আজঃ রবিবার ২৪ অক্টোবর ২০২১
শিরোনাম

সুন্দর ত্বক পেতে দূর করুন ৪ বদভ্যাস

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | ৫২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নরম, কোমল ও মসৃণ ত্বক কে না চায়। কিন্তু পরিবেশ দূষণ, খাদ্যাভ্যাস, অযত্ন ও অস্বাস্থ্যকর জীবন যাপনের কারণে ত্বক কোমলতা হারায়। ফলে অকালে ত্বকে পড়ে বার্ধক্যের ছাপ।

কিছু খারাপ অভ্যাস আপনার ত্বকে অকালবার্ধক্যের লক্ষণগুলো ফুটিয়ে তোলে। ভারতের জীবনধারা ও স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাইয়ের প্রতিবেদন অনুযায়ী আজ আমরা চারটি গুরুতর বদভ্যাসের কথা জানব। এগুলো এড়ালে ফিরে পাবেন আপনার ত্বকের জেল্লা।

ধূমপান

ধূমপান যে ক্ষতিকর, এ কথা আমরা সবাই জানি। তবু আমরা সহজে এ বদভ্যাস ত্যাগ করতে পারি না। কিন্তু ত্বকের জেল্লা ফিরে পেতে এবং অকালবার্ধক্য রুখতে আপনাকে অবশ্যই ধূমপান ত্যাগ করতে হবে। ধূমপানের ফলে ত্বকের কোলাজেন ও ইলাস্টিন প্রোটিন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাছাড়া এটি ত্বকের স্বাভাবিক বার্ধক্যের প্রক্রিয়াকেও গতিশীল করে তোলে। এর কারণে অকালে ত্বকে বলিরেখা লক্ষ করা যায়। তাই দ্রুত এ বদভ্যাস ত্যাগ করুন।

অ্যালকোহল

অ্যালকোহল শরীরের জন্য খুব ক্ষতিকর। তাই মদপানের অভ্যাস থাকলে এখনই ছাড়ুন। অ্যালকোহল শরীরকে ডিহাইড্রেট করে এবং শরীরে ভিটামিন এ-এর মাত্রা কমিয়ে দেয়। ফলে অকালে ত্বকের তারুণ্য হারিয়ে যায়। এ বদভ্যাস যত দ্রুত পারেন দূর করুন।

অনিদ্রা

সুস্বাস্থ্যের জন্য পর্যাপ্ত ঘুম দরকার। অনিদ্রার কারণে চোখের নিচে কালশিটে পড়ে যায়। পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবে ত্বক জেল্লা হারায়। এ ছাড়া অনিদ্রার কারণে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতাও ক্রমশ হারিয়ে ফেলে ত্বক। ফলে বলিরেখা বাড়ে এবং অকালে পড়ে বার্ধক্যের ছাপ।

মানসিক চাপ

শুধু ত্বকের জন্যই নয়, সুস্বাস্থ্যের জন্য মানসিক চাপ এড়ানো জরুরি। অকারণে দুশ্চিন্তা করবেন না। জীবনে উত্থান-পতন থাকবেই। তাই বলে ভেঙে পড়লে চলবে না। মানসিক চাপ শরীরের ওপর যথেষ্ট প্রভাব ফেলে। এর লক্ষণ প্রকাশ হয় ত্বকেও। মানসিক চাপের কারণে বার্ধক্যের প্রক্রিয়া দ্রুত হয়। মানসিক চাপ শরীরে প্রদাহ সৃষ্টি করে, যা ত্বকের তন্তুসহ শরীরের বিভিন্ন অংশকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। ফলে অকালে বার্ধক্য আসে ত্বকে।


আরও খবর
আজকের ভালো মন্দ

শুক্রবার ২২ অক্টোবর ২০২১

আজ আপনার জন্মদিন হলে

বুধবার ২০ অক্টোবর ২০21




কুমিল্লায় সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার ট্রাইব্যুনালে: আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১ | ১৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ভিডিও দেখে আসামি শনাক্ত করা হয়েছে। ভিডিও এভিডেন্স গ্রহণ করার একটা ধারা আছে। সে ধারায় কোনো অসুবিধা হবে না। মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে যাবে

কুমিল্লায় সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, পূজামণ্ডপে হামলা মামলার যখন প্রতিবেদন পাওয়া যাবে তখন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করা হবে।

আজ শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের কার্নিভাল হলে নবাগত সাব-রেজিস্ট্রারদের বরণ এবং রেজিস্ট্রার সার্ভিসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ভিডিও দেখে আসামি শনাক্ত করা হয়েছে। ভিডিও এভিডেন্স গ্রহণ করার একটা ধারা আছে। সে ধারায় কোনো অসুবিধা হবে না। মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে যাবে।

নারায়ণগঞ্জের জেলা রেজিস্ট্রার মো. জিয়াউল হকের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিব মো. মইনুল কবির, আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ার, নিবন্ধন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শহীদুল আলম ঝিনুক প্রমুখ।


আরও খবর
ইকবালসহ ৪ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১




‘যারা বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় তাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হবে’

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১ | ১২৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যারা বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় তাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হবে বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) ময়মনসিংহে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই) মিলনায়তনে ইনস্টিটিউটের বার্ষিক গবেষণা পরিকল্পনা প্রণয়ন ২০২১-২২ শীর্ষক কর্মশালার সমাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন, "বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র। এখানে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান প্রত্যেক নাগরিকের সাংবিধানিকভাবে সমঅধিকার রয়েছে। এই সমঅধিকারের রাম-রহিমের বাংলাদেশকে যারা বিভাজনের অপচেষ্টা করে, তারা জাতির শত্রু, রাষ্ট্রের শত্রু, মানবতার শত্রু। এ দেশের মানুষ কখনোই সাম্প্রদায়িকতা প্রশ্রয় দেয়নি। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধকে ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধ অভিহিত করে যারা আমাদের স্বাধীনতাকে ঠেকানোর চেষ্টা করেছিল, তারা ব্যর্থ হয়েছে। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে যারা আবার পূর্ব-পাকিস্তান কায়েম করতে চেয়েছিল, তারা ব্যর্থ হয়েছে। আবার নতুন করে যদি কেউ দেশের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ আর উন্নয়নের অগ্রযাত্রা ব্যাহত করতে চায়, তাদেরকে সরকার কঠোর হাতে দমন করবে"।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, "রাষ্ট্র গবেষণায় অনেক সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে। বিএফআরআই সংশ্লিষ্টরা তাদের গবেষণার মাধ্যমে সর্বোচ্চ যোগ্যতার বিকাশ ঘটাতে হবে। গবেষণায় নতুন নতুন বিষয় ও তথ্য-উপাত্ত সংযোজন করতে হবে। আর শুধু গবেষণা করলেই হবে না, সে গবেষণার ক্ষেত্রকে সম্প্রসারণ করতে হবে। গবেষণালব্ধ সবকিছু ব্যবহারের ক্ষেত্র উন্মুক্ত করতে হবে"।

এ সময় বিএফআরআই-এর গবেষণার পরিসর ও কাজের গতি আরও ব্যাপক আকারে বাড়ানোর তাগিদ দেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী আরো যোগ করেন, "গবেষণাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশেষভাবে উৎসাহিত করতে চান, পৃষ্ঠপোষকতা দিতে চান, প্রণোদনা দিতে চান। কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বাস করেন গতানুগতিকতার মধ্য দিয়ে কোনো কিছু আবিষ্কার করা সম্ভব নয়। আবিষ্কার করতে হলে গবেষণা দরকার। গবেষণার জন্য যে তথ্য দরকার, লজিস্টিক সাপোর্ট দরকার, অবকাঠামো সাপোর্ট দরকার সবকিছুই সরকার প্রদান করবে"।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দপ্তরের কর্মকর্তারা অধিকাংশই মেধাবী উল্লেখ করে মন্ত্রী রোগ করেন, "রাষ্ট্র বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিয়ে জাতির জন্য মেধাবী সন্তান তৈরি করে। তারাই গবেষক হয়ে বিভিন্ন আঙ্গিকে বিভিন্ন পর্যায়ে কাজ করছেন। সে মানুষগুলোকে দেশ ও জাতির জন্য অবদান রাখতে হবে। সে অবদান রাখতে হবে তাদের গবেষণার মাধ্যমে"।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকার ও এস এম ফেরদৌস আলমসহ অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, বিএফআরআই এর প্রাক্তন মহাপরিচালক ড. এম এ মজিদ, বিএফআরআই এর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিজ্ঞানীগণ, স্থানীয় মৎস্য দপ্তরের কর্মকর্তাগণ এবং বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষকবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালায় উপস্থাপিত মোট ৬৫টি গবেষণা প্রস্তাবের মধ্যে তিনজন সেরা গবেষণা প্রস্তাব উপস্থাপনকারী বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাকে সমাপন অনুষ্ঠানে পুরস্কৃত করা হয়।


আরও খবর
মুনিয়া-শারুন আলাপ কী প্রমাণ করে?

শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১




মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বৃষ্টি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৫ অক্টোবর ২০২১ | ৬২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বৃষ্টি হচ্ছে। আগামী দুই দিন আবহাওয়া একই রকম থাকতে পারে। দেশের উত্তরাঞ্চলে ভারী বৃষ্টি হতে পারে। নদীর তীরবর্তী এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে বলে নদী বন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসে বলা হয়, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ দুর্বল হয়ে গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে। এদিকে মৌসুমী বায়ু অক্ষের বর্ধিতাংশ রাজস্থান, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয়। এটি উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় আছে।

এর প্রভাবে রংপুর বিভাগের অনেক জায়গায়; ময়মনসিংহ, সিলেট ও ঢাকা বিভাগের কিছু কিছু  জায়গায় এবং রাজশাহী,  খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দুএক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে দেশের উত্তরাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

নদীবন্দরগুলোর সতর্ক বার্তায় বলা হয়, রংপুর, দিনাজপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা, সিলেট, কুমিল্লা ও চট্টগ্রাম অঞ্চলগুলোর ওপর দক্ষিণ-দক্ষিণ পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এ জন্য এসব এলাকার বন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে টাঙ্গাইলে, ১২১ মিলিমিটার। এছাড়া বিভাগীয় শহরগুলোর মধ্যে ঢাকায় ১, চট্টগ্রামে ১১, সিলেটে ৪১ এবং  রংপুরে ৫৯ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে।



আরও খবর



কাপ্তাইয়ে নিজ বাড়িতে চেয়ারম্যান প্রার্থীকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৭ অক্টোবর ২০২১ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
নেথোয়াই মারমা ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ছিলেন তিনি

রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার চিৎমরম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী নেথোয়াই মারমাকে (৫৬) গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার (১৬ অক্টোবর) রাত ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নেথোয়াই মারমা ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ছিলেন তিনি।

কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অংসচাইন চৌধুরী এবং রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মুছা মাতব্বর এই হত্যাকাণ্ডের জন্য সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে দায়ী করেছেন।

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অংসুচাইন চৌধুরী জানান, নেথোয়াই মারমা এত দিন উপজেলা রেস্টহাউসে ছিলেন। শনিবার মনোনয়ন জমা দিয়ে চিৎমরম এলাকায় গিয়েছিলেন নেতাকর্মী ও স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে। রাতে তার নিজ বাড়িতে জেএসএসের একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী তাকে গুলি করে হত্যা করে।

অংসুচাইন চৌধুরী আরও জানান, চিৎমরমে দুই যুবলীগ নেতাকে হত্যার ঘটনার পর নেথোয়াই উপজেলা সদরে রেস্টহাউসেই থাকতেন। শনিবার মনোনয়ন জমা দিয়ে বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে পরামর্শ করতে যান। কিন্তু রাত ১২টার পরে আগাপাড়া এলাকার বাসায় ১৪-১৫ জনের একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাসার দরজা ভেঙে প্রবেশ করে তাকে গুলি করে হত্যা করে।

চন্দ্রঘোনা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আওয়ামী লীগের প্রার্থী নেথোয়াই মারমাকে গুলি করে হত্যা করেছে একদল দুর্বৃত্ত। পুলিশ সেখানে যাচ্ছে। সেখানে গেলে বিস্তারিত জানতে পারব।

নিউজ ট্যাগ: কাপ্তাই হ্রদ

আরও খবর



‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থেকে সমাজের অসুরদের নির্মূল করতে হবে’

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | ২৭৯০জন দেখেছেন
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

আমাদের সমাজে এক শ্রেণির মানুষরুপী অমানুষ রয়েছে। এদের চেনা খুবই কষ্টকর কারণ এরা দেখতে হুবহু মানুষের মত হলেও ভিতরে তারা বড়ই অমানুষ। তারা সমাজে সবসময় নানা ধরনের বিশৃংখলার সৃষ্টি করে সমাজকে ধংসের পায়তারা চালায়। সমাজের এসকল অসুরদের বধ করতে শেখ হাসিনা সরকারের বিকল্প নাই। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ থেকে সমাজের অসুরদের নির্মূল করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম (এমপি)।

মন্ত্রী শনিবার সকালে উপজেলা হলরুমে শারদীয় দূর্গাপূজা উপলক্ষে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ আয়োজিত উপজেলার ১১৬ টি পূজা মন্ডপে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক, মন্ত্রীর নিজস্ব তহবিলের অনুদান, জেলা পরিষদের অনুদান ও হিন্দু কল্যাণ ট্রাষ্ট্রের অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

এসময় মন্ত্রী আরও বলেন, ৭৫ এ বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা বিরোধীচক্র এদেশকে সাম্প্রদায়িক দেশে রুপান্তরের চেষ্টা চালিয়েছিল। ২০০১ সালের নির্বাচনের পর প্রগতিশীল রাজনীতি বন্ধ করে স্বাধীনতা বিরোধীদের হাতে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে মুক্তিযুদ্ধের সকল শক্তিকে সাথে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা বিনির্মান করে চলছেন।

উপজেলা পূজা পরিষদের সভাপতি শশাংক রঞ্জন সমদ্দারের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন, পুলিশ সুপার মো. সাইদুর রহমানর পিপিএম (সেবা), জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী অফিসার রেবেকা খান, স্বরূপকাঠি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হামিদ, সাধারণ সম্পাদক এসএম ফুয়াদ, স্বরূপকাঠি পৌরসভার মেয়র মো. গোলাম কবির, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এস এম মুইদুল ইসলাম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ সাকিব বাদশা, হিন্দু কল্যাণ ট্রাষ্টের ট্রাষ্টি সুরঞ্জিত দত্ত লিটু, পূজা পরিষদের পিরোজপুর জেলা সভাপতি বিমল চন্দ্র মন্ডল, সম্পাদক গোপাল বসু, সাংগঠনিক সম্পাদক মিঠুন হালদার প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তাপস বরণ মন্ডল ও পূজা পরিষদ নেতা মানিক সরকার। পরে উপজেলার সকল পূজা মন্ডপের প্রতিনিধিদের হাতে অনুদানের চেক ও নগদ অর্থ তুলে দেন মন্ত্রী।

এরপূর্বে মন্ত্রী উপজেলা পরিষদের একটি পুকুরে বিভিন্ন জাতের মাছের পোনা অবমুক্ত করেন। বিকেলে মন্ত্রী উপজেলার গুয়ারেখা ইউনিয়নে রাজবাড়ী কলেজের ও পাটিকেলবাড়ী মাদ্রাসার পৃথক দুটি চারতলা বিশিষ্ট ভবন নির্মাণের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন, ব্যসকাঠি বাজার সংলগ্ন নবনির্মিত ব্রিজের উদ্বোধন এবং এগার গ্রাম স্কুল মাঠে জাতীয় হা ডু ডু টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার পুরস্কার বিতরণ করেন।


আরও খবর