আজঃ শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

স্বামী প্রভুপাদের জন্মবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কৃষ্ণকৃপাশ্রীমূর্তি শ্রীল অভয়চরণারবিন্দ ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদর ১২৫তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৮৯৬ সালের ১ সেপ্টেম্বর পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। ছাত্রাবস্থায় ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে যুক্ত এই মহান ব্যক্তি পরবর্তীকালে বিশ্বব্যাপী বাঙালি সংস্কৃতি প্রসারে অন্যতম পথিকৃৎ হিসেবে খ্যাত হন। তিনি ছিলেন একজন গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্মগুরু এবং ইসকন বা হরেকৃষ্ণ আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা-আচার্য।

হিন্দুধর্মের গৌড়ীয় বৈষ্ণব মতবাদটি সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়াই ছিল তার জীবনের উদ্দেশ্য। তিনি ১৯৬৬ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ইসকন। এছাড়া ১৯৬৯ সালের ১৪ ডিসেম্বরে তিনি শ্রী শ্রী রাধা-লন্ডনেশ্বর শ্রী-বিগ্রহ প্রতিষ্ঠা করেন। এই সংস্থায় নেতৃত্বদানের মাধ্যমে তিনি ভারতে এবং বিশেষ করে পাশ্চাত্যে গৌড়ীয় বৈষ্ণব তত্ত্ব প্রচার করতে শুরু করেন।

ইসকনের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে তিনি হয়ে ওঠেন পাশ্চাত্য বিকল্প সংস্কৃতির এক অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব। সহস্রাধিক আমেরিকান যুবক যুবতীকে তিনি বৈষ্ণবধর্মে দীক্ষিত করেন

তার প্রতিষ্ঠিত ইসকনের মূল ভিত্তি ছিল হিন্দু কৃষ্ণধর্মের একটি বিশেষ রূপ। ভাগবত পুরাণ এই সম্প্রদায়ের কেন্দ্রীয় ধর্মগ্রন্থ। ১৯৭৭ সালে প্রভুপাদের মৃত্যুর পরও ইসকনের প্রসার অব্যাহত থাকে এবং এই সম্প্রদায় ভারতে সম্মান অর্জন করে।

তার পূর্বাশ্রমের নাম ছিল অভয়চরণ দে। তিনি স্কটিশ চার্চ কলেজের ছাত্র ছিলেন। তিনি বিবাহিত ছিলেন এবং তার সন্তানাদিও ছিল। ১৯৫৯ সালে তিনি সন্ন্যাস গ্রহণ করার পর বৈষ্ণব শাস্ত্রের ভাষ্য রচনায় মনোনিবেশ করেন। এরপর ১৯৬০-এর দশকে পরিব্রাজক সন্ন্যাসী হিসাবে আমেরিকায় যাত্রা করে তিনি তার আধ্যাত্মিক মতাদর্শ প্রচার করতে থাকেন। ১৯৬৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর জন্মাষ্টমীর পরের দিন তিনি পাশ্চাত্যে প্রথম দীক্ষা অনুষ্ঠান আয়োজন করেন ও ১১ জনকে দীক্ষা দেন। ১৯৬৭ সালের ৯ জুলাই সানফ্রান্সিসকো শহরের রাজপথে তিনিই পাশ্চাত্যে প্রথম রথযাত্রা পরিচালনা করেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ, ভারত ও অন্যান্য জায়গায় ভ্রমণ করে তিনি অসংখ্য শিষ্যসংগ্রহে সফল হন।

তিনি বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন দার্শনিক, বিজ্ঞানী ও বরেণ্য ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে বৈদিক দর্শন ও সংস্কৃতি প্রসঙ্গে মতবিনিময় করেন। তৎকালীন জনপ্রিয় ব্যান্ড বিটলসের স্বনামধন্য তারকা জর্জ হ্যারিসন, বিখ্যাত ফোর্ড কোম্পানির উত্তরাধিকারী আলফ্রেড ফোর্ডসহ বহু বরেণ্য ব্যক্তি তাঁর আদর্শের অনুসারী হন।

শ্রীল প্রভুপাদের প্রতি কৃতজ্ঞতাবশত জর্জ হ্যারিসন যুক্তরাজ্যের লন্ডনে অবস্থিত নিজের বাড়িটি আধ্যাত্মিক অনুশীলনের জন্য দান করেন। প্রভুপাদের নামানুসারে এর নামকরণ করা হয় ভক্তিবেদান্ত মেনর। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সাহায্যার্থে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাডিসন গার্ডেন স্কয়ারে আয়োজিত কনসার্ট ফর বাংলাদেশে জর্জ হ্যারিসনের অংশগ্রহণেও শ্রীল প্রভুপাদের অনুপ্রেরণা ছিল।

১৯৬৫ সালে ৭০ বছর বয়সে পাশ্চাত্যবাসীর মধ্যে নৈতিক ও আধ্যাত্মিক শিক্ষা প্রচারের লক্ষ্যে আমেরিকায় পাড়ি জমান ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী আমেরিকায় তখন হিপ্পি আন্দোলন শুরু হয়েছে। এলএসডির নেশায় দিশাহীন যুবক-যুবতীরা যথেচ্ছাচারে রত।

সে সময় স্বামী প্রভুপাদ নিউইয়র্কের টমকিনস স্কয়ার পার্কে প্রথম প্রচারকার্য শুরু করেন। সেখানকার লক্ষ্যভ্রষ্ট যুবক-যুবতীরা মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে তাঁর অমৃতময় কথা শ্রবণ করতে থাকেন। ধীরে ধীরে তাঁরা তাঁদের বদভ্যাসগুলো থেকে সরে আসতে শুরু করে। স্বামী প্রভুপাদ তাঁদের নিয়ে সাপ্তাহিক অধিবেশন শুরু করেন। ধীরে ধীরে আমেরিকানরা বাঙালি সংস্কৃতির প্রতি আকৃষ্ট হতে থাকেন। বাংলা সাহিত্যের অনন্য গ্রন্থ শ্রীল কৃষ্ণদাস কবিরাজ গোস্বামী বিরচিত শ্রীচৈতন্য চরিতামৃতর ইংরেজি ভাষা রচনার মাধ্যমে তিনি পাশ্চাত্যবাসীদের বাংলা ভাষা শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ করেন। তাঁর অনুপ্রেরণায় আজ পৃথিবীজুড়ে বিভিন্ন ভাষাভাষী মানুষ বাংলা ভাষা শিখতে প্রয়াসী হচ্ছেন। শ্রীল প্রভুপাদের অনবদ্য অবদান তাঁর গ্রন্থাবলি। তিনি ৭০টির বেশি গ্রন্থ রচনা করেন।

১৯৭৭ সালের ১৪ নভেম্বর বৃন্দাবনে অভয়চরণারবিন্দ ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ দেহত্যাগ করেন। তাঁর স্মৃতিতে মায়াপুর, বৃন্দাবন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কিছু সমাধিসৌধ নির্মিত হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: স্বামী প্রভুপাদ

আরও খবর
আজ শুভ জন্মাষ্টমী

সোমবার ৩০ আগস্ট ২০২১

আজ পবিত্র আশুরা

শুক্রবার ২০ আগস্ট ২০21




জিয়ার ‘ভুয়া’ কবর সরিয়ে ফেলা হবে : মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩১ আগস্ট ২০২১ | ১১৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জিয়ার ভুয়া কবর নিয়ে মিথ্যাচার করবেন না। ডিএনএ টেস্ট করে দেখুন। অবশ্যই প্রমাণিত হবে, এটি তার কবর নয়। এটি সংসদ ভবনের মূল নকশায় নেই। জিয়ার ভুয়া কবর এখানে থাকতে পারে না। এটি দ্রুত সরিয়ে ফেলা হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আয়োজনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতথির বক্তব্যে বিএনপির উদ্দেশে এসব কথা বলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তার আদর্শকে হত্যা করা সম্ভব হয়নি। বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের নেতা ছিলেন না। তিনি বিশ্ব মানবতার নেতা ছিলেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত মূল কুশীলব জিয়ার দল বিএনপি এখনো ষড়যন্ত্র করছে।

তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংসকারী জিয়ার ভুয়া কবর নিয়ে বিএনপি অপরাজনীতি করার চেষ্টা করছে। দেশের জনগণ বিএনপির প্রতারণা বুঝে গেছে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে   অতীতের ন্যায় সামনের দিনগুলোতে তরুণ প্রজন্মকে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে।

বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক আল মামুনের সঞ্চালনা এবং সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুলের সভাপতিত্বে সভায় আলোচক হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, ঢাবির দর্শন বিভাগের অধ্যাপক বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. আবু জাফর মোহাম্মদ সালেহ প্রমুখ।


আরও খবর



রাজশাহী মেডিকেলে আরও ৭ জনের প্রাণহানি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২1 | ৫২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনায় ২ জন, উপসর্গে ৩ জন এবং করোনা নেগেটিভ হয়েও মারা গেছেন ২ জন। বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে হাসপাতালে রাজশাহী এবং কুষ্টিয়ার ১ জন করে মোট ২ জন মারা গেছেন। আর করোনা সংক্রমণের উপসর্গে নিয়ে রাজশাহী, নাটোর এবং কুষ্টিয়ার ১ জন করে মোট ৩ জন মারা গেছেন। এছাড়া করোনা নেগেটিভ হয়েও অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় মারা গেছেন রাজশাহী ও নওগাঁর ১ জন করে মোট ২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৬ জন মারা গেছেন হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা-কেন্দ্রে (আইসিইউ)। এছাড়া ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে ১ জন মারা গেছেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৮৬ শয্যার রামেক করোনা আইসোলেশন ইউনিটে রোগী ভর্তি ছিলেন ১৪৫ জন। একদিন আগেও এই সংখ্যা ছিল ১৪৫।

বর্তমানে রাজশাহীর ৬৯ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ২৪ জন, নাটোরের ১৮ জন, নওগাঁর ৬ জন, পাবনার ১৫ জন, কুষ্টিয়ার ৭ জন, চুয়াডাঙ্গার ১ জন, জয়পুরহাটের ১ জন, সিরাজগঞ্জের ২ জন, মেহেরপুরের ১ জন এবং ঝিনাইদহের ১ জন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

হাসপাতালে করোনা নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ৭৩ জন। করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ৪৫ জন। করোনা ধরা পড়েনি ভর্তি ২৭ জনের। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ২৩ জন। এই একদিনে হাসপাতাল ছেড়েছেন ১৭ জন।

এর আগে বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল ল্যাবে ১৪৬ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৮ জনের নমুনায়।

একই দিনে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে আরও ১৮৮ জনের। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৪ জনের। পরীক্ষার অনুপাতে রাজশাহীর ১৫.১৮ শতাংশ, নাটোরের ১৫.৭৮ শতাংশ এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১০০ শতাংশ নমুনায় করোনা ধরা পড়েছে।



আরও খবর
রামেক হাসপাতালে আরও ৫ জনের মৃত্যু

শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১




চাকরি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে কোটি টাকা আত্মসাৎ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রতিষ্ঠানের নাম আস্থা গেটওয়ে লিমিটেড। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন চাকরি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলা হলেও অর্থ হাতিয়ে নেওয়াই ছিল এর মূল উদ্দেশ্য। প্রতিষ্ঠানটির সংশ্লিষ্টরা দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন পদে চাকরির মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে জাল নিয়োগপত্র প্রদান করে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা।

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ভাটারায় ওই প্রতিষ্ঠানটিতে অভিযান চালিয়ে দুইজনকে গ্রেফতার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

গ্রেফতাররা হলেন- আস্থা গেটওয়ে লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আল আমিন (৪৮) ও এমডি হারুনর রশীদ বাদল (৪৩)।

এসময় তাদের কাছ থেকে ইমেক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেডের ২৪টি ভুয়া নিয়োগপত্র, বিভিন্ন চাকরি প্রার্থীদের আবেদন ফরম, চাকরি প্রার্থীদের নিবন্ধন ফরম, জীবন বৃত্তান্ত, ভিজিটিং কার্ডসহ বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতার দুইজনসহ মোট পাঁচজনকে আসামি করে ভাটারা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডির প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান অতিরিক্ত ডিআইজি ইমাম হোসেন।

তিনি বলেন, গ্রেফতাররা ভুয়া কোম্পানি খুলে দীর্ঘদিন ধরে এই প্রতারণা চালিয়ে আসছে। তারা বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরির বিজ্ঞাপন দিত। এরপর আগ্রহীরা যোগাযোগ করলে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিত। টাকার বিনিময়ে কখনো ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়েছে এই চক্রটি।

তারা দেশের চাকরিপ্রার্থী বিপুল পরিমাণ ভুক্তভোগীর কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে বলে জানান অতিরিক্ত ডিআইজি ইমাম হোসেন।

নিউজ ট্যাগ: টাকা আত্মসাৎ

আরও খবর
স্বামী হত্যায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




পাঞ্জশিরে ৬০০ তালেবান যোদ্ধা নিহত

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১৫২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ পাঞ্জশিরে ছয় শতাধিক তালেবান যোদ্ধা নিহত হয়েছেন।

শনিবার ন্যাশনাল রেজিসটেন্স ফোর্সের (এনআরএফ) উদ্ধৃতি দিয়ে রাশিয়ান সংবাদ সংস্থা স্পুটনিক এ তথ্য জানিয়েছে।

পাঞ্জশিরে এনআরএফ মুখপাত্র ফাহিম দাস্তি এক টুইটবার্তায় দাবি করেছেন, আমরা ৬০০ তালেবান যোদ্ধাকে খতম করেছি। আরও এক হাজারেরও বেশি যোদ্ধাকে বন্দি করা হয়েছে।

তালেবানের সব যুদ্ধ সরঞ্জাম প্রতিরোধ বাহিনী ধ্বংস করেছে বলেও দাবি করেছেন তিনি। এর আগেও তালেবানের ৩০০ যোদ্ধাকে খতম করার দাবি করেছিল উত্তরের জোট।

এদিকে শনিবার আহমেদ মাসউদের পক্ষে নর্দান অ্যালায়েন্স তাদের টুইটার হ্যান্ডেলে জানিয়েছে, সাতশর বেশি তালেবান যোদ্ধা নিহত হয়েছে। ৬০০ বন্দি ও কারারুদ্ধ। বাকিরা পালানোর চেষ্টা করছে। আমরা ফ্রন্টলাইনে আছি। সবকিছুই পরিকল্পিত ছিল। আমরা পুরো প্রদেশ নিয়ন্ত্রণ করছি।

ওই এলাকায় স্থল মাইন থাকার কারণে পাঞ্জশির প্রতিরোধ বাহিনীর বিরুদ্ধে তালেবানদের আক্রমণ মন্থর হয়েছে।

পাঞ্জশিরে যুদ্ধ অব্যাহত রয়েছে। কিন্তু রাস্তায় ল্যান্ডমাইনের কারণে রাজধানী বাজারাক এবং প্রাদেশিক গভর্নরের প্রাঙ্গণে যাওয়ায় ধীরগতি হচ্ছে।

সংবাদ সংস্থা আসাবাকা-র কাছে তালেবান মুখপাত্র বিলাল কারিমি দাবি করেছেন, আনাবা, খিঞ্জ, উনাবসহ বেশ কয়েকটি জেলাতেও ঢুকে পড়েছেন তাদের যোদ্ধারা।


আরও খবর



শিক্ষা কার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা অপরিহার্য : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি, বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষাব্যবস্থা আরও আধুনিকায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শিক্ষা কার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা অপরিহার্য।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) গণভবনে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখার খসড়া উপস্থাপনা অবলোকন করে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা মনে করি যে বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে, বিজ্ঞানপ্রযুক্তি এগিয়ে যাচ্ছে, আমাদের এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। এ জন্য শিক্ষাকার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা একান্তভাবে অপরিহার্য।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের নীতিমালার ভিত্তিতে আমরা কাজ করবো। কিন্তু আমাদের সব সময় সবার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে এবং বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। আর এ বিজ্ঞানপ্রযুক্তি জ্ঞানের ক্ষেত্রে বিশ্ব এগিয়ে যায় আমরা পিছিয়ে থাকতে পারি না।

বিজ্ঞান শিক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আরেকটা বিষয় আমি লক্ষ্য করেছিলাম আমাদের দেশের ছেলে-মেয়েদের বিজ্ঞানের প্রতি অনিহা। বিজ্ঞান শিক্ষা তারা নিতেই চাই তো না। বিজ্ঞান বিভাগের লোকই পাওয়া যেতো না। এ রকম একটা সময় কিন্তু ছিল। আমরা বিজ্ঞান শিক্ষায় গুরুত্ব দিই। আমরা ১২টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করে দিয়েছি।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সরকারের চলমান বিভিন্ন কার্যক্রম প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যেহেতু আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলছি, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আমরা পদক্ষেপ নিয়েছি।

দীর্ঘদিন পর রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার কথা উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, আলহামদুলিল্লাহ রোববার থেকে আমরা স্কুল-কলেজ খুলে দিয়েছি, ধীরে ধীরে সবগুলো খুলে যাবে। যার ফলে আবার নতুনভাবে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হবে।

তিনি বলেন, আমাদের অত্যন্ত দুর্ভাগ্য আমরা প্রায় দেড় বছরের মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে পারিনি। যদিও অনলাইনে বা টেলিভিশনের মাধ্যমে বা ঘরে বসে- ঘরেই আমরা স্কুল এরই ধরনের বহুমুখী কার্যক্রম হাতে নিয়েছি, কাজ করেছি। কিন্তু স্কুলে যাওয়ার আনন্দ, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার আনন্দ থেকে শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হয়েছে।

করোনাকালীন সময়ে শিক্ষা কার্যক্রম সচল রাখতে সংশ্লিষ্টদের ভূমিকার প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, করোনাকালীন সময়ে যখন সব কিছু স্থবির তখন আপনারা যথেষ্ট উদ্যোগ নিয়েছেন। বিশেষ করে শিক্ষার ক্ষেত্রে এখনকার যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কীভাবে শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরও শিক্ষার্থীদের কাছে আকর্ষণীয় করা যায়। আবার সেই সঙ্গে সঙ্গে জীবন-জীবিকার পথটাও যেন খোলে। সেই বিষয়টার দিকে বিশেষ দৃষ্টি দিয়ে আপনারা এ কার্যক্রমগুলো করেছেন।

শিক্ষার্থীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বিভিন্ন এলাকায় নতুন নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এ পর্যন্ত যথেষ্ট পদক্ষেপ নিয়েছি। যেসব এলাকায় স্কুল ছিল না। সেসব এলাকায় আমরা স্কুল তৈরি করে দিচ্ছি।

তিনি বলেন, আমাদের নদী-নালা, খাল বিলের দেশ। ছোট ছোট শিশুদের যোগাযোগ ও যাতায়াতের ব্যবস্থা বিবেচনা করেই কিন্তু আমরা বিভিন্ন এলাকায় স্কুল তৈরির করার ব্যবস্থা নিয়েছি।


আরও খবর
কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নতুনভাবে ভাবতে হবে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১