এই বিবৃতিতে উল্লেখ, লিঙ্কন ও আইজেনহাওয়ারের দল এখন ট্রাম্পের দলে পর্যবসিত হয়েছে। যে সব রিপাবলিকান সেনেটর ট্রাম্প-পন্থী বিচারপতিদের মনোনয়নে সায় দিয়েছিলেন, আমেরিকার মানুষের কাছে তাঁরা জবাব দিন।


আরও খবর



গরমে বেশি করে শশা খাচ্ছেন? কী সমস্যা হতে পারে

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | ৪৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাথার উপর গ্রীষ্মের কড়া রোদ। বেশি আর্দ্রতার কারণে ঘাম হচ্ছে বেশি। গরমে শরীর ঠান্ডা রাখতে প্রক্রিয়াজাত পানীয়ের বদলে ভরসা রাখতে পারেন এমন ফলে, যাতে পানি বেশি। গরমকাল এলে যে সব ফলের কদর বাড়ে, শশা তার মধ্যে অন্যতম। স্বাস্থ্যসচেতন যাঁরা, তাঁরা সারা বছরই খাবারের তালিকায় শশা রাখেন। শশা সুস্বাদু। আবার স্বাস্থ্যকরও। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন কে এবং অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট। কিন্তু সঠিক সময়ে ও পরিমাণে না খেলে বিভিন্ন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। হতে পারে বদহজমও।

বেশি শশা খেলে কী সমস্যা দেখা দিতে পারে?

শশা নিঃসন্দেহে স্বাস্থ্যকর একটি ফল। কিন্তু স্বাস্থ্যকর হলেও প্রয়োজনের অতিরিক্ত কোনও কিছুই খাওয়া ভাল নয়। শশাতে প্রায় ৯৫ শতাংশ জল থাকে। তাই বেশি পরিমাণে শশা খেলে পেট ফেঁপে যেতে পারে। শরীর আর্দ্র রাখতে শশা খাওয়া যেমন ভাল, তেমনই বেশি শশা খেলে শরীর থেকে জল বেরিয়ে যেতে পারে

শশা খাওয়ার নির্দিষ্ট কোনও সময় আছে কি?

শশা বলে নয়, যে কোনও ফল খাওয়ারই নির্দিষ্ট সময় আছে। রাতে শশা যথাসম্ভব এড়িয়ে চলাই ভাল। শশা এমনি হজম করতে সাহায্য করে। কিন্তু রাতে বেশি শশা খেলে বদহজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। শরীরের অন্দরে কোনও সমস্যা হলে ব্যাঘাত ঘটে ঘুমেরও। ভারী কোনও খাবারের সঙ্গে শশা না খাওয়াই ভাল। সন্ধেবেলায় যদি কোনও ভারী খাবার খান, সে ক্ষেত্রে খাওয়ার কিছু ক্ষণ পর শশা খেয়ে নিতে পারেন। এতে হজম ভাল হবে। শশা হজমে সহায়তা করে। কিন্তু শশা নিজে হজম হতে সময় নেয়। ঘুমতে যাওয়ার অন্তত ৩-৪ ঘণ্টা আগে শশা খেয়ে নেওয়া জরুরি। আর সবচেয়ে জরুরি হল একসঙ্গে শশা না খেয়ে, সারা দিনে অল্প অল্প করে শশা খাওয়া। তা হলে সমস্যা কম হবে।

নিউজ ট্যাগ: শশা

আরও খবর



বগুড়ায় ঝড়ে প্রায় ৫ শতাধিক পাখির মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ২১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ২০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বগুড়ায় ৪ মিনিটের ঘূর্ণিঝড়ে শহরের পৌরপার্কসহ বিভিন্নস্থানে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় পাঁচ শতাধিক পাখির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২১ মে) ভোর রাত ৪টার দিকে বগুড়া জেলার ওপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় বয়ে যায়।

ঝড়ের কবলে পড়ে বিভিন্ন এলাকায় পাঁচ শতাধিক বিভিন্ন প্রজাতির পাখি মারা গেছে। এরমধ্যে শহরের পৌর পার্কে মারা গেছে তিন শতাধিক পাখি। মারা যাওয়া পাখিগুলোর মধ্যে দাঁড় কাক, পাতি কাক, গো শালিক, টিয়া, বক রয়েছে।

শনিবার (২১ মে) দুপুরে পৌর পার্কে গিয়ে দেখা গেছে, পৌরসভার মালি আব্দুল মজিদ ও আজাহার আলী মারা যাওয়া পাখিগুলো মাটিতে গর্ত করে পুতে রাখছেন। তারা জানান, সকাল থেকে পার্কের আনাচে কানাচে পড়ে থাকা তিন শতাধিক পাখির মরদেহ তারা মাটিতে গর্ত করে পুতে রাখছেন।

এদিকে শিক্ষার্থীদের পরিবেশ বাদী সংগঠন টিম ফর এনার্জি এন্ড ইনভায়রনমেন্ট রিসার্চ (তীর) বগুড়া শাখার সাধারণ সম্পাদক রিফাত হাসান বলেন, পৌর পার্ক ছাড়াও বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাসসহ বিভিন্ন স্থানে আরও দুই শতাধিক পাখি ঝড়ের কবলে পড়ে মারা গেছে।

তিনি বলেন, ঝড় কিছুটা কমলে তীরের সদস্যরা আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাস, গাবতলী উপজেলা এবং নাটাইপাড়া এলাকার একটি গোরস্থান থেকে ভুবন চিল, শালিকসহ বিভিন্ন প্রজাতির বেশ কয়েকটি পাখি অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করেন। পরে পাখিগুলোর পরিচর্চা করে অবমুক্ত করা হয়। আরও কয়েকটি পাখির পরিচর্চা করছেন তীরের সদস্যরা।

তিনি আরও বলেন, এই সময়টা পাখিদের বাচ্চা লালন পালন করার সময়। ঝড়ের কবলে পাখির বাচ্চা মারা যাওয়ার পাশাপাশি পাখিদের বাসা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।


আরও খবর



গুলিস্তানের হকার্স মার্কেটের অবৈধ দোকান উচ্ছেদ অভিযান

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর গুলিস্তানের বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ হকার্স মার্কেটে অবৈধ দোকান উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনা করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)।

আজ রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গুলিস্তানের হকার্স মার্কেটের ১৪৭টি অবৈধ অস্থায়ী দোকান উচ্ছেদে অভিযান শুরু করে ডিএসসিসি।

উচ্ছেদ অভিযানটি পরিচালনা করছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মুনিরুজ্জামান। তিনি বলেন, আগে বারবার নোটিশ দেওয়া হয়েছিল এসব ফাঁকা করার জন্য। এরই ধারাবাহিকতায় আজ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। আজ হকার্স মার্কেটের ১৪৭টি অবৈধ দোকান উচ্ছেদ করতে আমরা অভিযান পরিচালনা করছি।

এদিকে দোকানমালিকেরাও জানিয়েছেন, এর আগে তাঁদের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে মার্কেটের তানজিল ফ্যাশন নামের দোকানমালিক আব্দুল মালিক বলেন, আগে নোটিশ দিয়েছে, কিন্তু আমরা বুঝিনি যে আজই উচ্ছেদ অভিযানে আসবেন তাঁরা। তাঁদের উপস্থিতি দেখে আমরা দোকানের মালামাল সরিয়ে নিচ্ছি।

তবে মা খেলা ঘর নামের একটি দোকানের মালিক ইব্রাহিম বলেন, আমাদের আগে কিছু জানানো হয়নি। ঈদ করে কাল গ্রাম থেকে আমরা ফিরেছি। আজ এখানে সিটি করপোরেশনের লোকজন এসেছে, আমরা মালামাল সরিয়ে নিয়েছি। কিন্তু আমাদের বেশি সময় দেওয়া হয়নি।

নিউজ ট্যাগ: ডিএসসিসি

আরও খবর