আজঃ সোমবার ২৩ মে ২০২২
শিরোনাম

সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে হবে ২০২৩ সালের এসএসসি ও এইচএসসি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৪৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

২০২৩ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের ২০২২ সালের পুনর্বিন্যাস করা পাঠ্যসূচি অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব কমিটি এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

এতে বলা হয়েছে, ২০২৩ সালের এসএসসি ও সমমান এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) ২০২২ সালের পুনর্বিন্যাস করা পাঠ্যসূচি অনুযায়ী সব বিষয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

এসএসসি পর্যায়ে আইসিটি পরীক্ষার পূর্ণনম্বর ৫০ এবং অন্যান্য প্রতিটি বিষয়ে তিন ঘণ্টা সময়ে ১০০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এইচএসসি পর্যায়ে প্রতিটি বিষয়ে তিন ঘণ্টা সময়ে ১০০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ২০২৩ সালের এসএসসি ও সমমান এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা সব বিষয়ে অনুষ্ঠিত হবে। দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানকে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছ।


আরও খবর



ভারত-পাকিস্তানে তীব্র তাপদাহ, রেড অ্যালার্ট জারি

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৩৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তীব্র দাবদাহে নাকাল ভারত ও পাকিস্তানের বহু মানুষ। ভারতে বিশেষ করে দেশটির উত্তরাঞ্চলের অনেক জায়গায় তাপমাত্রা ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়েছে। দিল্লির তাপমাত্রা উঠেছে ৪৭ ডিগ্রি পর্যন্ত। এমনকি জম্মুর মতো শহরেও ৪৩ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। একই সঙ্গে পাকিস্তানেও চলছে তীব্র দাবদাহ। দেশটির সিন্ধু প্রদেশের জ্যাকোবাবাদে তাপমাত্রা ঠেকেছে ৫১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। তীব্র দাবদাহে দুই দেশেই মানুষের মৃত্যুর খবরও পাওয়া যাচ্ছে। খবর এনডিটিভি ও জিও নিউজের।

ভারত

ভারতের মরুরাজ্য হিসেবে খ্যাত রাজস্থানের বেশ কিছু জেলায় রেড অ্যালার্ট জারি হয়েছে। রাজ্যটির ধোলপুর জেলাতে গতকাল রবিবার ৪৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। একই দিন দিল্লির মুঙ্গেশপুর ৪৭ দশমিক ২ ও নাজাগড়ের তাপমাত্রা ছিল ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ভারতের আবহাওয়া সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, গতকাল ভারতের রাজধানী শহর দিল্লির প্রতিটি আবহাওয়া দপ্তর থেকে সংশ্লিষ্ট এলাকায় দাবদাহের কথা জানানো হয়েছে।

দেশটির আবহাওয়াবিদেরা বলছেন, আজ সোমবার তাপমাত্রা আরও বাড়বে। তাই মানুষকে সতর্ক করতে তাঁরা অরেঞ্জ অ্যালার্ট জারি করেছে। চলতি গ্রীষ্মকালে দিল্লিতে পঞ্চমবারের মতো দাবদাহ চলছে। ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর আবহাওয়া পরিস্থিতি বিবেচনায় চার ধরনের সতর্কতা জারি করে থাকে। এগুলো হলো সবুজ (কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার প্রয়োজন নেই), হলুদ (পরিস্থিতি নজরে রেখে হালনাগাদ থাকা), কমলা (প্রস্তুত থাকা) ও লাল সংকেত (পদক্ষেপ নিতে হবে)।

গত এপ্রিলে ১৯৫১ সালের পর দ্বিতীয় উষ্ণতম এপ্রিল দেখেছে দিল্লি। এপ্রিলে দিল্লির গড় তাপমাত্রা ছিল ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানীর কর্মকর্তারা বলছেন, পানি শোধনাগারগুলোর উৎপাদন ৮৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। দিল্লির জল বোর্ডের (পানিবিষয়ক বোর্ড) কর্মকর্তারা বলছেন, এরই মধ্যে তাঁরা পানি রেশন দেওয়া শুরু করেছেন।

এদিকে রাজস্থানের ২৩ শহরে গতকাল তাপমাত্রা ছিল ৪৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি। আজ রাজ্যের চারটি জেলায় রেড অ্যালার্ট জারি করেছে আবহাওয়া দপ্তর। রাজস্থানের আরও ১২টি শহরে জারি করা হয়েছে অরেঞ্জ অ্যালার্ট। ভারতের মধ্যে এখন রাজস্থানের মানুষ তীব্র দাবদাহে সবচেয়ে বেশি ভুগছেন।

সর্বোচ্চ ৪৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা নিয়ে হরিয়ানা ও গুরুগাঁও ছিল সবচেয়ে উষ্ণতম স্থান। এ ছাড়া অনেক শহরে তাপমাত্রা ৪৪ থেকে ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত উঠেছে। পাঞ্জাব ও হরিয়ানার যৌথ রাজধানী হিসেবে পরিচিত চণ্ডীগড় শহরে তাপমাত্রা ৪৩ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। পাঞ্জাবের ভাতিন্ডায় তাপমাত্রা ছিল ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অমৃতসর থেকে শুরু করে অন্য শহরগুলোতে ৪৪ থেকে ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপমাত্রা ছিল।

জম্মু-কাশ্মীরের জম্মু শহরে এই মৌসুমের উষ্ণতম দিন রেকর্ড করা হয়েছে গতকাল। শহরটির তাপমাত্রা ছিল ৪৩ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। জম্মু ও কাশ্মীরের অনেক জায়গায় তাপমাত্রা বেড়ে গেছে। তৈরি হয়েছে দাবদাহ। অথচ চলতি মৌসুমে জম্মু শহরের গড় তাপমাত্রা ছিল মাত্র ৬ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। জম্মু ও কাশ্মীরের সবচেয়ে বড় শহর শ্রীনগরের তাপমাত্রাও অনেকটা বেড়েছে। গতকাল ৩১ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় শহরটিতে। স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে এমন তাপমাত্রা ৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি। কর্মকর্তারা ইঙ্গিত দিচ্ছেন, উপত্যকার বিভিন্ন অংশে এরই মধ্যে একটি দাবদাহ শুরু হয়েছে।

পাকিস্তান

পাকিস্তানজুড়ে গরমজনিত বিভিন্ন রোগে মৃত্যুর খবর জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম জিও নিউজ। বিশেষ করে সিন্ধু ও পাঞ্জাব প্রদেশে মারাত্মক দাবদাহ শুরু হয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন, শনিবার সিন্ধুর জ্যাকোবাবাদের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৫১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। প্রদেশটির অন্যান্য স্থানের পরিস্থিতিও একই। প্রদেশটির বাসিন্দাদের কেউ কেউ বলছেন, দীর্ঘায়িত খরা ও নিরাপদ পানীয়র সংকটে নিরুপায় হয়ে গরম থেকে বাঁচতে দূষিত পানি পান করতে বাধ্য হচ্ছেন তাঁরা।

পাকিস্তানের আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, সিন্ধু প্রদেশের তিনটি শহরে গতকালও তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা এর বেশি ছিল। এদিন জ্যাকোবাবাদে তাপমাত্রা ছিল ৫১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া প্রদেশের নবাবশাহ শহরে ৫০ দশমিক ৫ ও মহেঞ্জোদারো শহরে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। এদিকে প্রাদেশিক রাজধানী করাচিতে গতকাল ছিল বছরের দ্বিতীয় উষ্ণতম দিন। এদিন করাচির তাপমাত্রা ৪২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যায়।

এর আগে দেশটির আবহাওয়া বিভাগের পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, ১২ থেকে ১৫ মে দাবদাহ আরও বাড়তে পারে। আবহাওয়া বিভাগের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দেশের বেশির ভাগ অংশে দাবদাহ চলছে। আবহাওয়া দপ্তর থেকে সতর্ক করে বলা হয়, দাবদাহের কারণে শিশু ও প্রবীণেরা সবচেয়ে ভোগান্তিতে পড়বেন।

পাঞ্জাবের অনেক শহরে দিনের বেলার তাপমাত্রা অসহনীয় হয়ে উঠেছে। স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, এমন দাবদাহের মধ্যে লাহোরের অনেক মানুষকে ঘরের বাইরে থাকতে হয়। পানিস্বল্পতার কারণে তারা নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। দাবদাহের কারণে অসুস্থ হয়ে পড়া অনেককে হাসপাতালেও ভর্তি হতে হচ্ছে। ইসলামাবাদের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ সতর্ক করেছে, দেশের বিভিন্ন অংশে উচ্চ তাপমাত্রায় হৃদ্‌রোগ ও পানিবাহিত রোগীর ঝুঁকি বাড়তে শুরু করেছে।


আরও খবর



করোনা: বিশ্বজুড়ে কমছে সংক্রমণ ও মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা আরও কমেছে। একইসঙ্গে আগের দিনের তুলনায় কমেছে নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা নেমেছে প্রায় দেড় হাজারে। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা নেমে এসেছে সাড়ে ৫ লাখের নিচে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে রাশিয়া। প্রাণহানির তালিকায় এরপরই রয়েছে জার্মানি, দক্ষিণ কোরিয়া, ইতালি, থাইল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্র। এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫০ কোটি ৯০ লাখের ঘর। অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬২ লাখ ৪১ হাজার।

রোববার (২৪ এপ্রিল) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৫৩৬ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে প্রায় এক হাজার। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬২ লাখ ৪১ হাজার ৮৬৫ জনে।

একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৪৮ হাজার ১৯৩ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে ১ লাখের বেশি। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ কোটি ৯০ লাখ ৬৩ হাজার ৫৪৩ জনে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৯ হাজার ৬৬৫ জন এবং মারা গেছেন ১৫৩ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে ইউরোপের এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৪১ লাখ ৯ হাজার ৪৩৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬২৪ জন মারা গেছেন।

অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে রাশিয়া। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৭১ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৮ হাজার ৮২৯ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৮১ লাখ ২৮ হাজার ৬৯১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৭৪ হাজার ৭৩৪ জনের।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



সাহরির আগ পর্যন্ত চলে কেনাকাটা

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৫০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আসন্ন ঈদুল ফিতর সামনে রেখে চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন মার্কেটে জমে উঠেছে কেনাকাটা। নগরীর জহুর হকার্স মার্কেটে প্রত্যেক দিন সকাল থেকে মধ্যরাতে সাহরির আগ পর্যন্ত ভিড় করছেন ক্রেতারা। ঈদের দিন যত ঘনিয়ে আসছে, ক্রেতাদের ভিড়ও বাড়ছে। দোকানিরা বলছেন, ২০ রোজার পর থেকে দম ফেলার সুযোগ পাচ্ছেন না। শেষ রোজা পর্যন্ত এভাবে চললে গত দুই বছর করোনার কারণে যে ক্ষতি হয়েছে, তা পুষিয়ে লাভের মুখ দেখতে পারবেন তারা।

সরেজমিনে জহুর হকার্স মার্কেটে গিয়ে দেখা গেছে মাঝরাতেও নানা শ্রেণি-পেশার অসংখ্য ক্রেতা কেনাকাটা করছেন। এ মার্কেটের পাঁচ শতাধিক দোকানে ব্যবসায়ীরা নিত্যনতুন ব্র্যান্ডের শার্ট, প্যান্ট, গেঞ্জি, টি-শার্টসহ বিভিন্ন পোশাক সাজিয়ে রেখেছেন। নারী-পুরুষ ও শিশুদের পোশাকের তুলনামূলক দাম কম হওয়ায় এ মার্কেটের প্রতি বরাবরই সবার আগ্রহ বেশি থাকে। ক্রেতাদের বাড়তি চাপ সামালাতে দোকানে বিক্রয়কর্মীও বাড়িয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এ হকার্স মার্কেটে ৩০০ থেকে ৭০০ টাকার মধ্যে শার্ট, প্যান্ট, টি-শার্ট ও গেঞ্জি পাওয়া যায়। আবার মানভেদে অনেক পোশাক ১ হাজার টাকায়ও বিক্রি হচ্ছে। ছেলেমেয়েকে নিয়ে হকার্স মার্কেটে কেনাকাটা করতে আসা হাফিজুল আহমদ জানান, ছেলেমেয়ে ও আত্মীয়স্বজনদের জন্য ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন তিনি। দিনে ব্যস্ত থাকতে হয় বলে রাতে এসেছেন। গত দুই বছর করোনার কারণে তেমন কেনাকাটা করা হয়নি। প্রতি বছর এ মার্কেট থেকেই কেনাকাটা করেন। এখানে কাপড়ের দাম একটু কম। তবে এবার কাপড় অনুসারে দোকানিরা দাম কিছুটা বেশি নিচ্ছেন বলে জানান তিনি।

ফাহিমা সরকার নামে এক গৃহবধূ জানান, অন্যান্য মার্কেটের চেয়ে হকার্স মার্কেটে পোশাক কম দামে পাওয়া যায়। তা ছাড়া অন্যান্য মার্কেট আগেভাগে বন্ধ হয়ে গেলেও এটি চলে সারা রাত। এজন্য পরিবারের সবার জন্য পোশাক কিনতে এসেছেন বলে জানান তিনি। বিক্রয়কর্মী শাহেদ আহমেদ জানান, ১০ রোজা পর্যন্ত বেচাকেনা একেবারেই ছিল না। তবে ১৫ রোজার পর থেকে মানুষ আসছেন। বেচাকেনাও খুব ভালো হচ্ছে। আশা করছি করোনায় দুই বছর যে ব্যবসায়িক ধাক্কা খেয়েছি, তা এবার পুষিয়ে যাবে। তবে এবার ক্রেতারা একটু বেশি দর কষাকষি করছেন বলে অভিযোগ তার।

চট্টগ্রামের সম্মিলিত হকার্স ফেডারেশনের সভাপতি মিরন হোসেন মিলন জানান, করোনা সংক্রমণ তেমন না থাকায় এবার মানুষ বাইরে বের হচ্ছেন। মার্কেটগুলোতে ভালো বেচাকেনা হচ্ছে। জহুর হকার্স মার্কেটের ছোট-বড় পাঁচ শতাধিক দোকানে ১৫ রোজার পর থেকে ক্রেতা ঠেলে নড়ানো যাচ্ছে না। সাহরির আগ পর্যন্ত বিকিকিনি চলছে। ঈদ উপলক্ষে ব্যবসায়ীরা দোকানে বিক্রয়কর্মী বাড়িয়েছেন। তারা পালাক্রমে দায়িত্ব পালন করছেন। এমন বেচাবেনা চাঁদরাত পর্যন্ত চলবে বলে আশা করছেন তিনি।

নিউজ ট্যাগ: চট্টগ্রাম

আরও খবর



ইসরায়েলে 'সন্ত্রাসী' হামলায় ৩ জন নিহত

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | ৩৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইসরায়েলে তেল আবিবের কাছে ইলাদ শহরে সন্ত্রাসী হামলায় কমপক্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও চারজন। আহতদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বৃহস্পতিবার (৫ মে) ইসরায়েলে স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের দিন রাতে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ।

ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের দাবি, দু’জন ফিলিস্তিনি এ হামলা চালিয়েছে। তারা আক্রমণ করার পর গাড়িতে করে পালিয়ে যায়। পুলিশ ওই এলাকার সব রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে তাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ঊর্ধ্বতন নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার পর বলেছেন, আমরা সন্ত্রাসীদের এবং তাদের সহায়কদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব, এর চরম মূল্য দিতে হবে।

ইলাদ শহরের মেয়র ওই অঞ্চলের সব অধিবাসীদের ঘরে অবস্থান করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। কারণ এখনো এলাকাটিতে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযান চলছে।


আরও খবর



কানাডায় প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড়, ৯ লাখ বাড়িঘর বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন

প্রকাশিত:রবিবার ২২ মে 20২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২২ মে 20২২ | ২০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কানাডার পূর্বাঞ্চলীয় অন্টারিও ও কুইবেক প্রদেশে প্রবল ঝড়ের কারণে ৪ জনের মুত্যু এবং প্রায় ৯ লাখ বাড়িঘর বিদ্যুতহীন হয়ে পড়েছে। এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

অন্টারিও পুলিশ টুইটারে বলেছে, গ্রীষ্মকালীন শক্তিশালী বজ্রঝড়ের কারণে তিন জনের মৃত্যু এবং আরো অনেকে আহত হয়েছে। গাছ উপড়ে পড়ে ট্রেলারের ওপর দাঁড়ানো এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে, সত্তোরোর্ধ এক নারী হাঁটার সময় গাছ ভেঙ্গে পড়লে তার মৃত্যু হয় এবং অটোয়ায় ঝড়ের কবলে পড়ে আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে। অপর এক পঞ্চাশোর্ধ নারী অটোয়া নদীতে ঝড়ের মধ্যে নৌকা ডুবিতে মারা গেছে।

স্থানীয় বিদ্যুৎ সরবরাহকারী হাইড্রো ওয়ান এবং হাইড্রো কুইবেক জানায়, শনিবার রাতে দুই প্রদেশের প্রায় ৯ লাখ বাড়িঘর বিদ্যুতহীন হয়ে পড়ে।


আরও খবর